ইউরোপে কি ‘কুটির শিল্প' বলতে কিছু আছে?

ইউরোপে কুটির শিল্পের জন্ম শিল্পায়নের গোড়ার দিকে৷ তারপর শিল্পায়ন আর পর্যটন শিল্পের দ্বিবিধ চাপে কুটির শিল্প হয়ে দাঁড়ায় হস্তশিল্প৷ হাল আমলে হস্তশিল্পের আধুনিকীকরণের দায়িত্ব নিয়েছে কারিগরী শিক্ষাকেন্দ্রগুলি৷

অষ্টাদশ শতাব্দীতে ইউরোপের গ্রামাঞ্চলে জনসংখ্যা যেভাবে বাড়তে থাকে, তা থেকেই গ্রামীণ শিল্পের প্রবৃদ্ধি হয়৷ অন্যভাবে বলতে গেলে, চাষির ঘরে যে পরিমাণ সন্তান জন্মগ্রহণ করছিল, তাদের সকলের জন্য পর্যাপ্ত চাষের কাজ ছিল না৷ গ্রামের মানুষও বাড়তি রোজগারের সুযোগ পেলে ছাড়বেন কেন? কৃষিকাজ প্রধানত মৌসুমি হওয়ার ফলে, যাদের ক্ষেতখামারে বাঁধা কাজ ছিল, তাদের হাতেও প্রচুর সময় উদ্বৃত্ত থাকত৷ শহরের পুঁজিবাদিরা এই বাড়তি শ্রমিকদের আঁচ পেয়ে দেখেন যে, শহুরে শ্রমিকদের চেয়ে কম পারিশ্রমিকে এই গ্রামীণ শ্রমিকদের কাজে লাগানো যায়৷ তা থেকে যে গ্রামীণ শিল্পের সৃষ্টি, তারই নাম কুটির শিল্প৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

শহুরে ব্যবসায়ী হয়ত কোনো খামারচাষির কাছে পশম কিনে, কয়েকটি চাষি পরিবারকে দিয়ে সুতো কাটিয়ে, সেই সুতো রং করিয়ে ইত্যাদি একাধিক পদক্ষেপে গ্রামের কাঁচামালকে শহরের কাঁচামালে পরিণত করতেন এই ‘পুটিং-আউট' পদ্ধতিতে৷ তুলোর ক্ষেত্রে সুতো কাটার পরে আসত তাঁত বোনা৷ ব্যবসায়ী কাঁচামাল আর দাদন দিয়ে খালাস; পরে তৈরি পণ্য শহরে বিক্রির দায়িত্বও হতো ব্যবসায়ীর৷

সমাজ

যেভাবে এলো জামদানি

জনশ্রুতি আছে অতীতে সোনারগাঁও সংলগ্ন এ এলাকার মানুষরা বিশ্বখ্যাত মসলিনের কারিগর ছিলেন৷ ইংরেজরা এ শিল্পকে ধ্বংস করে দেয়ার পর, এ সব এলাকার মানুষেরা ফিরে যান কৃষি পেশায়৷ ইংরেজদের শাসনের অবসানের পর মসলিন শিল্পীদের বংশধররা আবারও শুরু করেন মসলিন তৈরি৷ কিন্তু তাঁরা ব্যর্থ হন৷ মসলিনের আদলেই তাঁরা তৈরি করেন নতুন এক কাপড়, যা পরিচিত পায় জামদানি হিসেবে৷

সমাজ

ঘরে ঘরে জামদানি

নারায়ণগঞ্জে মূল জামদানিপল্লি আসলে বিসিক শিল্প এলাকায়৷ তবে এর বাইরেও নোয়াপাড়ার বাড়িতে বাড়িতে আছে বেশ কিছু জামদানির কারখানা৷ সকাল থেকে সন্ধ্যা অবধি এ সব কারখানায় চলে জামদানি তৈরির কাজ৷

সমাজ

জামদানি শিল্পী

একেকটি জামদানি কারখানায় চার থেকে ২৪ জন পর্যন্ত শ্রমিক কাজ করেন৷

সমাজ

যত শাড়ি তত মজুরি

জামদানি কারখানাগুলোর সার্বক্ষণিক দেখভাল করেন মহাজন৷ বেশিরভাগ জামদানি শ্রমিক মজুরি পান শাড়ি প্রতি চুক্তি হিসেবে৷

