এবার ম্যার্কেলের ‘পুনরুত্থান’, নাকি...?

শরণার্থী সংকট নিরসনে সব চেষ্টাই করছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ সম্প্রতি রাজ্য নির্বাচনে হেরেছে তাঁর দল৷ আরো কি মূল্য চুকাতে হবে তাঁকে? ইইউ-তুরস্ক চুক্তির পর জার্মান চ্যান্সেলরের সামনে এই প্রশ্নই এখন বড় হয়ে উঠেছে৷

গ্রিসে শরণার্থীদের দুরবস্থা এখন চরমে৷ ইডোমেনিতে তারা মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন৷ সেখানে শরণার্থী শিবির শুধু নামেই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আশ্রয় কেন্দ্র, আদতে সুস্থ জীবনযাপনের কোনো সুযোগ-সুবিধাই নেই৷ মানুষের চাপে ভেঙে পড়েছে সব ব্যবস্থা৷ শৃ্ঙ্খলা, ব্যবস্থাপনা – সব কিছুরই অভাব সেখানে প্রকট৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

মূলত সিরিয়া এবং ইরাক, সেই সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশ থেকে মানুষের স্রোত এসে ঢুকে পড়ছে গ্রিসে৷ গ্রিস থেকে আগে সবাই যেমন জার্মানিসহ ইউরোপের অন্যান্য ধনী দেশগুলৈাতে গিয়েছে, তাদেরও লক্ষ্যও সেভাবেই অস্তিত্ব রক্ষা এবং উন্নতির ঠিকানায় পৌঁছানো৷ কিন্তু পরিস্থিতি বদলেছে৷ ইউরোপের কয়েকটি দেশ সীমান্ত বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ ফলে গ্রিসে এলেও ম্যাসিডোনিয়ার সীমান্তে গিয়েই ধাক্কা খেয়ে ফিরছে জনস্রোত৷

অনেক দিন ধরেই শরণার্থী সংকট নিরসনের উপায় খুঁজছে ই্উরোপীয় ইউনিয়ন৷ আপাত সর্বশ্রেষ্ঠ উপায় হিসেবে সামনে এখন তুরস্ক-ইউরোপ সমঝোতা৷ সমঝোতার জন্য আলোচনা চলছে৷ চলছে দেন-দরবার৷ ইউরোপের শর্ত, গ্রিসে আসা শরণার্থীদের তুরস্ককে ফিরিয়ে নিতে হবে, কেননা তুরস্ক হয়েই এসেছে সবাই৷ অবশ্য গ্রিস থেকে তুরস্কে ফিরে যাওয়া প্রতিটি শরণার্থীর পরিবর্তে পরে তুরস্কে অবস্থানরত একজন করে সিরীয় শরণার্থীকে ইউরোপে নিয়ে আসবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷

তুরস্ক তাতে রাজি৷ তবে সম্মতিটা শর্তসাপেক্ষ৷ তুরস্কের মূল তিনটি দাবি হলো, আর্থিক ক্ষতিপূরণ, তুরস্কের নাগরিকদের বিনা ভিসায় ইউরোপ ভ্রমণের অনুমতি প্রদান এবং তুরস্ককে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য করা৷

প্রথমটিতে ইইউ আগেই সম্মতি প্রকাশ করে তুরস্ককে ৩ বিলিয়ন ইউরো দেয়ার অঙ্গীকারও করেছে৷ তুরস্ক তাতে নাখোশ৷ জার্মানির প্রতিবেশি দেশটির দাবি আরো ৩ বিলিয়ন ইউরো৷ শুক্রবার ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ইউহা সিপিলে টুইটারে জানান, ‘‘তুরস্কের সঙ্গে চুক্তি অনুমোদিত হয়েছে৷ ফলে ২০ মার্চ পর্যন্ত যারা তুরস্ক থেকে অবৈধভাবে গ্রিসে এসেছেন তাদের সবাইকে ফেরত পাঠানো হবে৷’’

আঙ্গেলা ম্যার্কেল আগে থেকেই বলে আসছেন, তুরস্কের সঙ্গে সমঝোতা ছাড়া শরণার্থী সংকট নিরসন সম্ভব নয়৷ সে কারণে তুরস্ককে সর্বোচ্চ ছাড় দিতেও তিনি অনেকটাই রাজি৷ অথচ শরণার্থী সংকট শুরুর আগে জার্মানি এবং ইউরোপ তো বটেই, এমনকি বিশ্বনেতাদের দরবারেও যাঁর প্রভাব এবং সম্মান শনৈঃ শনৈঃ বাড়ছিল সেই ম্যার্কেল নিজের দেশেও এখন বেশ বেকায়দায়৷

তাঁর দল ক্রিস্টিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) যে কয়েকদিন আগে বাডেন ভ্যুরটেমবার্গ, রাইনলান্ড-পালাটিনেট এবং স্যাক্সনি-আনহাল্টে এত কম ভোট পেলো তার জন্য ম্যার্কেলের অতি উদার শরণার্থী নীতিকেই দায়ী মনে করেন অনেকে৷ শরণার্থীদের প্রশ্নে নিজের অবস্থান থেকে তারপরও খুব একটা সরেননি ম্যার্কেল৷

