‘আইন-শৃঙ্খলা বাহিনিও নির্যাতন করছে, আবার সেক্সও করছে'

সমাজ তাঁদের স্বীকৃতি দেয়নি৷ তারপরও দিনের পর দিন হাজারো প্রতিকূলতার মাঝেও মানুষকে নিজের শরীর দিয়ে ‘সেবা' করে যাচ্ছেন তাঁরা৷ সাবেক যৌনকর্মী শাহনাজ মনে করেন, এ অবস্থার অবসান হওয়া উচিত৷

‘‘পত্রিকা খুললেই আপনি পাবেন শিশু ধর্ষণ, ছাত্রী ধর্ষণ অথবা গৃহবধু ধর্ষণের কথা৷ এত মেয়ে যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করছে, তারপরও কিন্তু ধর্ষিত হচ্ছে নারী৷ আমাদের মতো এই মেয়েরা যদি সেবা না দিত, তাহলে অবস্থাটা কী দাঁড়াতো? একবার ভেবে দেখেছেন?'' ডয়চে ভেলেকে এ কথাগুলো বলেছেন শাহনাজ বেগম৷ একটা সময় যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করতেন শাহনাজ৷ তবে কিছুদিন আগে এই পেশার নারীদের নিয়ে নিজেই শুরু করেছেন একটা এনজিও৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

ডয়চে ভেলে: আপনি কতদিন এই পেশায় ছিলেন?

শাহনাজ বেগম: আমি ১২ বছর বয়স থেকে এই পেশায় ছিলাম৷ এখন আমার বয়স ৪৮ বছর৷

আর এখন আপনি এই পেশায় যাঁরা আছেন, তাঁদের নিয়ে কাজ করছেন?

জ্বী৷ আমি একটা সংগঠন করেছি৷ সংগঠনটির নাম ‘জীবনের আলো'৷

অডিও শুনুন 09:46
এখন লাইভ
09:46 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 16.01.2017

‘সরকারের কাছে আমার আবেদন, আমাদের সম অধিকারটুকু দিন’

আপনি কেন এই পেশায় এসেছিলেন? কীভাবে এসেছিলেন?

পরিস্থিতির শিকার আমি৷ মা মারা যায় ছোটকালে৷ বাবা আবার বিয়ে করে৷ বিভিন্ন কারণে এই পেশায় এসে পড়ি৷ ছোট ছোট ভাই-বোন ছিল৷ তাদের খাবার দেয়ার জন্য শেষ পর্যন্ত এই পেশায় আসতে হয়েছিল৷ এর আগে বিভিন্ন গার্মেন্টসে, বাসা-বাড়িতে কাজ করেছি৷ কিন্তু যেখানেই গেছি, সেখানেই ‘সেক্সচুয়ালি এক্সপ্লয়েটেড' হয়েছি৷

মানে বাসা-বাড়িতে কাজ করতে গিয়ে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলেন আপনি?

হ্যাঁ, বাসা-বাড়িতে কাজ করতে গিয়ে এমন অনেকবার হয়েছে৷

বাংলাদেশের পুরুষরা কি কনডম ব্যবহার করেন? আপনার অভিজ্ঞতা কী?

বাংলাদেশের পুরুষরা কনডম ব্যবহার করতে চান না, কারণ, তারা সেক্স করতে চান রাস্তা ঘাটে, টার্মিনালে, স্টেশনে....বিভিন্ন জায়গায়৷ এসব জায়গায় সময় স্বল্পতার জন্য কনডম ব্যবহার করতে চান না তারা৷ কনডম ব্যবহার করলে অনেক সময় লাগে৷ তাতে পুরুষরা এত মজা পান না৷

এই পেশায় আসার পর আপনার কি বড় ধরনের কোনো অসুখ হয়েছে?

হ্যাঁ, হয়েছে৷ আমার ইউটেরাসে সমস্যা হয়েছিল, পরে সেটা কেটে ফেলতে হয়েছে৷

এই পেশায় যাঁরা আছেন. তাঁরা কি মোটা হওয়ার জন্য বা যৌবন ধরে রাখার জন্য কোনো ঔষুধ সেবন করেন? আপনি কি কখনও করেছেন?