সমাজ

শিশুশ্রম

সাধারণত একটি শাড়ি তৈরি করতে দু’জন শ্রমিকের প্রয়োজন হয়৷ একজন কারিগর ও অন্যজন তাঁর সাহায্যকারী৷ সাহায্যকারীর ভূমিকায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় শিশুরাদের৷

সমাজ

৮০ হাজার টাকা মজুরি

একটি জামদানি শাড়ি তৈরিতে ন্যূনতম তিন দিন সময় লাগে৷ নকশা আর কারুকাজভেদে কোনো কোনো শাড়িতে তিন মাসও লেগে যায়৷ একটি শাড়ি তৈরি করে দু’জন শ্রমিক দুই হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত মজুরি পান৷

সমাজ

নারীদের দক্ষতা

জামদানি তৈরিতে নারিরাও বেশ দক্ষ৷ বেশিরভাগ কারখানাতেই নারী শ্রমিকের উপস্থিতি দেখা যায়৷

সমাজ

পরিবারের সবাই মিলে..

বিভিন্ন মহাজনী কারখানা ছাড়াও বিসিক শিল্প নগরী ও এর আশপাশের এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে দু-একটি করে তাঁত আছে৷ পরিবারের সবাই মিলে এ সব তাঁতে জামদানি তৈরি করেন৷

সমাজ

তাঁত চালু থাকে সারাক্ষণ

জামদানি পল্লীর তাঁতগুলো সপ্তাহের সাত দিনই সকাল থেকে রাত অবধি চালু থাকে৷ তবে শুক্রবার বাজারের দিন এ পল্লীতে কাজ কম হয়৷

সমাজ

প্রাচীন জামদানি হাট

সারা সপ্তাহের বোনা জামদানি নিয়ে মহাজন ও কারিগররা জড়ো হন শীতলক্ষ্যার পশ্চিম তীরের প্রাচীন জামদানি হাটে৷ প্রতি শুক্রবার সকাল সাতটা থেকে নয়টার মধ্যেই হাটের কেনাবেচা শেষ হয়ে যায়৷ এ হাটে সাধারণত সারা দেশের পাইকাররাই আসেন৷

সমাজ

শিল্পনগরীতেও হাট

জামদানি শিল্পীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন বিসিক জামদানি শিল্পনগরীতেও একটি হাট স্থাপন করে দিয়েছে৷ এ হাটটিও প্রতি শুক্রবার একই সময়ে বসে, তবে দুই ঘণ্টার মধ্যেই শেষ হয়ে যায়৷

সমাজ

বিক্রয়কেন্দ্র

জামদানি হাট ছাড়াও নোয়াপাড়ার বিসিক জামদানি শিল্পনগরীতে আছে বেশ কিছু ছোট বড় বিক্রয় কেন্দ্র৷ এ সব দোকান থেকেও পাইকারি ও খুচরা মূল্যে জামদানি বিক্রি হয়৷

সমাজ

ইউনেস্কোর স্বীকৃতি

বয়নের অতুলনীয় পদ্ধতি আর শিল্পমানের কারণে জামদানি ইউনেস্কো কর্তৃক ‘ইনট্যানজিবল কালচারাল হেরিটেইজ’ হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে৷

সমাজ

হরেক রূপে জামদানি

জামদানি বলতে সবাই সাধারণত শাড়ি বুঝলেও বর্তমান সময়ে জামদানি দিয়ে পাঞ্জাবি, সালোয়ার কামিজ এমন কি সোফার কভার, কুশন কভার, ঘরের পর্দা ইত্যাদিও তৈরি হচ্ছে৷

