ভারত-পাকিস্তান

ভারতীয় নাগরিকের মৃত্যুদণ্ডাদেশ নিয়ে ভারত-পাক উত্তেজনা চরমে

চরবৃত্তির অভিযোগে ভারতের প্রাক্তন নৌ-সেনা অফিসার কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করায় পাকিস্তানকে তার পরিণাম ভুগতে হবে – এই মর্মে হুঁশিয়ারি দিল্লির৷ পাকিস্তানের সামরিক আদালতের অভিযোগ ‘সাজানো', এমনটাই মনে করছে ভারত৷

কুলভূষণ যাদব

ভারতীয় নৌ-সেনার প্রাক্তন অফিসার কুলভূষণ যাদবকে পাকিস্তানের সামরিক আদালত মৃত্যুদণ্ড দেওয়ায় তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ভারতে৷ সংসদের ভেতরে এবং বাইরে দলমত নির্বিশেষে এই নিয়ে তুমুল আলোড়ন৷ এ বছর জানুয়ারিতে কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভারতের সার্জিক্যাল স্টাইকের পর, দু'দেশের মধ্যে যে উত্তেজনা শুরু হয়, এখন তা তুঙ্গে৷ সরকারকে চেপে ধরে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির দাবি – রাজনৈতিক বা কূটনৈতিক যেভাবেই হোক, কুলভূষণকে দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে৷ তাই ইসলামাবাদের ওপর পাল্টা চাপ তৈরিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, পাকিস্তান যদি কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে তাহলে তার পরিণাম ভুগতে হবে পাকিস্তানকে৷ ভারত মনে করে, কুলভূষের বিরুদ্ধে অভিযোগের যথেষ্ট প্রমাণ দেখাতে পারেনি পাকিস্তান৷ পুরো অভিযোগই সাজানো এবং পূর্ব-পরিকল্পিত৷

এমনকি গোটা বিচার প্রক্রিয়ায় বিশ্বকে অন্ধকারে রাখা হয়েছে, বলে মন্তব্য করেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷ তাঁর কথায়, ‘‘এটা বিচার নয়, বিচারের প্রহসন৷'' কারণ বিচার প্রক্রিয়ার প্রথম শর্ত, অভিযুক্তকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া৷ এক্ষেত্রে সেটা দেওয়া হয়নি৷ পাকিস্তানে ভারতীয় দূতাবাসের বারংবার অনুরোধ সত্ত্বেও, তাঁর সঙ্গে দেখা করার অনুমতি পর্যন্ত দেওয়া হয়নি৷ কুলভূষণ ব্যবসা সংক্রান্ত কাজে গিয়েছিলেন ইরানে৷ সেখান থেকে অপহরণ করে পাকিস্তানের আইএসআই তাঁকে নিয়ে যায় বালুচিস্তানে, এমনটাই দাবি ভারতের৷ দিল্লির পাকিস্তানি হাই-কমিশনারকে তলব করে পররাষ্ট্র সচিব জয় শংকর এ বিষয়ে ভারতের ক্ষোভের কথা জানিয়ে কড়া বার্তা দেন৷

ওদিকে দিল্লির দাবি অগ্রাহ্য করে পাকিস্তনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাজা হাসিফ বলেন, গত বছর বালুচিস্তানে এবং করাচিতে গুপ্তচরবৃ্ত্তি এবং নাশকতামূলক কার্যকলাপ চালানোর অভিযোগে কুলভূষণ যাদবকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তাঁর পাসপোর্টে ছিল অন্য নামে৷ তাতে ছিল, তাঁর নাম হোসেন মুবারক পযাটেল৷ তিনি মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা৷ তিন মাস ধরে তাঁর বিচারপর্ব চলে৷ পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা দপ্তর থেকে জাননো হয়, কূলভূষণ যাদব তাঁর অপরাধ কবুল করেছে৷ তবুও তাঁকে উচ্চতর সামরিক আদালতে এবং চূড়ান্ত পর্যায়ে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্টের কাছে প্রাণদণ্ড মকুবের আবেদন করার জন্য ৬০ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে৷

প্রশ্ন হলো, পাকিস্তানকে উপযুক্ত শিক্ষা দিতে ভারতের হাতে এই মুহূর্তে কী আছে? এ মাসেই ১২ জন পাকিস্তানি কয়েদিকে মুক্তি দেওয়ার কথা ছিল৷ কিন্ত এ অবস্থায় আপাতত সেটা হচ্ছে না৷ ফাঁসির আদেশ প্রত্যাহারের জন্য দ্বিপাক্ষিক স্তরে প্রবল চাপ তৈরি করা এবং তাতে কাজ না হলে আন্তর্জাতিক আদালতে এই রায়ের উপরে স্থগিতাদেশ চাওয়া৷ বলা হবে, পাকিস্তানে বছরের পর বছর ধরে মসুদ আজাহার এবং সঈদ হাফিজের মতো সন্ত্রাসবাদীরাঅবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ অথচ পাকিস্তান তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে তাদের মদত দিয়ে এসেছে৷ এটা গোটা দুনিয়া জানে৷ তাই কুলভূষণের ফাঁসির আদেশকে ক্যাঙ্গারু আদালতের রায় বলেই মানবে বিশ্ব, মনে করে ভারত৷

পাশাপাশি ভারতের কূটনৈতিক মহলের একাংশের মতে, কুলভূষণের ভাগ্য সম্ভবত সরবজিৎ সিং-এর মতোই হবে৷ ২০১৩ সালে পাকিস্তানি জেলে তাঁর মৃত্যু হয়৷ সন্দেহ, জেলে প্রচণ্ড অত্যাচারেই মৃত্যু হয়েছিল সরবজিতের৷ কুলভূষণ যাদবকেও হয়ত ফাঁসি না দিয়ে এইভাবেই মেরে ফেলা হতে পারে, এমন আশঙ্কাও রয়েছে৷ তাই ভারত-পাকিস্তানের সুশীল সমাজ মনে করে, চরবৃত্তি বিশ্বে অলিখিত এক রীতি রেওয়াজ৷ ঠান্ডা লড়াইয়ের সময়েও সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ধরা পড়া গুপ্তচরদের একে-অপরকে ফিরিয়ে দিয়েছিল৷ কাশ্মীরে ধরা পড়া জঙ্গিদের যদি ভারত ফাঁসি দিতে শুরু করে, তাহলে বিষয়টা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ এখানে স্মরণ করা যেতে পারে, ২০০০ সালে লালকেল্লার উপর সন্ত্রাসী হামলা মামলায় দোষী সাব্যস্ত পাকিস্তানি নাগরিককে কিন্তু ফাঁসি দেয়নি ভারত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

Albanian Shqip

Amharic አማርኛ

Arabic العربية

Bengali বাংলা

Bosnian B/H/S

Bulgarian Български

Chinese (Simplified) 简

Chinese (Traditional) 繁

Croatian Hrvatski

Dari دری

English English

French Français

German Deutsch

Greek Ελληνικά

Hausa Hausa

Hindi हिन्दी

Indonesian Bahasa Indonesia

Kiswahili Kiswahili

Macedonian Македонски

Pashto پښتو

Persian فارسی

Polish Polski

Portuguese Português para África

Portuguese Português do Brasil

Romanian Română

Russian Русский

Serbian Српски/Srpski

Spanish Español

Turkish Türkçe

Ukrainian Українська

Urdu اردو