বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার অভিযোগে ১৩ শিক্ষক কারাগারে!

বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার অভিযোগে বাঁশখালির ১৩ শিক্ষককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে৷ কিন্তু নবম শ্রেণির যে প্রশ্নপত্র নিয়ে এই মামলা সেই প্রশ্নপত্রে সরাসরি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বাঁশখালির বিএনপি নেতা লিয়াকত আলীর নাম নাই৷

আসামিপক্ষের আইনজীবী নুরুল আবসার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি সরাসরি প্রশ্নের ভাষায় বলতে পারছি না৷ তবে প্রশ্নটি ছিল এরকম, ‘‘বাঁশখালির গন্ডামারার জনৈক ‘এল' কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলেন৷ তাঁর নেতৃত্ব কোন দেশের কোন নেতার সঙ্গে তুলনীয়?'' তিনি বলেন, ‘‘প্রশ্নটি এই মূহূর্তে আমার কাছে নাই৷ তাই হুবহু ভাষা বলতে পারলাম না৷ তবে মূল বিষয় এ রকম৷ প্রশ্নের কোথাও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং লিয়াকত আলীর নাম নেই৷ তবে এটা ধরলে ধরা যায়৷ আবার না ধরলেও না ধরা যায়৷''

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

তিনি আরো বলেন, ‘‘প্রশ্ন প্রণয়নের সঙ্গে জড়িত শিক্ষক হলেন দুকুল বড়ুয়া৷ অন্য শিক্ষকরা প্রশ্ন প্রণয়নের সঙ্গে জড়ি নয়৷ তাঁরা এই প্রশ্নে পরীক্ষা নিয়েছেন সত্য৷ কিন্তু আগে তো প্রশ্ন দেখার তাঁদের সুযোগ ছিল না৷ তাই আমি মনে করি, দুকুল বড়ুয়া ছাড়া বাকি ১২ জন অব্যাহতি পেতে পারেন৷''

অডিও শুনুন 03:43
এখন লাইভ
03:43 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 24.08.2017

Nurul Absar - MP3-Stereo

অভিযোগ থেকে জানা যায়, ‘‘গত বছরের ১৭ জুলাই চট্টগ্রামের বাঁশখালিসহ ছয়টি উপজেলায় নবম শ্রেণির অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়' বিষয়ের সৃজনশীল অংশের একটি প্রশ্নে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান লিয়াকত আলীর কার্যক্রমকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে তুলনা  করা হয়৷'' লিয়াকত আলী এর আগে ঐ বছরের এপ্রিল মাসে বাঁশখালির গণ্ডামারা ইউনিয়নে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রবিরোধী আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন৷ আন্দোলনে চারজন নিহত হন৷

পরীক্ষার এক দিন পর ১৯ জুলাই প্রশ্নপত্র তৈরির সঙ্গে যুক্ত বাঁশখালি বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক দুকুল বড়ুয়া ও তাহেরুল ইসলামকে পুলিশ আটক করে৷ পরে চট্টগ্রাম জেলার ছয় উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ মোট ১৩ শিক্ষককে আসামি করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হয়৷''

শিক্ষক দুকুল বড়ুয়া ৪৯ দিন এবং তাহেরুল ১৫ দিন পর জামিনে মুক্তি পান৷ মামলা হওয়ার পরে ওই ১৩ শিক্ষক হাইকোর্ট থেকে তিন মাসের আগাম জামিন নেন৷

শাম্মী হক, অ্যাক্টিভিস্ট, বাংলাদেশ

‘‘বাংলাদেশের মানুষ তাদের মনের কথা বলতে পারেন না৷ সেখানে কোনো বাকস্বাধীনতা নেই এবং প্রতিদিন পরিস্থিতি খারাপের দিকেই যাচ্ছে৷ একজন সামাজিক অ্যাক্টিভিস্ট এবং ব্লগার হিসেবে আমি ধর্ম নিয়ে লেখালেখি করি, যা ইসলামিস্টরা পছন্দ করেনা৷ তারা ইতোমধ্যে ছয় ব্লগারকে হত্যা করেছে৷ ফলে আমি দেশ ছাড়তে বাধ্য হই৷’’

