কবরখানার জাদু

Paris Europe on a Shoestring Flash-Galerie (Paris Tourist Office/Marc Verhille)

কবরখানার জাদু

রোম্যান্টিক: প্যারিসের প্যার লাশেইজ কবরখানা

এখানে অস্কার ওয়াইল্ড, ইউজিন দেলাক্রোয়া, মারিয়া কালাস, এডিথ পিয়াফ, ফ্রেডেরিক শোপ্যাঁ, জিম মরিসনের মতো শিল্পীরা চিরনিদ্রায় শায়িত৷ গাছের ছায়ায় ঢাকা একটি নিরাভরণ অথচ রোম্যান্টিক পরিবেশ, যা মানুষকে টানে প্যারিসের উত্তর-পশ্চিম কোণে অবস্থিত এই পৃথিবী বিখ্যাত কবরখানাটিতে৷

কবরখানার জাদু

ভ্যাটিকানের কাম্পো সান্তো টয়টোনিকা

জার্মান আর ফ্লেমিশ ভাষী মানুষদের কাছে খুবই প্রিয় ভ্যাটিকানের সেন্ট পিটার্স গির্জার ঠিক পাশে পাম গাছ, কেপারের মুকুল আর করবী ফুলের ঝাড় লাগানো এই কবরখানাটি৷ কবরখানার মাটি আর দেয়ালের প্রতিটি ইঞ্চি কবরে ঢাকা৷ অনেক কবরের উপর যিশুখ্রিষ্টের ক্রুশবিদ্ধ হওয়ার কাহিনী থেকে নানা দৃশ্য পাথরে খোদাই করা আছে৷

কবরখানার জাদু

মিলানের চিমিতোরো মনুমেন্তালে

গ্রিক টেম্পল, মিশরীয় পিরামিড, বিশ মিটারের বেশি উঁচু ওবেলিস্ক স্তম্ভ- এ সব মিলিয়ে মিলানের সিমিতেরো মনুমেন্তালে বা ‘বিশাল কবরখানার’ নাম সার্থক৷ এখানে যাঁদের সমাধি তাঁরা যে বিত্তবান ছিলেন, সেটা মরণের পরেও বোঝা যায়৷ ইটালির সবচেয়ে সুন্দর ও চমকদার কবরখানাগুলির মধ্যে গণ্য হয় এই সিমিতেরো মনুমেন্তালে৷ দু’লাখ বর্গমিটার এলাকা জুড়ে কবরখানাটি খোলা হয় ১৫০ বছর আগে, ১৮৬৬ সালে৷

কবরখানার জাদু

জীবনকে যারা ভালোবাসতেন: কোলোনের মেলাটেন কবরখানা

মধ্যযুগে স্থানটি ছিল বধ্যভূমি, আজ সেখানে প্রায় ৫৫,০০০ কবর৷ তার মধ্যে আছে ‘লাখপতিদের গোরস্তান’, যেখানে ওডিকোলোন যাদের আবিষ্কার, কোলোনের সেই ফারিনা পরিবারের কবরও আছে৷ অন্যদিকে কার্নিভালের সং দেওয়া কবরও পাওয়া যাবে৷

কবরখানার জাদু

হামবুর্গের ইহুদি কবরখানা

কবরখানাটির বিশেষত্ব হলো এই যে, নাৎসি আমলের বিভীষিকা সত্ত্বেও এখানকার প্রায় নয় হাজার প্রস্তরফলকের মধ্যে ছয় হাজার এখনও অক্ষত আছে৷ চারশ’ বছরের পুরনো এই কবরখানাটিকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট বলে ঘোষণা করার কথা বিবেচনা করছে ইউনেস্কো৷

কবরখানার জাদু

হামবুর্গের ওহল্সডর্ফ কবরখানা

এলাকার হিসেবে বিশ্বে চতুর্থ: ৯৬৬ হেক্টর৷ বছরে প্রায় বিশ লাখ মানুষ আসেন এখানকার স্মৃতিসৌধ, জলাশয়, ভাষ্কর্য আর গোরদান সংক্রান্ত মিউজিয়ামটি দেখার জন্য৷ ১৮৭৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত এখানে প্রায় ১৪ লাখ মানুষকে সমাধিস্থ করা হয়েছে৷ কবরের সংখ্যা প্রায় দু’লাখ পঁয়ত্রিশ হাজার, তার মধ্যে সাবেক জার্মান চ্যান্সেলর হেলমুট স্মিটের কবরও আছে৷

কবরখানার জাদু

সংগীতপ্রেমীদের জন্য ভিয়েনার কেন্দ্রীয় কবরখানা

মোৎসার্ট, বেটোফেন, ব্রাম্স, স্ট্রাউস আর শুবার্টের মতো সুবিখ্যাত সংগীতস্রষ্টা এখানে শায়িত৷ খোলা হয় ১৮৭৪ সালে৷ এখানকার তিন লাখ ত্রিশ হাজার কবরের মধ্যে প্রায় ৪৫০ কিলোমিটারের পথ আছে৷

কবরখানায় পাওয়া যায় একটা শহর বা দেশের অতীত, তার মনীষীদের কাহিনী আর সেই সঙ্গে একটা অদ্ভুত পরিবেশ৷ এ কারণে জার্মানি বা ইউরোপের অনেক কবরখানা পর্যটকদের টানে৷

  

আমাদের অনুসরণ করুন