গ্রামীণ বস্ত্রশিল্প

এভাবেই কুটিরশিল্প থেকে গড়ে ওঠে এক গ্রামীণ বস্ত্রশিল্প, যার মূল সমস্যা ছিল সংগঠনের অভাব৷ বিভিন্ন কারিগরি বা হাতের কাজের পেশার শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ, অনুমোদন ও তাদের কাজের মান নির্ধারণ ও নিয়ন্ত্রণের জন্য ইউরোপে বহুকাল ধরে তথাকথিত ‘গিল্ড' বা সমবায় সংঘগুলি ছিল৷ গ্রামীণ শ্রমিকদের উপর এই পেশাদারি সমবায় সংঘগুলির কোনো নিয়ন্ত্রণই ছিল না৷ অন্যদিকে যে ব্যবসায়ী-শিল্পপতিরা গাঁয়ের শ্রমিকদের দাদন দিচ্ছেন, তাদের উপরেও ‘গিল্ড'-গুলির কোনো নিয়ন্ত্রণ ছিল না৷ কাজেই গ্রামীণ বস্ত্রশিল্পে বাঁধা ওজন, কিংবা গাঁটরির সাইজ ইত্যাদি নির্দ্দিষ্ট করার মতো কেউ ছিল না৷ কাজেই ঝগড়াঝাঁটি লেগেই থাকত৷ পণ্যের মানও খুব ভালো হতো না৷ মাইনে হাতে পেয়ে শ্রমিকরা দিন দু'য়েক ‘জিরিয়ে' নিতেন৷ অর্থাৎ তথাকথিত কুটিরশিল্পের অনেক সুবিধা ও অসুবিধা এই গ্রামীণ বস্ত্রশিল্পেও ছিল৷

আজকের কুটিরশিল্প

আজ জার্মানিতে বা অস্ট্রিয়াতে কুটিরশিল্প বলতে যা বোঝায়, তা হলো হাতের কাজ – ঘড়ি তৈরি থেকে শুরু করে ঝুড়ি বোনা কিংবা কাঠ খোদাইয়ের কাজ যার মধ্যে পড়বে৷ জার্মানির সব পর্যটকপ্রিয় অঞ্চলেরই কিছু কিছু নিজস্ব হাতের কাজ আছে, যা টুরিস্টদের কাছে বিভিন্ন ‘সুভেনির'-এর দোকানে বিক্রি করা হয়ে থাকে৷

মনে রাখতে হবে, সুভেনির বলতেই যে কিছু হাতের কাজ হবে, এমন নয়৷ কোনো পরিচিত জায়গার সুভেনির বা স্মৃতিচিহ্ন এখন ফুটবল ক্লাবগুলির মার্চেন্ডাইজিং-র মতো হয়ে গেছে: কোলোনের সুবিখ্যাত ক্যাথিড্রাল থেকে শুরু করে বার্লিনের মতো রাজধানী শহর, সকলেই এভাবে টুরিস্টদের কাছে সুভেনির বেচে থাকে৷ এই সুভেনিরের ব্যবসা আজ কুটিরশিল্পের আওতা ছাড়িয়ে বাণিজ্যিকতার অন্য একটা পর্যায়ে চলে গেছে৷

বলতে কি, কুটিরশিল্পই কুটির ছাড়িয়ে কবে ছোটবড় কারখানা ও উদ্যোক্তাদের হাতে চলে গেছে – অথবা যাচ্ছিল, যদি না জার্মান সরকার কিংবা অস্ট্রিয়ান সরকারের মতো সরকারবর্গ ‘ট্রেড স্কুল', অর্থাৎ কারিগরি শিক্ষাকেন্দ্র তৈরি করে সেই প্রবণতাকে কিছুটা বাঁধ দেবার চেষ্টা করতেন৷ এভাবে কুটিরশিল্প ‘সংস্কারের' যে প্রচেষ্টা করা হয়েছে, তা হল এই যে, তরুণ বা উঠতি কারিগররা তাদের প্রথাগত পণ্যগুলিকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য আধুনিক ডিজাইন শৈলীতে প্রশিক্ষণ পাবেন৷ পটারি বা মৃৎশিল্পে জার্মানির কার্লসরুহে শহরের সরকারি চারুকলা বিদ্যালয়, অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার ‘গেভ্যার্বে' বা ট্রেড মিউজিয়াম, অথবা ইটালির রিভায় কাঠ খোদাই-এর স্কুল এই প্রবণতার উৎকৃষ্ট নিদর্শন৷

দেশ থেকে দেশে ছড়াচ্ছে এই প্রবণতা৷ সুইজারল্যান্ডের দক্ষিণ টিরোল এলাকার মানুষেরা অলিভ কাঠ দিয়ে রান্না করতেন৷ পরে প্রতিবেশী ইটালির দেখাদেখি তারা অলিভ কাঠ কুঁদে নানা ধরনের জিনিসপত্র বানাতে শিখলেন – যার আজ বিশ্বজোড়া চাহিদা৷

