অভিবাসী অপরাধীদের বিষয়ে আরো কঠোর হচ্ছে ফিনল্যান্ড

অভিবাসীদের অপরাধ দমনে আরো কঠোর আইন করতে যাচ্ছে ফিনল্যান্ড সরকার৷ সম্প্রতি দেশটিতে অভিবাসীদের দ্বারা যৌন হয়রানির ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় এ সংক্রান্ত আইন আরো কঠোর করার বিষয়ে একমত হন আইন প্রণেতারা৷

প্রস্তাবিত এ আইনের মধ্যে রয়েছে,  শিশুদের যৌন হয়রানির সর্বনিম্ন শাস্তির মেয়াদ আরো বাড়ানোএবং অপরাধীর নাগরিকত্ব বাতিল করা৷

ফিনল্যান্ডে অভিবাসীদের দ্বারা যৌন হয়রানির সংখ্যা বাড়ছে৷ হেলসিঙ্কি পুলিশ গত শনিবার যৌন হয়রানির অভিযোগে তিন অভিবাসীকে আটক করেছে৷ এদিকে গত শুক্রবার, দেশটির উলু শহরের পুলিশ যৌন হয়রানি অভিযোগে তিনজন অভিবাসীকে আটক করে৷ পুলিশ জানায়, তারা গত ডিসেম্বরে একই অভিযোগে অন্তত নয়জনকে আটক করেছে৷

শনিবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে দেশটির প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্টো (Sauli Niinisto) বলেন এ ধরণের অপরাধ কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না৷ ‘‘এটা কোনভাবেই কাম্য নয় যে, যাদেরকে আমরা এনেছি ও এখানে থাকতে দিয়েছি তারা এখানে উছৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি করছে৷''

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

ভয়াবহ অবস্থা ভারতে

ভারতের জাতীয় ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরোর পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশের অর্ধেকেরও বেশি বাচ্চা যৌন নিগ্রহের শিকার৷ তবে সবচেয়ে ভয়ংকর সত্য হলো, নাবালিকা বা শিশুর ওপর যৌন হেনস্থার ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটছে পরিবারের মধ্যে, পরিবারেরই কোনো মানসিক বিকারগ্রস্ত সদস্যের হাতে৷ তাই সে সব ঘটনা পুলিশের কাছে পৌঁছাচ্ছে না, হচ্ছে না কোনো ডাইরি অথবা মামলা৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

হারিয়ে যাচ্ছে শৈশব

এভাবে প্রতিদিন বিকৃত যৌন নির্যাতনে হারিয়ে যাচ্ছে অগুন্তি শৈশব৷ অনেকক্ষেত্রেই শিশুরা বুঝে উঠতে পারছে না, বলে উঠতে পারছে না তাদের অমানবিক সেই সব অভিজ্ঞতার কথা৷ তাই শিশুদের প্রতি যৌনাসক্ত, বিকৃত মানুষগুলো থেকে যাচ্ছে লোকচক্ষুর আড়ালে৷ সমাজবিদরা বলছেন, এ জন্য আগাম সতর্কতার দায়িত্ব নিতে হবে অভিভাবক এবং স্কুলের৷ শিশুকে দিতে হবে তার প্রাপ্য শৈশব৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

যেভাবে বোঝাবেন বাচ্চাদের

সহজ ভাষায় খেলা বা গল্পচ্ছলে শিশুদের এ বিষয়ে একটা ধারণা গড়ে তোলা যেত পারে৷ বাচ্চাদের বলতে হবে যে, তাদের শরীরটা শুধুমাত্র তাদের৷ অর্থাৎ কেউ যেন তাদের ‘গোপন’ জায়গায় হাত না দেয়৷ তাই কোনো আত্মীয় বা পরিচিত ব্যক্তির আচরণ অস্বস্তিকর ঠেকলে, কেউ তাদের জোর ঘরে কোনো ঘরে নিয়ে গেলে, খেলার ছলে চুমু দিলে বা শরীরের কোথাও হাত দিলে – তা যেন মা-বাবাকে জানায় তারা৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

চিনিয়ে দিন যৌনাঙ্গ

অনেক বাবা-মা নিজ সন্তানের সঙ্গে যৌনাঙ্গ নিয়ে কথা বলতে কুণ্ঠা বোধ করেন৷ কিন্তু এই লজ্জা কাটিয়ে উঠতে হবে এবং খুব ছোটবেলাতেই ছবি এঁকে অথবা গল্পে-গানে বাচ্চাকে তার শরীরের অন্য সব অঙ্গের মতো যৌনাঙ্গ, লিঙ্গ ইত্যাদি চিনিয়ে দিতে হবে৷ এমনটা করলে কেউ যদি তাদের সঙ্গে পিশাচের মতো ব্যবহার করে, তাহলে শিশুরা সহজেই বলতে পারবে কে, কখন, কোথায় হাত দিয়েছিল৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

