বিশ্ব

সবচেয়ে শেষে মৃত্যু হবে আশার, স্বপ্নের

প্যারিসে চলছে জলবায়ু সম্মেলন৷ বিশ্ব নেতারা সেখানে বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরুদ্ধে নানা ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছেন৷ কিন্তু বিশ্বকে বাঁচাতে প্যারিসের এ সম্মেলন কি কার্যকর হবে? ইয়েন্স টুরাউ মনে করেন, এই চুক্তি অলিক স্বপ্ন মাত্র৷

Frankreich Paris Klimakonferenz Plakate

প্রথমেই একটা সুখবর৷ প্যারিস জলবায়ু সম্মেলনে উপস্থিত ১৫০টি দেশের রাষ্ট্র এবং সরকার প্রধানদের সকলেই একটি বিষয়ে একমত – জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় সকলকে একজোটে এগিয়ে আসতে হবে৷ তা না হলে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের মাত্রা, তথা বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ঠেকানো কখনোই সম্ভব নয়৷ অবশেষে আজ সকলেই একমত যে জলবায়ুর পরিবর্তন বর্তমানকালের এক স্বীকৃত সত্য, বাস্তব ঘটনা৷ তাপমাত্রা বাড়ছে৷

ঘটছে পৃথিবী নামের গ্রহটির উষ্ণায়ন৷ আর উষ্ণতা বাড়ার কারণে বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, খরা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের হারও বাড়ছে এবং ভবিষ্যতে আরো বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ তাই যৌথ উদ্যোগ প্রয়োজন৷

কিন্তু বিশ্বের উন্নত, উন্নয়নশীল এবং অনুন্নত দেশগুলোর মধ্যে একটি কার্যকর চুক্তি আজও অলিক এক কল্পনা মাত্র৷ কানকুন থেকে কোপেনহেগেন – শত আলাপ-আলোচনার পরও একটি স্বতঃসিদ্ধ চুক্তিতে পৌঁছাতে পারেনি বিশ্ব৷ এমনকি হালে প্যারিসেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং– উভয়ে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার কথা বলে যৌথ নেতৃত্বের দাবি তুলেছেন, ঠিকই৷ কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতিটা ততটা আশাজনক মনে হচ্ছে না৷

এই যেমন, বিশ্বের গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমনের ৩০ শতাংশ আসে চীন থেকে, যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রায় ১৬ শতাংশ৷

Thurau Jens Kommentarbild App

ডয়চে ভেলের ইয়েন্স টুরাউ

গতবছরই ওবামা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে, মার্কিন কার্বন নির্গমন আগামী দশ বছরের মধ্যে ২৮ শতাংশ কমানো হবে৷ অন্যদিকে শি ঘোষণা করেন যে, চীন ২০৩০ সালে অথবা তার আগেই কার্বন নির্গমন সীমিত করার সিদ্ধান্ত নেবে৷ কিন্তু সেই কর্মকাণ্ডের কতটা পথ তারা পার হয়েছে? তাছাড়া এর ফলে বিশ্বের ছোট দ্বীপরাজ্যগুলির ভবিষ্যৎ যে খুব উজ্জ্বল হয়ে উঠবে, এমনটাও নয়৷ স্বাভাবিকভাবেই যুক্তরাষ্ট্র বা চীনের মতো ‘বড়' দেশগুলোর ভারত-বাংলাদেশের মতো ‘ছোট' দেশগুলো নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই৷ কাজেই ‘ছোটদের' পক্ষে বর্তমান ও আগামী পরিস্থিতি মেনে নিয়ে সেই অনুযায়ী পেশা ও জীবিকা পরিবর্তন করাই হবে হয়ত সেরা পন্থা৷ তাই একটি সার্বিক জলবায়ু চুক্তি আজ শুধুই যেন অলিক স্বপ্ন৷ আর সবচেয়ে শেষে মৃত্যু হবে সেই আশার, সেই স্বপ্নের৷

বন্ধু, আপনি কি ইয়েন্স টুরাউ-এর সঙ্গে একমত? জানান নীচে, মতামতের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

Albanian Shqip

Amharic አማርኛ

Arabic العربية

Bengali বাংলা

Bosnian B/H/S

Bulgarian Български

Chinese (Simplified) 简

Chinese (Traditional) 繁

Croatian Hrvatski

Dari دری

English English

French Français

German Deutsch

Greek Ελληνικά

Hausa Hausa

Hindi हिन्दी

Indonesian Bahasa Indonesia

Kiswahili Kiswahili

Macedonian Македонски

Pashto پښتو

Persian فارسی

Polish Polski

Portuguese Português para África

Portuguese Português do Brasil

Romanian Română

Russian Русский

Serbian Српски/Srpski

Spanish Español

Turkish Türkçe

Ukrainian Українська

Urdu اردو