আরো শরণার্থী নেবে জার্মানি

উত্তর আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে ১০ হাজার শরণার্থীকে নিজ ভূখন্ডে ঠাঁই দেবে জার্মানি৷ এ ব্যাপারে ইতিমধ্যেই সবুজ সংকেত দিয়েছে বার্লিন, জানিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) অভিবাসন কমিশনার দিমিত্রিস আভ্রামোপুলোস৷

ইইউ-এর পুনর্বাসন প্রকল্পে বরাবরই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে জার্মানি৷ বহস্পতিবার দেশটির নতুন এ সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে দিমিত্রিস সাংবাদিকদের বলেন, আন্তর্জাতিক স্তরে সংহতির প্রশ্নে আবারো এগিয়ে এসেছে জার্মানি৷ যে সব শরণার্থীর পুনর্বাসন প্রয়োজন, তাঁদের আইনসম্মত এবং সুশিক্ষিত পথে ঠাঁই দেওয়া ইইউ প্রকল্পের লক্ষ্য৷ এর আওতায় ২০১৯ সালের মধ্যে অন্তত ৫০ হাজার উদ্বাস্তুকে অসুরক্ষিত স্থান থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে জায়গা করে দেওয়া হবে৷ জার্মানির পাশাপাশি অন্যান্য দেশও ৪০ হাজার শরণার্থীকে জায়গা করে দেবে৷ যার অর্থ, এই প্রকল্পের লক্ষ্যপূরণ হতে চলেছে৷ ভবিষ্যতে এই সংখ্যা বাড়তে পারে৷

শরণার্থীদের জন্য খরচ বাবদ ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিভিন্ন দেশকে ৫০০ মিলিয়ন ইউরো অর্থসাহায্য দেবে৷ ২০১৫ সালে জার্মানিতে থাকার জন্য আবেদন করেছিলেন ১০ লক্ষ মানুষ৷ ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি শরণার্থী  জার্মানিতে এসেছেন সিরিয়া, আফগানিস্তান, ইরাক, ইরিত্রিয়া থেকে৷ জানাচ্ছে জার্মানির অভিবাসন ও উদ্বাস্তু দপ্তর৷

ইউরোপীয় কমিশন এরই মধ্যে জার্মানির কাছে সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ প্রত্যাহার করার জন্য আবেদন জানিয়েছে৷ দিমিত্রিস বলেন, ‘‘আমাদের দ্রুত শেঙেন ব্যবস্থা পুনর্বহাল করতে হবে৷ যদি শেঙেন ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে, তাহলে সেটা হবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের মৃত্যু৷''

ইউরোপের শেঙেন দেশগুলির মধ্যে বিনা ভিসায় সফরের সুবিধা রয়েছে৷ কিন্তু জার্মানি অস্ট্রিয়ার সঙ্গে তাদের সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছে৷ সম্প্রতি জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার জানান, অস্ট্রিয়া সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ আরও ছ'মাসের জন্য বৃদ্ধি করা হয়েছে৷ সেহোফারের দাবি, ইউরোপের বিভিন্ন দেশের সীমান্তে ঠিকঠাক নজর রাখা হয় না৷ বৃহস্পতিবারও দিমিত্রিসের সঙ্গে সেহোফারের বৈঠকে বসার কথা রয়েছে৷

ওদিকে জার্মানি উদারতা দেখালেও অস্ট্রিয়া শরণার্থীদের নিয়ন্ত্রণে কঠোর ব্যবস্থা নিতে চলেছে৷ বুধবার অস্ট্রিয়া সরকার একটি বিল এনেছে, যাতে বেআইনিভাবে অস্ট্রিয়ায় বাস করা শরণার্থীদের দেশে পাঠানোর কথা বলা হয়েছে৷ এমনকি প্রয়োজনে শরণার্থীদের কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করার সংস্থান রাখা হয়েছে নতুন বিলে৷ উল্লেখ্য, অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর সেবাস্টিয়ান কুৎর্সের রক্ষণশীল দল ও তাদের জৌটসঙ্গী অতি দক্ষিণপন্থি ফ্রিডম পার্টি বেআইনি অভিবাসন রোখার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

জার্মানির স্বস্তি

অনেক শরণার্থী এসেছে জার্মানিতে৷ অথচ ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশির ভাগ দেশ শরণার্থী নিতে নারাজ৷ এ অবস্থায় ইইউ-র সব সদস্য দেশকে কোটা অনুযায়ী শরণার্থী নিতে হবে – এমন দাবি জানিয়েছিল জার্মানি৷ মঙ্গলবারের বৈঠকে দাবি পূরণ হয়েছে৷ সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে সিদ্ধান্ত হয়েছে ১ লাখ ২০ হাজার শরণার্থীকে ভাগ করে দেয়া হবে৷ জার্মানি নেবে ৩১ হাজার ৪৪৩ জন৷ বছর শেষে জার্মানিতে আগত মোট শরণার্থী ৮ লাখে হয়ে যেতে পারে৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

জার্মানির পরই ফ্রান্স

কোটা অনুযায়ী শরণার্থী বণ্টনের দাবিতে ফ্রান্সও ছিল জার্মানির সঙ্গে৷ মঙ্গলবারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শরণার্থীর চাপটা তাদের ওপরও খুব কম পড়বে না৷ এই দফায় ২৪ হাজার ৩১ জন শরণার্থী নেবে ফ্রান্স৷ছবিতে হাঙ্গেরি সীমান্তের এক শরণার্থী শিশু৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

