সালাউদ্দিনে মোহভঙ্গ ফুটবলের

কাজী সালাউদ্দিন বাফুফে সভাপতি হওয়ার পর পুরো জাতি বড় স্বপ্ন দেখেছিল৷ কিংবদন্তীর হাতে উঠেছে ফুটবল, ফুটবলে সুদিন না ফিরে উপায় নেই৷ কিন্তু দুর্গতির কোনো গতি হয়নি৷ আটটি বছর ধরে রচিত হয়েছে শুধু সালাউদ্দিনে মোহভঙ্গের কাহিনি৷

কাজী সালাউদ্দিন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন ২০০৮ সালের ২৮শে এপ্রিল৷ তাঁর ব্যক্তিত্বের জাদুকরী সম্মোহনে মোবাইল কোম্পানিগুলো ছুটে এসেছিল৷ তারা এসেছিল ফুটবলে লগ্নি করতে৷ লগ্নি করেছিল কোটি কোটি টাকা৷ তবে শেষ বিচারে সবই যেন নিষ্ফলা বিনিয়োগ৷ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সালাউদ্দিনে মোহ একবার যে কেটেছে তা আর ফেরেনি৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

আসলে জাতীয় দলকে নিয়েই ছিল তাঁর বড় কারবার৷ বিদেশি কোচ, কোচিং স্টাফসহ এই দলের জন্য প্রয়োজনীয় সব আয়োজনই করেছিলেন তিনি৷ হয়ত ভেবেছিলেন মামানুল-এমিলিদের জন্য করলে তাঁরা মাঠের পারফরম্যান্সে প্রতিদান দেবেন৷ সেটা ভুল৷ তাঁরা দিয়েছেন একরাশ লজ্জা আর অপমান৷

২০১৪ সাল থেকে বাংলাদেশ দলের পারফরম্যান্সের অধোগতিতেই তা স্পষ্ট৷ প্রায় তিন বছরে ২৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে তারা জিতেছে মাত্র চারটি, ছ'টি ড্র এবং বাকি ১৩ ম্যাচে হার৷ ২৩ ম্যাচে করেছে মাত্র ১৫ গোল! দলে গোল করার ফুটবলার নেই, ম্যাচ উইনার নেই৷ বিদেশি কোচ দায়িত্ব নিয়ে চোখে সর্ষে ফুল দেখেন৷

Fußball in Bangladesch

ফুটবলে এমন সুদিন কি আর ফিরবে?

সব দলেই এখন পার্থক্য গড়ে দেওয়ার মতো দু-একজন ফুটবলার থাকে৷ যেমন ভারতের আছে সুনীল ছেত্রী ও জেজে লালপেখুলা, মালদ্বীপের আশফাক, এমনকি ভুটানও ভরসা রাখে তরুণ ফরোয়ার্ড চ্যানচো'র ওপর, কিন্তু বাংলাদেশের এররকম কোনো ‘ম্যাজিকম্যান' নেই৷ উল্টো গত তিন বছরে জাতীয় দলের সামগ্রিক মানই বিস্ময়করভাবে এমন তলানীতে নেমেছে, যেখানে প্রত্যাশার কোনো জায়গাই নেই৷

২০০৮ সালে ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি হিসাবে কাজী সালাউদ্দিনের মেয়াদ শুরুর সময় কিন্তু অবস্থা এত খারাপ ছিল না৷ ২০০৯ সালে তো ঢাকায় সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালও খেলেছে বাংলাদেশ৷ পরের বছর এসএ গেমস ফুটবলের সোনা জেতে অনূর্ধ-২৩ দল৷ এরপর যে কী হলো, হঠাত্‍ জাতীয় দল হয়ে গেল আধমরাদের দল! ২০১১ সাল থেকে আর সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের গ্রুপ পর্বই পেরোতে পারছে না বাংলাদেশ৷ ২০১৫ পর্যন্ত টানা তিনবার এমন ঘটেছে ২০০৩ সালের সাফ চ্যাম্পিয়নদের ভাগ্যে৷

