আন্তর্জাতিক মঞ্চে জার্মানির বৃহত্তর ভূমিকা দেখছেন ম্যার্কেল

উদ্বাস্তু সংকটের মুখে অনড় আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ জার্মান চ্যান্সেলর এখনও সীমানা বন্ধ করার পরিবর্তে বিশ্ব রাজনীতিতে জার্মানির বৃহত্তর ভূমিকা গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার কথা বলছেন – নির্বাচনি প্রচার সমাবেশে৷

মার্চ মাসের ১৩ তারিখে জার্মানির তিনটি অঙ্গরাজ্যে প্রাদেশিক নির্বাচন: পশ্চিমের বাডেন-ভ্যুর্টেমব্যার্গ ও রাইনল্যান্ড প্যালেটিনেট, এবং পুবের স্যাক্সনি আনহাল্ট রাজ্যে৷ চলতি উদ্বাস্তু সংকটে ম্যার্কেল যে অবস্থান নিয়েছেন, সে সম্পর্কে জার্মান ভোটারদের মনোভাব ব্যক্ত করার একটি সুবর্ণ সুযোগ৷ বিশেষ করে অভিবাসন-বিরোধী দল এএফডি বা ‘জার্মানির জন্য বিকল্প' পার্টি যেমন ম্যার্কেলের খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রী সিডিইউ দল, তেমনই কেন্দ্রে তাঁর জোট সহযোগী সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি দলের পক্ষে ঝুঁকি হয়ে দাঁড়াতে পারে৷ কেননা জার্মান জনগণের একটা লক্ষণীয় অংশ যে দেশে উদ্বাস্তুদের এই হারে আগমনে উদ্বিগ্ন বা শঙ্কিত, তা স্পষ্ট৷ এখন সেই শঙ্কাকে রাজনৈতিক মূলধন করে এএফডি-র মতো একটি বস্তুত ভুঁইফোড় দল নির্বাচনে কতটা সাফল্য অর্জন করতে পারবে, তা বলা সম্ভব নয়৷ অনিশ্চয়তার শুরু সেখানেই৷

শুধু বিদেশে পণ্য রপ্তানি করে ক্ষান্ত থাকলেই চলবে না – বুধবার রাইনল্যান্ড প্যালেটিনেট রাজ্যের ভিটলিশ-এ সিডিইউ দলের একটি নির্বাচনি প্রচার সভায় বলেছেন ম্যার্কেল৷ ‘‘বরং একটি মুক্ত বিশ্বে ইউরোপের সীমানার বাইরে কি ঘটছে, সেজন্য আমাদের আরো বেশি দায়িত্ব নিতে হবে'', বলেন ম্যার্কেল৷

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

জার্মানিকে চাই...

সেই ছবি৷ বুদাপেস্টে তখন শরণার্থীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে৷ অস্ট্রিয়া বা জার্মানির উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করতে না পারায় তাঁরা ক্ষুব্ধ৷ সবাই ছুটছিলেন প্ল্যাটফর্মের দিকে৷ পুলিশ ফিরিয়ে দিলো৷ স্টেশনের বাইরে শুরু হলো বিক্ষোভ৷ কারো কারো হাতে তখন ট্রেনের টিকিট৷ কেউ ক্ষোভ জানালেন কোলের সন্তানকে নিয়ে৷ অনেক শিশুর হাতে দেখা গেল, ‘উই ওয়ান্ট জার্মানি’ লেখা কাগজ৷ ইউরোপে এত দেশ থাকতে কেন জার্মানি?

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

আছে নব্য নাৎসি, পুড়েছে শরণার্থী শিবির, তবুও...

জার্মানির কোথাও কোথাও শরণার্থীবিরোধী বিক্ষোভ দেখা গেছে৷ অনেক জায়গায় রাতের অন্ধকারে আশ্রয় শিবিরে লেগেছে আগুন৷ তারপরও অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিকেই বেছে নিতে চায়৷

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

বড় কারণ ম্যার্কেল এবং...

অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ব্যাপারে শুরু থেকেই উদার জার্মানি৷ চ্যান্সেলর ম্যার্কেল সবসময়ই অভিবাসী এবং অভিবাসনপ্রত্যাশীদের পাশে ছিলেন৷ পেগিডা আন্দোলনের সময়ও সরকারের অভিবাসীদের পাশে থাকার কথা স্পষ্ট করেই বলেছেন ম্যার্কেল৷ পাশে থেকেছেও৷ জার্মানির সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষও ছিল তাঁর পাশে৷ এখনও আছে৷ এই বিষয়গুলোও মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মনে জার্মানির প্রতি আরো আস্থাশীল করেছে৷

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

তোমাদের স্বাগত

অভিবাসনপ্রত্যাশীরা জার্মানিতে পা রেখেই দেখেছে অবাক হওয়ার মতো দৃশ্য৷ এখানে তাঁরা অনাহূত নয়৷ নিজের দেশ থেকে প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসে জার্মানিতে পাচ্ছেন সাদর সম্ভাষণ!

