আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে যুদ্ধাপরাধীরাও জার্মানিতে এসেছে?

বিভিন্ন দেশের কয়েক হাজার যুদ্ধাপরাধী জার্মানিতে রাজনৈতিক আশ্রয় পেয়েছে কিনা এমন প্রশ্ন উঠেছে৷ শরণার্থী সংকটের জের ধরে আশ্রয়প্রার্থীদের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ তথ্য যাচাই করেনি, বলে দাবি করেছে জার্মানির একটি সংবাদপত্র৷

কয়েক হাজার তথ্যপ্রমাণ বলছে, গেল বছরগুলোতে বিভিন্ন দেশের হাজারও যুদ্ধাপরাধী জার্মানিতে আশ্রয় চেয়েছে, যাদের বিষয়ে কোনো ধরণের তদন্ত করেনি দেশটির সরকার৷ এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জার্মানির জনপ্রিয় দৈনিক ‘বিল্ড'৷  

ইন ফোকাস
সমাজ | 16.04.2019
শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

রায়ান সুক্কার, সাংবাদিক

আমি রায়ান সুক্কার, শাতিলার একজন সাংবাদিক৷ দুই বছর ধরে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘ক্যাম্পজি’তে কাজ করছি৷ অন্যান্য শরণার্থী ক্যাম্প থেকেও রিপোর্ট করি৷ শাতিলার শরণার্থী শিবিরে প্রায় ৪০,০০০ মানুষের বাস৷ ফিলিস্তিনি শরণার্থীরা আছেন এখানে৷ এছাড়া গৃহযুদ্ধ থেকে পালিয়ে আসা সিরীয় শরণার্থীদের সংখ্যাও অনেক৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

ক্যাম্পজি’র সম্পাদকীয় বিভাগ

আমরা একসাথে আমাদের আইডিয়া এবং বিষয় খুঁজে বের করি৷ আমরা শরণার্থীদের জীবনযাত্রা, তাঁদের নানা সমস্যা ছাড়াও বিভিন্ন বিষয় পর্যবেক্ষণ করি৷ কারণ আমরা শাতিলায় বাস করি বলে অন্য শরণার্থীদের উদ্বেগ সম্পর্কে ভালো করেই জানি এবং তা বুঝতেও পারি৷ আর এ কারণেই আমাদের ‘নাগরিক সাংবাদিক’ বলা হয়৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

পুরো দলের সাথে সম্পাদকীয় মিটিং

আমরা নতুন কিছু আইডিয়ার কথা সাপ্তাহিক মিটিংয়ে জানাই, তারপর আমাদের সেই আইডিয়া বা প্রস্তাবগুলো নিয়ে টিমের সবার সাথে আলাপ আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

শুটিং-এর দিন

আজ শুটিং হবে! আমাদের গল্প অভিবাসন সম্পর্কে৷ অনেকেই ক্যাম্প ছেড়ে অন্য দেশে জীবন শুরু করতে যায়৷ তাই আমরা শুটিং করার জন্য আল-জলিল শরণার্থী ক্যাম্পে যাই৷ শুটিং-এর প্রযুক্তিগত দিকটি দেখে সামি৷ আর আমি সামগ্রিক দিকটি তুলে ধরি৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

অভিবাসন নিয়ে কথা

আমরা শরণার্থীদের সাথে কথা বলতে, তাঁদের জীবনযাত্রা নিয়ে মতামত জানতে ভীষণ আগ্রহী৷ যেমন ছবিতে শরণার্থী বাসেল-এর সঙ্গে আমাকে কথা বলতে দেখছেন৷ আমরা যখন শুটিং করেছিলাম তখন তিনি নিজে থেকে এসে আমাদের সঙ্গে তাঁর শরণার্থী জীবন নিয়ে কথা বলছিলেন তিনি৷ ক্যাম্পে বসবাসকারী অনেকের জীবনেই উত্তেজনাপূর্ণ গল্প রয়েছে৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

শুটিং-এর চ্যালেঞ্জ

একটি শরণার্থী ক্যাম্পে এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া সহজ কাজ নয়, যাদের ভিন্ন ভিন্ন মত বা অন্যরকম চিন্তাভাবনা রয়েছে৷ তাছাড়া ক্যামেরা নিয়ে বিভিন্ন ক্যাম্পে ঘোরাফেরা করা আমাদের পক্ষে সবসময় সম্ভবও নয়৷

শরণার্থী শিবিরে জন্মানো এক নারী সাংবাদিকের কথা

অফিসে ফেরার পথে

সারা দিন শুটিং আর কাজ শেষে আমরা ক্যাম্পজি অফিসে ফিরে যাই৷ আল-জলিল ক্যাম্পে এটা আমাদের প্রথম শুটিং ছিল৷ আগামীতে আরো শুটিং করতে হবে বলে মনে হচ্ছে৷ আমরা ইতোমধ্যে অনেক গল্প শুনেছি এবং কাছ থেকে দেখেছি৷ সেগুলো নিয়েই আমরা আগামীতে তথ্যপূর্ণ রিপোর্ট করতে চাই৷

সংবাদপত্রটি বলছে, ২০১৪ থেকে ২০১৯ সালের শুরু পর্যন্ত আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অপরাধ হিসেবে গণ্য হয় এমন পাঁচ হাজারটি মামলা পেয়েছে ‘ফেডারেল অফিস ফর মাইগ্রেশন অ্যান্ড রিফিউজি' বা বাম্ফ৷ তারা সেগুলো ফেডারেল ক্রিমিনাল পুলিশ অফিস ও অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে পাঠায়৷ এর মধ্যে মাত্র ১২৯টি তদন্ত করে দেখা হয়েছে৷

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র জানান, সংখ্যাটি বড় হওয়ায় প্রতিটি তাৎক্ষণিকভাবে তদন্ত করা সম্ভব হয়নি৷ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৫ থেকে ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি ৩,৮০০টি তথ্য খতিয়ে দেখার জন্য পাঠায় বাম্ফ, যার মধ্যে মাত্র ২৮টি তদন্ত করা হয়৷

স্বরাষ্ট্র বিষয়ক সংদীয় কমিটির সদস্য এবং মুক্ত গণতন্ত্রী এফডিপি দলের নেতা লিন্ডা টয়টেব্যার্গ বলেন, ‘‘যুদ্ধাপরাধীরা কোনোভাবেই জার্মানিতে নিরাপত্তা পাওয়া উচিত নয়৷ বিগত বছরগুলোতে ফেডিরেল সরকার যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি দেখেছে কিনা তা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে৷''

সিরিয়ায় ভয়াবহ সংকটের কারণে ২০১৫ সালে জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল শরণার্থীদের আশ্রয় দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন৷ সেসময় মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া ও আফ্রিকার যুদ্ধবিদ্ধস্ত ও দারিদ্র্যপীড়িত অঞ্চল থেকেও অনেকে পালিয়ে এসেছেন৷ তবে এরপর অবশ্য শরণার্থী আসার সংখ্যা ব্যাপকভাবে কমে যায়৷

প্রতিবেদন: লুইস স্যান্ডার্স/এফএস

আমাদের অনুসরণ করুন