সমাজ

যেভাবে যৌনপল্লীতে আগমন

বাংলাদেশে অনেক ক্ষেত্রে প্রতারণার শিকার হয়ে যৌনপল্লীতে হাজির হন মেয়েরা৷ প্রত্যন্ত অঞ্চলের অতিদরিদ্র্য পরিবারের সদস্যরা কখনো কখনো অর্থের লোভে মেয়েদের বিক্রি করে দেন বলে জানিয়েছে একাধিক আন্তর্জাতিক বার্তাসংস্থা৷ এছাড়া ভালোবাসার ফাঁদে ফেলে কিংবা বিদেশ যাওয়ার লোভ দেখিয়েও মেয়েদের যৌনপল্লীতে আনা হয়৷

সমাজ

যৌনকর্মীদের জন্য ‘গরুর ট্যাবলেট’

ফরিদপুরের সরকার অনুমোদিত যৌনপল্লীর ছবি এটি৷ অভিযোগ রয়েছে, পল্লীর মালিক নতুন আসা যৌনকর্মীদের স্টেরয়েড ট্যাবলেট সেবনে বাধ্য করেন, যা সাধারণত গরুকে খাওয়ানো হয়৷ গরুর স্বাস্থ্য বাড়াতে ব্যবহার করা এই ট্যাবলেট মানুষের দেহের জন্য ক্ষতিকর৷

সমাজ

অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ‘ইনজেকশন’

বাংলাদেশের এক যৌনপল্লীর মালিক রোকেয়া জানান, স্টেরয়েড ওষুধ প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে ভালো কাজে দেয়৷ কিন্তু অপ্রাপ্তবয়স্ক, বিশেষ করে ১২ থেকে ১৪ বছর বয়সি মেয়েদের ক্ষেত্রে এটি কার্যকর নয়৷ অপ্রাপ্তবয়সিদের স্বাস্থ্য ভালো করতে বিশেষ ধরনের ইনজেকশন ব্যবহার করা হয় বলে জানান ৫০ বছর বয়সি রোকেয়া৷

সমাজ

অধিকাংশ যৌনকর্মী ‘স্টেরয়েড আসক্ত’

আন্তর্জাতিক উন্নয়নসংস্থা একশনএইড ইউকে এক সমীক্ষার ভিত্তিতে ২০১০ সালে জানায় যে, বাংলাদেশের প্রায় ৯০ শতাংশ যৌনকর্মী ওরাডেক্সন বা অন্যান্য স্টেরয়েড ট্যাবলেট নিয়মিত গ্রহণ করে৷ তাঁদের গড় বয়স ১৫-৩৫ বছর৷ বাংলাদেশে দু’লাখের মতো যৌনকর্মী রয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷

সমাজ

সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ

স্টেরয়েড ব্যবহারের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে প্রচারণা চালাচ্ছে একশনএইড৷ সংস্থাটির বাংলাদেশ অংশের কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার জানিয়েছেন, ‘‘ওরাডেক্সন গ্রহণ করার পর শুরুতে মেয়েদের শরীরে চর্বির পরিমাণ বাড়তে থাকে৷ কিন্তু এটি নিয়মিত সেবন করলে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, চামড়ায় ক্ষতসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়৷’’

সমাজ

এইচআইভি সংক্রমণ

বাংলাদেশে যৌনকর্মীদের মধ্যে এইচআইভি সংক্রমণ বা এইডস রোগ হওয়ার খবর মাঝে মাঝে পত্রিকায় প্রকাশ হয়৷ তবে ঠিক কতজন যৌনকর্মী এইচআইভি আক্রান্ত তার হালনাগাদ কোনো হিসাব পাওয়া যায়নি৷ অনেকক্ষেত্রে কনডম ব্যবহারে খদ্দেরের অনীহা যৌনকর্মীদের মাঝে যৌনরোগ ছড়াতে সহায়ক হচ্ছে৷ (ফাইল ফটো)