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

জার্মানির নেতৃত্বে ম্যার্কেল, ইউরোপের নেতৃত্বে জার্মানি

বৃহস্পতিবার আঙ্গেলা ম্যার্কেল বলেছেন, শরণার্থীদের বিষয়ে জার্মানির ভূমিকা হতে হবে অনুসরণীয়, দৃষ্টান্তমূলক৷ জার্মানির সংসদের নিম্নকক্ষ বুন্ডেসটাগে বক্তব্য রাখার সময় তিনি আরো বলেন, অভিবাসন সংকট মোকাবেলায় ইউরোপকেও সফল হতে হবে৷

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

শরণার্থীদের পাশে ম্যার্কেল

বৃহস্পতিবার কয়েকদিন আগেই জার্মানিতে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীদের দেখতে গিয়েছিলেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থীদের প্রিয় জার্মানি, আরো প্রিয় ম্যার্কেল

শরণার্থীর ‘বন্ধু’ ম্যার্কেল

দেশের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষটিকে শরণার্থীরা নিজেদের একজন হিসেবেই বরণ করে নিয়েছিলেন৷ শরণার্থীদের সঙ্গে বন্ধুর মতোই সময় কাটিয়েছেন ম্যার্কেল৷ কয়েকজন শরণার্থী তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলতে চেয়েছিলেন৷ সানন্দে তাঁদের আশা পূরণ করেছেন ম্যার্কেল৷

এক্ষেত্রে তিনি উন্নয়ন সাহায্য, জলবায়ু সুরক্ষার জন্য সাধারণ মান ও ফেয়ার ট্রেড-এর কথা বলেন – ‘‘একটি সীমাবদ্ধ সমাজে যতোটা অনুভব করা যায়, তার চেয়ে অনেক বেশি৷''

ম্যার্কেলের সিডিইউ দলের ‘ভগিনী' রাজনৈতিক দল হলো সিএসইউ, অর্থাৎ দক্ষিণের বাভারিয়া রাজ্যের খ্রিষ্টীয় সামাজিক ইউনিয়ন৷ তথাকথিত বলকান রুট ধরে যে উদ্বাস্তুরা জার্মানির দিকে আসছিলেন, তাদের প্রথম গন্তব্যই হল বাভারিয়া৷ সেই বাভারিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হর্স্ট জেহোফার বর্তমানে সিডিইউ-সিএসইউ দলে ম্যার্কেলের প্রধান পরিপন্থি: দু'জনের সদ্য সমাপ্ত বৈঠক থেকেও দেখা গেছে যে, উদ্বাস্তু সংকটে ম্যার্কেলের পছন্দ মতো সমাধান যেমন একটি ইউরোপীয় কিংবা আন্তর্জাতিক সমাধান, সেখানে জেহোফার চান জাতীয় পদক্ষেপ – যেমন জার্মানির সীমান্তে অধিকতর নিয়ন্ত্রণ৷

চাবিকাঠি তুরস্কের হাতে

ম্যার্কেলের ‘‘ইউরোপীয় সমাধানে'' তুরস্কের একটা বড় ভূমিকা রয়েছে৷ আগামী সোমবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের যে শীর্ষবৈঠক অনুষ্ঠিত হতে চলেছে – প্রধানত ম্যার্কেলের তাগিদে – সেখানে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেত দাভুতোগলু উপস্থিত থাকছেন৷ আজ শুক্রবারেই ইউরোপীয় পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টুস্ক ইস্তানবুলে দাভুতোগলুর সঙ্গে মিলিত হচ্ছেন৷

শরণার্থী সংকট নিরসনে তুরস্ককে ম্যার্কেলের আশ্বাস

আঙ্কারায় ম্যার্কেল

ইউরোপে অভিবাসন প্রত্যাশীদের স্রোত নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দাভুতোগলুর সঙ্গে বৈঠক করতে রবিবার আঙ্কারায় যান ম্যার্কেল৷ বৈঠকে শরণার্থী ইস্যু নিয়েই মূলত আলোচনা হয়েছে৷ নিজের বক্তব্যে ম্যার্কেল তুরস্কের ইইউ সদস্য হওয়ার দাবিকে সমর্থন করার আশ্বাস দেন৷ তুরস্কের আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ দাবিও বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি৷

শরণার্থী সংকট নিরসনে তুরস্ককে ম্যার্কেলের আশ্বাস

তুরস্ক যা চায়

ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ তুরস্কের দীর্ঘ দিনের দাবি৷ ইইউ অঞ্চলে তুরস্কের নাগরিকদের ভিসা প্রদানে কড়াকড়ির বিষয়টিও এসেছে আলোচনায়৷ দু’টি বিষয়েই ইতিবাচ সাড়া দিয়েছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷

শরণার্থী সংকট নিরসনে তুরস্ককে ম্যার্কেলের আশ্বাস

দাভুতোগলুর সন্তোষ প্রকাশ

জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী, প্রায় ২০ লক্ষ সিরীয়কে আশ্রয় দিয়েছে তুরস্ক৷ জার্মান চ্যান্সেলরের বক্তব্যে এই বিষয়টি গুরুত্ব পাওয়ায় এবং জার্মানি এই সংকটে তুরস্কের পাশে থাকবে জানানোয় আহমেদ দাভুতোগলু জানান, ‘‘(শরণার্থীর) চাপ ভাগাভাগির বেলায় আন্তর্জাতিক মহল দুঃখজনকভাবে তুরস্ককে একা ফেলে রেখেছিল৷ আগের চেয়ে ভালো দৃষ্টিভঙ্গি দেখে আমরা খুশি৷’’

শরণার্থী সংকট নিরসনে তুরস্ককে ম্যার্কেলের আশ্বাস

তুরস্ক প্রসঙ্গে ইইউ-র সাম্প্রতিক অবস্থান

ম্যার্কেলের সঙ্গে বৈঠকে দাভিতোগ্লু যে দু’টি বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন, সেগুলো ইতিমধ্যে ইইউ বৈঠকেও আলোচিত হয়েছে৷ তুরস্কে অবস্থানরত সিরীয়দের জন্য তুর্কি সরকারকে ৩ বিলিয়ন ইউরোর অর্থ সহায়তা দেয়া এবং ইইউ অঞ্চলে তুর্কিদের ভিসা প্রাপ্তি সহজ করার সিদ্ধান্ত ইউরোপের ২৮টি দেশের জোট মোটামুটি চূড়ান্ত করেছে বলেই জানা গেছে৷

শরণার্থী সংকট নিরসনে তুরস্ককে ম্যার্কেলের আশ্বাস

জার্মানিতে অভিবাসীবিরোধীতা

ইতিমধ্যে ব্যাপক শরণার্থীর ঢল নামায় জার্মানির ভবিষ্যৎ নিয়ে বেশ কয়েকজন সরকার এবং বিরোধী দলীয় রাজনীতিবিদ৷ শরনার্থীবিরোধী বিক্ষোভ সমাবেশ নতুন করে শুরু করছে পেগিডা৷ এদিকে শনিবার কোলনের মেয়র প্রার্থী হেনরিয়েটে রেকার-এর ওপর হামলা হয়৷ ছুরির আঘাতে আহত হলেও তিনি এখন সুস্থ হওয়ার পথে৷ প্রথম নারী হিসেবে কোলনের মেয়রও নির্বাচিত হয়েছেন তিনি৷ অভিবাসীবিরাধী সংগঠন পেগিডা এই হামলায় জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

আরো বড় কথা, গত মঙ্গল এবং বুধবারে তুরস্ক গ্রিস থেকে ২৬৭ জন উদ্বাস্তুকে ফেরৎ নিয়েছে: মরক্কো, আলজেরিয়া এবং টিউনিশিয়া থেকে আগত এই উদ্বাস্তুরা গ্রিসে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করতে অস্বীকার করেছিল৷ ব্রাসেলস থেকে কানাঘুষায় যা শোনা যাচ্ছে, তা হলো এই যে, জার্মানি নাকি প্রতিদিন এক হাজারের বেশি উদ্বাস্তু আসতে দিতে চায় না – এ খবর রয়টার্সের৷ ওদিকে টুস্ক নাকি দাভুতোগলুকে বলবেন যে, তুরস্ক যদি সমুদ্রপথে গ্রিস অভিমুখে উদ্বাস্তুদের যাত্রা দিনে এক হাজারের কম রাখে, তাহলে তুরস্ক থেকে সরাসরি উদ্বাস্তুদের নেওয়ার কথাও ভাবা যেতে পারে৷ ২০১৬ সাল থেকে তিন বছর উদ্বাস্তুদের দেখাশোনার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের তরফ থেকে ৭০ কোটি ইউরো অর্থসাহায্য আগেই ঘোষণা করা হয়েছে৷

মনে রাখা দরকার, এখনও প্রতিদিন দু'হাজারের বেশি উদ্বাস্তু তুরস্ক থেকে ইজিয়ান সাগর পার হয়ে গ্রিসে পৌঁছাচ্ছে৷ অপরদিকে জার্মানিতে গত জানুয়ারি মাসে উদ্বাস্তুদের নতুন আগমনের (রেজিস্ট্রিকৃত) সংখ্যা ছিল ৯১,৭০০ – যা ফেব্রুয়ারিতে কমে ৬১,৪০০ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ অর্থাৎ ম্যার্কেলের ইউরোপীয় বা আন্তর্জাতিক সমাধান যে একেবারে অলীক বা অসম্ভব, এমন ভাবার কোনো কারণ নেই৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

