ভালোবাসা ছাড়া পাহাড় বাঁচে না, প্রাণ যায় মানুষেরও

পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা ছাড়া পুরো বাংলাদেশই মোটামুটি সমতল৷ যদিও সিলেটের দিকে কিছু ছোট পাহাড়, টিলা রয়েছে৷ যে রকমটা রয়েছে আরো কয়েকটি অঞ্চলে৷ তবে পাহাড়ি এলাকা বলতে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলাই৷

এই পাহাড়ে এক সময় বাস করতো কেবল কিছু আদিবাসী জনগোষ্ঠী৷ সমতলের বাঙালি বসতির খুব কাছে হলেও এই পাহাড়ে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে বাঙালিরা খুব একটা বাস করতে যায়নি৷ ব্যবসা-বাণিজ্য করতে গেলেও ফিরেছে সমতলে৷ দুর্গম পথঘাট আর খাড়া পাহাড়ের জুমচাষের জীবন বাঙালিদের খুব একটা আকর্ষণও করেনি৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

তবে গত শতাব্দীতে বেশ কয়েকবার পাহাড়ে পরিকল্পিত বাঙালি বসতি স্থাপনে সেখানকার এই জনমানচিত্র পাল্টে গেছে৷ পাহাড়ে পাহাড়িদের দুঃখের যাত্রার সঙ্গে জড়িয়ে আছে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প৷ কাপ্তাই জল বিদ্যুৎ কেন্দ্র এ রকম একটি প্রকল্প৷ এই প্রকল্পে ভিটেবাড়ি হারানো মানুষের দুঃখের গল্পও আলোচিত হয়েছে নানা সময়ে৷ তবে রাস্তাঘাটের মতো উন্নয়ন প্রকল্পগুলোও অনেক এলাকায় ভিন্ন ধরনের কষ্ট বাড়িয়েছে পাহাড়িদের জীবনে৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রে পাহাড়ে যখন যেখানে রাস্তা হয়, সেই রাস্তা ধরে বাঙালিরাও পৌঁছে যায় গহীনে৷ 

সমাজ-সংস্কৃতি

জুম চাষে জড়িত যাঁরা

বান্দরবানে জুমঘেরা পাহাড়কে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা একটি বসতি৷ তিন পার্বত্য জেলায় ৩৫ হাজারেরও বেশি জুমিয়া পরিবার এই জুম চাষের সঙ্গে জড়িত৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ভিন্ন নাম

খাগড়াছড়ির মহালছড়ির এক পাহাড়ের গাছপালা পোড়ানো হচ্ছে জুম চাষের জন্য৷ চাষ পদ্ধতি এক হলেও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের কাছে জুম চাষ আলাদা নামে পরিচিত৷ জুম চাষকে চাকমা ভাষায় জুম, মারমা ভাষায় ইয়াঁ, ত্রিপুরা ভাষায় হুগ, ম্রো ভাষায় উঃঅ, খিয়াং ভাষায় লাই, বম ভাষায় লাও বলা হয়৷

সমাজ-সংস্কৃতি

যেসব ফসল জন্মায়

খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে পাহাড়ের গায়ে জুম চাষ করছেন ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের মানুষ৷ ভারী বৃষ্টির পর পাহাড়ের মাটি খুঁড়ে রোপণ করা হয় বিভিন্ন ফসল৷ জুমের ফসলের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো নানাজাতের ধান, কুমড়া, অড়হড়, শিম, শশা, করলা, ঢেঁড়শ, তিল, ভুট্টা, আদা, যব, তুলা, হলুদ, পাহাড়ি আলু, কচু, ইত্যাদি৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বন উজাড়

বান্দরবানে জুম চাষের ফলে গাছপালা শূন্য পাহাড়৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ফসল কাটার সময়

রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরের পাহাড় থেকে জুমের ফসল তুলছেন চাকমা সম্প্রদায়ের নারী-পুরুষ৷ জুলাই থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত জুমের ফসল কাটার মৌসুম৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ফসল ঘরে তোলা

