উদ্বাস্তু সংকটের ফলে চরম দক্ষিণপন্থিদের পালে হাওয়া

সিরিয়া বা আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ; সাহারার দক্ষিণে খরা ও দুর্ভিক্ষ; উত্তর আফ্রিকায় চরম আশাহীনতা – সব মিলিয়ে ইউরোপ অভিমুখে অভূতপূর্ব উদ্বাস্তুর স্রোত৷ যার ফল কুড়োচ্ছে চরম দক্ষিণপন্থিরা, বলে গ্রেহাম লুকাসের অভিমত৷

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যখন শেষ হচ্ছে ও তার অব্যবহিত পরে ইউরোপ তথা জার্মানি এই ধরনের উদ্বাস্তু বা শরণার্থীর স্রোত দেখেছিল বটে৷ রিফিউজিদের প্রশ্নে ইউরোপ আজ দ্বিধাবিভক্ত: একদিকে জার্মানি বা সুইডেনের মতো দেশ, যারা উদ্বাস্তুদের নিচ্ছে; অপরদিকে হাঙ্গেরি বা পোল্যান্ডের মতো দেশ, যারা উদ্বাস্তুদের নিতে গররাজি – ব্রিটেনকেও যে দলে ফেলা যায়৷

কিন্তু গত কয়েক মাসে উদ্বাস্তু সংকট যত চরমে উঠেছে, ততই ইউরোপীয় রাজনীতির ধারা যেন ডানদিকে ঘুরেছে৷ জার্মানিতে দক্ষিণপন্থি মনোভাবের মানুষজন বলছেন, আঙ্গেলা ম্যার্কেল যদি তাঁর উদ্বাস্তুরা স্বাগতম নীতি না বদলান, তাহলে তাঁর চ্যান্সেলরশিপের এখানেই অন্ত ঘটতে পারে৷ আগামী প্রাদেশিক নির্বাচনগুলিতে ‘জার্মানির জন্য বিকল্প' নামধারী এএফডি দল, যারা অতিমাত্রায় উদ্বাস্তু ও বহিরাগত বিরোধী, তারা বিপুল ভোট সংগ্রহ করবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে – বিশেষ করে থার্টি ফার্স্ট নাইটে কোলনে যা ঘটেছে, তার পরে৷ ফ্রান্সেও আগামী বছরের রাষ্ট্রপ্রধান নির্বাচনে চরম দক্ষিণপন্থিদের ভালো ফলাফল করার সম্ভাবনা বাড়ছে৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

অভিবাসীর মৃত্যু

হাঙ্গেরি থেকে ভিয়েনাগামী মোটরওয়েতে বৃহস্পতিবার ফেলে রাখা অবস্থায় যে রেফ্রিজারেটেড ট্রাকটি পাওয়া যায়, তা থেকে ৭০টির বেশি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, বলে ভিয়েনার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

সলিলসমাধি

লিবিয়ার উপকূল থেকে ইটালি পৌঁছনোর প্রচেষ্টায় আরো একটি উদ্বাস্তু বোট ডুবে যায় বৃহস্পতিবার৷ বোটটি পশ্চিম লিবিয়ার জুওয়ারা বন্দর থেকে যাত্রা করছিল৷ লিবিয়ার উপকূলরক্ষীরা দু’শোর বেশি যাত্রীকে উদ্ধার করতে সমর্থ হন, কিন্তু আরো দু’শতাধিক যাত্রী জাহাজের খোলে আটকা পড়ে প্রাণ হারিয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ বোটটিতে প্রধানত সাব-সাহারান আফ্রিকা, পাকিস্তান, সিরিয়া, মরক্কো ও বাংলাদেশ থেকে আগত শরণার্থীরা ছিলেন৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

যাত্রী বোঝাই

লিবিয়ার উপকূলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উদ্ধারকার্যের দায়িত্বে রয়েছে ইটালির উপকূলরক্ষী বাহিনী৷ তাদের বিবৃতি অনুযায়ী শুধুমাত্র বৃহস্পতিবারেই প্রায় ১,৪৩০ জন মানুষকে বিভিন্ন নৌ-অভিযানে উদ্ধার করা হয়৷ লিবিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনীর সামর্থ্য সীমিত, কেননা তাদের কাছে ছোট ছোট রবারের বোট, টাগবোট কিংবা মাছ ধরার নৌকা ছাড়া অন্য কোনো জলযান নেই৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

