বিশ্ব

স্বাক্ষরিত হলো ভারত-জার্মান ‘গ্রিন এনার্জি’ চুক্তি

জার্মান প্রেসিডেন্ট ইওয়াখিম গাউকের ৬-দিনের ভারত সফরে দু’দেশের মধ্যে সই হলো ‘‘গ্রিন এনার্জি করিডর’’ সংক্রান্ত দুটি চুক্তি৷ এই চুক্তির অধীনে জার্মানি প্রায় ৯০ কোটি ইউরো ঋণ দেবে ভারতকে৷

default

জার্মান প্রেসিডেন্ট ইওয়াখিম গাউক প্রায় ঘণ্টা দেড়েক ধরে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং-এর সঙ্গে৷ দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে দু'দেশের নীতিগত অবস্থান নিয়ে মত বিনিময় হয়৷ দু'দেশের মধ্যে কৌশলগত সহযোগিতা প্রসারিত এবং বহুমুখী করার অঙ্গীকার পুনরায় ব্যক্ত করা হয়৷ যে সব দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা নিয়ে কথা হয়, তার মধ্যে আছে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি এবং বৃত্তিমূলক শিক্ষা৷ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এসেছেন ৮০ সদস্যের এক উচ্চস্তরীয় প্রতিনিধিদল

এই সফরে ভারত ও জার্মানির মধ্যে সই হয় দুটি উন্নয়ন সহযোগিতা চুক্তি, যার অধীনে জার্মানি ভারতকে দেবে প্রায় ৯০ কোটি ইউরো ঋণ, যার মধ্যে ৫৪ লাখ ইউরো যাবে জার্মানির পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের কনসালটেন্সি প্রকল্পগুলির জন্য৷ ঋণ হিসেবে দেয়া এই অর্থ ব্যয় করা হবে ‘গ্রিন এনার্জি করিডর'' প্রকল্পে৷ উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের এপ্রিলে বার্লিনে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আন্তঃসরকার পরামর্শদাতা বৈঠকে এই ‘‘গ্রিন এনার্জি করিডর'' প্রকল্পের ব্লু-প্রিন্ট তৈরি করা হয়৷

Gauck Ankuft in Neu Delhi

৬-দিনের সফরে ভারতে রয়েছেন জার্মান প্রেসিডেন্ট

১২০ কোটি লোকের দেশ এই ভারত৷ চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পর সব থেকে বেশি কার্বন নির্গত হয় ভারতে৷ অথচ ভারতের মত উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তিশালী দেশে বিদ্যুতের চাহিদা বাড়া স্বাভাবিক৷ তাই জার্মানি মনে করে বায়ুশক্তি, সৌরশক্তি ও জলবিদ্যুতের মত দুষণমুক্ত বিকল্প বিদ্যুৎশক্তি উৎপাদনে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা জরুরি৷

এই চুক্তিতে সই করেন জার্মান প্রতিনিধিদলের অন্যতম শীর্ষ সদস্য, জার্মানির অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন সহযোগিতা মন্ত্রী গ্যার্ড ম্যুলার এবং ভারতের অর্থমন্ত্রী পি.চিদাম্বরম৷ চুক্তি সই হবার পর ম্যুলার দ্বিপাক্ষিক উন্নয়ন সহযোগিতার ওপর জোর দিয়ে বলেন, সময়ের সঙ্গে তাল রেখে দ্বিপাক্ষিক উন্নয়ন সহযোগিতার রোডম্যাপ নতুন করে সাজানো হয়েছে৷ কারণ মনে রাখতে হবে, ভারত এক উদীয়মান অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে দ্রুত উঠে আসছে৷ তাই প্রচুর বিনিয়োগ দরকার৷ ভারতের সার্বিক প্রবৃদ্ধিকে সামনে রেখে জার্মানি জোর দিচ্ছে এনার্জি-কুশল ও নবায়নযোগ্য বিদ্যুতের ওপর৷ ২০১৩-তে বিশ্বের বৃহত্তম সৌরশক্তি প্রকল্প চালু হয় মহারাষ্ট্রে৷ প্রাকৃতিক সম্পদকে কাজে লাগিয়ে ধারাবাহিক উন্নয়ন সুনিশ্চিত করা সবথেকে জরুরি৷ তাহলেই জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব রোধ করা যাবে এবং দারিদ্র্য দূরীকরণের পথও হবে সুগম৷ উল্লেখ্য, বিশ্বের দরিদ্র মানুষের সংখ্যা এখনো ভারতে সব থেকে বেশি৷

জার্মান প্রেসিডেন্টের সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় বলেন, সহমূল্যবোধের ভিত্তিতে,আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে ভারত-জার্মান কৌশলগত সহযোগিতার মজবুত মঞ্চে দাঁড়িয়ে জি-ফোর দেশ হিসেবে এবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের মৌলিক সংস্কারে সচেষ্ট হতে হবে৷ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যপদ লাভে জি-ফোরের চারটি দেশ ভারত, ব্রাজিল, জাপান ও জার্মানি একে অপরকে সমর্থন করবে, বলেন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়৷ ইউরোপে ভারতের সবথেকে বড় বাণিজ্যিক পার্টনার জার্মানি৷ ২০১২ সালে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ছিল ১,৮০০ কোটি ইউরো৷ এই পরিমাণ আরো বাড়া সম্ভাবনা উজ্জ্বল৷ অনুরূপ মনোভাব ব্যক্ত করে প্রেসিডেন্ট গাউক বলেন, বিশ্ব নিরাপত্তা,উন্নয়ন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও জলবায়ু সুরক্ষার মত বৈশ্বিক ইস্যুগুলিতে দু'দেশের মধ্যে সমন্বয় অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

Albanian Shqip

Amharic አማርኛ

Arabic العربية

Bengali বাংলা

Bosnian B/H/S

Bulgarian Български

Chinese (Simplified) 简

Chinese (Traditional) 繁

Croatian Hrvatski

Dari دری

English English

French Français

German Deutsch

Greek Ελληνικά

Hausa Hausa

Hindi हिन्दी

Indonesian Bahasa Indonesia

Kiswahili Kiswahili

Macedonian Македонски

Pashto پښتو

Persian فارسی

Polish Polski

Portuguese Português para África

Portuguese Português do Brasil

Romanian Română

Russian Русский

Serbian Српски/Srpski

Spanish Español

Turkish Türkçe

Ukrainian Українська

Urdu اردو