অভিবাসীর মৃত্যু

হাঙ্গেরি থেকে ভিয়েনাগামী মোটরওয়েতে বৃহস্পতিবার ফেলে রাখা অবস্থায় যে রেফ্রিজারেটেড ট্রাকটি পাওয়া যায়, তা থেকে ৭০টির বেশি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, বলে ভিয়েনার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

সলিলসমাধি

লিবিয়ার উপকূল থেকে ইটালি পৌঁছনোর প্রচেষ্টায় আরো একটি উদ্বাস্তু বোট ডুবে যায় বৃহস্পতিবার৷ বোটটি পশ্চিম লিবিয়ার জুওয়ারা বন্দর থেকে যাত্রা করছিল৷ লিবিয়ার উপকূলরক্ষীরা দু’শোর বেশি যাত্রীকে উদ্ধার করতে সমর্থ হন, কিন্তু আরো দু’শতাধিক যাত্রী জাহাজের খোলে আটকা পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ বোটটিতে প্রধানত সাব-সাহারান আফ্রিকা, পাকিস্তান, সিরিয়া, মরক্কো ও বাংলাদেশ থেকে আগত শরণার্থীরা ছিলেন৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

যাত্রী বোঝাই

লিবিয়ার উপকূলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উদ্ধারকার্যের দায়িত্বে রয়েছে ইটালির উপকূলরক্ষী বাহিনী৷ তাদের বিবৃতি অনুযায়ী শুধুমাত্র বৃহস্পতিবারেই প্রায় ১,৪৩০ জন মানুষকে বিভিন্ন নৌ-অভিযানে উদ্ধার করা হয়৷ লিবিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনীর সামর্থ্য সীমিত, কেননা তাদের কাছে ছোট ছোট রবারের বোট, টাগবোট কিংবা মাছ ধরার নৌকা ছাড়া অন্য কোনো জলযান নেই৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

কাঁটাতারের বেড়া

পাকানো কাঁটাতার ফেলে রেখে আর বিপুল সংখ্যায় পুলিশ পাঠিয়ে বুদাপেস্ট সরকার উদ্বাস্তুর স্রোত সামাল দেবার চেষ্টা করছেন৷ সার্বিয়ার সঙ্গে ১৭৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত জুড়ে একটি চার মিটার উঁচু তারের বেড়া তৈরির কাজ আগামী সোমবার শেষ হবার কথা৷ তার আগে উদ্বাস্তুরা কাঁটাতার পেরিয়ে অভীপ্স পশ্চিম ইউরোপ অভিমুখে আরো এক ধাপ অগ্রসর হবার চেষ্টা করছেন৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

সীমান্তের পর সীমান্ত

বিশেষ করে সিরীয় উদ্বাস্তুরা গ্রিস থেকে ম্যাসিডোনিয়া হয়ে পশ্চিম ইউরোপ যাবার চেষ্টা করছেন৷ শুধুমাত্র বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার অবধি ১,২৮৮ জন উদ্বাস্তু এ ভাবে ম্যাসিডোনিয়ায় আসেন বলে স্কোপিয়ে সরকার জানিয়েছেন৷ উদ্বাস্তুদের নথিভুক্ত করে তিন দিন সময় দেওয়া হচ্ছে, রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন পেশ করার কিংবা দেশ ছাড়ার জন্য৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

হাঁটাপথে

সার্বিয়া থেকে হাঙ্গেরি-তে ঢোকার আর কোনো পথ খোলা না থাকুক, রেলপথ তো রয়েছে! সেই পথেই পায়ে হেঁটে স্বপ্নের ইউরোপের দিকে চলেছেন উদ্বাস্তুরা৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘‘ব্যর্থতা’’

বৃহস্পতিবার ভিয়েনায় পশ্চিম বলকান সংক্রান্ত সম্মেলনে নেতারা ট্রাকে উদ্বাস্তুদের লাশ পাবার ঘটনা শুনে স্তম্ভিত ও বিমূঢ় হয়ে যান৷ ‘‘আমাদের ইউরোপীয় মনোবৃত্তি, অর্থাৎ সংহতির মনোভাব নিয়ে শীঘ্র এই অভিবাসন প্রশ্নের সমাধান করতে হবে’’, বলেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল (বাম থেকে দ্বিতীয়)৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ, এএফপি)

আপনিও কি চ্যানসেলর ম্যার্কেলের তো বিশ্ব রাজনীতিতে জার্ানির আরো বড় ভূমিকা দেখতে চান?

আমাদের অনুসরণ করুন