এবার সংকট ‘রোহিঙ্গা পাচার'!

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বড় বিপদ এগিয়ে আসছে৷ পাচারের শিকার হচ্ছেন রোহিঙ্গারা৷ দেশে ও দেশের বাইরে দালালের খপ্পরে পরে পাচার হওয়াদের মধ্যে নারীদের সংখ্যাই বেশি, যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশ্লেষকরা৷

প্রায় ১৮ মাস ধরে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে আছে ৭ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গা৷ ইসলাম ধর্মাবলম্বী মিয়ানমারের এই অধিবাসীদের জন্য বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় পর্যটন সমৃদ্ধ জেলা কক্সবাজারে তৈরি করা হয়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্প৷ এই ক্যাম্প থেকেই পাচার হচ্ছে রোহিঙ্গারা৷ ক্যাম্পের আশেপাশেই ওঁৎ পেতে আছে পাচারকারীরা

রোহিঙ্গা শরণার্থী নাজমা বেগম জানান, ৭ মাস আগে তার মেয়ে পাচারের শিকার হয়৷ তার সন্তান ১৭ বছর বয়সি রাশিদাকে এক ব্যক্তি প্রায়ই প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করতো৷ সেই তাকে পরে পাচার করে দেয়৷ দুইদিন পর পুলিশ রাশিদাকে যশোর থেকে উদ্ধার করে৷ যশোরের বেনাপোল সীমান্তের যে স্থান থেকে রাশিদাকে পাচার করা হয় সেটি যৌনকর্মী পাচারের সবচেয়ে বড় ক্ষেত্র হিসেবে বিবেচিত৷

৬ হাজার একর জমির এই আশ্রয়কেন্দ্রতে পূর্ণাঙ্গভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না৷ কাজের লোভ দেখিয়ে মূলত ক্যাম্পের বাইরে বের করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে রোহিঙ্গাদের৷ এদিকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের কোনো লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না শিগগির৷ যেহেতু আগেই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে একজনকেও মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনে পাঠানো হবে না৷ ফলে এখানেই অনির্দিষ্টকালের জন্য থাকছে রোহিঙ্গারা৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

এক ঘরে ১০ জনের বসবাস

আট সন্তান নিয়ে এক ঘরে গাদাগাদি করে থাকেন জোহার ও উম্মে কুলসুমা দম্পতি৷ তাঁদের দুই মেয়ে বড় হয়েছে৷ আর সবার ছোটটার বয়স দুই বছর৷ রাখাইনে কৃষি কাজ করতেন জোহার৷ এখন কাজ নেই, সাহায্যে চলছে তাঁদের জীবন৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

এক টিউবওয়েলে চলে ৯৯ পরিবার

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপদ পানি সরবরাহে ক্যাম্পে বসানো হয়েছে গভীর নলকূপ৷ একটি নলকূপের পানি নিয়ে চলছে তিন ব্লকের ৯৯টি পরিবার৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

৩৩ পরিবারের জন্য চার টয়লেট

বাঁশ আর প্লাস্টিক দিয়ে পাহাড়ের ঢালে তৈরি করা হয়েছে টয়লেট৷ এক জায়গায় পাশাপাশি চারটি টয়লেট দিয়ে কাজ চালাতে হয় ৩৩টি পরিবারের সদস্যদের৷ আর দুটো গোসলখানা ব্যবহার করে ২০ থেকে ৩৫টি পরিবার৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

নিউমোনিয়া

রোহিঙ্গা শিবিরের শিশুদের নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার হার এখনো বেশ৷ নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত আট মাসের জাইনুকা বিবিকে বালুখালীতে ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিমের চিকিৎসকদের কাছে এনেছেন মা খালেদা বানু৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম

ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিমের মাধ্যমে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে বেশ কয়েকটি সংস্থা ও সংগঠন৷ এ রকম একটি টিমের চিকিৎসক সোহেল জানান, প্রতি দিন ৪০-৫০ জন রোগী দেখেন৷ তাঁদের অধিকাংশ পানিবাহিত, ঠান্ডা ও ইনফেকশনের সমস্যা নিয়ে আসেন৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

ঈদে জন্ম ‘কোরবান আলীর’

শরণার্থী শিবিরে ২১ সেপ্টেম্বর জন্ম হয়েছে এজাহার হোসেন ও রেনুর একমাত্র ছেলে সন্তানের৷ কোরবানির ঈদের দিন জন্ম হওয়ায় তার নাম রাখা হয়েছে কোরবান আলী৷ এনজিও পরিচালিত একটি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে জন্ম নেওয়া এই শিশু ও তার মা সুস্থ আছে বলে জানান এজাহার হোসেন৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

অপরিকল্পিত বসতি

স্বল্প সময়ের মধ্যে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা আসায় তাঁদের আশ্রয়ের জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়াই গড়ে তোলা হয় ঘর৷ বাঁশ ও ত্রিপল দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে ঘরগুলো৷

কেমন আছে রোহিঙ্গারা?

