আপোশ করার মানসিকতা প্রয়োজন: ম্যার্কেল

জার্মানির সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিরতা দূর হয়েছে উল্লেখ করে চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল বহুপক্ষীয় সংস্থাগুলোর গুরুত্ব নিয়ে কথা বলেন৷ এগুলো দুর্বল হলে দুর্দশা বাড়বে বৈ কমবে না বলে মনে করেন তিনি৷

বুধবার সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ম্যার্কেল৷ এ সময় তিনি বহুপাক্ষিকতার পক্ষে তাঁর দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করেন৷

‘‘বহুপাক্ষিকতার পক্ষে আমাদের পরিষ্কার অঙ্গীকার দরকার৷ অন্যথায় আমাদের দুর্দশাই বাড়াবে,'' বলেন ম্যার্কেল৷ রাষ্ট্রগুলোর বহুপাক্ষিক সম্পর্কে চিড় ধরেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি৷ এতে করে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন জার্মান চ্যান্সেলর৷

বিশ্ব নেতাদের এই বার্ষিক সম্মেলন এমন একটা সময়ে শুরু হলো যখন সারা বিশ্বে বাণিজ্য যুদ্ধ, ব্রেক্সিট নিয়ে ধোঁয়াশা, জলবায়ু পরিবর্তন ও অন্য আরো অনেক বিষয় চিন্তার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে৷

ম্যার্কেল বলেন যে, পশ্চিমকে অবশ্যই এই ভাগাভাগি বা বাদানুবাদের বিষয়ে আপোশকামী হতে হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘অনেকেই ভাবছেন, শুধু নিজের কথা চিন্তা করলেই হবে, কিন্তু তাতে কতটা ভালো হবে আমার সন্দেহ হয়৷''

বিশ্ব | 27.01.2012

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও জাপানের মধ্যকার শর্তহীন বাণিজ্য চুক্তিকে তিনি উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন৷ আগামী ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে এই চুক্তি৷

আগামী ২৯ মার্চ যুক্তরাজ্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে গেলেও দেশটির সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক বজায় রাখার ওপরও জোর দেন তিনি৷

ইন্টারন্যাশনাল মনিটারি ফান্ড ও ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের মতো আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সংস্কারের প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন ম্যার্কেল৷

ম্যার্কেল প্রতি বছরই দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামে বক্তব্য দেন৷ তবে নিজের দেশে গেল বছর টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতির পর তা নিয়ে তিনি কী বলেন, সেটি দেখার অপেক্ষায় ছিলেন অনেকেই৷ এ বিষয়ে জার্মান চ্যান্সেলর বলেন, ‘‘আমি আপনাদের বলতে পারি যে, জার্মানি আরেকবার একটি স্থিতিশীল সরকার গঠন করেছে এবং কঠিন পরিস্থিতি পেছনে ফেলে এসেছি আমরা৷''

সম্মেলনে অন্য বিশ্বনেতারাও অংশ নিচ্ছেন৷ ২৫ জানুয়ারি শেষ হবে দাভোসের এই সম্মেলন৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

সমন্বিত পদক্ষপের আহ্বান ম্যার্কেলের

জলবায়ু পরিবর্তন, শরণার্থী সংকটসহ বিশ্বব্যাপী চলমান নানাবিধ রাজনৈতিক সমস্যার সমাধানে বিশ্ব নেতাদের একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ নতুন বছর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে তিনি এ আহ্বান জানান৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

‘‘চলুন একতাবদ্ধ হই’’ মাক্রোঁ

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ নববর্ষ উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে দেশের জনগণকে একতাবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান৷ ‘‘আমি বিভাজনে বিশ্বাসী নই৷ চলুন আমরা সহিংসতা পরিহার করে সামনে এগিয়ে যাই’’ বলেন তিনি৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

ব্রেক্সিটের বাস্তবায়ন চান টেরেসা মে

নববর্ষ উপলক্ষে দেয়া ভাষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ব্রেক্সিট পরিকল্পনা বাস্তবায়নের উপর জোর দেন৷ ব্রেক্সিট বিষয়ে সকল আলোচনা-সমালোচনা পিছনে ফেলে সকলে মিলে দেশের জন্য একটি সুন্দর অধ্যায়ের সূচনা করতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানান তিনি৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

জীবনমান উন্নয়নের প্রতিজ্ঞা পুটিনের

রাশিয়ার জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করা হবে ২০১৯ সালের অন্যতম লক্ষ্য– নববর্ষ উপলক্ষে দেয়া ভাষণে এ কথা বলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন৷ জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে পুটিন বলেন ‘‘একটি সম্মিলিত চেষ্টার মাধ্যমে আমরা ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে পারবো৷’’

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

নিজেদের অর্জনকে স্মরণ করলেন শি জিনপিং

গেল বছরে চীনের অর্থনৈতিক ও সামাজিক অর্জনের কথা উল্লেখ করে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেন, ‘‘২০১৮ সালে আমরা চীনকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরেছি৷’’

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

টুইটারে ডোনাল্ড ট্রাম্প

নববর্ষ উপলক্ষে বেশ কয়েকটি টুইট করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এক টুইটে তিনি সিরিয়া থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন এবং জনগণকে নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানান৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

নতুন বছরে মোদীর বার্তা

নববর্ষ উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এক টুইট বার্তায় শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সবাইকে৷ নতুন বছরে সকলের স্বপ্ন পূরণ হোক– এই কামনাও করেছেন তিনি৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

শুভেচাছা-বার্তা ইমরান খানের

এক টুইট বার্তায় সকলকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমনাত্রী ইমরান খান৷ এ সময় দেশটির দারিদ্র্য, দুর্নীতি, অশিক্ষা ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তিনি৷

নতুন বছরে নতুন প্রতিজ্ঞায় বিশ্ব নেতারা

শুভেচ্ছা নয়, হুমকি

শুভেচ্ছা জানানোর পরিবর্তে হুমকি দিয়েই নতুন বছর শুরু করলেন উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন৷ তিনি অবিলম্বে কোরিয়ান উপদ্বীপে চলমান দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ সামরিক মহরা বন্ধের আহ্বান জানান৷

জেডএ/এসিবি

সংশ্লিষ্ট বিষয়

জার্মান নির্বাচন | 12.06.2017

জার্মান নির্বাচন নিয়ে পথে পথে