উঁচু গাছ কেটে ফেলায় প্রতিশোধ নিচ্ছে প্রকৃতি

বজ্রপাতকে জাতীয় দুর্যোগ বলে ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশে৷ চলতি বছরে দেশের বিভিন্ন এলকায় মোট ২৬১ জন নিহত হয়েছেন বাজ পড়ার ফলে৷ তাই মানুষকে এর হাত থেকে বাঁচাতে একটি সচেতনতামূলক কর্মসূচি নিয়েছে সরকার৷

বাংলাদেশে বছরে গড়ে ৮০ থেকে ১২০ দিন বজ্রপাত হয়৷ যুক্তরাষ্ট্রের কেন্ট স্টেট ইউনিভার্সিটির ডিপার্টমেন্ট অফ জিওগ্রাফির অধ্যাপক ড. টমাস ডাব্লিউ স্মিডলিনের ‘রিস্কফ্যাক্টরস অ্যান্ড সোশ্যাল ভালনারেবিলিটি' শীর্ষক গবেষণা বলছে, ‘প্রতিবছর মার্চ থেকে মে পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতি বর্গ কিলোমিটার এলাকায় ৪০টি বজ্রপাত হয়ে থাকে৷ আর সংবাদমাধ্যমে বছরে মাত্র দেড়শ'র মতো মানুষের মৃত্যুর খবর প্রকাশ হলেও, প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা পাঁচশ' থেকে এক হাজার৷'

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

দুর্যোগ ফোরামের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৫ সালে বজ্রপাতের ফলে ২৬৪ জনের মুত্যু হয়েছে বাংলাদেশে৷ এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয় মে মাসে৷ ২০১৫ সালের মে মাসে মোট ৯১ জন মারা যান৷ এর মধ্যে মে মাসের ২ তারিখে ১৯ জন, ৭ তারিখে ১৮ জন এবং ১৫ তারিখে ১৪ জনের মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ আর এ বছর মার্চ, এপ্রিল এবং মে মাসে বজ্রপাতে মারা গেছেন মোট ২৬১ জন৷ এর মধ্যে মে মাসে মাত্র দু'দিনে মারা গেছেন ৮১ জন৷

পরিস্থিতি বিবেচনায় মে মাসের ১৭ তারিখ এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় বজ্রপাতকে জাতীয় দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে৷

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জেল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, ‘‘বিশ্বব্যাপী জলবায়ুর পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে বাংলাদেশে বজ্রপাতে হতাহতের ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে৷ তাই জাতিসংঘের পরবর্তী জলবায়ুবিষয়ক সম্মেলনে বিষয়টি উত্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷''

রাতের আকাশে এমন দৃশ্য বিরল নয়৷ বিদ্যুৎ চমকানোর ব্যাপারটি অনেকটা ‘শর্ট সার্কিটের’ মতো ব্যাপার৷ আর একেকটি বিদ্যুৎ চমক ৫০০ মিলিয়ন ভোল্ট পর্যন্ত শক্তিশালী হতে পারে৷ জার্মানিতে প্রতি বছর গড়ে বিশ লাখের বেশি বার বিদ্যুৎ চমকায়৷ এতে অবশ্য ভয়ের কিছু নেই৷ কেননা অধিকাংশই মাটি স্পর্শ করে না৷ বরং মেঘ থেকে মেঘে স্থানান্তর হয়৷

২০১৩ সালে বজ্রপাতের কারণে জার্মান বিমা সংস্থাগুলোর ২৮০ মিলিয়ন ইউরোর মতো গুনতে হয়েছে৷ তবে সরাসরি ঘরবাড়ির উপর বজ্রপাতের কারণে এটা হয়নি৷ আসলে অনেক সময় বাড়ির কাছাকাছি বজ্রপাত হলে বাড়তি বিদ্যুৎ সাধারণ বৈদ্যুতিক লাইনের মাধ্যমে ঘরের মধ্যে চলে যায়৷ ফলে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম নষ্ট হয়৷ তাই পরামর্শ হচ্ছে, বিদ্যুৎ চমকালে টিভি, ফ্রিজের মতো পণ্যের প্লাগ খুলে রাখুন৷

‘লর্ডস অফ লাইটনিং’ এর মতো শিল্পীরা বজ্রপাতের সৌন্দর্যকে এভাবেই স্টেজে ফুটিয়ে তুলেছেন৷ বিভিন্ন চিত্রকর্মেও বিদ্যুৎ চমকানোর দৃশ্য একেছেন শিল্পীরা৷ নিরাপদ দূরত্বে বসে প্রকৃতির এই খেয়াল উপভোগ্য নয় বৈকি৷

