বাংলাদেশ

সাফল্য থাকলেও স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় মানুষ খুশি নয়

বাংলাদেশে স্বাস্থ্যসেবার চিত্রটি বোঝার জন্য শুধুমাত্র হাসপাতাল, চিকিৎসক, ঔষধ বা হাসাপতালের বেড ও রোগীর অনুপাতের হিসাব দেয়া যথেষ্ট নয়৷ এর সঙ্গে গড় আয়ু, শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার এবং চিকিৎসা খরচ বিবেচনায় রাখা প্রয়োজন৷

BHangladesch Dhaka Medical College und Krankenhaus (DW)

১৬ কোটি মানুষের দেশে কতজন চিকিৎসকের কাছে যেতে পারেন এবং স্বাস্থ্য সচেতনতা তাদের মধ্যে কেমন সেটাও জানা জরুরি৷ স্বাস্থ্য ব্যবস্থার একটি সূচক দেশের মানুষের গড় আয়ু৷ বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে৷ এই গড় আয়ু এখন ৭০ বছর ছাড়িয়ে গেছে৷ ২০০৯ সালে একজনের গড় আয়ু ছিল ৬৭. ২ বছর৷ আর ২০১৩ সালে তা বেড়ে হয়েছে ৭০.১ বছর৷ গত এপ্রিলে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ‘মনিটরিং দ্য সিচুয়েশন অব ভাইটাল স্ট্যাটিসস্টিকস অব বাংলাদেশ' প্রকল্পের প্রাথমিক ফলাফলে এ তথ্য পাওয়া গেছে৷ তাতে বলা হয়েছে, নারীর গড় আয়ু ৭১.৪ বছর আর পুরুষের ৬৮.৮ বছর৷ বাংলাদেশের নারীরা পুরুষের তুলনায় গড়ে পৌনে তিন বছর বেশি বাঁচেন৷

জনসংখ্যাবিদ ও বিবিএস গড় আয়ু বাড়ার পিছনে যে কারণগুলোকে চিহ্নিত করেছেন তা হলো- শিশু ও মাতৃমৃত্যু হার হ্রাস, বাল্যবিবাহ প্রবণতা কমে যাওয়া, স্বাস্থ্য ও শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সামাজিক সূচকের  অগ্রগতি৷ এখন মানুষ প্রাণঘাতী রোগের দ্রুত চিকিৎসাসেবা পাচ্ছেন৷ তাই এই প্রাণঘাতী রোগ মহামারি আকার ধারণ করতে পারছে না৷ বিবিএস বলছে, প্রতিবছরই গড় আয়ু বাড়ছে৷ একজন বাংলাদেশির গড় আয়ু ২০১০ সালে ৬৭.৭ বছর, ২০১১ সালে ৬৯ বছর ও ২০১২ সালে ৬৯.৪ বছর ছিল৷

অডিও শুনুন 05:42

‘‘সমস্যা সমাধানে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের ডাবল শিফট চালু করা যেতে পারে’’

এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার মানের ওপর সর্বশেষ যে র‌্যাংকিং প্রকাশ করেছে তাতে বাংলাদেশের অবস্থান ৮৮ তম৷ সার্কভুক্ত দেশগুলোর ভিতরে বাংলাদেশের উপরে কেবল রয়েছে শ্রীলঙ্কা৷ তাদের অবস্থান ৭৬ তম৷ ভারত ১১২ এবং পাকিস্তান রয়েছে ১২২তম অবস্থানে৷ ভুটান ১২৪, মালদ্বীপ ১৪৭, নেপাল ১৫০ এবং সব থেকে পিছনে রয়েছে আফগানিস্তান, ১৭৩ তম অবস্থানে৷ এই র‌্যাংকিং অনুযায়ী বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভারতের চেয়ে ভালো বলেই প্রতীয়মান হয়৷

বাংলাদেশ মা ও শিশুর মৃত্যুর হার কমিয়ে আনায় উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে৷ আর তার স্বীকৃতিও মিলেছে৷ বাংলাদেশ মা ও নবজাতকের টিটেনাস (এমএনটি) সংক্রমণ নির্মূলে সাফল্যের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মর্যাদাপূর্ণ স্বীকৃতি অর্জন করেছে৷ গত মাসে এই স্বীকৃতি দেয়া হয়৷

মাত্র এক দশক আগেও দক্ষিন-পূর্ব এশিয়ার ছয়টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশে শিশু মৃত্যুর হার ছিল দ্বিতীয় সর্বোচ্চ৷ আর ১৯৯০ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে মাতৃমৃত্যু হার শতকরা ৬৯ ভাগ কমেছে, যা এই ৬টি দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ অগ্রগতি৷ এই সময়ে পাঁচ বছরের কম বয়সি শিশুর মৃত্যু হার প্রতি হাজারে ৮৮ জন থেকে কমে ৩৮ জন হয়েছে আর নবজাতকের মৃত্যুর হার ৪২ থেকে কমে ২৩ হয়েছে৷