একবার এমন হলে অঘটন, কিন্তু টানা তিনবার হলে  তা নিশ্চয়ই বিপজ্জনক বার্তা৷ দ্রুত নামছে দেশের ফুটবলের মান৷ মাঠের খেলায় বারবার অধোগতির ইঙ্গিত দিয়েছে, সাফ অঞ্চলের পরাশক্তির মুখোশ খসে গিয়ে বাংলাদেশ পরিণত হচ্ছে নখদন্তহীন ফুটবল দলে৷ কিন্তু সেই ইঙ্গিত আমলে নেয়নি বাফুফে৷

Fußball in Bangladesch

বাংলাদেশের ফুটবলে এমন দর্শকে ঠাসা গ্যালারি এখন অনেক দূরের অতীত

অগত্যা গত ১০ অক্টোবর বাংলাদেশ দল ৩-১ গোলে ভুটানের কাছে প্রথমবারের মতো হেরে, মাথা নুইয়ে সবাইকে জানিয়ে দিয়েছে গর্বের অবশিষ্ট কিছুই আর নেই৷ নতুন করে হারানোরও কিছু নেই৷

অদূর ভবিষ্যতে দেশের বিপন্ন ফুটবলের ছবিটা যে বদলাবে, এমন বলাও কঠিন৷ কারণ, সালাউদ্দিনের দুই মেয়াদে ঢাকা বাদে পুরো দেশের ফুটবলই ছিল অন্ধকারে৷ তাঁর ফুটবল পরিচালনায় জেলা বরাবরই বৈমাত্রেয় ভাই৷ তিনি তাদের সুখ-দুঃখের সাথী হতে চাননি বলেই জেলা ফুটবল এখন এরকম বন্ধ্যা৷ দ্বিতীয় মেয়াদে কিছু টাকা-পয়সা দিয়ে একটু দরদ দেখালেও জেলার জন্য তা খুব উত্‍সাহব্যাঞ্জক কিছু নয়৷ অথচ ফুটবল গৌরবের দিনে এই জেলাই ছিল ফুটবলারের একমাত্র আতুঁরঘর৷ সেখান থেকেই শুরু হতো ফুটবলারের জীবনচক্র৷ এমন ধ্রুব সত্যকে উপেক্ষা করে ফুটবল চালাতে গিয়ে সালাউদ্দিন পড়েছেন মহাবিপাকে৷ তাঁর গর্ব ঢাকার ফুটবল৷ সেটাও কি ঠিকঠাক চলেছে? এই সভাপতির দুই মেয়াদে, অর্থাত্‍ আট বছরে প্রথম বিভাগ লিগ হয়েছে চারবার, দ্বিতীয় বিভাগ তিন বার আর তৃতীয় বিভাগ চার বার৷ নিয়মিত হয়েছে কেবল প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ৷ এই শীর্ষ লিগ নিয়েই বাফুফে সভাপতির ফুটবল বাগান, যেখানকার ফুলের রং হারিয়ে গেছে, সৌরভ ফুরিয়ে গেছে৷ দু-তিনজন মানসম্পন্ন বিদেশির পারফরম্যান্স বাদ দিলে এই লিগ একদম আকর্ষণহীন৷

খেলাধুলা

১৯৫০-এর বিশ্বকাপের সেই অঘটন

সেবার ফুটবল পরাশক্তি ইংল্যান্ডকে ১-০ গোলে হারিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র৷ চুনোপুঁটির কাছে ব্রিটিশ সিংহদের পরাজয়ের খবরটি প্রথমে টেলিপ্রিন্টারে যখন ইংল্যান্ডের এক সংবাদপত্রের অফিসে পৌঁছালো, এক সাংবাদিক নাকি ছাপার ভুল ভেবে ম্যাচের ফলাফল লিখেছিলেন ইংল্যান্ড ১০ যুক্তরাষ্ট্র্র ১৷ সেই ম্যাচে একটি পেনাল্টি ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন মার্কিন গোলরক্ষক ফ্র্যাংক বোরঘি৷ এই খেলা নিয়ে মুভিও হয়েছে, নাম ‘দ্য গেম অফ আওয়ার লাইভস’৷