রাঙ্গামাটির সাজেকে পাহাড় থেকে জুমের ফসল নিয়ে ফিরছেন ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের এক বৃদ্ধ৷

সমাজ-সংস্কৃতি

কর্মব্যস্ততা

রাঙ্গামাটির সাজেকের কংলাক পাহাড়ে জুমের চাল ঝাড়ছেন এক ত্রিপুরা নারী৷

সমাজ-সংস্কৃতি

নতুন বনাঞ্চল

জুম চাষে পাহাড়ের বন উজাড় হলেও অনেক পাহাড়েই নতুন নতুন বনাঞ্চল গড়ে তুলেছে বাংলাদেশের বন বিভাগ৷ রাঙ্গামাটির মানিকছড়ির এই বনাঞ্চল এরকমই একটি উদাহরণ৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বিকল্প কর্মসংস্থান

রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়িতে কাপড় বুনছেন ত্রিপুরা নারীরা৷ পাহাড়ে বসবাসরত সব ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীই কাপড় বুননসহ নানান শৈল্পিক কাজে অভিজ্ঞ৷ এসব জনগোষ্ঠীকে আরো প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাঁদের বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করা যেতে পারে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

হস্তশিল্প

বান্দরবানের শৈলপ্রপাত এলাকায় নিজেদের তৈরি কাপড় ও হস্তশিল্প সামগ্রীর পসরা সাজিয়েছেন স্থানীয় বম সম্প্রদায়ের নারীরা৷ পাহাড়ে তৈরি এসব পণ্যের দেশে ও বিদেশে বেশ সমাদর রয়েছে৷ সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ পেলে এইসব সম্প্রদায় তাদের কাজের বিস্তৃতি ঘটাতে সক্ষম হবেন৷

সমাজ-সংস্কৃতি

জলকেলি উৎসব

রাঙ্গামাটির বেতবুনিয়ায় পানি খেলায় ব্যস্ত মারমা তরুণীরা৷ এই পানি খেলা বা জলকেলি উৎসব মারমা সম্প্রদায়ের প্রধান উৎসব, যা পালন করা হয় নববর্ষে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

বাঁশ নৃত্য

বান্দরবানের রুমা উপজেলার বেথেলপাড়ায় ঐতিহ্যবাহী বাঁশ নৃত্য পরিবেশনে বম তরুণীরা৷

পাহাড়ে আমি অনেকবার গিয়েছি৷ আমার মনে হয়েছে, কালো পিচঢালা রাস্তার সাথে বাঙালি বসতির একটা সম্পর্ক রয়েছে৷ কয়েক বছর পূর্বে একবার গিয়েছিলাম অনানুষ্ঠানিকভাবে দেশের সর্বোচ্চ পাহাড় সাকা হাফং-এ৷ ওই পাহাড়ের একেবারে পাদদেশে অবস্থিত হাজরাই পাড়া৷ এরপর ওই পাহাড়ের চূড়ার পথে উঁচুতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জনবসতি নেফিউ পাড়া৷ এই দুই পাড়াসহ আশেপাশের আরো অনেক আদিবাসী পাড়া রয়েছে৷ এই এলাকায় নেই কোনো বাঙালি৷ এসব এলাকায় সভ্যতাও যেন তেমন একটা পৌঁছায়নি৷

সাকা হাফং থেকে ফেরার পথে হাজরাই পাড়া থেকে খুব ভোরে বের হয়ে টানা হেঁটে রাত ৮টার দিকে জিন্নাপাড়ায়  পৌঁছাই৷ সেখানে ওই এলাকার প্রথম বিজিবি ক্যাম্প পাই আমি৷ তার মানে, ওইসব এলাকায় সরকারি বিভিন্ন বাহিনীরও স্থায়ী উপস্থিতি চোখে পড়েনি৷ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, এসব পাড়ায় পানির কষ্ট হয়ত আছে৷ হয়ত দূরে থেকে পানি আনতে হয়৷ বিশেষ করে নেফিউ পাড়ার পানি নীচ থেকেই নিতে হয়৷ এটাই সেখানে স্বাভাবিক৷ এখন ভাবুন, সেই উৎসের পানিও যদি বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে তাঁরা কি বসবাস করতে পারবে?   আদিবাসীরা তাঁদের জীবনাচার দিয়ে ওই প্রবাহ ঠিক রাখে৷