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, ভেনেজুয়েলা

‘‘বাকস্বাধীনতা হচ্ছে এমন এক ধারণা যার অস্তিত্ব আমার দেশে নেই৷ সাংবাদিকরা জরিমানা আর নিজের জীবনের উপর ঝুঁকি এড়াতে সরকারের সমালোচনা করতে চায়না৷ সরকারের সমালোচনা করলে সাংবাদিকদের বিচারের মুখোমুখি হতে হয়৷ এরকম পরিস্থিতির কারণে অনেক সাংবাদিক দেশ ছেড়ে চলে গেছেন৷ দেশটির আশি শতাংশ গণমাধ্যমের মালিক সরকার, তাই সাধারণ মানুষের মত প্রকাশের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া৷’’

রোমান দবরোখটভ এবং একাতেরিনা কুজনেটসোভা, সাংবাদিক, রাশিয়া

রোমান: ‘‘রাশিয়ায় সরকার আপনাকে সেন্সর করবে৷ আমাদের ওয়েবসাইটটি ছোট এবং লাটভিয়ায় নিবন্ধিত৷ ফলে আমি সেন্সরশিপ এড়াতে পারছি৷ তা সত্ত্বেও সরকার মাঝে মাঝে আমাদের সার্ভারে হামলা চালায়৷’’ একাতেরিনা: ‘‘রাশিয়ায় বাকস্বাধীনতার কোনো অস্তিত্ব নেই৷ ইউরোপের মানুষ রাজনীতিবিদদের সমালোচনা করার ক্ষেত্রে স্বাধীন৷ আমি আশা করছি, রাশিয়ার পরিস্থিতিও বদলে যাবে৷’’

নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, সিরিয়া

‘‘বেশ কয়েক বছর ধরেই সিরিয়ায় বাকস্বাধীনতার কোনো অস্তিত্ব নেই৷ এমনকি আসাদের শাসনামল সম্পর্কে অনুমতি ছাড়া মতামতও প্রকাশ করা যায়না৷ এটা নিষিদ্ধ৷ কেউ যদি সেই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে তাহলে খুন হতে পারে৷ আমি যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনামূলক কিছু লিখি, তাহলে বেশিদিন বাঁচতে পারবো না৷’’

আয়েশা হাসান, সাংবাদিক, পাকিস্তান

‘‘পাকিস্তানে ‘গণমাধ্যমের স্বাধীনতা’ শব্দ দু’টি খুবই বিপজ্জনক৷ এগুলোর ব্যবহার আপনার ক্যারিয়ার বা জীবন শেষ করে দিতে পারে৷’’

রাবা বেন দউখান, রেডিও সাংবাদিক, টিউনিশিয়া

‘‘আমাদের অভ্যুত্থানের একমাত্র ফল হচ্ছে বাকস্বাধীনতা৷ আমরা এখন আমাদের সরকারের সমালোচনা করার ব্যাপারে স্বাধীন৷ এবং আমি যখন আমাদের অঞ্চলের অন্য দেশের বাসিন্দাদের বাকস্বাধীনতার কথা জিজ্ঞাসা করি, তখন একটা বড় ব্যবধান দেখতে পাই৷ আমাদের দেশে দুর্নীতিসহ নানা সমস্যা আছে সত্যি, তবে বাকস্বাধীনতা কোনো সমস্যা নয়৷’’

খুসাল আসেফি, রেডিও ম্যানেজার, আফগানিস্তান

‘‘বাকস্বাধীনতা আফগানিস্তানে একটি ‘সফট গান৷’ এটা হচ্ছে মানুষের মতামত, যা সম্পর্কে সরকার ভীত৷ এটা চ্যালেঞ্জিং হলেও আমাদের প্রতিবেশীদের তুলনায় আমাদের অবস্থা ভালো৷’’