শিশুর কথা শুনুন, তার পক্ষ নিন

শিশু যাতে আপনাকে বিশ্বাস করতে পারে, বন্ধুর মতো সবকিছু খুলে বলতে পারে – সেটা নিশ্চিত করুন৷ আপনার বাচ্চা যদি পরিবারের কাউকে বা আপনার কোনো বন্ধুকে হঠাৎ করে এড়িয়ে যেতে শুরু করে অথবা আপনাকে খুলে বলে বিকৃত সেই মানুষের কৃতকর্মের কথা, তবে সময় নষ্ট না করে শিশুটির পক্ষ নিন আর তিরস্কার করে বাড়ি থেকে বার করে দিন ঐ ‘অসুস্থ’ লোকটাকে৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

স্কুলেরও দায়িত্ব আছে

বাচ্চারা দিনের অনেকটা সময় স্কুলে কাটায়৷ তাই যৌন শিক্ষার ক্ষেত্রে স্কুলের একটা বড় দায়িত্ব থেকে যায়৷ তবে স্কুলের মধ্যে, বিদ্যালয় চত্বরেও ঘটতে পারে শিশু নির্যাতনের ঘটনা৷ তাই স্কুল থেকে ফেরার পর বাচ্চা যদি অতিরিক্ত চুপচাপ থাকে, একা একা সময় কাটায় বা পড়াশোনা করতে না চায়, তাহলে ওর সঙ্গে কথা বলুন৷ জানতে চান কী হয়েছে, প্রয়োজনে স্কুল কর্তৃপক্ষকেও জানান৷

যৌন হয়রানির হাত থেকে কীভাবে বাঁচাবেন শিশুকে

ছেলে-মেয়ে সমান!

আমাদের সমাজে ছোট থেকেই মেয়েদের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়৷ মেয়ে হলেই হাতে একটা পুতুল আর ছেলে হলে ধরিয়ে দেয়া হয় বল বা খেলনার পিস্তল৷ ছেলের পাতে যখন তুলে দেয়া হয় মাছের বড় টুকরোটা, তখন মেয়েটির হয়ত এক গ্লাস দুধও জোটে না৷ এ বৈষম্য বন্ধ করুন৷ বাবা-মায়ের চোখে ছেলে-মেয়ে সমান – সেভাবেই বড় করুন তাদের৷ তা না হলে নারীর ক্ষমতায়ন হবে কীভাবে? কীভাবে কমবে শিশু নির্যাতন?

গত বুধবার সংসদ অধিবেশন শেষে ফিনল্যান্ডের সেন্টার পার্টির এমপি আন্টি কাইক্কোনেন স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, এ ধরনের অপরাধ ঠেকাতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে সংসদ সদস্যরা একমত হয়েছেন৷


সম্প্রতি যৌন হয়রানির বিষয়ে আদালতের এক রায় নিয়ে বিতর্ক চলছে দেশটিতে৷ ফিনল্যান্ডের এক আদালতের রায়ে বলা হয়, কোনো প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যাক্তি ১০ বছর বয়সি কারো সাথে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হলে তাকে যৌন হয়রানি বলা যাবে না৷

পুলিশ জানিয়েছে, ২০১৮ সালে তারা দেশ জুড়ে ১৪ শ'টি যৌন হয়রানির অভিযোগ পেয়েছে, যার মধ্যে ২৫ ভাগের সাথেই অভিবাসীরা যুক্ত৷

আরআর/এসিবি (এএফপি)     

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘স্পটলাইট’ (২০১৬)

যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনের ক্যাথলিক চার্চগুলোতে শিশুদের যৌন নিপীড়নের ঘটনাগুলো তুলে আনছিলেন ‘বোস্টন গ্লোব’-এর প্রতিবেদকরা৷ তাদের বের করা সেই সত্য কাহিনি অবলম্বনেই এই জীবনীভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন টম ম্যাককারথি৷ অস্কারের ছয়টি বিভাগে মনোনীত হয় ‘স্পটলাইট’ এবং সেরা পিকচার ও চিত্রনাট্যের পুরস্কার লাভ করে৷ অপরদিকে ওই অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ২০০৩ সালে পুলিৎজার পুরস্কায় পায়৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘দ্য ক্লাব’ (২০১৫)