এটা কত দুর্গম এলাকা, সেটা একটা দৃষ্টান্ত দিলে বোঝা যাবে, সেখানে পর্যটকরা গেলে এসব পাড়ার মানুষ কাতর কণ্ঠে এক পাতা নাপা ট্যাবলেট চায়৷ অল্প দামের দুই-একটা ওষুধ চায়৷ হয়ত এটাই তাঁদের কোনো প্রিয়জনের প্রাণ রক্ষা করে দেবে৷ সেটা তাঁদেরকে দিতে পারলে তাঁরা এত খুশি হবে যেন হঠাৎ কোটিপতি হয়ে গেছে৷ পাহাড়ের বহু পাড়াই এক সময় এরকম ছিল৷

নীলাচলের কথাই বলা যাক৷ সেখানেও এক সময় আদিবাসী পাড়া ছিল৷ সেখানে এখন আর তাঁরা নেই৷ সেখানে ঝকঝকে রাস্তা হয়েছে৷ রিসোর্ট হয়েছে৷ আমরা গিয়ে আনন্দও পাই৷ আমাদের সেই আনন্দের পেছনে হারিয়ে যাওয়া একদল মানুষের কান্নাও রয়েছে৷

পাহাড়ে রাস্তা হলে হয়ত নাপা ট্যাবলেটের জন্য আকুল হয়ে বসে থাকা পাহাড়ির ওই ট্যাবলেট পাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়৷ কিন্তু একই সঙ্গে উচ্ছেদের আতঙ্কও তাঁদের উপর ভর করে৷

পাহাড়ে দখল-উচ্ছেদ-বন উজাড়ে আদিবাসীরা ঘরহারা হওয়ার পাশাপাশি নানা প্রাকৃতিক সমস্যাও সৃষ্টি হয়৷ প্রথমদিকে শুনে আমিও বেশ আশ্চর্য হয়েছিলাম৷ পরে বুঝেছি, পাহাড়ের চিরায়ত জ্ঞানের পরশ ছাড়া এখানকার প্রকৃতিও ভালো থাকে না৷

যেমন, ধরা যাক, আপনার একটা পাহাড় রয়েছে৷ সেই পাহাড়ের পাদদেশে একটি ঝিরি বয়ে গেছে৷ তার তীরে আপনি বাস করেন৷ হয়ত এক সময় সেই পাহাড়ের গাছ কেটেই আপনার জীবিকা চলতো৷ এখন আপনি একটা ব্যবসা করবেন৷ সেই পাহাড়ে সব গাছ কেটে বিক্রি করে পুঁজি সংগ্রহ করতে চান৷ বা অন্য কোনো কারণে আপনি সব গাছ কেটে ফেলতে চান৷

সাধারণ দৃষ্টিতে এতে কী সমস্যা? নিজের গাছ আপনি বিক্রি করবেন, কে এখানে বাধা দিতে পারে?

কিন্তু এখানেই বিষয়টা শেষ হয়ে যায় না৷ কারণ, এটা পাহাড়৷ পাহাড়ি প্রকৃতি৷ মনে করেন, আপনি সব গাছ কেটে ফেললেন, এরপর কী হবে, জানেন? পাহাড়ে গাছ না থাকায় বন্ধ হয়ে যেতে পারে সেই ঝিরির পানির ধারা৷ পানির উৎস না থাকলে আপনি সেখানে বসবাসও করতে পারবেন না৷ গাছ কেটে ব্যবসার পুঁজি সংগ্রহ হয়তো করতে পারবেন৷ কিন্তু সেটা আপনাকে বসত ঘর থেকে উচ্ছেদ করে ছাড়বে৷

