এবার সেনা ব্যারাকের নাম বদলাতে বললেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের সেনা সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রাখা জার্মান সেনাবাহিনীর কয়েকটি ব্যারাকের নাম পরিবর্তন করতে বলেছেন উরসুলা ফন ডেয়ার লায়েন৷

জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনে করেন, সেনাবাহিনীকে ডানপন্থি চেতনামুক্ত করতে এমন উদ্যোগ অত্যাবশ্যক৷

নিজেকে শরণার্থী হিসেবে তুলে ধরে এক জার্মান লেফটেন্যান্টের সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করার বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই জার্মান সেনাবাহিনী আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্রে৷ ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের উপর হামলা চালিয়ে সব দোষ শরণার্থীদের উপর চাপানোর পরিকল্পনা করেছিলেন ফ্রাংকো এ. এবং মাক্সিমিলিয়ান টি. নামের দুই জার্মান সেনাকর্মকর্তা৷ সিরীয় শরণার্থী সেজে জার্মানিতে আশ্রয়ের অনুমতিও আদায় করেছিলেন ফ্রাংকো৷ কিন্তু গত ফেব্রুয়ারিতে ভিয়েনার বিমানবন্দরের টয়লেটে বন্দুক লুকাতে গিয়ে ধরা পড়ে যান৷ বিষয়টি নিয়ে তদন্তের এক পর্যায়ে মাক্সিমিলিয়ানকেও গ্রেপ্তার করা হয়৷

রাজনীতি

ন্যাটোতে জার্মানির ভূমিকা

তৎকালীন পশ্চিম জার্মানি আনুষ্ঠানিকভাবে ন্যাটোতে যোগ দিয়েছে ১৯৫৫ সালে৷ তবে ১৯৯০ সাল অবধি নিজেদের কর্মকাণ্ড অত্যন্ত সীমিত রেখেছিল জার্মানি৷ শান্তিরক্ষা থেকে শুরু করে প্রতিরক্ষা ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ পর্যন্ত বিভিন্ন কাজে ন্যাটোর হয়ে বিশ্বের কয়েকটি দেশে কাজ করেছে জার্মান সেনাবাহিনী৷

রাজনীতি

বসনিয়া: জার্মানির প্রথম ন্যাটো মিশন

১৯৯৫ সালে বসনিয়া-হ্যারৎসেগোভিনায় প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনীতে জার্মান সেনা মোতায়েন করা হয়৷ অর্থাৎ বসনিয়া যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে সেদেশে শান্তি ফেরাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন জার্মানরাও৷ সেই শান্তিরক্ষা মিশনে ন্যাটোর সদস্য ও সহযোগী দেশগুলোর ৬০ হাজারেরও বেশি সেনা মোতায়েন করা হয়েছিল৷

রাজনীতি

কসভোতে শান্তিরক্ষা

কসভোতে ন্যাটো নেতৃত্বাধীন শান্তিরক্ষা মিশনের শুরুতেই সেদেশে সাড়ে আট হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়৷ ১৯৯৯ সালে সংখ্যালঘু আলবেনীয় বিচ্ছিন্নতবাদী এবং তাদের সমর্থকদের ওপর বর্বর দমনপীড়নের দায়ে সার্বিয়ার ওপর বিমান হামলা চালায় ন্যাটো৷ এখনো প্রায় ৫৫০ জন জার্মান সেনা কসভোতে অবস্থান করছেন৷

রাজনীতি

এজিয়ান সাগরে টহল

২০১৬ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) সমর্থিত ন্যাটো মিশনের অংশ হিসেবে এজিয়ান সাগরে মোতায়েন করা হয় জার্মান যুদ্ধজাহাজ ‘বন’৷ অভিবাসী সংকট যখন চরমে, তখন অন্যান্য কাজের মধ্যে এই মিশনের অন্যতম কাজ ছিল গ্রিস এবং তুরস্কের জলসীমায় অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের ওপর নজর রাখা৷ জার্মানি, গ্রিস এবং তুরস্ক এ কাজে ন্যাটোর সহায়তা চেয়েছিল৷

রাজনীতি

লিথুয়ানিয়ায় জার্মান ট্যাংক

বাল্টিক দেশগুলোতে ন্যাটোর মিশনের অংশ হিসেবে লিথুয়ানিয়ায় চলতি বছর ৪৫০ জন জার্মান সেনা মোতায়েন করা হয়েছে৷ অবস্থান করছে জার্মান ট্যাংকও৷ তবে জার্মানি ছাড়া ক্যানাডা, ইংল্যান্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রের সেনাও রয়েছে সে অঞ্চলে৷ ‘বর্ধিত সামরিক মহড়া’-র অংশ হিসেবে প্রায় এক দশক যাবৎ ন্যাটো বাহিনী সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ লিথুয়ানিয়ায় অবস্থান করছে৷