সংস্কৃতি

বাঁকুড়ার ঘোড়া

বাংলার হস্ত শিল্প মানেই বাঁকুড়ার পোড়ামাটির ঘোড়া, হাতি, মনসার পট৷ আজকাল আধুনিক শিল্পভাবনাও দেখা যায় এই সৃষ্টিতে৷

সংস্কৃতি

কারুশিল্প

প্রথম দর্শনে আফ্রিকা মহাদেশের কাঠখোদাই শিল্পের বিভ্রম তৈরি হতে পারে, কিন্তু এই দারুশিল্পও আদতে বাংলারই আরেক শিল্পরীতির নমুনা৷

সংস্কৃতি

ঘরোয়া টেরাকোটা

শুধু ঘর সাজানোর সামগ্রী নয়, টেরাকোটা শিল্পীরা এখন তৈরি করছেন গেরস্থালির নানা সরঞ্জাম৷ চায়ের কাপ-প্লেট, মোমবাতিদান, গয়নার কৌটো৷

সংস্কৃতি

নবীন উৎসাহ

যাঁরা ভাবেন হস্তশিল্পে আধুনিক প্রজন্মের উৎসাহ নেই, তাঁরা ভুল ভাবেন৷ হস্তশিল্প মেলার ক্রেতাদের এক বড় অংশ কিন্তু নবীন প্রজন্ম৷

সংস্কৃতি

মাদুর, আসন

হস্তশিল্প মেলার পশরার একটা বড় অংশ জুড়ে থাকে হাতে বোনা মাদুর, নকশা করা কাপড়ের আসন, যা নিত্য ব্যবহারের কাজে লাগে৷

সংস্কৃতি

সূক্ষ্ম সূচিশিল্প

হাতে বোনা কার্পেটের আসন ছাড়াও এখন ক্রেতাদের আকর্ষণ করে দেওয়াল চিত্র, যা অনুপম সূচিশিল্পের সেরা নমুনা৷ এসবের বিক্রি বেশ ওপরের দিকে৷

সংস্কৃতি

নকল ফুল

নকল হলেও প্রকৃতির সমস্ত রঙ, রূপ আর উচ্ছ্বাস ধরা পড়ে এই ফুলের সম্ভারে৷ উপকরণ হলো বাংলার চিরন্তন শোলা এবং শুকনো খেজুরপাতা৷

সংস্কৃতি

পাটের বাহার

পণ্যের বস্তা, থলে ইত্যাদিতে পাটের ব্যবহার আজ আর প্রায় নেই৷ পাটশিল্প যেটুকু টিকে আছে, তা এই বাহারি ব্যাগ, বটুয়া, টেবিলম্যাট আর টুপিতে৷

সংস্কৃতি

উত্তুরে হাওয়া

কাঠ আর বেতের কাজ মানেই উত্তরবঙ্গ৷ দৃষ্টিনন্দন কাঠখোদাই ভাস্কর্য থেকে বেতের বাতিদান, বাঁশের কোঁড় দিয়ে তৈরি চায়ের কাপ, পানীয়ের গেলাস, এক বিপুল সম্ভার৷

সংস্কৃতি

বেতের বাহার

চিরকালীন চুবড়ি, ধামা, কুলো৷ কিন্তু ক্রেতার মন পেতে তাতেও লেগেছে রঙের ছোঁয়া৷ এর কারিগররা আসেন মূলত দক্ষিণবঙ্গ থেকে৷

সংস্কৃতি

মিশ্র শিল্প

বাংলায় পটের আঁকা আছে, আর পাকিস্তান, আফগানিস্তান, বা আরও পশ্চিমে আছে রঙবাহারি নকশা করা কেটলি৷ দুইয়ের মিলমিশ ঘটেছে দিব্যি৷

সংস্কৃতি

মহিলা শিল্পী

এই একটি ব্যাপারে এখনও মেয়েরাই এগিয়ে৷ অলঙ্করণ থেকে শুরু করে হস্তশিল্পের সব কাজেই এখনও মহিলা শিল্পীদেরই কদর বেশি৷

এ বিষয়ে আপনার মতামত লিখুন নীচে, মন্তব্যের ঘরে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়