খেলাধুলা

উত্তর কোরিয়ার ইটালি ‘বধ’

এই অঘটনের সাক্ষী ১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপ আসর৷ ১৯৩৪ এবং ১৯৩৮-এ বিশ্বকাপ জেতা ইটালি ওই ম্যাচে পুঁচকে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ড্র করলেই চলে যেতো দ্বিতীয় রাউন্ডে৷ কিন্তু প্যাক দো ইকের গোলে জয় পেয়ে যায় উত্তর কোরিয়া৷ এমন ইতিহাস গড়া গোলে জন্য সরকারের কাছ থেকে একটি গাড়ি উপহার পেয়েছিলেন প্যাক৷

খেলাধুলা

ব্রাজিলের সর্বনাশ

১৯৫০ সালের বিশ্বকাপ আসরটি হয়েছিল ব্রাজিলে৷ ব্রাজিল তখন দুর্দান্ত দল৷ দুর্দান্ত খেলে চ্যাম্পিয়ন হওয়া প্রায় নিশ্চিতই করে ফেলেছিল তারা৷ রিও ডি জানেরোর মারাকানা স্টেডিয়ামে সেদিন উরুগুয়ের সঙ্গে ড্র করলেই হতো৷ কিন্তু ২ লাখ ব্রাজিলীয় দর্শকের উল্লাস মাটি করে ২-১ গোলে হেরে যায় ব্রাজিল৷

খেলাধুলা

কোথায় আলবেনিয়া, কোথায় জার্মানি!

১৯৬৮ সালের ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্ব৷ আলবেনিয়ার মুখোমুখি জার্মানি (তখন পশ্চিম জার্মানি)৷ না জিতলে মূল পর্বে খেলতে পারবে না জার্মানরা৷ সত্যিই জেতা হলো না৷ আলবেনিয়ার সঙ্গে ড্র করে মূল পর্বের আগেই ছিটকে পড়ল জার্মানি৷

খেলাধুলা

জার্মানির স্বপ্নভঙ্গ

১৯৯২ সালের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল৷ জার্মানির মুখোমুখি ডেনমার্ক৷ জার্মানরাই ছিল ফেবারিট৷ কিন্তু জার্মানদের ২-০ গোলে হারিয়ে ডেনিশরাই হয়ে গেল চ্যাম্পিয়ন৷ জার্মানির ওই দলটিই কিন্তু ১৯৯০ সালে বিশ্বকাপ জিতেছিল৷

খেলাধুলা

২০০২ বিশ্বকাপ সেনেগালের চমক

সে আসরের প্রথম ম্যাচ৷ ১৯৯৮ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ বিশ্বকাপে নবাগত সেনেগাল৷ ফ্রান্স ড্র করতে পারে এমন কথাও কেউ ভাবেননি৷ কিন্তু সেনেগালের কাছে ১-০ গোলে হেরে গেল ফ্রান্স৷ ফরাসি তারকা ফুটবলার জিনেদিন জিদান অবশ্য ইনজুরির জন্য সেই ম্যাচে খেলেননি৷

খেলাধুলা

আর্জেন্টিনার হার

১৯৯০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচটায় খেলেছিল আগের বারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা এবং সে আসরের নবাগত ক্যামেরুন৷ আর্জেন্টিনার অধিনায়ক মারাদোনাকে আগে নিষ্ক্রিয় করার সব চেষ্টাই করেছেন সেদিন ক্যামেরুনের খেলোয়াড়াররা এবং তাতে সাফল্যও পেয়েছেন৷ মিলানে ক্যামেরুনের কাছে ১-০ গোলের হারটা হজম করতে আর্জেন্টাইনদের খুব কষ্ট হয়েছিল৷

খেলাধুলা

এবং ব্রাজিলের ৭ গোল হজম

২০১৪ বিশ্বকাপের ব্রাজিল-জার্মানি ম্যাচটিকে অনেক ফুটবল বিশেষজ্ঞই অঘটনের তালিকায় রাখেন না৷ তাঁরা মনে করেন, ফুটবলের দুই পরাশক্তির ম্যাচের ফলাফল ৭-১ হলে সেটাকে পরাজিত দলের জন্য বিপর্যয় বলা যায়, তবে অঘটন সেটা নয়৷ তবে বিশেষজ্ঞরা যা-ই বলুন, পাঁচবারের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের এক ম্যাচে ৭ গোল খাওয়া নিশ্চয়ই ফুটবল ইতিহাসে লিখে রাখার মতো ঘটনা৷