সমাজ

‘অপ্রাপ্তবয়স্ক’ যৌনকর্মী

বাংলাদেশের যৌনপল্লীগুলোতে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের জোর করে যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করানোর অভিযোগ রয়েছে৷ আর এই পেশায় যাঁরা একবার প্রবেশ করছেন, তাঁদের জীবনেও নানা ঝুঁকি থাকে৷ পতিতাপল্লীতে হামলার খবর কিন্তু মাঝেমাঝেই শোনা যায়৷ (ফাইল ফটো)

সমাজ

শত বছরের পুরনো পল্লী উচ্ছেদ

মাদারিপুরের পতিতাপল্লীটি ছিল শত বছরের পুরনো৷ গত বছর এই পল্লী উচ্ছেদ করেছেন স্থানীয়রা৷ এমনকি পল্লীটি জোরপূর্বক উচ্ছেদ না করার হাইকোর্টের আদেশও এক্ষেত্রে উপেক্ষা করা হয়েছে৷ সেখানে পাঁচশ’র মতো যৌনকর্মী বাস করতেন৷ কিছুদিন আগে টাঙ্গাইলের একটি পতিতাপল্লীও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে৷ এ রকম উচ্ছেদের আতঙ্কে রয়েছেন আরো অনেক যৌনকর্মী৷

সমাজ

মধ্যপ্রাচ্যে ‘যৌনদাসী’ বাংলাদেশের মেয়েরা!

বাংলাদেশের বেশ কয়েক নারীকে মধ্যপ্রাচ্যে যৌনদাসী হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে৷ তাঁদের পাচার করে সিরিয়ায় নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে একাধিক বার্তাসংস্থা৷ এ সব নারীকে ফিরিয়ে আনতে সরকারি উদ্যোগের কথা বলা হচ্ছে৷ তবে শুধু মধ্যপ্রাচ্য নয়, প্রতিবেশী দেশ ভারতের বিভিন্ন পতিতালয়েও বাংলাদেশি নারীদের জোরপূর্বক পতিতাবৃত্তিতে নিয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে৷

আমি এমনিতেই মোটা৷ এ কারণে আমার কোনো ওষুধ খেতে হয়নি৷ তবে মোটা হওয়ার জন্য যৌনপল্লির মেয়েরা সাধারণত ‘ওরাডেক্সন' নামে একটা ওষুধ আছে, সেটা খায়৷

এগুলোর নিশ্চয়ই নানা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে?

তা তো আছেই৷ এটা খেলে শরীরের মাংস ঝুলে যায়, ফলে দেখতে মোটা লাগে৷ তবে শুনেছি পরে ক্যানসারের মতো অসুখও নাকি হয় এর থেকে৷

এই পেশার উপার্জন দিয়ে কি আসলে সংসার চলে?

এই রাস্তার মেয়েগুলো নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হয়ে এই পেশায় এসেছে৷ হয় স্বামীর কাছ থেকে, না হয় ভালোবাসার লোকের কাছ থেকে, অথবা গ্রামের কারো কাছ থেকে নির্যাতিত হয়েই সে এই পেশায় এসেছে৷ আসলে কেউই নিজের ইচ্ছায় এই পেশায় আসতে চায় না৷ বাংলাদেশ একটা ‘মুসলিম কান্ট্রি'৷ তাই ছোটবেলা থেকেই মেয়েরা শিক্ষা পায় নামাজ পড়ো, রোজা করো, সতীত্ব ধরে রাখো৷ কারণ তারা শেখে যে সতিত্বই সবচেয়ে বড় সম্বল৷ তাই টাকার বিনিময়ে কেউই এটা বিক্রি করতে চায় না৷ কিন্তু মেয়েদের ইচ্ছের বিরুদ্ধেই তাদের এখানে আসতে হয়৷ বেশির ভাগ মেয়েই অভাব-অনটন থেকে বা আঘাত পেয়েই এই পেশায় আসে৷ তারপর এখানে এসে ওরা যে টাকাটা আয় করে, সেটার একটা বড় ভাগ দালালরা নিয়ে যায়৷ সংসার চালাতে পারে শতকরা দু-একজন৷ এই পেশাটা তো বৈধ না, সে কারণে সবাই এদের ওপর মাতবরি করে৷ এমনকি রাস্তার টোকাইও সেক্স ওয়ার্কারদের মারধর করে তাদের টাকা কেড়ে নেয়৷

