অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে ব্রিটেন

অভিবাসন প্রত্যাশীদের বিরুদ্ধে খুব কঠোর অবস্থান নেবে ব্রিটেন৷ সে দেশের অভিবাসন মন্ত্রী জানিয়েছেন, কেউ অবৈধভাবে প্রবেশ করলে তাঁকে জেলে পাঠানো হবে, অবৈধভাবে কাজ করলে তাঁর বেতনের টাকাও জব্দ করা হবে৷

এ বছরই সংসদে অভিবাসন বিল উত্থাপন করবেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন৷ তবে বিল পাশ হয়ে আইন হওয়ার আগেই তা নিয়ে শুরু হয়ে গেছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা৷ ক্যামেরন সরকার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বিরুদ্ধে যেসব ব্যবস্থার পরিকল্পনা করছে সেগুলোর সমালোচনা করছেন অনেকেই৷ ব্যাপক হারে অভিবাসী গ্রহণের বিরোধীতা করা ইউকিপ পার্টিও মনে করে সরকার যা করতে যাচ্ছে তা সম্পূর্ণই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত, শুধু ভোট বাড়ানোর লক্ষ্য থেকেই এত কঠোর অবস্থান নিতে যাচ্ছে সরকার৷

শরণার্থীদের জন্য লাইব্রেরি

গ্যুন্টার রাইশার্ট পেশায় স্থপতি৷ নুরেমব্যার্গে শরণার্থীদের জন্য একটা দারুণ লাইব্রেরি তৈরি করেছেন তিনি৷ বই তো আছেই, সঙ্গে বিনা খরচে জার্মান ভাষা শেখার সব ব্যবস্থাই আছে সেই লাইব্রেরিতে৷ সেখানে অভিবাসন প্রত্যাশীদের সন্তানদের লিখতে শেখানোর জন্য আলাদা ক্লাসও নেন গ্যুন্টার৷ যুদ্ধ চলছে এমন দেশ থেকে আসা শিশুদের আতঙ্ক থেকে বের করে আনার জন্য লাইব্রেরিতে বিশেষ ব্যবস্থাও রেখেছেন গ্যুন্টার রাইশার্ট৷

দোভাষীদের সহায়তা

জার্মানিতে জার্মান ভাষা না জানলে অনেক সময়ই মুশকিলে পড়তে হয়৷ তার ওপর ইংরেজিও না জানলে তো চলা দায়৷ তাই বার্লিনে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন অনেক জার্মান তরুণ-তরুণী৷ নাটালিয়া তাঁদেরই একজন৷ অন্য দোভাষীদের মতো অবসর সময়ে তাঁরও কাজ ডাক্তার দেখানো, কাজ খোঁজার মতো কিছু কাজের সময় অভিবাসীদের সঙ্গে থাকা এবং তাঁদের কথা সব জায়গায় বুঝিয়ে বলা৷

ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া

ডর্টমুন্ডের ৪০০ শরণার্থীকে এখন আর ইন্টারনেট নিয়ে ভাবতে হয় না৷ তাদের ঘরে বিনা খরচে ইন্টারনেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ সে ব্যবস্থা করে দিয়েছেন সভেন বোরশার্ট এবং তাঁর বন্ধুরা৷

হটলাইনে তাঁরা আছেন

বার্লিনের ‘গুটে-টাট ডট ডিই’ ফাউন্ডেশন শরণার্থীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবসময় প্রস্তুত৷ তাদের এই অফিসে হটলাইনে ফোন করে স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তা পেতে পারেন শরণার্থীরা৷