চারটি দেশের ঘোর আপত্তি

পূর্ব ইউরোপের দেশগুলো শুরু থেকেই শরণার্থী নেয়ার বিপক্ষে৷ মঙ্গলবার হাঙ্গেরি, রোমানিয়া, চেক প্রজাতন্ত্র ও স্লোভাকিয়া শরণার্থী নেয়ার বিপক্ষে ভোট দেয়৷ ভোটের পর চেক প্রজাতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী বহুস্লাভ সবটকা বলেন, ‘‘এটা খুবই খারাপ সিদ্ধান্ত৷’’ সরাসরি আপত্তি জানালেও এখন রোমানিয়া ৪ হাজার ৬৪৬ জন, চেক প্রজাতন্ত্র ২ হাজার ৯৭৮ জন এবং স্লোভাকিয়া ১ হাজার ৫০২ জন শরণার্থী নেবে৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

দায়িত্ব মনে করে শরণার্থী নেবে লুক্সেমবুর্গ

৫ লক্ষ ৬২ হাজার জনসংখ্যার দেশ লুক্সেমবুর্গও শরণার্থী নেবে৷ ছোট দেশ তাই মাত্র ৪৪০ জন নেবে তারা৷ তবে দেশটির সরকার মনে করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ঐক্য ধরে রাখতে সব সদস্য দেশের শরণার্থী নেয়াটা এখন কর্তব্যের পর্যায়ে পড়ে৷ এমনিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নে ছোট দেশটির এখন বড় ভূমিকা পালন করাই স্বাভাবিক, কেননা, এ মুহূর্তে ইইউর সভাপতি দেশও লুক্সেমবুর্গ৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা

ইইউ অঞ্চলের আরেক ছোট দেশ মাল্টা৷ আয়তন মাত্র ৩১৬ বর্গ কিলোমিটার আর জনসংখ্যা ৪৪ হাজারের একটু বেশি৷ এমন ছোট দেশটিও ১৩৩ জন শরণার্থী নেবে৷

সবচেয়ে কম শরণার্থী নেবে মাল্টা, সবচেয়ে বেশি জার্মানি

আর যেসব দেশ শরণার্থী নেবে

ইইউ-র আরো কয়েকটি দেশও শরণার্থী নেবে৷ স্পেন নেবে ১৪ হাজার ৯৩১ জন, পোল্যান্ড ৯ হাজার ২৮৭ জন, নেদারল্যান্ডস ৭ হাজার ২১৪ জন, বেলজিয়াম ৪ হাজার ৫৬৪ জন, সুইডেন ৪ হাজার ৪৬৮ জন, অস্ট্রিয়া ৩ হাজার ৬৪০ জন, পর্তুগাল ৩ হাজার ৭৪ জন, ফিনল্যান্ড ২ হাজার ৩৮৮ জন, বুলগেরিয়া ১৬০০ জন, ক্রোয়েশিয়া ১ হাজার ৬৪ জন, লিথুয়ানিয়া ৭৮০ জন, স্লোভেনিয়া ৬৩১ জন, লাটভিয়া ৫২৬ জন, এস্তোনিয়া ৩৭৩ এবং সাইপ্রাস নেবে ২৭৪ জন শরণার্থী৷

নতুন বিলটি পার্লামেন্টে পাশ হলে শরণার্থী হওয়ার খরচ বাবদ ৮৪০ ইউরো দিতে হবে আবেদনকারীকে৷ দেখা হবে তাঁর কোনো অপরাধের রেকর্ড আছে কিনা৷ যদি তিনি ইউরোপের অন্য কোনো দেশে প্রথম এসে থাকেন, তাঁকে সেই দেশেই পাঠিয়ে দেবে অস্ট্রিয়া৷

দেশটির আভ্যন্তরীণ মন্ত্রী হার্বাট কিকল জানান, তাঁরা যতটা সম্ভব কঠোর শরণার্থী নীতি তৈরি করছেন৷ ২০১৫ সালে দেড় লক্ষ আবেদন আসে অস্ট্রিয়ার কাছে৷ যা ৮ দশমিক ৭ মিলিয়ন জনসংখ্যার দেশের জনসমষ্টির ১ দশমিক ৭ শতাংশ৷

শরণার্থীরা অপরাধ করলে দ্রুত তাদের অস্ট্রিয়া থেকে বহিষ্কার করা নতুন বিলের গুরুত্বপূর্ণ দিক৷ অপরাধী নাবালক হলেও ছাড় পাবে না৷ শরনার্থীরা ছ'বছর অস্ট্রিয়ায় থাকলে নাগরিক হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করতেন৷ তা বাড়িয়ে ১০ বছর করা হচ্ছে৷ ২০১৬ থেকে শরণার্থীর সর্বোচ্চ সংখ্যা বেঁধে দিয়েছে অস্ট্রিয়া৷ ২০১৮ সালে মাত্র ৩০ হাজার শরণার্থীকে জায়গা দেওয়া হবে সেদেশে৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

পিএস/ডিজি (কেএনএ, ডিপিএ, রয়টার্স, এএফপি)

আমাদের অনুসরণ করুন