উদ্বাস্তুদের টাকা দিয়ে দেশে ফেরানোর কর্মসূচি শুরু

জার্মানিতে যারা রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করেছেন, তারা যাতে স্বেচ্ছায় দেশে ফেরেন সেজন্য ‘স্টার্ট হেল্প প্লাস' কর্মসূচি চালু করেছে জার্মান সরকার৷ এই কর্মসূচিতে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের দেশে ফেরার জন্য টাকা দেয়া হয়৷

পয়লা ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে চালু হয় এই কর্মসূচিটি৷ অভিবাসন ও উদ্বাস্তুদের জন্য ফেডারাল কার্যালয় (বিএমএএফ) আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংগঠন আইওএম-এর সহযোগিতায় এই কর্মসূচিটির দেখাশোনা করেছে৷ উদ্দেশ্য হলো, যে সব রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী স্বদেশে ফিরতে রাজি, তাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া৷ এজন্য চার কোটি ইউরো বরাদ্দ করা হয়েছে৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

‘‘২০১৬ সালে প্রায় ৫৫,০০০ মানুষ স্বেচ্ছায় স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন৷ সংখ্যাটা আগের বছরের চেয়ে বেশি, কেননা ২০১৫ সালে ফিরেছিল প্রায় ৩৫,০০০ মানুষ৷ অতিরিক্ত বাজেট পাওয়ার ফলে পরিস্থিতি আরো ভালো হয়েছে'', বলে ডয়চে ভেলেকে জানান বুধবারই সরকারিভাবে বিএমএএফ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করা ইউটা কর্ড৷

কাজের অনুমতি ছাড়া কাজ নয়

মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকায় এটা বৈধ হলেও জার্মানিতে কাজের অনুমতি ছাড়া কাজ করা আইনের দৃষ্টিতে অবৈধ৷ কেউ যদি অবৈধভাবে কাজ করা অবস্থায় ধরা পড়ে, তাহলে তার জরিমানা, এমনকি জেলও হতে পারে৷

কর অবশ্যই প্রদান করতে হবে

জার্মানিতে কর প্রদানের নিয়মকানুন বেশ জটিল৷ তাসত্ত্বেও কর প্রদান না করা এখানে অবৈধ৷ আইন অনুযায়ী, এটা সমাজের বিপরীতে এক ধরনের চুরি৷ কর প্রদান এক ধরনের দায়িত্ব, যেমনটা ট্যাক্স প্রদান৷

শিশুদের প্রতি জোর খাটানো যাবে না

শিশুদের আঘাত করা জার্মানিতে শাস্তিযোগ্য অপরাধ৷ বাড়ি কিংবা স্কুল কোথাও শারীরিক শাস্তি গ্রহণযোগ্য নয়৷

শিশুদের অবশ্যই স্কুলে যেতে হবে

স্কুল বয়সি শিশুরা শুধু বাসায় বসে থাকতে পারবে না, পারবে না কাজে যেতে৷ তাদের যেতে হবে স্কুলে৷ শিশুর বয়স ছয় বছর হলে তাকে অবশ্যই কোনো না কোনো স্কুলে নিবন্ধিত হতে হবে এবং নিয়মিত ক্লাসে যেতে হবে৷

বেশি শব্দ করা যাবে না!

এমনকি নিজের ঘরের মধ্যেও বেশি শব্দ করা যাবে না, যা আপনার প্রতিবেশীদের বিরক্ত করতে পারে৷ বিশেষ করে রাতের বেলা জার্মানিতে এদিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়৷

সুপারমার্কেটে দরকষার সুযোগ নেই

বাজারে দরকষাকষি বিশ্বের অনেক দেশেই গ্রহণযোগ্য এবং মানুষ তা উপভোগও করে৷ তবে জার্মানিতে সুপারমার্কেট কিংবা অধিকাংশ দোকানপাটে দরদামের সুযোগ নেই৷ দরাদরি করতে চাইলে অনলাইনে চেষ্টা করতে পারেন৷

পশুপ্রাণিকে খেতে দেবেন না!

জার্মানিতে অধিকাংশ প্রাণির মালিক রয়েছে কিংবা তারা বিশেষ আইনের আওতায় পরিচালিত৷ তাই প্রতিবেশির বেড়ালকে তাঁর অনুমিত ছাড়া খাওয়ানো খুব একটা বুদ্ধিমানের কাজ হবে না৷ আর বেড়ালটা যদি মালিকের চেয়ে আপনার প্রতি বেশি অনুগত হয়ে যায় তাহলে মালিক আপনার বিরুদ্ধে মামলাও ঠুকতে পারে!