শিক্ষকদের পাশে শিক্ষার্থীরা

শরণার্থীদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন দেশে যাঁরা শিক্ষকতা করতেন৷ জার্মানিতে তাঁদের উপযোগী কাজ জোগাড় করে দিতে অনেক জার্মানই আগ্রহী৷ তাঁদের বেশির ভাগই ছাত্র-ছাত্রী৷ তাঁরা সবাই মিলে অ্যাকাডেমিক এক্সপেরিয়েন্স ওয়ার্ল্ডওয়াইড (এইডাব্লিউ) নামের একটি অ্যাকাডেমি গড়েছেন যার কাজই হলো শরণার্থী শিক্ষাবিদদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ ঘটিয়ে দেয়া এবং তাঁদের জার্মান ভাষা শিখতে সহায়তা করা৷

ফেসবুকের সহায়তায় দোকান

ম্যুলহাইমের এই দোকানটি শরণার্থীদের জন্যই তৈরি করেছেন রাইনহার্ড সেহলস৷ এক বছর আগে তিনি ফেসবুকে সবার উদ্দেশ্যে কিছু ইরাকি শরণার্থী পরিবারের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন৷ তারপর থেকে ধীরে ধীরে দাঁড়িয়ে যায় দোকানটি৷ রাইনহার্ড দোকানটির নাম দিয়েছে ‘ওয়েলকাম ইন ম্যুলহাইম’৷

খেলাচ্ছলে অর্থসংগ্রহ

নিকোল ট্সানাকিস এবং কর্নেলিয়া কপ ড্যুসেলডর্ফ থেকে হামবুর্গ গিয়েছেন এই লংবোর্ডে চড়ে৷ এভাবে ৪৪৪ কিলোমিটার অতিক্রম করার উদ্দেশ্য ছিল শরণার্থীদের জন্য অর্থ সংগ্রহ করা৷ হামবুর্গে পৌঁছাতে পাঁচ দিন লেগেছে তাঁদের৷ ওই পাঁচ দিনে ৭ হাজার ইউরো উঠিয়েছেন তাঁরা৷ পুরো টাকাটাই যাবে শরণার্থী কল্যাণ সংস্থা ‘স্টে’-র তহবিলে৷

তারকারাও পাশে

শরণার্থীদের সহায়তায় জার্মানির অনেক তারকাও এগিয়ে এসেছেন৷ টিল শোয়াইগার গড়ে দিচ্ছেন অস্থায়ী বাড়ি, যাতে তাঁর দেশের নতুন অতিথিদের খোলা আকাশের নীচে কষ্ট করে থাকতে না হয়৷

নিজের বাড়িই যখন আশ্রয়শিবির

সিডিইউ-এর সাংসদ মার্টিন পাটসেল্ট নিজের বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছেন ইরিত্রিয়া থেকে আসা দুই শরণার্থীকে৷ পরিবারে দুজন নতুন সদস্য আসায় সাংসদের স্ত্রী-ও নাকি খুব খুশি৷

ব্যারাকই এখন শরণার্থী শিবির

নর্থ ফ্রিজিয়ার একটি শহরে কিছুদিন আগেও যে ব্যারাকটি ছিল এখন তা হয়ে গেছে শরণার্থী শিবির৷ ৬০০ শরণার্থী থাকেন সেখানে৷ তাঁদের জীবন চলে সরকার এবং স্থানীয়দের সহায়তার ওপর৷ অনেক পরিবারে তো ছোট ছোট বাচ্চা আছে, তাঁদের কথা ভেবে ডায়াপার দিতে এসেছেন ব্রিগিটে ভোটকা৷

ব্রিটেনের অভিবাসন মন্ত্রী জেমস ব্রোকেনশায়ার বলেছেন, ‘‘কেউ যদি অবৈধভাবে এখানে আসেন, আমরা তাঁর কাজ বন্ধ করে দেবো, বাড়ি ভাড়া নেয়া, ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খোলা এবং গাড়ির লাইসেন্স নিতেও বাধা দেবো৷'' তিনি আরো জানিয়েছেন, অবৈধভাবে কেউ ব্রিটেনে গিয়ে চাকরি নিলে তাকে ছয়মাসের জন্য জেলে পোরা হবে, তার নিয়োগদাতারও লাইসেন্স বাতিল করা হবে৷