সেই ছবি৷ বুদাপেস্টে তখন শরণার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে৷ অস্ট্রিয়া বা জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ৷ সবাই ছুটছিলেন প্ল্যাটফর্মের দিকে৷ পুলিশ ফিরিয়ে দিলো৷ স্টেশনের বাইরে শুরু হলো বিক্ষোভ৷ কারো কারো হাতে তখন ট্রেনের টিকিট৷ কেউ ক্ষোভ জানালেন কোলের সন্তানকে নিয়ে৷ অনেক শিশুর হাতে দেখা গেল, ‘উই ওয়ান্ট জার্মানি’ লেখা কাগজ৷ ইউরোপে এত দেশ থাকতে কেন জার্মানি?

অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিতে পা রেখেই দেখেছে অবাক হওয়ার মতো দৃশ্য৷ এখানে তাঁরা অনাহূত নয়৷ নিজের দেশ থেকে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসে জার্মানিতে পাচ্ছেন সাদর সম্ভাষণ!

দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষটিকে শরণার্থীরা নিজেদের একজন হিসেবেই বরণ করে নিয়েছিলেন৷ শরণার্থীদের সঙ্গে বন্ধুর মতোই সময় কাটিয়েছেন ম্যার্কেল৷ কয়েকজন শরণার্থী তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন৷ সানন্দে তাঁদের আশা পূরণ করেছেন ম্যার্কেল৷

গ্রিসে শরণার্থীদের দুরবস্থা এখন চরমে৷ ইডোমেনিতে তারা মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন৷ সেখানে শরণার্থী শিবির শুধু নামেই অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আশ্রয় কেন্দ্র, আদতে সুস্থ জীবনযাপনের কোনো সুযোগ-সুবিধাই নেই৷ মানুষের চাপে ভেঙে পড়েছে সব ব্যবস্থা৷ শৃ্ঙ্খলা, ব্যবস্থাপনা – সব কিছুরই অভাব সেখানে প্রকট৷

মূলত সিরিয়া এবং ইরাক, সেই সঙ্গে মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার কয়েকটি দেশ থেকে মানুষের স্রোত এসে ঢুকে পড়ছে গ্রিসে৷ গ্রিস থেকে আগে সবাই যেমন জার্মানিসহ ইউরোপের অন্যান্য ধনী দেশগুলৈাতে গিয়েছে, তাদেরও লক্ষ্যও সেভাবেই অস্তিত্ব রক্ষা এবং উন্নতির ঠিকানায় পৌঁছানো৷ কিন্তু পরিস্থিতি বদলেছে৷ ইউরোপের কয়েকটি দেশ সীমান্ত বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ ফলে গ্রিসে এলেও ম্যাসিডোনিয়ার সীমান্তে গিয়েই ধাক্কা খেয়ে ফিরছে জনস্রোত৷

অনেক দিন ধরেই শরণার্থী সংকট নিরসনের উপায় খুঁজছে ই্উরোপীয় ইউনিয়ন৷ আপাত সর্বশ্রেষ্ঠ উপায় হিসেবে সামনে এখন তুরস্ক-ইউরোপ সমঝোতা৷ সমঝোতার জন্য আলোচনা চলছে৷ চলছে দেন-দরবার৷ ইউরোপের শর্ত, গ্রিসে আসা শরণার্থীদের তুরস্ককে ফিরিয়ে নিতে হবে, কেননা তুরস্ক হয়েই এসেছে সবাই৷ অবশ্য গ্রিস থেকে তুরস্কে ফিরে যাওয়া প্রতিটি শরণার্থীর পরিবর্তে পরে তুরস্কে অবস্থানরত একজন করে সিরীয় শরণার্থীকে ইউরোপে নিয়ে আসবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন৷

তুরস্ক তাতে রাজি৷ তবে সম্মতিটা শর্তসাপেক্ষ৷ তুরস্কের মূল তিনটি দাবি হলো, আর্থিক ক্ষতিপূরণ, তুরস্কের নাগরিকদের বিনা ভিসায় ইউরোপ ভ্রমণের অনুমতি প্রদান এবং তুরস্ককে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য করা৷

প্রথমটিতে ইইউ আগেই সম্মতি প্রকাশ করে তুরস্ককে ৩ বিলিয়ন ইউরো দেয়ার অঙ্গীকারও করেছে৷ তুরস্ক তাতে নাখোশ৷ জার্মানির প্রতিবেশি দেশটির দাবি আরো ৩ বিলিয়ন ইউরো৷ শুক্রবার ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ইউহা সিপিলে টুইটারে জানান, ‘‘তুরস্কের সঙ্গে চুক্তি অনুমোদিত হয়েছে৷ ফলে ২০ মার্চ পর্যন্ত যারা তুরস্ক থেকে অবৈধভাবে গ্রিসে এসেছেন তাদের সবাইকে ফেরত পাঠানো হবে৷’’