সময়নিষ্ঠা – জার্মানিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

কোনো অ্যাপয়েনমেন্ট থাকলে সেখানে সময়মত যাওয়া এবং সর্বোপরি সময়ের প্রতি সচেতনতা জার্মানিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ দেরি করে কোথাও যাওয়া ঠিক নয়৷ আর যদি একান্ত দেরি হয় তাহলে যার সঙ্গে সাক্ষাতের কথা তাঁকে তা জানানোই নিয়ম৷

নিজের দূরত্ব বজায় রাখুন

অনেক সংস্কৃতিতে অন্যের বাচ্চাকে জড়িয়ে ধরা, চুমু দেয়া কিংবা উপহার দেয়া স্বাভাবিক ব্যাপার৷ তবে জার্মানিতে বিষয়টি তেমন নয়৷ বাচ্চার অভিভাবকের উপর এটা নির্ভর করে৷ তাই শিশুটা যদি বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণও করে তবুও নিজের দূরত্ব বজায় রেখে তার সঙ্গে কথা বলুন৷

রাস্তায় গাড়ি পরিষ্কার নয়

অবশ্যই বাড়ির কাছে গাড়ি পরিষ্কার করাটা সাশ্রয়ী৷ তবে জার্মানিতে এটা নিষিদ্ধ৷ কারণ এতে পরিবেশের ক্ষতি হয়৷ তাই গাড়ি পরিষ্কার করতে চাইলে সেটি নির্দিষ্ট স্থানে নিয়ে যান৷ কিছু জায়গায় নিজ হাতে পরিষ্কারের সুযোগ আছে, কোথাও আছে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা৷ তাই পছন্দ আপনার৷

শীঘ্রই জার্মানি ছাড়ার পুরস্কার

‘স্টার্ট হেল্প প্লাস' কর্মসূচির লক্ষ্য হলো যাদের জার্মানিতে রাজনৈতিক আশ্রয় পাবার বিশেষ সম্ভাবনা নেই, তাদের দেশ ছাড়ার জন্য পুরস্কৃত করা৷ বিশেষ করে কেউ যদি রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন দাখিলের প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হওয়ার আগেই জার্মানি পরিত্যাগ করেন তাহলেই এ ‘পুরস্কার' দেয়া হবে৷

১২ বছরের বেশি বয়সের উদ্বাস্তুরা যদি তাদের আবেদন সম্পর্কে সিদ্ধান্তে নেওয়ার আগেই সেই আবেদন প্রত্যাহার করে, তাহলে তারা ১,২০০ ইউরো পাবেন৷ যাদের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে, তারা যদি আপিল না করতে ও একটি নির্দ্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জার্মানি পরিত্যাগ করতে রাজি থাকে, তবে তারা পাবে ৮০০ ইউরো৷ পরিবার ও ১২ বছরের কম বয়সের শিশুসন্তানদের জন্য বাড়তি অর্থ দেওয়া হবে৷ এমনকি যারা জার্মানিতে সাময়িকভাবে থাকার অনুমতি পেয়েছে, তারাও স্বদেশে ফেরার জন্য আর্থিক সহায়তা লাভ করতে পারে৷

Infografik Hauptherkunftsländer Asylbewerber Englisch

এ সুযোগের অপব্যবহার রোধের জন্য পশ্চিম বলকান অঞ্চলের দেশগুলি ও সিরিয়া থেকে আসা উদ্বাস্তুদের এই কর্মসূচি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে৷ বাকিদের বলা হচ্ছে যে, স্বেচ্ছায় স্বদেশে প্রত্যাবর্তন সরকারিভাবে জার্মানি থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার চেয়ে ভালো৷ অপরদিকে, সরকারের পক্ষেও এই কর্মসূচির মাধ্যমে উদ্বাস্তুদের ফেরত পাঠানোর খরচ বিধিবদ্ধভাবে বহিষ্কারের খরচের চেয়ে অনেক কম৷

এসি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি, ইপিডি)

উদ্বাস্তুদের টাকা দিয়ে দেশে ফেরানোর এই কর্মসূচি সম্পর্কে াপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচের ঘরে৷

চিকিৎসক থেকে শরণার্থী

সিরিয়ায় রাজধানী দামেস্কে চিকিৎসক হিসেবে ভালোই ছিলেন হামবার আল-ইসা৷ কিন্তু যুদ্ধ শুরুর পর জন্মভূমির সব সুখ ছেড়ে ইউরোপের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাতে হয় তাঁকে৷

অনেক পথ পেরিয়ে...