আবার ধরেন, বুঝতে পারার পর আপনি সেই ন্যাড়া পাহাড়ে গাছ লাগিয়ে দিলেন৷ গাছ বড় হলো, কিন্তু ঝিরিতে পানি এলো না৷ হ্যাঁ, এটাও হতে পারে৷ কারণ,  যে কোনো গাছ লাগালেই হবে না৷ কোন প্রজাতির গাছ ঝিরিতে পানি ফেরাতে পারবে, সেটা আপনাকে জানতে হবে৷ কাজ করতে হবে সেই অনুসারে৷ আবার পাহাড়ের গাছ কাটলে সেটা পাহাড় ধ্বসেরও কারণ হতে পারে৷ 

সমাজ

ধান চাষ

চাকমাদের জীবিকা প্রধানত কৃষি কাজ৷ পার্বত্য চট্টগ্রামের সমতল অংশে স্বাভাবিক সেচ পদ্ধতিতে মৌসুমী কৃষি কাজ, এবং পাহাড়ি অঞ্চলে জুম চাষের মাধ্যমে চাকমা জনগোষ্ঠী বিভিন্ন খাদ্যশস্য ও রবিশস্য উৎপাদন করে থাকে৷

সমাজ

পুরুষ-নারী সমানে সমান

আদিবাসী নারীরা পুরুষদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে৷ এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে নারী পুরুষ একসাথে ধানের জমিতে কাজ করছে৷

সমাজ

বাঁশের অঙ্কুর সংগ্রহ

তিন চাকমা নারী বাঁশের অঙ্কুর নিয়ে নৌকায় করে যাচ্ছেন৷

সমাজ

হলুদ সংগ্রহ

এক চাকমা পুরুষ হলুদ সংগ্রহ করে ঝর্ণার পানিতে সেগুলো ধুয়ে নিচ্ছেন৷

সমাজ

স্কুলে যাওয়া

একটি আদিবাসী কিশোরী স্কুলে যাচ্ছে৷

সমাজ

চিংড়ি মাছ সংগ্রহ

দুইটি আদিবাসী বালক-বালিকা ঝিরি (ছোট ঝর্ণা) থেকে চিংড়ি মাছ সংগ্রহ করছে৷

সমাজ

ঐতিহ্যবাহী কম্বল বোনা

এক চাকমা নারী তাদের ঐতিহ্যবাহী কম্বল বুনছেন৷

সমাজ

জাল দিয়ে মাছ ধরা

জাল দিয়ে নদীতে মাছ ধরছেন আদিবাসী নারী-পুরুষ৷

সমাজ

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

বৈসাবি উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশনা৷

সমাজ

ধর্ষণের শিকার

২১ আগস্ট ২০১২ সালে মাত্র ১১ বছর বয়সি এই ত্রিপুরা মেয়েটি খাগড়াছড়িতে এক পুলিশ কনস্টেবলের হাতে ধর্ষণের শিকার হয়েছিল৷ (ছবি: সুমিত চাকমা)

সমাজ

পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের বিক্ষোভ

২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে রাঙামাটিতে পাহাড়িদের উপর জমি নিয়ে বিরোধের জেরে বাঙালিদের হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ৷ (ছবি: পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ)

সমাজ

ধর্ষণের প্রতিবাদ

২০১২ সালে রাঙামাটির সুজাতা নামে এক ১২ বছরের চাকমা কিশোরীকে ধর্ষণ করে হত্যার প্রতিবাদ জানিয়েছিল আদিবাসী শিক্ষার্থীরা৷ (ছবি: সুমাইয়া সাঈদ)

সমাজ

কল্পনা চাকমা

১৯৯৬ সালের ১২ জুন কল্পনা চাকমাকে তুলে নিয়ে যায় সেনাবাহিনীর সদস্যরা৷ তার খোঁজ আজও মেলেনি৷ এই ছবিটি এঁকেছেন প্রজ্ঞান চাকমা৷