২০০৭ সালে যেখানে শতকরা ২৩ জন নবজাতকের জন্মের সময় প্রশিক্ষিত ধাত্রীর সহয়তা নিতেন, এখন তা হয়েছে শকরা ৪২ ভাগ৷ মাতৃমৃত্যু হার কমিয়ে আনার ক্ষেত্রেও বাংলাদেশের সাফল্য আছে৷ প্রতি এক লাখে ১৯৯০ সালে মাতৃমৃত্যু হার ছিল ৩৯৯  আর ২০১৫ সালে তা কমে দাড়িয়েছে ১৭৬ জনে৷ মাতৃমৃত্যু  ১৯৯০ সালে প্রতি এক লাখে ছিল ৫৭৪ জন, ২০০৬ সালে তা হয়েছে ৩২০ জন৷

চিকিৎসা এবং অকাঠামো

স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় থেকে সর্বশেষ প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতি ২,৮৯৪ জনের জন্য রেজিষ্টার্ড চিকিৎসক আছেন মাত্র একজন৷ আর সরকারি বেসরকারি মিলিয়ে ১,৬৯৮ জনের জন্য আছে একটি বেড৷ বাংলাদেশে মোট হাসপাতালের সংখ্যা সরকারি বেসরকারি মিলিয়ে ৩,৫৭৫টি৷ এরমধ্যে সরকারি হাসলপাতাল মাত্র ৫৯২ টি৷ সরকারি হাসপাতালের মধ্যে উপজেলা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে হাসপাতাল আছে ৪৬৭টি আর ১২৫টি হাসপাতাল বিশেষায়িত এবং জেলা পর্যায়ে৷

আর এতে স্পষ্ট যে সরকারি স্বাস্থ্য সেবার চেয়ে বেসরকারি পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবার অবকাঠামো বেশি৷ এবং বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা ব্যয়বহুল ও সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে৷ বেসরকারি খাতে ৫,২২০টি ডয়াগনস্টিক সেন্টার আছে৷ এর একাংশ  আবার অনুমোদন ছাড়াই হাসপাতালের কার্যক্রমও পরিচালনা করে৷ তাদের সেবার মান নিয়ে আছে বিস্তর অভিযোগ৷ অভিযোগ রয়েছে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা সেখানে ঠিকমতো সেবা না দিয়ে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে প্রাইভেট প্র্যাকটিসে বেশি আগ্রহী৷

বাংলাদেশে এখন ডেন্টাল সার্জন বাদে মোট নিবন্ধিত চিকিৎসকের সংখ্যা ৬৫ হাজার ৭৭৬ জন৷ আর হাসপাতালে সরকারি বেসরকারি মিলিয়ে বেডের সংখ্যা ৯২,৮০৪ টি৷ বাংলাদেশে ইউনিয়ন পর্যায়ে ১৩ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক আছে৷ সেখানে কাজ করেন ১৩ হাজার ২৪০ জন কমিউিনিটি স্বাস্খ্যকর্মী৷ এসব ক্লিনিক প্রধানত মা ও শিশুদের সেবায় নিয়েজিত৷ শিশুদের প্রয়োজনীয় টিকা সরকারি উদ্যোগেই দেয়া হয়৷

টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদশের সাফল্য ঈর্ষনীয়৷ এ ক্ষেত্রে সাফল্য প্রায় শতভাগ৷ বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেবার আরেকটি দিক হলো, এখন প্রায় ৯৭ ভাগ পরিবার নলকুপ বা টেপের পানি পান করেন৷ আর ৬৩ ভাগ পরিবার স্যানিটারি ল্যাট্রিন ব্যবহার করে৷

যেখানে সব সাফল্য ম্লান হয়ে যায়:

স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন পর্যায়ে দুর্নীতির চিত্র নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) ২০১৪ সালে এক রিপোর্ট প্রকাশ করে৷ তাতে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার চিত্র তুলে ধরা হয়৷ প্রতিবেদনে বলা হয়, হাসপাতালগুলোতে চাহিদার তুলনায় শয্যার স্বল্প৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের জন্য পৃথক টিকিট কাউন্টার এবং নারী রোগীর জন্য বহির্বিভাগে পৃথক বসার ব্যবস্থা নেই৷

জেলা সদর হাসপাতালে সিসিইউ, আইসিইউ, সিটি স্ক্যান যন্ত্র এবং লিফট নেই৷ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা নেই৷ উপজেলা পর্যায়ে এ সমস্যাটি আরও প্রকট৷ জেনারেটর থাকলেও তা চালানোর জন্য জ্বালানি তেলের বরাদ্দ পর্যাপ্ত নেই৷ হাসপাতালে মজুদ ওষুধের তালিকা কোনো কোনো ক্ষেত্রে যেমন টানানো হয় না, তেমনি নিয়মিত তা হালনাগাদও করা হয় না৷

অধিকাংশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক্স-রে যন্ত্র সচল থাকে না৷ এছাড়াও আলট্রাসনোগ্রাম, এক্স-রে ফিল্ম ও ইসিজি যন্ত্রের অভাব রয়েছে৷ জেলা সদর হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম, বিশেষ করে ডিজিটাল এক্স-রে, ইকো-কার্ডিয়াক, মাইক্রোস্কোপ প্রভৃতির অভাব রয়েছে৷ হাসপাতালগুলোতে অ্যাম্বুলেন্সও কম৷ অনুমোদিত অ্যাম্বুলেন্সের সবগুলো আবার সচল নয়৷

দুর্নীতি, অনিয়ম:

টিআইবি'র প্রতিবেদনে বলা হয়,স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রতিষ্ঠানগুলোতে নিয়োগ, বদলি ও পদোন্নতিতে ১০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত উৎকোচ দিতে হয়৷ সরকারি প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসকদের সঙ্গে রোগনির্ণয় কেন্দ্র ও দালালদের কমিশন ভাগাভাগির সম্পর্ক রয়েছে৷

অডিও শুনুন 07:28

‘‘বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে অভিযোগ আছে এবং সে অভিযোগ কিছুটা সত্যও’’

অ্যাডহক চিকিৎসক নিয়োগে ৩ থেকে ৫ লাখ টাকা এবং তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগে ১ থেকে ৫ লাখ টাকা ঘুষ নেয়ার অভিযোগ রয়েছে বলে জানায় টিআইবি৷

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, হাসপাতালে রোগীর পথ্যের সরবরাহকারী বাছাইয়ে দলীয় রাজনৈতিক প্রভাব রয়েছে৷ এতে সব ঠিকাদারের দরপত্রে অংশ নেয়ার সুযোগ থাকে না৷ ঠিকাদার দরপত্র কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কোনো কোনো ক্ষেত্রে সমঝোতা আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে কাজ আদায় করে৷ দরপত্রে উল্লিখিত খাদ্যসহ নানা দ্রব্য সঠিকভাবে সরবরাহ করা হয় না৷

চিকিৎসকদের সঙ্গে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কমিশনভিত্তিক চুক্তি থাকে৷ এ কমিশনের হার নির্ভর করে কোনো ডাক্তার কত রোগী পাঠায়, তার ওপর৷ এ কমিশনের হার ৩০ থেকে ৫০ ভাগ পর্যন্ত হয়৷ একইভাবে দালালদের কমিশন ১০ থেকে ৩০ ভাগ পর্যন্ত হয়ে থাকে৷

সরকারি চিকিৎসকরা বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতালেই সময় দেন বেশি৷ রোগীদের সেখানেই যেতে বলেন৷ বেসরকারি হাসপাতালে অনেক ক্ষেত্রে প্যাথোলজিস্ট না রেখে তাদের সিল ব্যবহার করে বিভিন্ন পরীক্ষার প্রতিবেদন তৈরি করে রোগীদের রিপোর্ট দেয়া হয়৷ আর সেখানে কোন পরীক্ষার কত খরচ তার কোনো নিয়মনীতি নেই৷ চিৎিসকরাও মোটা অংকের ফি আদায় করেন৷

বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যয় অনেক চড়া হলেও মান দেখার যেন কেউ নেই৷

স্বাস্থ্য খাতে বাজেট বাড়ছে কিন্তু পর্যাপ্ত নয়

স্বাস্থ্য খাতে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বরাদ্দ বেড়েছে৷ এই খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৭ হাজার ৪শ' ৮৭ কোটি টাকা৷ গত বছরের তুলনায় প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা বেশি৷ যা মোট বাজেটের ৫.৬ শতাংশ, গত অর্থ বছরের তুলনায় ১.৩ শতাংশ বেশি৷ স্বাস্থ্য খাতে গত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল মোট ১২ হাজার ৭২৬ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ৪.৩ শতাংশ৷ আর  ২০১৪-১৫ অর্থবছরে সার্বিক উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন মিলিয়ে এ খাতের জন্য ১১ হাজার ১৪৬ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছিল, যা মোট বাজেটের ৪.৪৫ শতাংশ ছিল৷ এর আগে ২০১২-২০১৩ অর্থবছরে স্বাস্থ্য খাতে মোট বাজেটের ৪.৮৬ শতাংশ বরাদ্দ ছিল৷