বাংলাদেশে বছরে গড়ে ৮০ থেকে ১২০ দিন বজ্রপাত হয়৷ যুক্তরাষ্ট্রের কেন্ট স্টেট ইউনিভার্সিটির ডিপার্টমেন্ট অফ জিওগ্রাফির অধ্যাপক ড. টমাস ডাব্লিউ স্মিডলিনের ‘রিস্কফ্যাক্টরস অ্যান্ড সোশ্যাল ভালনারেবিলিটি' শীর্ষক গবেষণা বলছে, ‘প্রতিবছর মার্চ থেকে মে পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতি বর্গ কিলোমিটার এলাকায় ৪০টি বজ্রপাত হয়ে থাকে৷ আর সংবাদমাধ্যমে বছরে মাত্র দেড়শ'র মতো মানুষের মৃত্যুর খবর প্রকাশ হলেও, প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা পাঁচশ' থেকে এক হাজার৷'

দুর্যোগ ফোরামের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৫ সালে বজ্রপাতের ফলে ২৬৪ জনের মুত্যু হয়েছে বাংলাদেশে৷ এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয় মে মাসে৷ ২০১৫ সালের মে মাসে মোট ৯১ জন মারা যান৷ এর মধ্যে মে মাসের ২ তারিখে ১৯ জন, ৭ তারিখে ১৮ জন এবং ১৫ তারিখে ১৪ জনের মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ আর এ বছর মার্চ, এপ্রিল এবং মে মাসে বজ্রপাতে মারা গেছেন মোট ২৬১ জন৷ এর মধ্যে মে মাসে মাত্র দু'দিনে মারা গেছেন ৮১ জন৷

পরিস্থিতি বিবেচনায় মে মাসের ১৭ তারিখ এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় বজ্রপাতকে জাতীয় দুর্যোগ হিসেবে ঘোষণা করেছে৷

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জেল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেন, ‘‘বিশ্বব্যাপী জলবায়ুর পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে বাংলাদেশে বজ্রপাতে হতাহতের ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে চলেছে৷ তাই জাতিসংঘের পরবর্তী জলবায়ুবিষয়ক সম্মেলনে বিষয়টি উত্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷''

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো.শাহ কামাল বলেন, ‘‘উন্নত বিশ্বের দেশগুলো থেকে অতিমাত্রায় কার্বন নিঃসরণ হচ্ছে৷ এতে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলো জলবায়ু ঝুঁকিতে পড়ছে৷ এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বাংলাদেশ৷ মরক্কোতে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের জলবায়ু বিষয়ক সংস্থার আগামী সম্মেলনে বাংলাদেশে বজ্রপাতের এই বিষয়টি উত্থাপন করে প্রতিকার চাওয়া হবে৷''

মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এরইমধ্যে বজ্রপাতে নিহত ৮১ জন পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ১৫ লাখ টাকা ত্রাণ হিসেবে বিতরণ করা হয়েছে৷ পরিবার প্রতি সর্বনিম্ন সাত হাজার ৫০০ এবং সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা নগদ অর্থ সহায়তাও দেয়া হয়েছে৷ এছাড়া বজ্রপাতের তথ্য জানতে ও জানাতে একটি জরুরি দুর্যোগ সেল খোলা হয়েছে৷ বজ্রপাত কী, বজ্রপাতের সময় কী করতে হবে ও কী করা যাবে না – এ নিয়ে একটি সচেতনতামূলক কর্মসূচি নিয়েছে সরকার৷

আকাশে ‘শর্ট সার্কিট’

রাতের আকাশে এমন দৃশ্য বিরল নয়৷ বিদ্যুৎ চমকানোর ব্যাপারটি অনেকটা ‘শর্ট সার্কিটের’ মতো ব্যাপার৷ আর একেকটি বিদ্যুৎ চমক ৫০০ মিলিয়ন ভোল্ট পর্যন্ত শক্তিশালী হতে পারে৷ জার্মানিতে প্রতি বছর গড়ে বিশ লাখের বেশি বার বিদ্যুৎ চমকায়৷ এতে অবশ্য ভয়ের কিছু নেই৷ কেননা অধিকাংশই মাটি স্পর্শ করে না৷ বরং মেঘ থেকে মেঘে স্থানান্তর হয়৷

