এবার ‘ভিডিও শো' নিয়ে ফেসবুক

লড়াইটা এবার ভালোই জমবে৷ এখন থেকে সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুকে একটি ভিডিও ট্যাব থাকবে, যেখানে টিভি শো, সিরিয়াল এ সব দেখা যাবে৷ এই ফিচার চালু করার মাধ্যমে ইউটিউব ও টিভি নেটওয়ার্কগুলোর সঙ্গে শুরু হল ফেসবুকের নতুন লড়াই৷

কয়েক ঘণ্টা আগে ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ একটি পোস্ট দেন৷ সেখানে তিনি লেখেন, ‘‘আমরা মনে করি, লেন্সের মধ্য দিয়ে অনেক কিছুই নতুন করে ভাবা সম্ভব – এমনকি ভিডিও দেখাসহ৷ ভিডিও শো দেখা আর পরোক্ষ থাকা উচিত না৷ এর সঙ্গে যুক্ত হওয়া এবং সরাসরি অভিজ্ঞতা ভাগাভাগির সুযোগ থাকা উচিত৷''

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

নতুন এই ফেসবুক প্রডাক্টের নানা ফিচার সম্বলিত একটি ভিডিওসহ এই পোস্টে জাকারবার্গ আরো বলেন, ‘‘সেজন্য আমরা একটি ওয়াচ ট্যাব চালু করছি ফেসবুকে৷ এর মাধ্যমে আপনি শো দেখতে পারবেন, বন্ধুরা কি শো দেখছে তা জানতে পারবেন, এপিসোড চলতে চলতেই চ্যাট করতে পারবেন, প্রিয় শো ও এর নির্মাতাদের ফলো করতে পারবেন৷''

আপাতত যুক্তরাষ্ট্রে সীমিত পরিসরে এই নতুন ফিচার চালু করতে যাচ্ছে ফেসবুক৷ এই ফিচারের মাধ্যমে রিয়ালিটি থেকে শুরু করে কমেডি শো, এমনকি সরাসরি বিভিন্ন খেলা উপভোগ করতে পারবেন এর ব্যবহারকারীরা৷

ফেসবুকের এই নতুন উদ্যোগকে টিভি ও ইউটিউবের ওপর একটি ধাক্কা বলে মনে করা হচ্ছে৷

বিভিন্ন জরিপে দেখা যায়, এমনিতেই মানুষ টিভির চেয়ে অনলাইনে বেশি ঝুঁকছেন৷ তাই অধিকাংশ টিভি শো-এর অনলাইন ভার্সন চালু করে সে ঘাটতি মেটাচ্ছে৷ কিন্তু ফেসবুকে এসব শো চালু হলে তাদের গ্রাহকসংখ্যার বিচারে এটিই হতে যাচ্ছে ভিডিও দেখার সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম৷

সবশেষ এ বছর জুন মাসের হিসেবে দেখা যায়, ফেসবুকের মাসিক ব্যবহারকারীর সংখ্যা দু'শ কোটি ছাড়িয়েছে৷ আর ইউটিউবের গ্রাহক দেড়শ' কোটি৷

এর আগে, ফেসবুকে অফলাইন ভিডিও আপলোড এবং ফেসবুক লাইভ ভিডিও অপশন চালু করা হয়৷ এগুলোও ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে৷ গত বছর জাকারবার্গ জানিয়েছিলেন, প্রতিদিন ৫০ কোটি ব্যবহারকারী ১০ কোটি ঘণ্টা ফেসবুক ভিডিও দেখেন৷

তার আগে, ২০১২ সালে ১০০ কোটি ডলারে  ছবি শেয়ারিং অ্যাপ ইনস্টাগ্রাম কিনে নেয় ফেসবুক৷ কয়েক বছরের মধ্যেই ইনস্টাগ্রামই হয়ে যায়, ছবি শেয়ারিংয়ের সবচেয়ে বড় সামাজিক প্লাটফর্ম৷ এখন এই অ্যাপের ব্যবহারকারী ৭০ কোটি৷ ২০১৫ সালের অক্টোবর পর্যন্ত ব্যবহারকারীরা ৪০০ কোটি ছবি আপলোড করেছে এখানে৷ ইনস্টাগ্রামের এখনকার বাজারমূল্য ৩,৫০০ কোটি ডলার৷