যা জানালেন একজন চিকিৎসক

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালের অধ্যাপক এবং নাক, কান ও গলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. মনি লাল আইচ লিটু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাস্তব অবস্থা হচ্ছে, ১৬ কোটি মানুষের দেশে  এখনো চিকিৎসা ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্য সেবা অপ্রতুল৷ এখানে যেমন চিকিৎসক এবং হাসপতালের বেড প্রয়োজনের তুললায় অনেক কম, তেমনি রোগ নির্নয়ের জন্য পর্যাপ্ত আধুনিক যন্ত্রপাতিও নেই৷ ফলে সরকারি হাসপাতালগুলো চাইলেও রোগীদের ঠিকমতো চিকিৎসা দিতে পারেনা৷ প্রতিদিন চিকিৎসা নিতে সরকারি হাসপাতালে লম্বা লাইন হয়৷''

তিনি বলেন, ‘‘এটা সত্য যে এর বিপরীতে বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা সেবার অনেক দাম৷ সবার পক্ষে তাই সেই সেবা নেয়া সম্ভব হয়না৷''

চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘‘কমিশন খাওয়া, ক্লিনিকে রোগী ভাগিয়ে নেয়া দণ্ডনীয় অপরাধ৷ এসব যারা করেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার বিধান আইনে আছে৷''

অধ্যাপক মনিলাল আইচ লিটুর প্রস্তাব, ‘‘সমস্যা সমাধানে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসকদের ডাবল শিফট চালু করা যেতে পারে৷ তাতে কর্মঘন্টা বেড়ে যাবে এবং বেশি মানুষ চিকিৎসা সেবা পাবে৷''

তিনি জানান, ‘‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এটা চালু হয়েছে এবং সুফল পাওয়া যাচ্ছে৷ এজন্য অবশ্য সরকারে খবরচ বাড়বে৷ তবে গ্রহণযোগ্য ফি'র বিনিময়েও দ্বিতীয় শিফট চালু করা যায়৷''

মনিলাল আইচ লিটু দাবি করেন, ‘‘সরকারি হাসপাতালগুলোতে নানা অনিয়ম এবং অব্যবস্থা থাকলেও এখন ওষুধ সরবরাহের বিষয়টি বেশ ভালো অবস্থায় রয়েছে৷ সরকারি হাসপাতাল থেকে এখন ১৫০ ধরণের ওষুধ দেয়া হয় বিনামূল্যে৷''

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক যা বললেন

স্বাস্থ্য অথিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ ডয়চে ভেলেকে বলেন ‘‘পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে৷ ৩৩তম বিসিএসে আমরা ছয় হাজার ডাক্তার নিয়োগ দিয়েছি৷ তাদের উপজেলা পর্যায়ে পোস্টিং দিয়েছি৷ তারা কিন্তু দু'বছর ধরে উপজেলা পর্যায়ে আছেন৷ কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে আমরা সাধারণ মানুষের কাছে স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে গেছি৷ এখন ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রতিদিন হাসপাতালগুলোর সার্বিক অবস্থা মনিটর ও বিশ্লেষণ করা হচ্ছে৷ এরপরও অব্যবস্থাপনা যে নেই তা নয়, তবে ২০৩০ সালের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা খাতে আমরা টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কাজ করছি৷''

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘বেসরকারি স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে অভিযোগ আছে এবং সে অভিযোগ কিছুটা সত্যও৷ আমরা অবৈধ ক্লিনিক হাসপাতালের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান চালাই৷''

বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিকে চিকিৎসার খরচ অনেক বেশি- এটা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘‘আমরা স্বাস্থ্যবিমা চালু করছি৷ ধনী লোকরা নিজেরাই প্রিমিয়ামের টাকা দেবেন, গরিব মানুষের প্রিমিয়াম দেবে সরকার৷ এটা ২০৩০ সালের আগেই হবে৷ তখন সরকারি আর বেসরকারি চিকিৎসা ব্যবস্থার ভেদ দূর হবে৷ তাছাড়া মানুষ স্বাস্থ্য সচেতন হচ্ছে, তাই এই সেবার প্রতি তাদের আগ্রহ এবং চাপ বাড়ছে৷ এটাও একটা অগ্রগতি৷''

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

Albanian Shqip

Amharic አማርኛ

Arabic العربية

Bengali বাংলা

Bosnian B/H/S

Bulgarian Български

Chinese (Simplified) 简

Chinese (Traditional) 繁

Croatian Hrvatski

Dari دری

English English

French Français

German Deutsch

Greek Ελληνικά

Hausa Hausa

Hindi हिन्दी

Indonesian Bahasa Indonesia

Kiswahili Kiswahili

Macedonian Македонски

Pashto پښتو

Persian فارسی

Polish Polski

Portuguese Português para África

Portuguese Português do Brasil

Romanian Română

Russian Русский

Serbian Српски/Srpski

Spanish Español

Turkish Türkçe

Ukrainian Українська

Urdu اردو