শরণার্থী ইস্যুতে অনড় ম্যার্কেল

শরণার্থী ইস্যুতে জার্মানিতে তাঁর জনপ্রিয়তায় অনেকটা ভাটার টান৷ তারপরও মানবতার পক্ষেই কথা বলছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ জার্মান চ্যান্সেলর জানিয়েছেন, শরণার্থী সংকট সমাধানে নিজের অবস্থান বদলাবেন না৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

ম্যার্কেলের ভাষায়, ‘‘(শরণার্থী ইস্যুতে) আমার কোনো প্ল্যান ‘বি' নেই৷'' জার্মান টেলিভিশন চ্যানেল এআরডি-কে ঠিক এই কথাই বলেছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ চ্যানেলটিকে গত পাঁচ মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার সাক্ষাৎকার দিলেন বিশ্ব রাজনীতিতে ‘লৌহমানবী' হিসেবে পরিচিতি পাওয়া জার্মান নেত্রী৷ এ সময়ে আরেক জার্মান চ্যানেল জেডডিএফ-এর সঙ্গেই শুধু একবার সবিস্তারে কথা বলেছেন তিনি৷

আগের দু'টি সাক্ষাৎকারের মতো রবিবার এআরডে-র আনে ভিলকে দেয়া সাক্ষাৎকারেও চলমান শরণার্থী সংকটই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে৷ ম্যার্কেলের বক্তব্যেও আসেনি তেমন কোনো পরিবর্তন৷ মানছেন, শরণার্থীর স্রোত প্রবল ঢেউ হয়ে জার্মানি এবং ইউরোপের রাজনীতিকেও নাড়িয়ে দিয়েছে৷ তা মেনে নিয়েই জানিয়েছেন, শরণার্থীর আগমন রোখার জন্য ইউরোপের সব দেশের সীমান্ত বন্ধ করে দেয়াকেই সংকট নিরসনের সর্বোত্তম উপায় বলে তিনি মনে করেন না৷

জার্মানিকে চাই...

সেই ছবি৷ বুদাপেস্টে তখন শরণার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে৷ অস্ট্রিয়া বা জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ৷ সবাই ছুটছিলেন প্ল্যাটফর্মের দিকে৷ পুলিশ ফিরিয়ে দিলো৷ স্টেশনের বাইরে শুরু হলো বিক্ষোভ৷ কারো কারো হাতে তখন ট্রেনের টিকিট৷ কেউ ক্ষোভ জানালেন কোলের সন্তানকে নিয়ে৷ অনেক শিশুর হাতে দেখা গেল, ‘উই ওয়ান্ট জার্মানি’ লেখা কাগজ৷ ইউরোপে এত দেশ থাকতে কেন জার্মানি?

আছে নব্য নাৎসি, পুড়েছে শরণার্থী শিবির, তবুও...

জার্মানির কোথাও কোথাও শরণার্থীবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ অনেক জায়গায় রাতের অন্ধকারে আশ্রয় শিবিরে লেগেছে আগুন৷ তারপরও অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিকেই বেছে নিতে চায়৷

বড় কারণ ম্যার্কেল এবং...

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ব্যাপারে শুরু থেকেই উদার জার্মানি৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেল সবসময়ই অভিবাসী এবং অভিবাসনপ্রত্যাশীদের পাশে ছিলেন৷ পেগিডা আন্দোলনের সময়ও সরকারের অভিবাসীদের পাশে থাকার কথা স্পষ্ট করেই বলেছেন ম্যার্কেল৷ পাশে থেকেছেও৷ জার্মানির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষও ছিল তাঁর পাশে৷ এখনও আছে৷ এই বিষয়গুলোও মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মনে জার্মানির প্রতি আরো আস্থাশীল করেছে৷

তোমাদের স্বাগত

অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিতে পা রেখেই দেখেছে অবাক হওয়ার মতো দৃশ্য৷ এখানে তাঁরা অনাহূত নয়৷ নিজের দেশ থেকে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসে জার্মানিতে পাচ্ছেন সাদর সম্ভাষণ!