তাই মার্ক জাকারবার্গের সাফল্যের ধারাবাহিকতা ভিডিও শো'তেও দেখা যাবে বলেই মনে করছেন নেটিজেন এক্সপার্টরা৷

সমাজ-সংস্কৃতি

মার্ক জাকারবার্গ

তাঁকে কে চেনেন না? ফেসবুকের নাম কে শোনেননি? ৩১ বছর বয়সি ফেসবুকের এই প্রতিষ্ঠাতার সম্পদের পরিমাণ ৩৩.৪ বিলিয়ন ডলার৷ তাই তিনি যে শুধু সবচেয়ে ধনী তরুণ তাই নন, বিশ্বের সবচেয়ে বিত্তশালীদের তালিকায় তাঁর নাম পাওয়া যাবে ১৬ নম্বরে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ডাস্টিন মস্কোভিৎস

ফেসবুক প্রতিষ্ঠার সময় ছিলেন সাকারবার্গের সঙ্গে৷ এমনকি ২০০৮ সাল পর্যন্ত পুরোপুরি ফেসবুক কোম্পানিতেই ছিলেন৷ এরপর বের হয়ে ‘আসানা’ নামের আরেকটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন৷ ই-মেল ছাড়াই টিমওয়ার্ক চালানোর ওয়েব ও মোবাইল অ্যাপ আসানা৷ ফেসবুকে এখনও কিছু শেয়ার আছে মস্কোভিৎসের৷ সাকারবার্গের চেয়ে আট দিনের ছোট মস্কোভিৎসের সম্পদের পরিমাণ ৭.৯ বিলিয়ন ডলার৷ সাকারবার্গের মতোই হার্ভার্ডে পড়াশোনা শেষ না করা মানুষ তিনি৷

সমাজ-সংস্কৃতি

এলিজাবেথ হোমস

চাচা মারা যান ক্যানসারে৷ সেই থেকে রক্ত পরীক্ষা নিয়ে তাঁর কাজ শুরু৷ ১৯ বছর বয়সে স্ট্যানফোর্ডে পড়ার সময় ‘থেরানোস’ নামের কোম্পানি গড়ে তোলেন হোমস৷ তাঁর কোম্পানি কম খরচে ও অল্প সময়ে রক্ত পরীক্ষার প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে৷ ৩১ বছর বয়সি হোমসের সম্পদের পরিমাণ ৪.৫ বিলিয়ন ডলার৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ইভান স্পিগেল

স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহার করেন অনেকেই৷ স্পিগেল এই অ্যাপের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা৷ ২০১১ সালে তৈরি করা অ্যাপটি প্রতিদিন প্রায় ১০০ মিলিয়ন মানুষ ব্যবহার করে৷ যুক্তরাষ্ট্রের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর প্রায় ৬০ শতাংশের মোবাইলে এই অ্যাপ ডাউনলোড করা আছে৷ ফোর্বসের হিসেব অনুযায়ী, স্ট্যানফোর্ড গ্র্যাজুয়েট ২৫ বছর বয়সি স্পিগেলের সম্পদের পরিমাণ দেড় বিলিয়ন ডলার৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ববি মার্ফি

স্ন্যাপচ্যাটের আরেক প্রতিষ্ঠাতা ববি মার্ফি৷ তিনিও (ডান) স্ট্যানফোর্ডের গ্র্যাজুয়েট৷ বয়স ২৭৷ স্পিগেলের মতোই তাঁরও সম্পদের পরিমাণ ১.৫ বিলিয়ন ডলার৷

আপনিও কি মনে করেন, ফেসবুক ভিডিও ট্যাব চালু হলে সবাই ভিডিও দেখতে এতেই ঝুঁকবে? মতামত জানান নীচের ঘরে৷

আরো প্রতিবেদন...