ঝুঁকিপূর্ণ ঘর

কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ের মধুরছড়ার এই বসতিতে আছে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা৷ পাহাড়ের ঢালে তৈরি করা হয়েছে তাঁদের ঘর৷ ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় এসব ঘর থেকে তাঁদের সরিয়ে নেওয়া পরিকল্পনা করেছে সরকার৷ এরইমধ্যে কিছু পরিবারকে সরিয়েও নেওয়া হয়েছে৷

পাচার প্রসঙ্গে র‍্যাবের কমান্ডার মেজর মেহেদি হাসান বলেন, ‘‘প্রত্যাবাসনের আলাপ মাঝপথে থেমে যাওয়ার পরই পাচারের প্রবণতা বেড়েছে৷''

পুলিশের সর্বশেষ রেকর্ড অনুযায়ী, ৩০ জানুয়ারি যশোর থেকে ৫ রোহিঙ্গা মেয়ে ও এক ছেলে উদ্ধার করে পুলিশ৷ এদেরকে ভারতে পাচারের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷ এর ছয়দিন আগে চট্টগ্রাম থেকে পাচার হওয়া ১১ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে ‌র‍্যাব৷ তার আগে গত নভেম্বরে তিন দফায় ৫৭ রোহিঙ্গা উদ্ধার হয় মালোয়েশিয়াগামী নৌকা থেকে৷ 

নেই সুনির্দিষ্ট তথ্য

পাচার হওয়া রোহিঙ্গাদের সংখ্যা নিয়ে সরকার এখনো কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি৷ তবে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর সংখ্যা নিয়ে দ্বিমত আছে৷

স্থানীয় পত্রিকার বরাত দিয়ে ইয়াং পাওয়ার ইন সোশ্যাল অ্যাকশনের প্রোগ্রাম সমন্বয়ক যীশু বড়ুয়া বলেন, ‘‘গত তিন মাসে কমপক্ষে ২০০ শরণার্থী নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে৷ এই সংখ্যা বাড়ছে৷'' তিনি জানান, তারা ক্যাম্পের বাসিন্দাদের সতর্ক ও নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন ক্রমাগত৷

এদিকে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএমের মুখপাত্র ফিওনা ম্যাকগ্রেগর বলেন, তার প্রতিষ্ঠান এখন পর্যন্ত ২০৪টি পাচারের ঘটনা নিশ্চিত করতে পেরেছে৷ তিনি আরো বলেন, এটি মোট পাচার হওয়াদের একাংশ মাত্র৷ মূল সংখ্যাটা আশঙ্কাজনক৷ বিশেষ করে কিশোরী ও তরুণীরা নাজুক পরিস্থিতিতে আছে৷

অন্যদিকে পাচারের হাত থেকে উদ্ধার হওয়া তরুণীদের সংকট আরও বেশি৷ উদ্ধার হওয়া রাশিদার মা বলেন, ‘‘আমরা এমন একটি অবস্থায় আছি যে যেকোনো বিপদ ঘটতে পারে, এতে আমাদেরই সতর্ক থাকা উচিত৷ কিন্তু আমার বোকা মেয়ে প্রলুব্ধ হয়ে ভুল করেছে৷ এখন তার বিয়ে হয়েছে এই ক্যাম্পেরই এক ছেলের সঙ্গে, কিন্তু সেই ছেলে তার পাচারের ঘটনা জানে না৷ জানলে তার বিয়ে হতো না৷''

রাশিদার মা আরও বলেন, তার মেয়ে এখন সুখী আছে, তাই এই ঘটনা প্রকাশ করে বিপদ বাড়াতে চান না৷ এদিকে রাশিদার মতো পাচার হয়েছিলেন রামিদা খাতুন৷ তাকে তার স্বামী জোর করে সিলেট নিয়ে যান পাচারকারীদের সঙ্গে৷ কথা ছিল সেখান থেকে বাংলাদেশি পাসপোর্ট তৈরি করে মালোয়েশিয়া চলে যাবেন তারা৷ ৯ দিন পরে সিলেটের একটি হোটেল থেকে রামিদা খাতুনকে উদ্ধার করে পুলিশ৷

এফএ/এপিবি (রয়টার্স)