কাপড়ে প্রাকৃতিক রং করবে ব্যাকটেরিয়া!

পরিবেশ দূষণের জন্য আমাদের জামাকাপড়ও দায়ী৷ কাপড় রং করতে ব্যবহৃত রঞ্জক পদার্থ প্রতিদিন পরিবেশের ক্ষতি করছে৷ এক ফরাসি কোম্পানি অভিনব উপায়ে প্রাকৃতিক রং ব্যবহারের পথে এগোচ্ছে৷

দেখতে আধুনিক শিল্পকলার নিদর্শন মনে হলেও আসলে একটি চলমান প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া এমন ভ্রমের কারণ৷ অবিশ্বাস্য মনে হলেও ব্যাকটেরিয়া নীল রংয়ের রেখাগুলি সৃষ্টি করেছে৷ জেরেমি ব্লাশ ও গিয়োম বোয়াসোনা নিজেদের এই অসাধারণ প্রাকৃতিক প্রক্রিয়ার প্রথম পর্যবেক্ষক হিসেবে দাবি করেন৷ তাঁরা  ফ্রান্সের টুলুস শহরে ‘পিলি' নামের স্টার্টআপ কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা৷ অতি ক্ষুদ্র জীবাণু ব্যবহার করে কোনো রাসায়নিক ছাড়াই সব জামাকাপড় রং করা যাবে বলে তাঁদের বিশ্বাস৷

অনেক বছর ধরে তাঁরা নানারকম পরীক্ষা চালিয়ে রং উৎপাদনের জন্য উপযুক্ত মাইক্রো-অরগ্যানিজমের খোঁজ করেছেন৷ প্রতিষ্ঠানের সাইন্টিফিক ডায়রেক্টর হিসেবে গিয়োম বোয়াসোনা বলেন, ‘‘এই মাইক্রো-অরগ্যানিজমের মধ্যে দুই রকমের এনজাইম রয়েছে৷ প্রথম ধরনের এনজাইম শর্করার অণু ভাঙতে পারে৷ অন্য এনজাইম অণুর সেই টুকরোগুলি নতুন করে সাজিয়ে রঙিন রঞ্জক অণু সৃষ্টি করতে পারে৷''

২০১৫ সালে তাঁরা অবশেষে এক লো-কার্বন প্রক্রিয়া সৃষ্টি করতে পেরেছিলেন, যার সাহায্যে রঞ্জক নিষ্কাশন করে কাপড় রং করার কাজে লাগানো যায়৷ বহু শতাব্দী ধরে খাদ্যশিল্পে সেই প্রক্রিয়া কাজে লাগানো হচ্ছে৷ গিয়োম বলেন, ‘‘আমরা এই মাইক্রো-অরগ্যানিজমগুলিকে ফার্মেন্ট করতে, অর্থাৎ গাঁজাতে দেই৷ অনেকটা বিয়ার তৈরির প্রক্রিয়ার মতো৷ কিন্তু এ ক্ষেত্রে চিনি কাজে লাগিয়ে অ্যালকোহল তৈরির বদলে মাইক্রো-অরগ্যানিজম চিনি হজম করে রঞ্জক সৃষ্টি করে৷''

এক সপ্তাহ ধরে উষ্ণ তাপমাত্রায় থাকার পর নীল রঞ্জক সৃষ্টি হয়৷ সেই পদার্থ শুকিয়ে বায়োডিগ্রেডেবল গুঁড়া তৈরি করা হয়৷ গিয়োম বোয়াসোনা বলেন, ‘‘এই গুঁড়া নানা ধরনের কাপড় রং করার জন্য উপযুক্ত৷ ফর্মুলার প্রয়োগে হেরফের করে আমরা বার্গান্ডি লাল থেকে শুরু করে হালকা নীল রং সৃষ্টি করতে পারি৷''

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

শ্রমিকদের মজুরি নিয়ে কেউ ভাবেন না

যে সব দেশ ‘ফাস্ট ফ্যাশন’ বা সস্তার তৈরি পোশাক শিল্পের সঙ্গে জড়িত, সে সব কেউ-ই তেমন করে পরিবেশগত মান এবং শ্রমিকদের মজুরি নিয়ে ভাবে না৷ এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি বিশেষভাবে স্থান পেয়েছে কোলনের রাউটেনস্ট্রাউখ নামের মিউজিয়ামটিতে৷ এই প্রদর্শনী শুরু হয়েছে গত বছরের ১২ অক্টোবর, আর চলবে ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত৷

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

সাগরের পানি দূষণ

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ বা দ্রুত ফ্যাশনের পোশাকের দাম কম ঠিকই, তবে এর জন্য পরিবেশ যে মূল্য দেয় তা কিন্তু বিশাল৷ সামগ্রিকভাবে টেক্সটাইল উত্পাদনের কারণে বছরে এক বিলিয়ন টন কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমণ হয় এই বিশ্বে৷ বলা বাহুল্য, বিষাক্ত রাসায়নিক ব্যবহার সাগরের পানি দূষণও করে৷

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

পোশাক শ্রমিক ক্রিশান্তি যা বলছেন...