বিভীষিকাময় চিত্র তুলে ধরা চলচ্চিত্র৷ চিলির পরিচালক পাবলো লারাইন নির্মিত এই চলচ্চিত্রে একটি নির্জন বাড়িতে বসবাসরত প্রাক্তন চার যাজকের শিশুদের যৌন নিপীড়নসহ ভয়ানক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করতে দেখা৷ উচ্চ পর্যায়ের যাজক, যারা বিচার ও শাস্তি এড়াতে লুকিয়ে থাকতেন তাদের থেকে এই চলচ্চিত্র নির্মাণের রসদ পেয়েছিলেন পরিচালক৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘ফেরফেহলুং’ (২০১৫)

গ্যার্ড শ্নাইডার নির্মিত জার্মান চলচ্চিত্র ফেরফেহলুংয়ে (অসদাচরণ) একটি যৌন হয়রানির কেলেঙ্কারি নিয়ে তিন যাজক বন্ধুর মধ্যকার সম্পর্কের টানাপড়েন তুলে ধরা হয়েছে৷ তাদের একজনের বিরুদ্ধে কিশোরদের যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠে এবং অপর দুজন তাদের পরিস্থিতিতে বিভিন্নভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায়৷ তারা যেভাবে এই সত্যের মোকাবেলা করে তাতে শুধু তাদের সম্পর্কই নয়, চার্চে তাদের ক্যারিয়ারের উপরও প্রভাব পড়ে৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘ফিলোমেনা’ (২০১৩)

স্টিফেন ফ্রেয়ার্স এই চলচ্চিত্রে চার্চের আরেক প্রাতিষ্ঠানিক হয়রানির চিত্র উন্মুক্ত করেন৷ যেসব নারীর কাছ থেকে বিবাহ বহির্ভূতভাবে জন্ম নেওয়া সন্তান কেড়ে নেওয়া হয় তাদের বেদনা তুলে ধরা হয়েছে এখানে৷ ফিলোমেনা লি নামের এমন দুর্ভাগা এক নারীর কাহিনি নিয়ে তৈরি করা হয় এই চলচ্চিত্র৷ ফিলোমিনার ছেলেকে তার কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হয় এবং এক সম্পদশালী অ্যামেরিকানের কাছে বিক্রি করা হয়৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘ব্যাড এডুকেশন’ (২০০৪)

হত্যা রহস্য ঘিরে এই চলচ্চিত্র তৈরি হলেও এখানে বোর্ডিং স্কুলে এক কিশোরের একজন ক্যাথলিক যাজকের দ্বারা যৌন নিপীড়নের বিষয়টি উঠে আসে৷ নিপীড়িত ওই শিশুকে পরে দেখা যায় হিজড়ার ভূমিকায়, যিনি নিপীড়ক ফাদারের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েন এবং তাকে ব্ল্যাকমেইল করেন৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘দ্য ম্যাগডালেনে সিস্টারস’ (২০০২)

ক্যাথলিক চার্চ পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান ম্যাগডানেলে আশ্রয় কেন্দ্র, ম্যাগডালেনে লন্ড্রিজ নামে পরিচিত, সেটি ‘পতিত’ নারীদের সংশোধনাগার হিসেবে ব্যবহৃত হত৷ পিটার মুলানের ২০০২ সালের এই চলচ্চিত্র ওই রকম একটি আশ্রয় কেন্দ্র ঘিরে, পরিবার থেকে পাঠানো চার তরুণীর প্রতি সিস্টারদের নিষ্ঠুরতা ও হয়রানির ঘটনা এখানে তুলে ধরা হয়েছে৷ এই ধরনের সর্বশেষ প্রতিষ্ঠানটি ১৯৯৬ সালে বন্ধ করা হয়৷

যাজকদের যৌন নিপীড়ন নিয়ে ৭ চলচ্চিত্র

‘প্রাইমাল ফিয়ার’ (১৯৯৬)

একজন প্রভাবশালী আর্চবিশপকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যার জন্য অভিযুক্ত হন ১৯ বছরের এক বালক৷ এর বিচার প্রক্রিয়ায় বেরিয়ে আসে, সবার সম্মানের চোখে থাকা ওই আর্চবিশপের নিপীড়নের স্বভাব ছিল এবং তিনি ছেলেদের যৌন সম্পর্কে বাধ্য করতেন৷

     

আমাদের অনুসরণ করুন