এই পেশায় যাঁরা আছেন, তাঁদের তো সমাজ ভালো চোখে দেখে না৷ এ বিষয়ে আপনার অভিমত কী?

ভালো চোখে দেখে না, এটা সত্যি৷ সমাজ তাদের স্বীকৃতিও দেয়নি৷ আমাদের যে সংবিধান, সেখানেও বলা নেই – এরা বৈধ না অবৈধ৷ যদি অবৈধ লেখা থাকত তাহলেও তারা মেনে নিত৷ সরকারি বা বেসরকারি অথবা আপনি-আমি, সকলে তাদের কী বলি? বলি ‘সেক্স ওয়ার্কার'৷ তা ‘ওয়ার্কার' মানে কী? আচ্ছা এটাও বাদ দিন৷ আমি কিন্তু সেক্স ওয়ার্কারদের সেবিকা মনে করি৷ কারণ তারা সারা জীবন সেবা দিয়ে যায়৷ পত্রিকা খুললেই আপনি পাবেন শিশু ধর্ষণ, ছাত্রী ধর্ষণ অথবা গৃহবধু ধর্ষণের কথা৷ এত মেয়ে যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করছে, তারপরও কিন্তু ধর্ষিত হচ্ছে নারী৷ আমাদের মতো এই মেয়েরা যদি সেবা না দিত, তাহলে অবস্থাটা কী দাঁড়াতো?

সমাজ

হল্যান্ডের ‘পতিতাপল্লী’ পর্যটকদের মূল আকর্ষণ

নেদারল্যান্ডসে পতিতাবৃত্তি শুধু বৈধ নয়, ইউরোপের এই দ্বীপদেশটির পতিতাপল্লী সত্যিকার অর্থেই বিশ্ববিখ্যাত৷ ঐ ‘রেডলাইট জোন’ দেখতে প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসে আমস্টারডামে৷ নেদারল্যান্ডসের মতো ইউরোপের আরেক দেশ বেলজিয়ামেও দেহব্যবসা সম্পূর্ণ বৈধ৷

সমাজ

জার্মানি এবং ফ্রান্সে কঠোর আইন

জার্মানি এবং ফ্রান্সেও দেহব্যবসা বৈধ৷ তবে এ দু’দেশেই যৌনকর্মীদের এই ব্যবসা করতে হয় কঠোর আইন মেনে৷ জার্মানির কিছু শহরে এখনো যৌনকর্মীরা রাস্তায় নেমে খদ্দের ডাকতে পারেন না, এভাবে খদ্দের সংগ্রহ করা সেসব জায়গায় আইনত দণ্ডনীয়৷ ফ্রান্সেও ২০১৪ সালে এমন একটা আইন হয়েছে, যা মেনে যথেচ্ছ দেহব্যবসা করা খুব কঠিন৷

সমাজ

সুইডেন আর নরওয়েতেও নিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তি

ফ্রান্স ২০১৪ সালে যে আইন প্রবর্তন করে, সেটা প্রথম চালু হয়েছিল সুইডেনে, ১৯৯৯ সালে৷ এ কারণে আইনটি ‘সুইডিশ মডেল’ হিসেবে পরিচিত৷ এ আইনে যৌনকর্মীদের অধিকার রক্ষা করে দালালদের নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷

