সচেতনতামূলক যে বিজ্ঞাপন ভাইরাল হলো

বাংলাদেশে একটি চুলের তেল উৎপাদনকারী কোম্পানির আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে নির্মাণ করা বিজ্ঞাপন ভাইরাল হয়েছে৷ নির্যাতনের ব্যাপারে মুখ খুলতে নারীদের আহ্বান জানানো হয়েছে এতে৷

বিজ্ঞাপনে দেখা যায়, এক তরুণী সেলুনে গিয়ে তার চুল ছোট করে দিতে বলছেন৷ এমনই ছোট যেন হাতের মুঠি দিয়ে ধরা না যায়৷ নির্যাতন থেকে মুক্তি পেতে যে তিনি এমন অনুরোধ করছেন সেটি স্পষ্ট বোঝা গেছে৷ বিজ্ঞাপনের এই পর্যায়ে এসে নারী নির্যাতন বিষয়ক একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়৷ বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ‘ভায়োলেন্স এগেইনস্ট উইমেন সার্ভে ২০১৫’ শীর্ষক দ্বিতীয় জরিপ থেকে তথ্যটি নেয়া হয়েছে৷ এতে বলা হয়, বাংলাদেশ প্রতি ১০০ জনে ৮০ জন নারীই জীবনে কোনো না কোনোভাবে নির্যাতনের শিকার হন৷ এছাড়া স্বামীর নির্যাতনের শিকার হলেও ৭২ দশমিক ৭ শতাংশ নারী তাঁদের ওপর নির্যাতনের কথা কখনোই অন্যদের জানাননা বলেও ঐ জরিপে জানা গেছে৷ ভাইরাল এই ভিডিওতে নির্যাতন নিয়ে মুখ খুলতে নারীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়৷ শেষে একটি টোল ফ্রি নম্বর দিয়ে যে কোনো পরামর্শ ও সহায়তার জন্য সেখানে ফোন করতে বলা হয়৷ নম্বরটি হচ্ছে ০৮০০০৮৮৮০০০৷

চারদিন আগে নিজেদের ফেসবুক পাতায় ভিডিওটি শেয়ার করে জুঁই কর্তৃপক্ষ৷ এখন পর্যন্ত সেটি ২৯ লক্ষের বেশিবার দেখা হয়েছে৷ শেয়ার হয়েছে ৬৫ হাজারেরও বেশিবার৷ আর মন্তব্য এসেছে পাঁচ হাজারের বেশি৷ শেখ মনজুরুল ইসলাম লিখেছেন, ‘‘দেখেই চোখে পানি আসলো৷ কথা দিলাম আমি আমার ছেলেকে শেখাবো কিভাবে সবাইকে সম্মান করতে হয়...৷’’ তবে বিজ্ঞাপনের বিষয় নিয়ে সন্তুষ্ট নয় নাসরিন সুলতানা কেয়া৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘সরি, আমি খুশি হতে পারলাম না৷ আমার খুব রাগ হয়েছে৷ মেয়েদের এত ছোট করে কেনে দেখা হলো? আমাদের চিন্তা হবে পজিটিভ৷ এই যুগে এসেও যদি স্বামীর অত্যাচার হতে বাঁচতে নিজের চুল বিসর্জন দিতে হয় এর চেয়ে লজ্জা আর কিছু কি আছে?’’

জেডএইচ/ডিজি

রাজনীতি

সমান অধিকার

মাতৃতান্ত্রিক সমাজ বলতে বোঝায় যেখানে পরিবারের দায়িত্ব থাকে একজন নারীর উপর এবং বংশের ধারাও নির্ধারিত হয় নারীর দিক থেকে৷ মোটের উপর সম্পদের দায়িত্বও মা থেকে মেয়ের উপর বর্তায় এবং বিয়ের পর পুরুষ নারীর ঘরে চলে যান৷ তবে রাজনৈতিক এবং সামাজিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের দায়িত্ব থাকে পুরুষের কাঁধে৷ আর তারা এটাকে বিবেচনা করে ক্ষমতার সুষম বণ্টন হিসেবে৷