‘‘প্রতিদিন ১০-১২ ঘণ্টা কাজ করি৷ এমনকি রবিবার বা ছুটির দিনেও কাজ করতে হয়৷ কিন্তু বেতন হিসেবে যা হাতে আসে, তা দিয়ে জীবনের মৌলিক চাহিদাই মেটাতে পারি না৷’’

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

নারী শ্রমিকদের বেশি কষ্ট

কর্মক্ষেত্রে নারী পোশাক শ্রমিকদের সবসময়ই নানাভাবে উত্তক্ত্য করে তাঁদের ম্যানেজার বা অন্যান্য পুরষ সহকর্মীরা৷ এ সত্য শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বের অন্যত্রও চোখে পড়ে৷ যেমন জানিয়েছেন চীনের এক পোশাক শ্রমিক৷ তাছাড়া হন্ডুরাসের সাবেক এক পোশাক শ্রমিকের দুঃখ বলে বলেন, ‘‘সস্তায় কেনা পোশাকের জন্য কতই না ত্যাগ স্বীকার করি আমরা৷ কিন্তু সেকথা কি ক্রেতারা কখনো জানতে পারবেন?’’

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

যেসব দেশ স্থান পেয়েছে

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ প্রদর্শনীর উদ্যোক্তা হামবুর্গের শিল্পকলা ও বাণিজ্য বিষয়ক একটি মিউজিয়াম৷ এই প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশ, ভারত, চীন, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনাম, হন্ডুরাসসহ আরো বেশ কিছু দেশ৷

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

পোশাক শ্রমিকের মূল্য কত?

একটি টি-শার্টের মূল্য এক কাপ কফির চেয়ে কম৷ একটি জামা আইসক্রিমের সমমূল্যে৷ আবার একটি সিনেমার টিকেটের চেয়ে কম দামে পেয়ে যাবেন একটি প্যান্ট! হ্যাঁ, এটাই ছিল এই প্রদর্শনীর স্লোগান৷ তবে যাঁরা এ সব পোশাক তৈরি করছেন তাঁদের ন্যায্যমূল্য কত? সে খবর কি কেউ রেখেছেন?

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

সস্তা বলেই এত অপচয়!

আর সেরকমই হয়েছে জার্মানিতে৷ একটি সমীক্ষায় দেখে গাছে গড়ে প্রায় এক বিলিয়ন পোশাক জার্মানদের বাড়ির আলমারিতে ঝুলছে৷ আর সেগুলো কেনা হলেও কখনো পরাই হয়নি, শুধুমাত্র নাকি কম দাম বলে৷

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

ছবিটি কি সহজে ভোলা যাবে?

রানা প্লাজা নামের একটি বহুতল ভবন ধসে পড়ে ১১৩৪ জন মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছিল৷ ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার নিকটবর্তী সাভারে ঘটেছিল সেই ঘটনা৷ তসলিমা আক্তারের তোলা এই ছবিটি কি কেউ সহজে ভুলে যেতে পারবেন?

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

হাজারো স্বপ্নের মৃত্যু!

তাদের এসব দাবি কি কখনো পূরণ হবে ?

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

‘স্লো ফ্যাশন’

প্রদর্শনীটিতে ‘ফাস্ট ফ্যাশন’ প্রাধান্য পেয়েছে বটে, তবে ‘স্লো ফ্যাশন’ বা টেকশই, স্টাইনধর্মী ফ্যাশনও স্থান পেয়েছে৷

‘ফাস্ট ফ্যাশন’ ও তার অন্ধকার দিক 

চরকায় সূতো বুনছেন মহাত্মা গান্ধী

মহাত্মা গান্ধীর এই ছবিটিও প্রদর্শীতে স্থান পেয়েছে, যা কিনা ‘স্লো ফ্যাশন’-এর উদাহরণ হিসেবে ধরে নেয়া যেতে পারে৷

