বিশ্ব

উদ্বাস্তুর স্রোত: রাজ্যগুলিকে আরো টাকা দেবে জার্মানি

ফেডারাল সরকার রাজ্য ও পৌর প্রশাসনগুলিকে উদ্বাস্তুদের ভরণপোষণের জন্য আরো একশ' কোটি ইউরো দেবার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ এ বছর জার্মানিতে সাড়ে চার লাখ উদ্বাস্তু আসবেন বলে অনুমান করা হচ্ছে৷

Asylbewerber Iran Flüchtlinge Deutschland Würzburg

ইতিপূর্বে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল জার্মানির ১৬টি রাজ্য এবং পৌর সমিতির প্রধানদের সঙ্গে তিন ঘণ্টা ধরে বৈঠক করেন৷ ফেডারাল বরাদ্দ বাড়লেও, সে অর্থে এই পরিমাণ উদ্বাস্তুদের থাকা-খাওয়ার সুযোগ্য ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে না বলেই বিশেষজ্ঞদের ধারণা৷ কেননা, জার্মান মান অনুযায়ী, সাড়ে চার লাখ উদ্বাস্তুর বাসের ব্যবস্থা করতে বাড়তি খরচা পড়বে প্রায় ৫৬০ কোটি ইউরো৷ আগামী সপ্তাহে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা বসবেন চ্যান্সেলরের সঙ্গে, বিষয়টি নিয়ে কথাবার্তা বলতে৷

অন্যদিকে এ ধরনের প্রস্তুতি যে প্রয়োজন, তা-তে কোনো সন্দেহ নেই৷ বিশেষ করে গ্রীষ্মের মাসগুলিতে তুরস্ক, গ্রিস হয়ে স্থলপথে, কিংবা ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে জলপথে ইউরোপে আসার প্রচেষ্টা বাড়ে৷ মুশকিল এই যে, আফগানিস্তান, সিরিয়া কিংবা এরিট্রিয়া বা সোমালিয়া থেকে আগত উদ্বাস্তুদের লক্ষ্য গ্রিস কিংবা ইটালির মতো দক্ষিণের, ভূমধ্যসাগরের উপকূলবর্তী দেশ নয় – তারা চান উত্তর ইউরোপের সমৃদ্ধ দেশগুলিতে আশ্রয় পেতে, যেমন জার্মানি, কিংবা সুইডেন কিংবা ব্রিটেনে৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করতে হলে, তার নানা আইনকানুন, রীতিনীতি আছে – যেমন, যে ইইউ-দেশে প্রথম পদার্পণ, সেখানেই অ্যাসাইলামের অ্যাপ্লিকেশন জমা দিতে হবে, ইত্যাদি৷ কিন্তু নতুন উদ্বাস্তু ‘‘সংকটে'' সে সব প্রক্রিয়া জলে ভেসে গেছে: নড়বড়ে বোট কিংবা জাহাজে করে আসা উদ্বাস্তুদের সাগরেই উদ্ধার করে ইটালির মূল ভূখণ্ডে নিয়ে আসা হচ্ছে; সেখানা তাদের কোনোমতে নথিভুক্ত করে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে, যা-তে তারা ট্রেনে করে উত্তরে জার্মানি কিংবা সুইডেন, অথবা ফ্রান্স হয়ে ব্রিটেনে যাবার আশা করতে পারে৷

ওদিকে উদ্বাস্তুরা মাঝপথে রোম কিংবা মিলানে পৌঁছে রেলস্টেশনের আশেপাশে ভিড় জমাচ্ছেন, কেননা এই পরিমাণ সম্বলহীন মানুষের রাত কাটানোর ব্যবস্থা করার ক্ষমতা নগর কর্তৃপক্ষের নেই৷ নগর প্রশাসন ৮০০ লোকের রাত কাটানোর ব্যবস্থা করেছেন, কিন্তু এমন দিনও আছে, যখন চোদ্দশ' উদ্বাস্তু এক দিনে মিলানে এসে পৌঁছাচ্ছেন৷ রোমের মুখ্য রেলওয়ে স্টেশনের কাছেও একই দৃশ্য; সেখানেও সিরিয়া, ইরিট্রিয়া, সোমালিয়া আর ইথিওপিয়া থেকে আসা উদ্বাস্তুরা জলপাই আর ডুমুর গাছের ছায়ায় বিশ্রাম নিচ্ছেন৷

মাসের গোড়াতেই ফরাসি পুলিশ রাজধানী প্যারিসের মঁমার্ত্রে এলাকায় পূর্ব আফ্রিকা থেকে আগত সাড়ে তিনশো উদ্বাস্তুদের তাঁবু ট্র্যাক্টর চালিয়ে ভেঙে দেয়৷ এভাবেই সেদিন উত্তরের ক্যালে বন্দরের কাছে ব্রিটেন অভিমুখী আফ্রিকান উদ্বাস্তুদের দু'টি বস্তি ভেঙে দেওয়া হয়৷ এর ঠিক তিন দিন পরে ব্রিটিশ পুলিশ হারউইচ আন্তর্জাতিক বন্দরে চারজন পোলিশ লরিড্রাইভারকে গ্রেপ্তার করে, কেননা তাদের ট্রাকে ৬৮ জন বেআইনি অভিবাসী ঘাপটি মেরে বসেছিলেন: ৩৫ জন আফগান, ২২ জন চীনা, দশজন ভিয়েতনামি এবং একজন রুশি৷

গতকাল, অর্থাৎ বৃহস্পতিবারের খবর: ম্যাসিডোনিয়ার রাজধানী স্কোপিয়ে-র ৫৫ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত সীমান্তের একটি গ্রামের পাঁচটি বাড়িতে মোট ১২৮ জন উদ্বাস্তুর খোঁজ পেয়েছে স্থানীয় পুলিশ৷ মূলত সিরিয়া এবং ইরাক থেকে আগত উদ্বাস্তুরা যে সব বাড়িতে বাস করছিলেন, তাদের মালিকরা মাসে দেড় হাজার ইউরো মূল্যে বাড়ি ভাড়া দিচ্ছিলেন – উদ্বাস্তুদের জন্য যা দিনে দশ ইউরো৷

এসি/ডিজি (এপি, রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

Albanian Shqip

Amharic አማርኛ

Arabic العربية

Bengali বাংলা

Bosnian B/H/S

Bulgarian Български

Chinese (Simplified) 简

Chinese (Traditional) 繁

Croatian Hrvatski

Dari دری

English English

French Français

German Deutsch

Greek Ελληνικά

Hausa Hausa

Hindi हिन्दी

Indonesian Bahasa Indonesia

Kiswahili Kiswahili

Macedonian Македонски

Pashto پښتو

Persian فارسی

Polish Polski

Portuguese Português para África

Portuguese Português do Brasil

Romanian Română

Russian Русский

Serbian Српски/Srpski

Spanish Español

Turkish Türkçe

Ukrainian Українська

Urdu اردو