সমাজ

চাকমাদের উপর বাঙালিদের হামলা

২০১৪ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে রাঙামাটির বোগাচারিতে তিনটি আদিবাসী গ্রামে হামলা চালায় বাঙালিরা৷ (ছবি: হিমেল চাকমা)

সমাজ

৫৭ টি বাড়ি পোড়ানো হয়

চাকমাদের ৫৭টি বাড়ি পুড়িয়ে ছাড়খার করে দেয়৷ নিঃস্ব হয়ে যায় অনেক পরিবার৷

সমাজ

খাসিয়া উচ্ছেদ

২০১৬ সালের জুন মাসে সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের নাহার পুঞ্জিবাসী খাসিয়াদের উচ্ছেদের নোটিশ জারি করে জেলা প্রশাসন৷ (ছবি: খোকন সিং)

সমাজ

৭০০ মানুষ বাস্তুহারার আশঙ্কা

উচ্ছেদ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভারতীয় সীমান্তবর্তী আদিবাসী গ্রাম নাহার-১ পান পুঞ্জির ৭০০ মানুষকে অন্যত্র চলে যেতে বলা হয়েছে৷ বাড়িঘর ছেড়ে যাওয়ার নোটিশ পাওয়া মানুষদের মধ্যে নারী, শিশু ও বৃদ্ধই বেশি৷

সমাজ

সাঁওতালদের উপর হামলা

২০১৬ সালে ৬ নভেম্বর গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে চিনিকলের বিরোধপূর্ণ জমি নিয়ে চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ও সাঁওতালদের সংঘর্ষ থামাতে গুলি চালায় পুলিশ৷ এতে তিন সাঁওতাল নিহত হন, আহত হন অনেকে৷

সমাজ

জমি অধিগ্রহণ নিয়ে বিরোধ

সাঁওতাল ও বাঙালিদের ১৮টি গ্রামের ১ হাজার ৮৪০ দশমিক ৩০ একর জমি ১৯৬২ সালে অধিগ্রহণ করে চিনিকল কর্তৃপক্ষ আখ চাষের জন্য সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামার গড়ে তুলেছিল৷ চিনিকলের জন‌্য অধিগ্রহণ করা ওই জমিতে কয়েকশ’ ঘর তুলে সাঁওতালরা বসবাস করে আসছিল কয়েক বছর ধরে৷ চিনিকল কর্তৃপক্ষ ওই জমি উদ্ধার করতে গেলে সংঘর্ষ বাঁধে৷

বছরখানেক আগে গিয়েছিলাম খাগড়াছড়ি জেলার দিঘীনালা উপজেলায়৷ পাহাড়ের গাছ, পাহাড়িদের জীবন আর পানি ফেরানোর লড়াই যেন সেখানে একাকার হয়ে গেছে৷ দিঘীনালা থানার ঘোনাপাড়ার কার্বারি সন্তোষ কুমার ওই সময় আমাকে বলেছিলেন, আমাদের পাড়ার পাশে একটি ছড়া থেকে আমরা পানি পাই৷ ১৫ বছর আগেও সারা বছর এই ধারা থাকলেও এখন ফাল্গুন ও চৈত্র মাসে সেই ছড়াতে আর পানি পাওয়া যায় না৷ 

নিজের পাড়া থেকে দুই কিলোমিটার দূরে ভৈরপা ব্রিজের কাছে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, তখন আমাদেরকে এই ছড়া থেকে পানি নিতে হয়৷ পানি কমার কারণ হিসাবে আগের মতো গাছপালা না থাকাকে উল্লেখ করেন ৫৫ বছর বয়সি এই পাহাড়ি অধিবাসী৷