বজ্রপাত থেকে বাঁচার উপায়

ছবিতে থাকা এই মানুষটি বজ্রপাতের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না৷ কেননা তাঁর ধাতব স্যুট বিদ্যুৎ চমক প্রতিরোধে সক্ষম৷ এই স্যুটের নীতি হচ্ছে ‘ফ্যারাডে কেজ’৷ ধাতু বিদ্যুৎ চমক থেকে সৃষ্ট বিদ্যুতের প্রবাহ প্রতিরোধ করতে পারে৷ তাই বিমান কিংবা গাড়িও ‘লাইটনিং বোল্ট’ বা বিদ্যুৎ চমকের আঘাত থেকে নিরাপদ৷

মাটিতে ফিরিয়ে নেয়া

সাধারণত উঁচু জায়গায় বজ্রপাত ঘটে৷ যেকারণে প্রায় সব বড় গির্জা বা বহুতল ভবনে ‘লাইটনিং রড’ রয়েছে, যা আর্থিং হিসেবেও পরিচিত৷ এই ব্যবস্থার ফলে বজ্রপাতের কারণে ভবনের ক্ষতি হয় না৷ বরং বিদ্যুৎ সরাসরি ভূমিতে চলে যায়৷ ১৭৫২ সালে বেনজামিন ফ্রাঙ্কলিন ‘লাইটনিং রড’ আবিষ্কার করেন৷

ধ্বংসাত্মক প্রাকৃতিক আচরণ

২০১৩ সালে বজ্রপাতের কারণে জার্মান বিমা সংস্থাগুলোর ২৮০ মিলিয়ন ইউরোর মতো গুনতে হয়েছে৷ তবে সরাসরি ঘরবাড়ির উপর বজ্রপাতের কারণে এটা হয়নি৷ আসলে অনেক সময় বাড়ির কাছাকাছি বজ্রপাত হলে বাড়তি বিদ্যুৎ সাধারণ বৈদ্যুতিক লাইনের মাধ্যমে ঘরের মধ্যে চলে যায়৷ ফলে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম নষ্ট হয়৷ তাই পরামর্শ হচ্ছে, বিদ্যুৎ চমকালে টিভি, ফ্রিজের মতো পণ্যের প্লাগ খুলে রাখুন৷

‘বল লাইটনিং’ এর অস্তিত্ব আছে

এটা প্রকৃত ‘বল লাইটনিং’ নয়৷ তবে বাস্তবেও এটা সম্ভব! যদিও এমন বিদ্যুৎ চমকানোর ছবি প্রকৃতি থেকে এখনো তোলা যায়নি, তবে বিজ্ঞানীরা বিষয়টি প্রমাণে সক্ষম হয়েছেন৷

আকর্ষণ এবং আতঙ্কের মাঝামাঝি

গ্রীষ্মের আকাশে বিদ্যুৎ চমকানো দেখে অনেকে রোমাঞ্চ অনুভব করেন৷ তবে কেউ যদি বিদ্যুৎ চমকানোর কথা শুনেই ঘামতে শুরু করেন তাহলে তাকে বলে ‘এস্ট্রাফোবিয়া৷’ বজ্রপাত এবং বিদ্যুৎ চমকানো নিয়ে যাদের মধ্যে আতঙ্ক রয়েছে তারা এস্ট্রাফোবিয়ায় আক্রান্ত৷

শিল্পীদের প্রেরণা

‘লর্ডস অফ লাইটনিং’ এর মতো শিল্পীরা বজ্রপাতের সৌন্দর্যকে এভাবেই স্টেজে ফুটিয়ে তুলেছেন৷ বিভিন্ন চিত্রকর্মেও বিদ্যুৎ চমকানোর দৃশ্য একেছেন শিল্পীরা৷ নিরাপদ দূরত্বে বসে প্রকৃতির এই খেয়াল উপভোগ্য নয় বৈকি৷

ব্র্যাক-এর দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ নাঈম ওয়ারা ডয়চে ভেলেকে এ বিষয়ে বলেন, ‘‘বজ্রপাত প্রকৃতির একটি স্বাভাবিক ঘটনা৷ এটা আগেও ছিল, এখনো আছে৷ তবে বজ্রপাতে মানুষের মৃত্যুর হার বেড়ে গেছে৷ এর প্রধাণ কারন উঁচু বা লম্বা গাছপালা কেটে ফেলা৷ উঁচু গাছ না থাকায় খোলা আকাশের নীচে কৃষক যখন কাজ করেন, তখনই তিনি বজ্রপাতের শিকার হন৷ উঁচু গাছ থাকলে ঐ গাছেই বজ্রপাত হতো, গাছ টেনে নিত৷ কিন্তু সেটা না থাকায় খোলা মাঠ, হাওর বা নদীতে বজ্রপাতের কারণে মানুষ মারা যাচ্ছে৷''