সমাজ

সুইজারল্যান্ড ও অস্ট্রিয়ায় স্বাস্থ্যপরীক্ষা বাধ্যতামূলক

সুইজারল্যান্ড ও অস্ট্রিয়াতেও দেহব্যবসা বৈধ৷ তবে এ দু’টি দেশে ১৯ বচর বয়স না হলে কেউ দেহব্যবসায় আসতে পারেন না৷ যৌনকর্মীদের যাতে কোনো যৌনরোগ না হয়, কিংবা তাঁদের মাধ্যমে খদ্দেরদের মাধ্যে যাতে এইডস, সিফিলিস বা অন্য কোনো রোগ ছড়াতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে যৌনকর্মীদের নিয়মিত স্বাস্থ্যপরীক্ষা করাতে হয়৷ অবশ্য শুধু সুইজারল্যান্ড ও অস্ট্রিয়াতে নয়, জার্মানিতেও ঐ একই নিয়ম৷

সমাজ

গ্রিস এবং তুরস্কে পতিতাবৃত্তি নিয়ন্ত্রিত

গ্রিস এবং তুরস্কেও পতিতাবৃত্তি পুরোপুরি বৈধ, তবে দেহ ব্যবসার আইন খুব কঠিন৷ জার্মানির মতো এই দু’টি দেশেও যৌনকর্মীদের স্বাস্থ্যবীমা করা বাধ্যতামূলক৷ এছাড়া যৌনকর্মীরা নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান কিনা, তা সবসময় তদারক করা হয়৷ স্বাস্থ্যকার্ডেই লেখা থাকে স্বাস্থপরীক্ষার সব তথ্য৷

সমাজ

যে দুই দেশের পতিতাপল্লীতে ধীরে চলা মানা

ব্রিটেন আর আয়ারল্যান্ডের পতিতাপল্লী বা ‘রেড লাইট জোন’-এর প্রায় সব আইনই জার্মানির মতো ছিল৷ তবে সম্প্রতি ব্রিটেনে কিছু বেসরকারি সংস্থার দাবিতে এতে নতুন কিছু বিষয় যোগ করা হয়েছে৷ ব্রিটেনের রেড লাইট জোন-এ এখন যেমন ধীরে গাড়ি চালানো নিষেধ৷

সমাজ

কাউকে জোর করে পতিতা বানানো যায় না

ইউরোপের সব দেশেই পতিতাবৃত্তি আইনত বৈধ৷ তবে আইন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেশভেদে একটু হলেও অন্যরকম৷ যেমন স্পেন এবং পর্তুগালেও দেহব্যবসা বৈধ৷ কিন্তু স্পেনে কাউকে জোর করে বা ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌনকর্মী বানানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ৷

সমাজ

দক্ষিণ অ্যামেরিকায় অন্যরূপ

দক্ষিণ অ্যামেরিকার অধিকাংশ দেশেই যৌনব্যবসা বৈধ৷ তবে কিছু দেশে মাফিয়া এবং মানবপাচার বড় সমস্যা হয়ে ওঠায়, এই ব্যবসার ওপর কড়াকড়ি এবং তদারকি বেড়েছে৷ দেহব্যবসাকে মাফিয়া চক্রের নিয়ন্ত্রণের বাইরে রাখতে ব্রাজিল এবং মেক্সিকোতে রয়েছে কঠোর আইন৷ তারপরও দেশ দু’টিতে মাফিয়া চক্রের আধিপত্য রয়ে গেছে৷

সমাজ

প্রতিবেশী হয়েও নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া আলাদা

নিউজিল্যান্ডে যৌনব্যবসা একেবারেই বৈধ৷ তবে প্রতিবেশী দেশ অস্ট্রেলিয়ার অনেক রাজ্যে এই ব্যবসা এখনো অবৈধ৷ ২০০৩ সালে আইন করে সব প্রাপ্তবয়স্কের জন্য যৌনব্যবসাকে বৈধ করে দেয় নিউজিল্যান্ড৷