সেলিম সেলিম, সাংবাদিক, ফিলিস্তিন

‘‘ফিলিস্তিনে সাংবাদিকদের খুব বেশি স্বাধীনতা নেই৷ একটা বড় সমস্যা হচ্ছে, সাংবাদিকরা মুক্তভাবে ঘোরাফেরা করতে পারে না৷ ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের গ্রেপ্তার করছে৷ তারা যদি ফেসবুকে তাদের মতামত জানায়, তাহলেও সরকার গ্রেপ্তার করে৷ তবে সিরিয়া বা ইরাকের চেয়ে অবস্থা ভালো৷’’

অনন্য আজাদ, লেখক, বাংলাদেশ

‘‘আমাদের দেশে কোনো বাকস্বাধীনতা নেই৷ আপনি ইসলাম বা সরকারের সমালোচনা করে কিছু বলতে পারবেন না৷ ইসলামী মৌলবাদীরা ঘোষণা দিয়েছে, কেউ যদি ইসলামের সমালোচনা করে, তাহলে তাকে হত্যা করা হবে৷ আমি একজন সাংবাদিক এবং গত বছর আমাকে ইসলামিস্ট জঙ্গিরা হত্যার হুমকি দিয়েছে৷ ফলে আমাকে দেশ থেকে পালাতে হয়েছে৷’’

বুধবার আগাম জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় পর তাঁরা বাঁশখালির জ্যেষ্ঠ্য বিচারিক হাকিম মো. সাজ্জাদ হোসেনের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করতে গেলে আদালত তাঁদের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন৷

আসামিদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নুরুল আবসার বলেন, ‘‘এটা আদালতের মামলা৷ আদালত মামলা নিয়েই আসামিদের সমন দেন৷ পুলিশ এরই মধ্যে একটি প্রতিবেদন দিয়েছে, তাতে ১৩ জনকেই দায়ী করা হয়েছে৷ কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে প্রশ্ন প্রণয়নকারী শিক্ষক ছাড়া অন্য ১২ জনকে দায়ী করার সুযোগ নাই৷ আর অপরাধটি আমি কীভাবে বিবেচনায় নেব তা অনেকটা দৃষ্টিভঙ্গির ওপর নির্ভর করে৷ কারণ, অপরাধ যদি হয়েই থাকে তা সরাসরি নয়৷ পরোক্ষভাবে করা হয়েছে৷ উদ্দেশ্য প্রমাণ করে গেলে এটা অপরাধ৷''

অডিও শুনুন 00:34
এখন লাইভ
00:34 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 24.08.2017

Alamgir Hossain - MP3-Stereo

বাঁশখালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা এরইমধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিয়েছি৷ তাতে আমরা অপরাধের প্রমাণ পেয়েছি৷ বঙ্গবন্ধুকে অবমাননা করা হয়েছে৷ বঙ্গবন্ধুকে চেয়ারম্যান মহোদয়ের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে৷ ১৩ জন শিক্ষকই এই ষড়যন্ত্র করেছেন৷''

ষড়যন্ত্রের উদ্দেশ্য জানতে পেরেছেন কিনা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘‘না, তদন্তে উদ্দেশ্য জানতে পরিনি৷''

লিয়াকত আলী এর সঙ্গে কোনোভাবে জড়িত কিনা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘না, তাঁর জড়িত থাকার কোনো প্রমান পাওয়া যায়নি৷ প্রমাণ পাওয়া গেলে তো তাঁর বিরুদ্ধেও চার্জশিট দেয়া হতো৷''

তবে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য জেলা শিক্ষা অফিসার হোসনে আরা বেগম এবং বাঁশখালি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী সাহেল তস্তুরির বক্তব্য জানা যায়নি৷ তাঁরা দু'জনই ওই ঘটনার তদন্তের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন৷

বন্ধু, প্রতিবেদনটি নিয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচের ঘরে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়