জার্মানির নেতৃত্বে ম্যার্কেল, ইউরোপের নেতৃত্বে জার্মানি

বৃহস্পতিবার আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, শরণার্থীদের বিষয়ে জার্মানির ভূমিকা হতে হবে অনুসরণীয়, দৃষ্টান্তমূলক৷ জার্মানির সংসদের নিম্নকক্ষ বুন্ডেসটাগে বক্তব্য রাখার সময় তিনি আরো বলেন, অভিবাসন সংকট মোকাবেলায় ইউরোপকেও সফল হতে হবে৷

শরণার্থীদের পাশে ম্যার্কেল

বৃহস্পতিবার কয়েকদিন আগেই জার্মানিতে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীদের দেখতে গিয়েছিলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থীর ‘বন্ধু’ ম্যার্কেল

দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষটিকে শরণার্থীরা নিজেদের একজন হিসেবেই বরণ করে নিয়েছিলেন৷ শরণার্থীদের সঙ্গে বন্ধুর মতোই সময় কাটিয়েছেন ম্যার্কেল৷ কয়েকজন শরণার্থী তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন৷ সানন্দে তাঁদের আশা পূরণ করেছেন ম্যার্কেল৷

তাঁর মতে, শরণার্থীদের কারণে অবশ্যই ‘পথ দুর্গম' হয়েছে, তবে জার্মানির জন্য ‘এটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এক ঐতিহাসিক ক্ষণ৷' ম্যার্কেল মনে করেন, এ পরিস্থিতিতে জার্মানির উচিত ‘ইউরোপকে একীভূত রেখে মানবতার পক্ষে অবস্থানটা ধরে রাখা৷'

ড্রেসডেনে ইসলাম বিরোধী পেগিডা গোষ্ঠীর বিক্ষোভ সমাবেশে গত সোমবার প্রায় ন’হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন৷ বিক্ষোভকারীরা মূলত চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল-কেই বর্তমান উদ্বাস্তু সংকটের জন্য দায়ী করছেন৷

টুরিঙ্গিয়ায় এর আগেও উদ্বাস্তু আবাস হিসেবে চিহ্নিত বাড়িঘরে আগুন ধরিয়ে শরণার্থীদের আসা বন্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছে৷ যেমন বিশহাগেন-এর এই বাড়িটির ছাদ পুরোপুরি পুড়ে গিয়েছে৷ গত সোমবার এখানে প্রথম উদ্বাস্তুদের আসার কথা ছিল৷

ম্যার্কেলের ভাষায়, ‘‘(শরণার্থী ইস্যুতে) আমার কোনো প্ল্যান ‘বি' নেই৷'' জার্মান টেলিভিশন চ্যানেল এআরডি-কে ঠিক এই কথাই বলেছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ চ্যানেলটিকে গত পাঁচ মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার সাক্ষাৎকার দিলেন বিশ্ব রাজনীতিতে ‘লৌহমানবী' হিসেবে পরিচিতি পাওয়া জার্মান নেত্রী৷ এ সময়ে আরেক জার্মান চ্যানেল জেডডিএফ-এর সঙ্গেই শুধু একবার সবিস্তারে কথা বলেছেন তিনি৷

আগের দু'টি সাক্ষাৎকারের মতো রবিবার এআরডে-র আনে ভিলকে দেয়া সাক্ষাৎকারেও চলমান শরণার্থী সংকটই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে৷ ম্যার্কেলের বক্তব্যেও আসেনি তেমন কোনো পরিবর্তন৷ মানছেন, শরণার্থীর স্রোত প্রবল ঢেউ হয়ে জার্মানি এবং ইউরোপের রাজনীতিকেও নাড়িয়ে দিয়েছে৷ তা মেনে নিয়েই জানিয়েছেন, শরণার্থীর আগমন রোখার জন্য ইউরোপের সব দেশের সীমান্ত বন্ধ করে দেয়াকেই সংকট নিরসনের সর্বোত্তম উপায় বলে তিনি মনে করেন না৷

জার্মানিকে চাই...

সেই ছবি৷ বুদাপেস্টে তখন শরণার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে৷ অস্ট্রিয়া বা জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ৷ সবাই ছুটছিলেন প্ল্যাটফর্মের দিকে৷ পুলিশ ফিরিয়ে দিলো৷ স্টেশনের বাইরে শুরু হলো বিক্ষোভ৷ কারো কারো হাতে তখন ট্রেনের টিকিট৷ কেউ ক্ষোভ জানালেন কোলের সন্তানকে নিয়ে৷ অনেক শিশুর হাতে দেখা গেল, ‘উই ওয়ান্ট জার্মানি’ লেখা কাগজ৷ ইউরোপে এত দেশ থাকতে কেন জার্মানি?

আছে নব্য নাৎসি, পুড়েছে শরণার্থী শিবির, তবুও...

জার্মানির কোথাও কোথাও শরণার্থীবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ অনেক জায়গায় রাতের অন্ধকারে আশ্রয় শিবিরে লেগেছে আগুন৷ তারপরও অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিকেই বেছে নিতে চায়৷

বড় কারণ ম্যার্কেল এবং...