সমাজ

এশিয়ায় লুকোনো পতিতাবৃত্তি

ভারতের পতিতাবৃত্তি বৈধ৷ তারপরও পতিতাবৃত্তি চলে আড়ালে-আবডালে৷ রাস্তায় নেমে পতিতারা খদ্দের সংগ্রহ করতে পারেন না৷ খদ্দেররা অর্থের বিনিময়ে যৌনক্ষুধা মেটাতে যায় রাতের আঁধারে৷ বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে পতিতালয় কমলেও মাসাজ পার্লার এবং আবাসিক হোটেলে প্রায়ই চলে পুলিশি অভিযান৷ খদ্দেরসহ পতিতা আটকের খবর আসে তখন৷ থাইল্যান্ড ও ফিলিপিন্সে পতিতাবৃত্তি চলে অবাধে৷ তবে দেশ দুটিতে এই ব্যবসা আইনের চোখে অবৈধ৷

এত সংগঠন, এত কাজের পরও সেক্স ওয়ার্কারদের নিয়ে মানুষের মধ্যে কোনো পরিবর্তন কি এসেছে?

হ্যাঁ, একটা পরিবর্তন এসেছে৷ ১৯৯৬ বা ১৯৯৭ সালে আমি সুইজারল্যান্ডে একটা সম্মেলনে গিয়েছিলাম৷ সেখানে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে কোনো সেক্স ওয়ার্কার নেই৷ সেখানে দাঁড়িয়ে আমি বলেছিলাম, ‘আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি৷ আমি সেক্স ওয়ার্কার৷' আগে সরকার তো এ কথা মনতো না, এই পেশা নিয়ে কিছুই বলত না৷ এখন অন্তত সেক্স ওয়ার্কারদের নিয়ে বিভিন্ন প্রোজেক্ট ডিজাইন হচ্ছে৷ ফলে সরকারের কিছু হলেও পরিবর্তন তো হয়েছে, হচ্ছেও৷

গ্রামের মানুষ বা সাধারণ মানুষ আপনাদের পতিতা বলে৷ এটা শুনতে নিশ্চয় ভালো লাগে না?

এটা নিয়ে আমরা অনেক আন্দোলন করেছি, করছি, ভবিষ্যতেও করব৷ এটা তো আসলে আমাদের সংবিধানেই লেখা আছে৷ এটা পরিবর্তনের জন্য সবাইকে কাজ করতে হবে৷

আপনার সন্তান নিশ্চয় স্কুলে যায়৷ তা সেখানে তারা কি কোনো বিড়ম্বনার শিকার হয়?

হ্যাঁ, আমার সন্তানরা স্কুলে যায়৷ আমার সন্তানদের দিকে কেউ চোখ তুলে তাকানোর সাহস করবে না৷ তবে অন্য মেয়েদের ক্ষেত্রে পরিস্থিতিটা ভিন্ন৷ তাদের সন্তানরা হয়রানির শিকার হচ্ছে, শিক্ষা দিতে পারছে না, ভালো জায়গায় বিয়ে দিতে পারছে না, ভালো চিকিৎসা দিতে পারছে না৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ফারজানা খানম

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী ফারজানা৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হচ্ছে যা থেকে যৌনতা সম্পর্কে জানা যায়৷ এ শিক্ষা প্রত্যেকের জীবনে প্রয়োজন৷ বাচ্চাদের পরিবার এবং শিক্ষকরা এটা শিখাতে পারেন৷ এছাড়া যৌনতা সম্পর্কে তাদের জানার উৎস হতে পারে পরিবার অথবা বন্ধু-বান্ধব৷ তাছাড়া ইন্টারনেট থেকেও যৌনতা সম্পর্কে জানা যায়, জানান ফারজানা৷

সমাজ-সংস্কৃতি

নাফিসা হক অর্পা

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের ষষ্ঠ সেমিস্টারের ছাত্রী নাফিসা হক অর্পা৷ নারী-পুরুষের শারীরিক মিলন সম্পর্কে জ্ঞানকেই যৌন শিক্ষা৷ নাফিসার কথায়, ‘‘আমাদের সময়ে ইন্টারনেট এত সহজলভ্য ছিল না৷ তখন বন্ধু, সহপাঠী, আত্মীয়স্বজনরাই ছিলেন মূল ভরসা৷’’ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষাটাকে ট্যাবু হিসেবে না দেখে একে শিক্ষার অংশ করা উচিত৷ এতে করে যৌন বিষয়ক অপরাধ কমবে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