মেসিডোনিয়ায় পৌঁছানোর পর সার্বিয়ার সীমান্ত পর্যন্ত যেতে অনেকটা পথ হাঁটতে হয়েছে হামবারকে৷ হেঁটে কোনো শহরে পৌঁছালেই শুরু হতো ইন্টারনেট ক্যাফে খুঁজে বের করার চেষ্টা৷ পেলে প্রথম কাজ কোথায় আছেন, কেমন আছেন সে সম্পর্কে পরিবারকে বিস্তারিত জানানো৷ একা এসেছেন, তাই স্বজনদের তাঁর জন্য খুব চিন্তা৷ তাঁদের চিন্তা দূর করা ও তাঁদের সম্পর্কে জেনে নিজেকে নিশ্চিন্ত রাখতেই পছন্দ করেন হামবার৷

অবশেষে জার্মানিতে...

অনেক দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে অবশেষে জার্মানিতে পৌঁছেছেন হামবার৷ সিরিয়াতে সার্জন হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও নতুন দেশে চাইলেই তো আর চিকিৎসক হিসেবে কাজ শুরু করা যায় না৷ জার্মান ভাষা শিখে নিজেকে তৈরি করতে হবে সবার আগে৷ সেই চেষ্টা চলছে৷ পাশাপাশি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুবাদকের কাজও করছেন৷ তাঁর স্বপ্ন অবশ্য জার্মানিতে বসবাস করা নয়৷ সুসময় ফিরে এলে নিজের দেশেই ফিরতে চান হামবার৷

দেশান্তরী এক আফগান কিশোরী

তোবার বয়স এখন ১৬ বছর৷ আফগানিস্তানের হেরাত থেকে জার্মানিতে এসেছে সে৷ হেরাতে নিয়মিত স্কুলে যেত সে৷ লেখাপড়া করেই প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নও দেখতো৷ কিন্তু তালেবান বেছে বেছে মেয়েদের স্কুলে হামলা শুরু করায় তোবার পক্ষেও আর দেশে থাকা সম্ভব হয়নি৷

সপরিবারে জার্মানিতে

আফগানিস্তান থেকে জার্মানিতে অবশ্য একা আসেনি তোবা৷ দুই বোন এবং তাঁদের স্বামীও এসেছেন সঙ্গে৷ কাছের এই মানুষগুলো সঙ্গে থাকার কারণেই ইরান, তুরস্ক, গ্রিস এবং বলকান অঞ্চল হয়ে জার্মানিতে পৌঁছাতে পেরেছে তোবা৷

দুঃস্বপ্নে পোড়া স্কুল, স্বপ্নে সুন্দর আগামী

তালেবান হামলা থেকে বাঁচতে আফগানিস্তান ছেড়ে এলেও স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্ন কিন্তু ছাড়েনি তোবা৷ নিজেকে নতুন করে তৈরি করছে সে৷ জার্মান ভাষা শিখছে৷ স্বাবলম্বী হতে হলে জার্মানিতে ভাষা শেখাটা তো সবার জন্যই জরুরি৷

এক সাংবাদিকের পরিবার

ওপরের ছবির তিনজন জার্মানিতে এসেছেন সিরিয়ার ইদলিব থেকে৷ আহমেদ (মাঝখানে)-এর সঙ্গে তাঁর স্ত্রী হেবা এবং বন্ধু সালেহ৷ সিরিয়ায় সাংবাদিক হিসেবে বেশ কিছুদিন কাজ করেছেন আহমেদ৷

শৈশবেই প্রবাসী

আহমেদ-হেবা দম্পতির এই মেয়েটিও এসেছে জার্মানিতে৷ মাত্র এক বছর বয়সেই শুরু হয়েছে তার প্রবাসজীবন৷ ওর বাবা অবশ্য যুদ্ধ থামলেই ফিরে যেতে চায় সিরিয়ায়৷