ব্রিটেনে অভিবাসন আইন কঠোর করার দাবিতে অনেক দিন ধরেই সোচ্চার মাইগ্রেশন ওয়াচ৷ এই সংগঠনের এক কর্মকর্তা সরকারের বর্তমান অভিবাসননীতিকে সমর্থন জানিয়েছেন৷ তবে অভিবাসীদের প্রতি সহানুভূতিশীল সংগঠনগুলো সরকারের সমালোচনা করছে৷ এমনকি ইউকিপ পার্টিও মনে করে, সরকার শুধু ভোটের জন্যই এত কঠোর পদক্ষেপ নিতে চলেছে৷ ইউকিপ-এর মুখপাত্র বলেছেন, সরকার যে হারে অবৈধ অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জেলে পাঠানোর কথা ভাবছে, তেমন হলে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ভিড় কমবে না, বরং ভিড়ে কারাগার উপচে পড়বে৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি)

এ বছরই সংসদে অভিবাসন বিল উত্থাপন করবেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন৷ তবে বিল পাশ হয়ে আইন হওয়ার আগেই তা নিয়ে শুরু হয়ে গেছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা৷ ক্যামেরন সরকার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বিরুদ্ধে যেসব ব্যবস্থার পরিকল্পনা করছে সেগুলোর সমালোচনা করছেন অনেকেই৷ ব্যাপক হারে অভিবাসী গ্রহণের বিরোধীতা করা ইউকিপ পার্টিও মনে করে সরকার যা করতে যাচ্ছে তা সম্পূর্ণই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত, শুধু ভোট বাড়ানোর লক্ষ্য থেকেই এত কঠোর অবস্থান নিতে যাচ্ছে সরকার৷

শরণার্থীদের জন্য লাইব্রেরি

গ্যুন্টার রাইশার্ট পেশায় স্থপতি৷ নুরেমব্যার্গে শরণার্থীদের জন্য একটা দারুণ লাইব্রেরি তৈরি করেছেন তিনি৷ বই তো আছেই, সঙ্গে বিনা খরচে জার্মান ভাষা শেখার সব ব্যবস্থাই আছে সেই লাইব্রেরিতে৷ সেখানে অভিবাসন প্রত্যাশীদের সন্তানদের লিখতে শেখানোর জন্য আলাদা ক্লাসও নেন গ্যুন্টার৷ যুদ্ধ চলছে এমন দেশ থেকে আসা শিশুদের আতঙ্ক থেকে বের করে আনার জন্য লাইব্রেরিতে বিশেষ ব্যবস্থাও রেখেছেন গ্যুন্টার রাইশার্ট৷

দোভাষীদের সহায়তা

জার্মানিতে জার্মান ভাষা না জানলে অনেক সময়ই মুশকিলে পড়তে হয়৷ তার ওপর ইংরেজিও না জানলে তো চলা দায়৷ তাই বার্লিনে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন অনেক জার্মান তরুণ-তরুণী৷ নাটালিয়া তাঁদেরই একজন৷ অন্য দোভাষীদের মতো অবসর সময়ে তাঁরও কাজ ডাক্তার দেখানো, কাজ খোঁজার মতো কিছু কাজের সময় অভিবাসীদের সঙ্গে থাকা এবং তাঁদের কথা সব জায়গায় বুঝিয়ে বলা৷

ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া

ডর্টমুন্ডের ৪০০ শরণার্থীকে এখন আর ইন্টারনেট নিয়ে ভাবতে হয় না৷ তাদের ঘরে বিনা খরচে ইন্টারনেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ সে ব্যবস্থা করে দিয়েছেন সভেন বোরশার্ট এবং তাঁর বন্ধুরা৷