জান্নাতুল ফেরদৌস কনক

নাফিসার মতোই মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়াশোনা করছেন জান্নাতুল ফেরদৌস কনক, তবে তিনি পড়ছেন পঞ্চম সেমিস্টারে৷ তাঁর মতে, যৌনতা হচ্ছে বয়সের পরিবর্তনে শারীরিক এক ধরণের চাহিদা৷ আগে এ নিয়ে সীমাবধ্যতা থাকলেও, এখন ছেলে-ছেলে কিংবা মেয়ে-মেয়ের যৌন সম্পর্কও বেশ জনপ্রিয়৷ ‘‘বন্ধুদের আড্ডায় এটাই সবচেয়ে আলোচিত বিষয়’’, জানান কনক৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার দরকার না থাকলেও এ বিষয়ে জ্ঞান থাকা জরুরি৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ইমরান খান

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ইমরান খান৷ তিনি যৌন শিক্ষা বলতে যৌনতা সম্পর্কে সব ধরণের ধারণাকে বোঝেন৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা সবার জন্য একটি অত্যন্ত জরুরি বিষয়৷ আর এ কথাটা শিশুদের ক্ষেত্রেও সমানভাবে প্রযোজ্য৷ তবে ইমরানের কথায়, ‘‘সঠিক যৌন শিক্ষা স্কুল বা বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, পরিবার থেকেই গড়ে উঠতে পারে৷’’

সমাজ-সংস্কৃতি

কেডিএস সাকিব

বেসরকারি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নাফিসা আর কনকের মতো মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়ছেন সাকিব, পঞ্চম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হলো যৌন মিলনের উপর জ্ঞান৷ তবে শিক্ষকদের কাছ থেকে নয়, বয়ঃসন্ধিকাল থেকেই বন্ধুদের কাছ থেকে এ বিষয়ে জেনেছেন তিনি৷ সাকিবের মতে, পর্যাপ্ত যৌন শিক্ষা অবশ্যই দরকার৷ যৌনতা সম্পর্কে তাঁর জানার মূল উৎস বিভিন্ন ওয়েবসাইট, ব্লগ এবং এ সম্বন্ধে লিখা বিভিন্ন বই৷

সমাজ-সংস্কৃতি

মাহবুব টিপু

নাফিসা, কনক, সাকিব আর ফারজানার মতোই মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়াশোনা করছেন মাহবুব টিপু৷ অবশ্য তিনি এখনও দ্বিতীয় সেমিস্টারে৷ যৌন শিক্ষা তাঁর কাছে যৌনতা সম্পর্কে সঠিক শিক্ষা৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষাটা বয়সের সঙ্গে সঙ্গেই চলে আসে৷ এ বিষয়ে জানার সবচেয়ে বড় জায়গা বন্ধু-বান্ধব৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার মৌলিক বিষয়গুলো সবারই কম-বেশি জানা থাকে৷ তারপরও এ বিষয়ে শেখার সবচেয়ে বড় মাধ্যম বিভিন্ন ওয়েবসাইট৷

সমাজ-সংস্কৃতি

সামিয়া রহমান

সামিয়া রহমানও মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী৷ যৌন শিক্ষা বলতে তিনি বোঝেন নারী ও পুরুষের শারীরিক সম্পর্ক বিষয়ে জ্ঞান৷ তাঁর কথায়, ‘‘যৌন শিক্ষা আমাদের দেশে নিষিদ্ধ একটি বিষয়ের মতো৷ তাই এ বিষয়ে আমি শিক্ষা পায়নি৷’’ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা খুবই জরুরি৷ এ বিষয়ে সঠিক জ্ঞান না থাকায় অনেকেই ভুল পথে চলে যায়৷ তাই বাবা-মায়েরও এ বিষয়ে সন্তানদের সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলা উচিত৷