আঙ্গেলা ম্যার্কেল আগে থেকেই বলে আসছেন, তুরস্কের সঙ্গে সমঝোতা ছাড়া শরণার্থী সংকট নিরসন সম্ভব নয়৷ সে কারণে তুরস্ককে সর্বোচ্চ ছাড় দিতেও তিনি অনেকটাই রাজি৷ অথচ শরণার্থী সংকট শুরুর আগে জার্মানি এবং ইউরোপ তো বটেই, এমনকি বিশ্বনেতাদের দরবারেও যাঁর প্রভাব এবং সম্মান শনৈঃ শনৈঃ বাড়ছিল সেই ম্যার্কেল নিজের দেশেও এখন বেশ বেকায়দায়৷

তাঁর দল ক্রিস্টিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন (সিডিইউ) যে কয়েকদিন আগে বাডেন ভ্যুরটেমবার্গ, রাইনলান্ড-পালাটিনেট এবং স্যাক্সনি-আনহাল্টে এত কম ভোট পেলো তার জন্য ম্যার্কেলের অতি উদার শরণার্থী নীতিকেই দায়ী মনে করেন অনেকে৷ শরণার্থীদের প্রশ্নে নিজের অবস্থান থেকে তারপরও খুব একটা সরেননি ম্যার্কেল৷

লৌহমানবীর' আসনটা ধরে রাখতে পারবেন ম্যার্কেল? নাকি তাঁর রাজনৈতিক প্রস্থানের পথ আরো প্রশস্ত করবে শরণার্থী সংকট?

শরণার্থীদের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে জার্মানির রাজনীতিতে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের অবস্থান এখন নড়বড়ে৷ নিজের অবস্থান কি আবার ফিরে পাবেন তিনি? নিচে আপনার মতামত জানান৷

জার্মানিকে চাই...

সেই ছবি৷ বুদাপেস্টে তখন শরণার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে৷ অস্ট্রিয়া বা জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ৷ সবাই ছুটছিলেন প্ল্যাটফর্মের দিকে৷ পুলিশ ফিরিয়ে দিলো৷ স্টেশনের বাইরে শুরু হলো বিক্ষোভ৷ কারো কারো হাতে তখন ট্রেনের টিকিট৷ কেউ ক্ষোভ জানালেন কোলের সন্তানকে নিয়ে৷ অনেক শিশুর হাতে দেখা গেল, ‘উই ওয়ান্ট জার্মানি’ লেখা কাগজ৷ ইউরোপে এত দেশ থাকতে কেন জার্মানি?

আছে নব্য নাৎসি, পুড়েছে শরণার্থী শিবির, তবুও...

জার্মানির কোথাও কোথাও শরণার্থীবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ অনেক জায়গায় রাতের অন্ধকারে আশ্রয় শিবিরে লেগেছে আগুন৷ তারপরও অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিকেই বেছে নিতে চায়৷

বড় কারণ ম্যার্কেল এবং...

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ব্যাপারে শুরু থেকেই উদার জার্মানি৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেল সবসময়ই অভিবাসী এবং অভিবাসনপ্রত্যাশীদের পাশে ছিলেন৷ পেগিডা আন্দোলনের সময়ও সরকারের অভিবাসীদের পাশে থাকার কথা স্পষ্ট করেই বলেছেন ম্যার্কেল৷ পাশে থেকেছেও৷ জার্মানির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষও ছিল তাঁর পাশে৷ এখনও আছে৷ এই বিষয়গুলোও মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মনে জার্মানির প্রতি আরো আস্থাশীল করেছে৷

তোমাদের স্বাগত

অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিতে পা রেখেই দেখেছে অবাক হওয়ার মতো দৃশ্য৷ এখানে তাঁরা অনাহূত নয়৷ নিজের দেশ থেকে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসে জার্মানিতে পাচ্ছেন সাদর সম্ভাষণ!

জার্মানির নেতৃত্বে ম্যার্কেল, ইউরোপের নেতৃত্বে জার্মানি

বৃহস্পতিবার আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, শরণার্থীদের বিষয়ে জার্মানির ভূমিকা হতে হবে অনুসরণীয়, দৃষ্টান্তমূলক৷ জার্মানির সংসদের নিম্নকক্ষ বুন্ডেসটাগে বক্তব্য রাখার সময় তিনি আরো বলেন, অভিবাসন সংকট মোকাবেলায় ইউরোপকেও সফল হতে হবে৷

শরণার্থীদের পাশে ম্যার্কেল

বৃহস্পতিবার কয়েকদিন আগেই জার্মানিতে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীদের দেখতে গিয়েছিলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থীর ‘বন্ধু’ ম্যার্কেল

দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষটিকে শরণার্থীরা নিজেদের একজন হিসেবেই বরণ করে নিয়েছিলেন৷ শরণার্থীদের সঙ্গে বন্ধুর মতোই সময় কাটিয়েছেন ম্যার্কেল৷ কয়েকজন শরণার্থী তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন৷ সানন্দে তাঁদের আশা পূরণ করেছেন ম্যার্কেল৷