রাজনীতি

এক দশকের বেশি সময় ধরে আফগানিস্তানে

আফগানিস্তানে ন্যাটো নেতৃত্বাধীন আইসাফ বাহিনীতে জার্মানি যোগ দেয় ২০০৩ সালে৷ সংখ্যার বিচারে দেশটিতে মোতায়েন বিদেশি সেনাদের মধ্যে জার্মানির অবস্থান তৃতীয়৷ আফগান মিশনে এখন পর্যন্ত ৫০ জন জার্মান সেনা নিহত হয়েছে৷ ২০১৫ সালে জার্মান সেনাদের মিশন শেষ হওয়া ও দায়িত্ব হস্তান্তরের পরও সহস্রাধিক জার্মান সেনা অবস্থান করছেন আফগানিস্তানে৷

দু’জনে মিলে যে, সেনাবাহিনীর অস্ত্র চুরি করে লুকিয়ে রেখেছিলেন সে বিষয়টিও বেরিয়ে আসে তখন৷ তারপর থেকে তদন্ত যত এগোচ্ছে, সেনাবাহিনী নিয়ে দুশ্চিন্তা, সমালোচনাও ততই বাড়ছে৷ নারীদের ওপর যৌন নিপীড়ন থেকে শুরু করে অনেক সেনা সদস্যের ডানপন্থি চেতনায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার বিষয়গুলো নিয়ে জার্মান প্রতিরক্ষামন্ত্রী শুধু উদ্বেগই প্রকাশ করেননি, সেনাবাহিনীর নেতৃত্বের সমালোচনা করে হয়েছেন সমালোচিত৷ এজন্য দুঃখ প্রকাশও করতে হয়েছে তাঁকে৷ তবে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে সব রকমের পদক্ষেপ নিতে এখনো তিনি তৎপর৷ সেনাবাহিনীতে কেউ ডানপন্থি ভাবধারার প্রসার ঘটানোর্ চেষ্টা করছে কিনা তা খতিয়ে দেখার জন্য ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে তাঁর উদ্যোগে৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের ঘনিষ্ঠ এই সিডিইউ নেতা রবিবার এক সাক্ষাৎকারে কিছু সেনা ব্যারাকের নাম বদলানোর দাবিও তুলেছেন৷

জার্মানির ‘বিল্ড আম জামস্টাগ’-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, জার্মান সেনাবাহিনীর যেসব ব্যারাকের নাম নাৎসি সেনাকর্মতাদের নামে রাখা হয়েছে, সেগুলোর নাম বদলাতে হবে৷ প্রসঙ্গত, জার্মানির সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকটি ব্যারাকের নাম কয়েকজন নাৎসি সেনাকর্মতাকে ‘শ্রদ্ধা’ জানাতেই তাদের নামে রাখা হয়েছিল৷ এর মধ্যে নাৎসি বাহিনীর পাইলট হান্স-ইওয়াখিম মার্সাইলের নামে রাখা মারসাইলে ব্যারাক এবং নাৎসি বাহিনীর নন-কমিশন্ড অফিসার ডিয়েড্রিচ লিলিয়েনথালের নামে রাখা ফেল্ডভেফেল-লিলিয়েনথাল ব্যারাকের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে৷

এসিবি/ডিজি (ডিডিএ, রয়টার্স,এএফপি) 

সমাজ

এক ভুয়া শরণার্থী

সিরীয় শরণার্থী সেজে এক জার্মান সেনা কর্মকর্তা সন্ত্রাসী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিল৷ সমান্তরাল এক দ্বিতীয় জীবন শুরু করেছিলেন ফ্রাংকো৷ ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে সিরীয় শরণার্থী হিসেবে নথিভুক্ত হন তিনি৷ তার লক্ষ্য ছিল শরণার্থীদের উপর হামলার দোষ চাপানো৷ ২০১৪ সাল থেকেই ফ্রাংকো’র ডানপন্থি আচরণের কথা জানতেন সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা৷ এাই ফ্রাংকো ধরা পড়ার থেকে জার্মান সেনাবাহিনিকে শুরু হয় বিতর্ক৷

সমাজ

বাড রাইশেনহাল পর্বতে রেঞ্জার ইউনিটে হয়রানি

ডানপন্থি সন্ত্রাসী আচরণের অভিযোগ যাচাইয়ের জন্য সেনাবাহিনী বর্তমানে ২৭৫ টি মামলার তদন্ত করছে৷ চলতি বছরের মার্চে জনগণ একজন ল্যান্স করপোরালের কথা জানতে পারেন, যিনি কয়েক মাস ধরে বাভেরিয়া পর্বতের রেঞ্জার ইউনিটে হয়রানির শিকার হয়েছেন৷ নির্যাতিত ব্যক্তি জানিয়েছেন, ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে যৌন নীপিড়ন করা হয়েছে৷ এ ঘটনার জন্য ১৪ জনের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে৷