রাজনীতি

মিনানকাবাও (ইন্দোনেশিয়া)

চার মিলিয়ন মানুষের সম্প্রদায় মিনানকাবাও দুনিয়ার সবচেয়ে বড় মাতৃতান্ত্রিক সমাজ৷ প্রথাগতভাবে এনিমিস্ট হলেও একসময় হিন্দুধর্ম এবং বৌদ্ধধর্ম দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে এই সম্প্রদায়৷ বর্তমানে তাদের অনেকে আবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন৷ এই সম্প্রদায় মনে করে, কোরআন মেনেই মাতৃতান্ত্রিক সমাজ চালু রেখেছেন তারা, কেননা কোরআনে নারীর সম্পদের মালিক হতে বা কমিউনিটির সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে কোনো বিধিনিষেধ নেই৷

রাজনীতি

মোসুও (চীন)

মায়ের নেতৃত্বে বড় পরিবারে থাকতে অভ্যস্ত ম্যোসু সম্প্রদায়ের মানুষেরা৷ তাদের মধ্যে ‘স্বামী’ বা ‘পিতা’ বলে কিছু আসলে নেই৷ এই সম্প্রদায় ‘ওয়াকিং ম্যারেজে’ বিশ্বাসী, অর্থাৎ একজন পুরুষ চাইলে একজন নারীর বাড়িতে যেতে পারেন এবং রাতটি তার সঙ্গে কাটাতে পারেন৷ তবে স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে বসবাসের বিধান নেই এই সম্প্রদায়ে৷

রাজনীতি

খাসি (ভারত)

খাসি সম্প্রদায়ের কাছে কন্যা সন্তান জন্ম নেয়া মানেই উৎসবের উপলক্ষ্য৷ আর ছেলে সন্তান এক সাধারণ ব্যাপার৷ সাধারণত পরিবারের সবচেয়ে ছোট মেয়ে সব সম্পদের উত্তরাধিকারী হন৷ কোনো দম্পতির যদি মেয়ে না থাকে, তাহলে তারা একটি কন্যা দত্তক নেয় এবং সব সম্পদ তাকে দিয়ে দেয়৷ মাতৃতান্ত্রিক ব্যবস্থার কারণে অনেক খাসি পুরুষ নিজেদের অধিকারের দাবিতে আন্দোলনেও নামেন৷

রাজনীতি

গারো (ভারত, বাংলাদেশ)

গারো সম্প্রদায়ের মানুষ তাদের মায়ের পদবী গ্রহণ করে আর পরিবারের সবচেয়ে ছোট মেয়ে মায়ের সম্পদের উত্তরাধিকারী হয়৷ অতীতে ছেলেদের বয়ঃসন্ধিকাল শুরু হলে তাদের পরিবার থেকে আলাদা করে গ্রামের ব্যাচেলর ডর্মেটরিতে নিয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হতো৷ কিন্তু খ্রিষ্টধর্মের প্রভাবের কারণে পরবর্তীতে এই চর্চা বাতিল হয়ে গেছে৷ বর্তমানে গারো বাবা-মায়েরা সব সন্তানকে সমানভাবে দেখার চেষ্টা করেন৷

রাজনীতি

চাম (দক্ষিণপূর্ব এশিয়া)

কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম এবং থাইল্যান্ডে বিস্তৃত চাম সম্প্রদায়ের মানুষরাও মাতৃতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থা অনুসরণ করেন৷ তারা মায়ের পদবি নেন এবং সম্পদের উত্তরাধিকারী হন মা থেকে মেয়ে সবাই৷ আর স্বামী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সেই সম্প্রদায়ের মেয়েদের পূর্ণ স্বাধীনতা রয়েছে৷

রাজনীতি

ধারা বদলে যাচ্ছে?

তবে সময়ের সাথে সাথে মাতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায়ও পরিবর্তন আসছে৷ জীবনধারণের অন্যান্য সুযোগের চাপ ছাড়াও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের পুরুষদের বাঁধার মুখে মাতৃতান্ত্রিক ব্যবস্থা গুরুত্ব হারাচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