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ব্যাপারে শুরু থেকেই উদার জার্মানি৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেল সবসময়ই অভিবাসী এবং অভিবাসনপ্রত্যাশীদের পাশে ছিলেন৷ পেগিডা আন্দোলনের সময়ও সরকারের অভিবাসীদের পাশে থাকার কথা স্পষ্ট করেই বলেছেন ম্যার্কেল৷ পাশে থেকেছেও৷ জার্মানির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষও ছিল তাঁর পাশে৷ এখনও আছে৷ এই বিষয়গুলোও মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মনে জার্মানির প্রতি আরো আস্থাশীল করেছে৷

তোমাদের স্বাগত

অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিতে পা রেখেই দেখেছে অবাক হওয়ার মতো দৃশ্য৷ এখানে তাঁরা অনাহূত নয়৷ নিজের দেশ থেকে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসে জার্মানিতে পাচ্ছেন সাদর সম্ভাষণ!

জার্মানির নেতৃত্বে ম্যার্কেল, ইউরোপের নেতৃত্বে জার্মানি

বৃহস্পতিবার আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, শরণার্থীদের বিষয়ে জার্মানির ভূমিকা হতে হবে অনুসরণীয়, দৃষ্টান্তমূলক৷ জার্মানির সংসদের নিম্নকক্ষ বুন্ডেসটাগে বক্তব্য রাখার সময় তিনি আরো বলেন, অভিবাসন সংকট মোকাবেলায় ইউরোপকেও সফল হতে হবে৷

শরণার্থীদের পাশে ম্যার্কেল

বৃহস্পতিবার কয়েকদিন আগেই জার্মানিতে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীদের দেখতে গিয়েছিলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থীর ‘বন্ধু’ ম্যার্কেল

দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষটিকে শরণার্থীরা নিজেদের একজন হিসেবেই বরণ করে নিয়েছিলেন৷ শরণার্থীদের সঙ্গে বন্ধুর মতোই সময় কাটিয়েছেন ম্যার্কেল৷ কয়েকজন শরণার্থী তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন৷ সানন্দে তাঁদের আশা পূরণ করেছেন ম্যার্কেল৷

তাঁর মতে, শরণার্থীদের কারণে অবশ্যই ‘পথ দুর্গম' হয়েছে, তবে জার্মানির জন্য ‘এটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এক ঐতিহাসিক ক্ষণ৷' ম্যার্কেল মনে করেন, এ পরিস্থিতিতে জার্মানির উচিত ‘ইউরোপকে একীভূত রেখে মানবতার পক্ষে অবস্থানটা ধরে রাখা৷'

গত কয়েকমাসে জার্মানিতে শরণার্থীদের ওপর আক্রমণ বেড়েছে৷ আবার নববর্ষ উদযাপনের রাতে কোলনসহ কয়েকটি শহরে নারীদের ওপর নজিরবিহীন নিপীড়নের ঘটনাও ঘটেছে, যার সঙ্গে উত্তর আফ্রিকা থেকে আসা শরণার্থীরাই যে বেশি জড়িত ছিলেন তা মোটামুটি নিশ্চিত৷ এ প্রসঙ্গে অবশ্য আইনকে সমুন্নত রেখে নাগরিক অধিকার সুরক্ষার প্রয়োজনীতাকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ত দিচ্ছেন ম্যার্কেল৷ এআরডিকে তিনি বলেছেন, ‘‘শরণার্থীদের কাছে প্রথম থেকেই আইনের দিকটি স্পষ্ট করতে হবে৷ মনে রাখতে হবে, সমাজে তাদের অন্তর্ভুক্তির প্রক্রিয়াটি শুধুই স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজ নয়৷''

উদ্বাস্তু শিবিরে দাঙ্গা

হামবুর্গ শহরের ভিলহেল্মসবুর্গ এলাকায় শরণার্থীদের প্রাথমিক আশ্রয়কেন্দ্রটি ভরে যাওয়ায় আগন্তুকদের তাঁবুতে থাকার ব্যবস্থা করা হয়৷ মঙ্গলবার (৬ই অক্টোবর) সেখানে আফগানিস্তান ও আলবেনিয়া থেকে আগত উদ্বাস্তুদের মধ্যে ব্যাপক দাঙ্গা বাঁধে৷ লোয়ার স্যাক্সনি-র ব্রাউনশোয়াইগ-এও অনুরূপভাবে আলজিরীয় ও সিরীয় উদ্বাস্তুদের মধ্যে দাঙ্গা বাঁধে একটি চুরির অভিযোগকে কেন্দ্র করে৷