সমাজ-সংস্কৃতি

নাফিউল হক শাফিন

টিপু আর সামিয়ার মতো অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মাস কমিউনিকেশন বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী নাফিউল৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা জীবনের জৈবিক চাহিদা সম্পর্কে জানা এবং যৌনতার সঠিক প্রয়োগ ও সতর্কতাকে বোঝায়৷ তিনি শিক্ষকদের কাছ থেকে এ বিষয়ে কিছু শেখেননি৷ তবে এই শিক্ষাটা খুবই জরুরি বলে মনে করেন তিনি৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার জন্য বড় কেউ কিংবা সহপাঠীরাই বড় মাধ্যম৷

সমাজ-সংস্কৃতি

মালিহা রহমান

মালিহা রহমানও ঐ একই বিশ্ববিদ্যালয়ে মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হলো শারীরিক সম্পর্কের হাতে কলমে শিক্ষা৷ অবশ্য তাঁর কথায়, যৌন শিক্ষা একটা স্বাভাবিক বিষয় যেটা মানুষ থেকে শুরু করে সব প্রাণীই প্রাকৃতিকভাবে জানে৷ তাঁর মতে, এ বিষয়ে আগে থেকে জানার কিছু নেই, নেই ভালো কোনো দিক৷ যখন এ বিষয়ে জানার প্রয়োজন হবে তখন এমনিতেই তা জানা যাবে৷

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আপনাদের সঙ্গে কেমন আচরণ করে?

তারা আমাদের খারাপ ভাবে৷ তারা মনে করে, আমরা রাষ্ট্রবিরোধী কাজ করি, ধর্মবিরোধী কাজ করি৷ তারা আমাদের ধরে নিয়ে যাচ্ছে, নির্যাতন করছে৷ অন্যদিকে তারাই আবার আমাদের সঙ্গে সেক্স করছে, আমাদের টাকা ছিনিয়ে নিচ্ছে৷ কিন্তু তখন সেটা আর কোনো পাপ না, কোনো অন্যায় না৷

সরকারের কাছে আপনার চাওয়া কী?

সরকার তো সমাজে নারী-পুরুষকে সমানাধিকার দিয়ে রেখেছে৷ কিন্তু দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন না হলে এটা কোনো কাজে আসবে না৷ শুধু সেক্স ওয়ার্কার নয়, নারীদের কথা বলছি৷ নারীরা সম অধিকার পেয়েও পুরুষের সমকক্ষ হয়ে উঠতে পারেনি, সেক্স ওয়ার্কারদের কথা তো অনেক দূরের৷ সরকারের কাছে আমার আবেদন, আমাদের যেন সম অধিকারটুকু দেয়৷

এই পেশায় তো অনেক মেয়ে জড়িত, তাঁদের প্রতি আপনার পরামর্শ কী?

দেখুন, এই যে আপনি আজ সাংবাদিক হয়েছেন....এটা কি নিজের ইচ্ছায় হয়েছেন, না বাবা-মায়ের ইচ্ছায়? আপনি হয়ত নিজের ইচ্ছাতেই সাংবাদিক হয়েছেন৷ কিন্তু বাংলাদেশে কতভাগ মানুষ নিজের ইচ্ছামতো পেশায় আসতে পারে? সংবিধানেও নিজের ইচ্ছাতে পেশায় আসার কথা বলা হয়েছে, সেটা কি হচ্ছে? সেক্স ওয়ার্কারদের যারা এই পেশায় আছে, সরকার তো তাদের বাধা দিতে পারে না৷ আমার দাবি, সেক্স ওয়ার্কারদের ওপর নির্যাতন কমাতে হবে৷ যারা এই পেশায় সন্তুষ্ট, তারা থাকবে৷ আর যারা থাকতে চায় না, সরকার যেন তাদের পুনর্বাসন করে৷

বন্ধু, সাক্ষাৎকারটি আপনার কেমন লাগলো? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