কাঁটাতারের বেড়া

পাকানো কাঁটাতার ফেলে রেখে আর বিপুল সংখ্যায় পুলিশ পাঠিয়ে বুদাপেস্ট সরকার উদ্বাস্তুর স্রোত সামাল দেবার চেষ্টা করছেন৷ সার্বিয়ার সঙ্গে ১৭৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত জুড়ে একটি চার মিটার উঁচু তারের বেড়া তৈরির কাজ আগামী সোমবার শেষ হবার কথা৷ তার আগে উদ্বাস্তুরা কাঁটাতার পেরিয়ে অভীপ্স পশ্চিম ইউরোপ অভিমুখে আরো এক ধাপ অগ্রসর হবার চেষ্টা করছেন৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

সীমান্তের পর সীমান্ত

বিশেষ করে সিরীয় উদ্বাস্তুরা গ্রিস থেকে ম্যাসিডোনিয়া হয়ে পশ্চিম ইউরোপ যাবার চেষ্টা করছেন৷ শুধুমাত্র বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার অবধি ১,২৮৮ জন উদ্বাস্তু এ ভাবে ম্যাসিডোনিয়ায় আসেন বলে স্কোপিয়ে সরকার জানিয়েছেন৷ উদ্বাস্তুদের নথিভুক্ত করে তিন দিন সময় দেওয়া হচ্ছে, রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন পেশ করার কিংবা দেশ ছাড়ার জন্য৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

হাঁটাপথে

সার্বিয়া থেকে হাঙ্গেরি-তে ঢোকার আর কোনো পথ খোলা না থাকুক, রেলপথ তো রয়েছে! সেই পথেই পায়ে হেঁটে স্বপ্নের ইউরোপের দিকে চলেছেন উদ্বাস্তুরা৷

ইউরোপে শরণার্থী সংকট চরমে

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ‘‘ব্যর্থতা’’

বৃহস্পতিবার ভিয়েনায় পশ্চিম বলকান সংক্রান্ত সম্মেলনে নেতারা ট্রাকে উদ্বাস্তুদের লাশ পাবার ঘটনা শুনে স্তম্ভিত ও বিমূঢ় হয়ে যান৷ ‘‘আমাদের ইউরোপীয় মনোবৃত্তি, অর্থাৎ সংহতির মনোভাব নিয়ে শীঘ্র এই অভিবাসন প্রশ্নের সমাধান করতে হবে’’, বলেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল (বাম থেকে দ্বিতীয়)৷

মার্কিন মুলুকে

সেখানেও রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের মধ্যে যিনি সবচেয়ে এগিয়ে, তিনি হলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তাঁর প্রচার অভিযান চলেছে মূলত বহিরাগত ও মুসলিম বিদ্বেষের উপর নির্ভর করে৷ এককালে যাকে ঝড়তি-পড়তি ক্যান্ডিডেটদের মধ্যে ধরা হচ্ছিল,

গ্রেহেম লুকাস, ডিডাব্লিউ-র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া বিভাগের প্রধান

এখন তিনি আগামী নভেম্বরে বাস্তবিক হোয়াইট হাউস জয় করবেন কিনা, তা ভবিষ্যদ্বাণী করার, অথবা না করার ক্ষমতা কারো নেই৷

মার্কিন মুলুকে ট্রাম্পের জয়যাত্রা ইউরোপের চরম দক্ষিণপন্থিদের উদ্বুদ্ধ করেছে ও করছে৷ যার ফলে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ‘‘স্বাগতম'' সংস্কৃতি আজ ধুঁকছে৷ ইউরোপ তথা জার্মানির মানুষ চাইছে হয় নীতিবদল, নয়ত পালাবদলের পালা৷ অথচ সেই মানুষরাই ভুলে যাচ্ছে, যে সব কারণ থেকে এই উদ্বাস্তুর স্রোত ও তথাকথিত উদ্বাস্তু সংকটের সৃষ্টি, তার অনেকটাই ২০০১ সালে আফগানিস্তান অথবা ২০০৩ সালে ইরাক অভিযানের দরুণ৷ পশ্চিমের পক্ষে সেই দায়িত্ব ভুলে যাওয়া বা এড়িয়ে যাওয়া উচিত হবে না৷

বন্ধু, আপনি কি গ্রেহেম লুকাসের সঙ্গে একমত? জানান নীচের ঘরে৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

জার্মানিতে এত শরণার্থী চায় না তারা

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

আমাদের অনুসরণ করুন