হটলাইনে তাঁরা আছেন

বার্লিনের ‘গুটে-টাট ডট ডিই’ ফাউন্ডেশন শরণার্থীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবসময় প্রস্তুত৷ তাদের এই অফিসে হটলাইনে ফোন করে স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তা পেতে পারেন শরণার্থীরা৷

শিক্ষকদের পাশে শিক্ষার্থীরা

শরণার্থীদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন দেশে যাঁরা শিক্ষকতা করতেন৷ জার্মানিতে তাঁদের উপযোগী কাজ জোগাড় করে দিতে অনেক জার্মানই আগ্রহী৷ তাঁদের বেশির ভাগই ছাত্র-ছাত্রী৷ তাঁরা সবাই মিলে অ্যাকাডেমিক এক্সপেরিয়েন্স ওয়ার্ল্ডওয়াইড (এইডাব্লিউ) নামের একটি অ্যাকাডেমি গড়েছেন যার কাজই হলো শরণার্থী শিক্ষাবিদদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ ঘটিয়ে দেয়া এবং তাঁদের জার্মান ভাষা শিখতে সহায়তা করা৷

ফেসবুকের সহায়তায় দোকান

ম্যুলহাইমের এই দোকানটি শরণার্থীদের জন্যই তৈরি করেছেন রাইনহার্ড সেহলস৷ এক বছর আগে তিনি ফেসবুকে সবার উদ্দেশ্যে কিছু ইরাকি শরণার্থী পরিবারের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন৷ তারপর থেকে ধীরে ধীরে দাঁড়িয়ে যায় দোকানটি৷ রাইনহার্ড দোকানটির নাম দিয়েছে ‘ওয়েলকাম ইন ম্যুলহাইম’৷

খেলাচ্ছলে অর্থসংগ্রহ

নিকোল ট্সানাকিস এবং কর্নেলিয়া কপ ড্যুসেলডর্ফ থেকে হামবুর্গ গিয়েছেন এই লংবোর্ডে চড়ে৷ এভাবে ৪৪৪ কিলোমিটার অতিক্রম করার উদ্দেশ্য ছিল শরণার্থীদের জন্য অর্থ সংগ্রহ করা৷ হামবুর্গে পৌঁছাতে পাঁচ দিন লেগেছে তাঁদের৷ ওই পাঁচ দিনে ৭ হাজার ইউরো উঠিয়েছেন তাঁরা৷ পুরো টাকাটাই যাবে শরণার্থী কল্যাণ সংস্থা ‘স্টে’-র তহবিলে৷

তারকারাও পাশে

শরণার্থীদের সহায়তায় জার্মানির অনেক তারকাও এগিয়ে এসেছেন৷ টিল শোয়াইগার গড়ে দিচ্ছেন অস্থায়ী বাড়ি, যাতে তাঁর দেশের নতুন অতিথিদের খোলা আকাশের নীচে কষ্ট করে থাকতে না হয়৷

নিজের বাড়িই যখন আশ্রয়শিবির

সিডিইউ-এর সাংসদ মার্টিন পাটসেল্ট নিজের বাড়িতে আশ্রয় দিয়েছেন ইরিত্রিয়া থেকে আসা দুই শরণার্থীকে৷ পরিবারে দুজন নতুন সদস্য আসায় সাংসদের স্ত্রী-ও নাকি খুব খুশি৷

ব্যারাকই এখন শরণার্থী শিবির

নর্থ ফ্রিজিয়ার একটি শহরে কিছুদিন আগেও যে ব্যারাকটি ছিল এখন তা হয়ে গেছে শরণার্থী শিবির৷ ৬০০ শরণার্থী থাকেন সেখানে৷ তাঁদের জীবন চলে সরকার এবং স্থানীয়দের সহায়তার ওপর৷ অনেক পরিবারে তো ছোট ছোট বাচ্চা আছে, তাঁদের কথা ভেবে ডায়াপার দিতে এসেছেন ব্রিগিটে ভোটকা৷