তিনি জানান, ‘‘বজ্রপাত শহরেও হয়৷ কিন্তু সেখানে উচু ভবন বা স্থাপনা আছে, বিদ্যুতের উঁচু খুটি আছে৷ তাই শহরে বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা তেমন ঘটে না৷''

তাঁর কথায়, ‘‘বজ্রপাতে সাধারণত গরিব মানুষ মারা যায়, কৃষক মারা যায়৷ তাই তাঁদের নিয়ে আমরা তেমন ভাবি না৷ বজ্রপাতে যাঁরা আহত হন, তাঁদের চিকিৎসার কোনো আলাদা ব্যবস্থা নেই আমাদের দেশে৷''

এই দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘‘বজ্রপাত আমাদের কৃষি এবং পরিবেশের জন্য অপরিহার্য৷ বজ্রপাত না হলে কৈ মাছ ডিম দেবে না৷ মাছের প্রজনন হবে না৷ এটা প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়ম৷ তাই বজ্রপাত কমানোর কোনো উপায় নেই, তার দরকারও নাই৷ আগে গ্রামে, মাঠের মধ্যে উঁচু উঁচু গাছ ছিল, যা বজ্রপাতের আঘাত থেকে মানুষ, প্রাণীদের রক্ষা করতো৷ আমরা তা কেটে ফেলেছি৷ তাই প্রকৃতি এখন আমাদের শাস্তি দিচ্ছে৷ আমাদের তাই এখন ভাবতে হবে, আমরা কীভাবে বজ্রপাত থেকে বাঁচবো৷''

বন্ধু, প্রকৃতি কি সত্যিই বদলা নিচ্ছে? আপনার মত কী? লিখুন নীচের ঘরে৷

খারাপ আবহাওয়ার সতর্কবার্তা

জার্মানির বেশ কয়েকটি শহরে সপ্তাহান্তে বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হয়েছে৷ টানা বর্ষণে কিছু এলাকা পানিতে ডুবে যায়৷ বন্যা এবং ভূমিধসের কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থাও বিঘ্নিত হয়৷

খেলার মাঠে বজ্রপাত

জার্মানির রাইনল্যান্ড-প্যালাটিনেট এলাকায় ফুটবল খেলা চলাকালে বজ্রপাতে শিশুসহ কমপক্ষে ৩৫ ব্যক্তি আহত হন৷ ৪৫ বছর বয়স্ক একজন রেফারি সরাসরি আঘাত পান৷ তবে হাসপাতালে চিকিৎসকরা তাঁকে বাঁচাতে সক্ষম হন৷

পানিতে নিমজ্জিত রাস্তাঘাট

জার্মানির দক্ষিণের শহর বাডেন-ভুর্টেমব্যার্গে কিছু রাস্তায় এভাবে পানি জমে যায়৷ দমকল এবং উদ্ধারকর্মীরা রাতভর চেষ্টা করে রাস্তার পানি সরান৷

উদ্ধার তৎপরতায় ভুল

তিনজন মানুষ যখন একটি পাখির খাঁচা থেকে পাখিদের বের করে দেয়ার চেষ্টা করছিলেন, তখন পানি বাড়তে থাকলে এক পর্যায়ে তারা পাখির বাসার উপরে উঠে যান৷ পরবর্তীতে তাদের সেখান থেকে উদ্ধার করা হয়৷

বাভারিয়ায় শিলাবৃষ্টি

বাভারিয়ার শহর হেমাউতে মারাত্মক শিলাবৃষ্টি হয়৷ বাডেন-ভুর্টেমব্যার্গ, রাইনল্যান্ড-পালাটিনেট, সারল্যান্ড এবং হেসে রাজ্যসহ আরো কিছু এলাকা শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতির শিকার হয়৷

ফ্রান্স, পোল্যান্ডে বজ্রপাত

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের একটি পার্কে বজ্রপাতে কমপক্ষে ১১ শিশু আহত হয়৷ আর পোল্যান্ডে বজ্রপাতে প্রাণ হারান চল্লিশ বছর বয়সি এক পর্বতারোহী৷

আরো ঝড় আসছে

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞদের পূর্বাভাষ বলছে, আগামী কয়েকদিন আরো ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা রয়েছে৷ এসময় জার্মানির প্রায় সব শহরেই ঝড় এবং ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে৷

আরো প্রতিবেদন...