শুষ্ক মৌসুম এলেই এত দূর থেকে পানি নেওয়া পরিবারের প্রধান কাজ হয়ে যায় উল্লেখ করে তিনি জানান, কখনো নিজেকে, কখনো তাঁর স্ত্রী আবার কখনো ছেলেদের এসে পানি নিতে হয়৷ তবে পরিবারের প্রায় সবাইকে গোসলের জন্যও  কখনো দূরে আসতে হয় বলেও জানান তিনি৷

পাশের অন্য এক পাড়ার বাসিন্দা পূণ্যমনি চাকমা বলেন, এই এলাকায় এক সময় পালা ছাগলের পালের মতো বন্য শুকর, ভাল্লুক ও হরিণ দেখা যেতো৷ বাঘও চোখে পড়ত প্রায়ই৷ জমিতে বা পাহাড়ে কাজ করতে বা অন্য কোথাও যেতে মানুষকে দল বেঁধে যেতে হতো৷

‘ওইসব এখন স্বপ্নের মতো' উল্লেখ করে তিনি বলেন, সমতল থেকে আসা বাঙালিদের কাঠ ব্যবসা, ব্রিকফিল্ড আর তামাক চাষের কারণে সেই বন হারিয়ে গেছে৷

তবে পানির উৎস ফেরানোর সংগ্রাম এখানকার কয়েকটি পাড়াতেই দেখেছি৷ এখানকার মানুষের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, তাঁরা ভারত প্রত্যাগত৷ উজাড় পাহাড় আবাদ করে পানির উৎস গড়ে তাঁরা এই এলাকায় বসবাস করার সংগ্রাম করছেন৷ পাহাড়ি বনে গাছ লাগিয়েছেন৷ কয়েক বছর ধরে ঝিরিতে পানির প্রবাহ বাড়ছে৷

আরণ্যক ফাউন্ডেশন নামে একটি সংস্থা এই এলাকায় এ বিষয়ে কাজ করলেও তারা কাজে লাগিয়েছে আদিবাসীদের চিরায়ত জ্ঞানকেই৷

DW | Muha Suliman

সুলাইমান নিলয়, সাংবাদিক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম


এই ঝিরির সঙ্গে পাহাড়ের আরো বহু কিছুর সম্পর্ক রয়েছে৷ ছোট ছোট এসব ঝিরি হচ্ছে পানির উৎস৷ অনেকগুলো ঝিরির পানি দিয়ে তৈরি হয় ঝরনা, যা শেষ পর্যন্ত গিয়ে পড়ে নদীতে৷ সব স্তরেই এসব পানির উৎসের উপর নির্ভর করে বেঁচে থাকে বহু পাড়া, বহু মানুষ৷

এসব ঝিরিতে পানি না থাকলে শুকিয়ে যায় ঝরনা, পানি থাকে না নদীতে৷ সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ের বিভিন্ন নদীতে শুষ্ক মৌসুমে তীব্র হয় পানির স্বল্পতা৷ কোনো কোনো নদী শুকিয়েও যায়৷ নদীতে পানি না থাকা অনেকের চোখে পড়ে৷ চোখে পড়ে না পানিশূন্যতার কারণ৷

পাহাড়ের গাছ উজাড় হলে বেড়ে যায় ভূমিক্ষয়৷ ক্ষয় হয়ে যাওয়া মাটিতে ভরে যায় ঝিরি-নদী৷ ফলে বর্ষায় বন্যা হয়, যা অন্য ধরনের দুর্দশা ডেকে আনে পাহাড়িদের জীবনে৷

এভাবে পাহাড়ের প্রকৃতি নির্ভর জীবনে একটির সঙ্গে অন্যটি অঙ্গাঅঙ্গিভাবে জড়িত৷ এক জায়গায় ছেদ পড়লে পুরো সিস্টেম পাল্টে যায়৷ রুদ্ররূপ ধারণ করে প্রকৃতি৷ তাই পাহাড়কে পাহাড়ের মতো রাখতে, মানুষের বাসযোগ্য রাখতে রক্ষকদের কাছেই ফিরিয়ে দিতে হবে৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