অনিয়মিত নীচের লিগ আর জেলা ফুটবলের বন্ধ্যাত্বে সুরভিত ফুটবলারের সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে কমে গেছে৷ তাই নিয়মিত প্রিমিয়ার লিগ বাফুফের দেখনদারি আয়োজনমাত্র৷ এটা করে তারা ফুটবলীয় কর্মকাণ্ড দেখানোর চেষ্টা করেছে, প্রচারের আলোয় থাকার কাজ করেছে, কিন্তু বাস্তবে দেশের ফুটবল এগোয়নি এক বিন্দুও৷

আসলে তৃণমূলের কর্মকাণ্ড বন্ধ করে শুধু এক পেশাদার লিগ দিয়ে কখনো এগোনো যায় না৷ ফুটবলের সংস্কারও হয় না৷ পেশাদারিত্বের ধুয়ো তুলে বাফুফে একে একে সব টুর্নামেন্ট বন্ধ করে দিয়েছে৷ আগে হতো সোহরাওয়ার্দি কাপ, শেরেবাংলা কাপ, জেএফএ কাপ – এ সবে থাকতো জেলার ফুটবলারদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ৷ এরকম টুর্নামেন্টগুলো বন্ধ করে দিয়ে সালাউদ্দিন জেলার ফুটবলার উঠে আসার দুয়ার রুদ্ধ করে দিয়েছেন৷ তাঁর কাছে বিশেষ সমাদর পায় ঢাকার ক্লাবগুলো, এটা পেশাদার ফুটবলের বড় অনুষঙ্গও বটে৷ কিন্তু ক্লাবগুলো লিগে অংশ নেওয়া ছাড়া ফুটবলার তৈরিতে কোনো ভূমিকা রাখে না৷ নিজেরা ফুটবল অ্যাকাডেমি চালু করেও বাফুফে শেষ পর্যন্ত ফেল মেরেছে৷ অ্যাকাডেমি করতে সরকার সিলেট বিকেএসপি দিয়েছিল পাঁচ বছরের জন্য৷ বাস্তবে চলে মাত্র আট মাস! এই অক্ষমতা দেখে সরকার আর বাফুফের সঙ্গে নতুন করে সময় বাড়ানোর চুক্তিতে যায়নি৷

চারদিকে কাজী সালাউদ্দিনের অদক্ষতা আর পরিকল্পনাহীনতার ছাপ৷ প্রশ্ন উঠতে পারে, অদক্ষতা-ব্যর্থতা সবই তার ভাগে কেন? জবাব হলো, ফিফা-এএফসির মতো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনও সভাপতি শাসিত৷ এখানে বরং বেশি জোরালো সভাপতির শাসন৷ নির্বাহী কমিটি থাকলেও তাঁর সিদ্ধান্তই শেষকথা৷ ২০১৩ সালে কমিটিতে আলোচনা ছাড়াই তিনি ঘটা করে নতুন ‘ভিশন' ঘোষণা করেছিলেন – ‘ভিশন ২০২২'৷ কাতার বিশ্বকাপ খেলার লক্ষ্যে! যারা দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের লড়াইয়ে সেমিফাইনালে ওঠে না, তারা খেলবে কাতার বিশ্বকাপ! সবই এখন হাসির খোরাক৷ সমালোচকরা হাসছেন আর তাঁকে তুলোধুনো করছেন পরিকল্পনাহীন পথচলার জন্য৷ লজ্জা দিচ্ছেন ভুটানের কাছে নুয়ে পড়া ব্যর্থ ফুটবলাররা৷ ব্যর্থ সভাপতি আর ব্যর্থ ফুটবলারদের ঐক্যজোটে এখন ভীষণ হাস্যকর বাংলাদেশের ফুটবল৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