ইসলাম বিরোধীরা আবার মাথা চাড়া দিয়েছে

ড্রেসডেনে ইসলাম বিরোধী পেগিডা গোষ্ঠীর বিক্ষোভ সমাবেশে গত সোমবার প্রায় ন’হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন৷ বিক্ষোভকারীরা মূলত চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল-কেই বর্তমান উদ্বাস্তু সংকটের জন্য দায়ী করছেন৷

ম্যার্কেল লাগাম টানলেন

চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল দৃশ্যত তাঁর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টোমাস ডেমেজিয়ের-এর গুরুত্ব কিছুটা খর্ব করে চ্যান্সেলরের দপ্তরের প্রধান পেটার আল্টমায়ার-কে শরণার্থী সংক্রান্ত কর্মকাণ্ড সমন্বয়ের দায়িত্ব দিয়েছেন৷

উদ্বাস্তুর লাশ

টুরিঙ্গিয়া রাজ্যের সালফেল্ড-এ অবস্থিত একটি রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী আবাসে সোমবার একটি অগ্নিকাণ্ডের পর ২৯ বছর বয়সি এক ইরিট্রিয়ান উদ্বাস্তুর লাশ পাওয়া যায়৷ কিভাবে এই শরণার্থী প্রাণ হারিয়েছেন, তা এখনও অজ্ঞাত৷ তবে আবাসটিতে ইচ্ছাকৃতভাবে অগ্নিসংযোগের কোনো হদিশ পুলিশ এখনও পায়নি৷

যে কোনো পন্থায়

টুরিঙ্গিয়ায় এর আগেও উদ্বাস্তু আবাস হিসেবে চিহ্নিত বাড়িঘরে আগুন ধরিয়ে শরণার্থীদের আসা বন্ধ করার চেষ্টা করা হয়েছে৷ যেমন বিশহাগেন-এর এই বাড়িটির ছাদ পুরোপুরি পুড়ে গিয়েছে৷ গত সোমবার এখানে প্রথম উদ্বাস্তুদের আসার কথা ছিল৷

ঘরে বাইরে

শরণার্থী সংকট এখন জার্মানির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতেও টান ধরাচ্ছে৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেলের সিডিইউ দলের জোড়োয়া দল বাভারিয়ার সিএসইউ৷ তাদের প্রধান হর্স্ট জেহোফার সেপ্টেম্বর মাসের শেষে একটি দলীয় সম্মেলনে বক্তা হিসেব আমন্ত্রণ জানান হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অর্বান-কে, যিনি সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে উদ্বাস্তুর স্রোত আটকানোর চেষ্টা করেছেন৷

হাওয়া যদি বদলায়

বাভারিয়ার অর্থমন্ত্রী মার্কুস জ্যোডার ইতিপূর্বেও বলেছেন: ‘‘আমরা (অর্থাৎ জার্মানি) বিশ্বকে বাঁচাতে পারি না৷’’ এমনকি তিনি অস্ট্রিয়া সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার কথাও চিন্তা করেছেন৷ তবে জ্যোডার যখন সম্প্রতি রাজনৈতিক আশ্রয় প্রাপ্তির সাংবিধানিক অধিকার সীমিত করার কথা বলেন, তখন জেহোফার স্বয়ং সাথে সাথে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন৷

এসিবি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স, এআরডি )

আঙ্গেলা ম্যার্কেল মনে করেন, সবকিছুর পরও শরণার্থী ইস্যুতে জার্মানির উচিত ইউরোপকে একীভূত রেখে মানবতার পক্ষে অবস্থান ধরে রাখা৷ আপনিও কি তা-ই মনে করেন? প্রিয় পাঠক, নীচে আপনার মতামত জানান৷

ম্যার্কেলের ভাষায়, ‘‘(শরণার্থী ইস্যুতে) আমার কোনো প্ল্যান ‘বি' নেই৷'' জার্মান টেলিভিশন চ্যানেল এআরডি-কে ঠিক এই কথাই বলেছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ চ্যানেলটিকে গত পাঁচ মাসে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার সাক্ষাৎকার দিলেন বিশ্ব রাজনীতিতে ‘লৌহমানবী' হিসেবে পরিচিতি পাওয়া জার্মান নেত্রী৷ এ সময়ে আরেক জার্মান চ্যানেল জেডডিএফ-এর সঙ্গেই শুধু একবার সবিস্তারে কথা বলেছেন তিনি৷