সমাজ

নারীদের পোল ড্যান্সে বাধ্য করা

প্রতিরক্ষামন্ত্রী সবচেয়ে বড় যে কেলেঙ্কারির কথা বলেছেন তাহলো, ফুলেনডর্ফে স্টাওফের সেনাঘাঁটির ভয়াবহ ঘটনা৷ জানুয়ারিতে সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত সেনা সদস্যদের নগ্ন করা ও যৌনতা প্রকাশ পায় এমন আচরণ করতে বাধ্য করেছিলেন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা, সেগুলো ভিডিও করা হয়েছিল৷ সদ্য নিয়োগ পাওয়া নারীদের ‘এনট্র্যান্স পরীক্ষা’র অংশ হিসেবে পোল ড্যান্সে বাধ্য করা হয়েছিল৷ একারণে সেনাবাহিনীর শীর্ষ প্রশিক্ষক কমান্ডারকে বরখাস্ত করা হয়৷

সমাজ

ডানপন্থি সন্ত্রাসবাদের অনেক ঘটনার তদন্ত চলছে

জার্মান সেনাবাহিনীর কেন্দ্রীয় পার্লামেন্টারি কমিশনারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৬ সাল জার্মান সেনাবাহিনীর জন্য মোটেই ভালো বছর ছিল না৷ ডানপন্থি সন্ত্রাসবাদ বা ‘জার্মানির মুক্ত গণতান্ত্রিক সাংবিধানিক চেতনার লঙ্ঘন’ এর মোট ৬০টি অভিযোগের ঘটনা পাওয়া গেছে৷ এমনকি সেনারা নিজেদের নাৎসি চেতনা নিয়ে একে অপরের সাথে আলোচনা করে, নাৎসি সংগীত শোনে ও নাৎসি স্যালুটও দেয়৷

সমাজ

জাহাজে মৃত্যু

২০১৩ সালের ডিসেম্বরে উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার আগ পর্যন্ত এসব কেলেঙ্কারি নিয়ে কোনো মাথা ঘামায়নি সেনাবাহিনী৷ ২০১০ সালের একটি ঘটনা জনগণের মনোযোগ আকর্ষণ করে, তা হলো, গর্ক ফক-এ নৌবাহিনীর প্রশিক্ষণের সময় ২৫ বছরের এক সদস্যের মৃত্যুর ঘটনা৷ প্রশিক্ষণের সময় ঐ নারী জাহাজের পাল থেকে নীচে পড়ে মারা যান৷ ফলে অন্যান্য ক্যাডেটরা পালে উঠতে আর রাজি হননি৷ পরে ঐ প্রশিক্ষণ বাতিল করা হয়৷

সমাজ

জার্মান সেনাবাহিনীর জন্ম

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জার্মানি সেনাবাহিনী রাখার পক্ষে ছিল না৷ পশ্চিম জার্মানিতে সেনাবাহিনী প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৫৫ সালে৷ পুনরেকত্রীকরণের পর পূর্ব জামানির সেনাবাহিনী থেকে ২০ হাজার সদস্য নেয় কেন্দ্রীয় সেনাবাহিনী৷ ১৯৯৯ সালে যখন জার্মান সেনাবাহিনী আন্তর্জাতিক সংঘাতে (কসোভো যুদ্ধ) জড়িয়ে পড়ে, তখন এতে বড় ধরনের পরিবর্তন হয়৷ এর আগ পর্যন্ত কেবল বিদেশে শান্তিরক্ষা মিশনে তাদের অংশগ্রহণ ছিল৷

সমাজ

বাধ্যতামূলক সেবা নয়

বর্তমানে জার্মান সেনাবাহিনীতে সেনা সংখ্যা ১ লাখ ৭৮ হাজার ২০০৷ ২০১৭ সালের মার্চের হিসেব অনুযায়ী, সেনাবাহিনীর মোট সদস্যের ১১.৪ শতাংশ নারী৷ ২০১১ সাল পর্যন্ত জার্মান সেনাবাহিনীতে পুরুষদের অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক ছিল৷ এই মেয়াদকাল ছিল ৯ থেকে ১৮ মাস৷ বর্তমানে তরুণদের সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়ার আহ্বান জানানো হয়৷ তবে সাম্প্রতিক কেলেঙ্কারির কারণে এই আবেদনে তাদের সাড়া দেয়াটা সত্যিই কঠিন৷