এই বায়ো প্রযুক্তি ফ্যাশন শিল্পের খোলনলচে বদলে দিতে পারে৷ বস্ত্রশিল্প বিশ্বের সবচেয়ে দূষণকারী ক্ষেত্রগুলির অন্যতম৷ প্রচুর পরিমাণ রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করে রঞ্জক পদার্থ সৃষ্টি করা হয়৷ পিলি কোম্পানির প্রধান জেরেমি ব্লাশ বলেন, ‘‘১ কিলোগ্রাম রঞ্জক তৈরি করতে ১০০ কিলোগ্রাম পেট্রোলিয়াম লাগে৷ তাই আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহৃত জামাকাপড়ের মধ্যে শুধু রঞ্জক হিসেবে ১ কিলো পেট্রোলিয়াম রয়েছে৷ এমনকি পরিবেশের উপর একটি টিশার্ট বা প্যান্টের প্রায় ১০ থেকে ৪০ শতাংশ প্রভাব থাকতে পারে৷''

পিলি কোম্পানি ভারত ও চীনের মতো সবচেয়ে বড় বস্ত্র প্রস্তুতকারক দেশের প্রতি নজর দিচ্ছে৷ তারা গোটা উৎপাদন প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন এনে সেটিকে আরও টেকসই করে তোলার স্বপ্ন দেখছে৷

এখনো পর্যন্ত এই স্টার্ট আপ কোম্পানি ব্যাকটেরিয়ার সাহায্যে কয়েক কিলোগ্রাম পরিমাণ রঞ্জক গুঁড়া উৎপাদন করেছে৷ তবে পেট্রোকেমিকাল-ভিত্তিক রঞ্জক পদার্থের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নামতে হলে তাদের এই প্রক্রিয়ায় আরও উন্নতি করতে হবে৷ ব্যয় কমাতে চিনির বদলে কৃষিক্ষেত্রের বর্জ্য ব্যবহারের পরিকল্পনা করা হচ্ছে৷ জেরেমি ব্লাশ এর ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘‘এর বড় সুবিধা হলো, আমরা ফসলের মধ্যে কাণ্ড, পাতা বা অন্য অবশিষ্ট অংশ ব্যবহার করে কার্বনের উৎস হিসেবে ব্যবহার করতে পারি৷ অর্থাৎ এক ঢিলে দুই পাখি মারতে পারি৷''

২০২১ সালের মধ্যে জেরেমি ব্লাশ ও তাঁর টিম বছরে কয়েক টন পরিমাণ রঞ্জক গুঁড়া উৎপাদন করতে চান৷ তখন পিলি পিগমেন্ট দিয়ে রং করা জামাকাপড় আমাদের নজরে পড়তে পারে৷ তবে পেট্রোকেমিকাল শিল্পের প্রকৃত বিকল্প হয়ে উঠতে হলে আরও সময়, আরও অর্থ এবং আরও উৎপাদন ক্ষমতার প্রয়োজন হবে৷

এলিয়ট/মেটকে/এসবি

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

প্যান্ট উল্টে নিন

ধোয়ার আগে প্যান্টটি পুরোপুরি উল্টো করে নিন৷ বিশেষ করে মেশিনে দিলে তো অবশ্যই তা করা উচিত৷ তা না হলে মেশিনের গায়ে প্যান্টটি বার বার লাগতে লাগতে কিছুটা নষ্ট হয়ে যেতে পারে৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

কম ধোবেন

জিন্সের প্যান্ট যদি অতিরিক্ত ধোয়া হয়, তাহলে রং উঠে যেমন মলিন হয়ে যায়, তেমনি টাইট বা খাটোও হয়ে যেতে পারে৷ সে কারণে কমপক্ষে পাঁচ বা ছয় বার পরার পর ধোয়া উচিত৷ সুতরাং জিন্স যতটা সম্ভব কম ধোবেন৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

মেশিনে না ধোয়াই ভালো

জিন্সের প্যান্ট মেশিনে না ধোয়াই ভালো আর ধুলেও শুধু ঠান্ডা পানি ব্যবহার করবেন৷ আর হাতে ধোয়ার জন্য সাবান ছাড়া ১০ মিনিট ঠান্ডা পানিতে ভিজিয়ে রাখুন৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

যে কোনো সাবান নয়

জিন্স ধুতে যে কোনো সাবান ব্যবহার না করাই ভালো৷ কারণ এতে রং নষ্ট হয়ে যাবার ভয় থাকে৷ তাই ফাইন ওয়াশিং সাবান বা রঙিন কাপড় ধোয়ার বিশেষ সাবান ব্যবহার করতে পারেন৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

শুকাবেন যেভাবে

জিন্স শুকাতে ড্রায়ার বা শুকানোর মেশিনে দেবেন না কিন্তু! জিন্স ধোয়ার পর অতিরিক্ত রোদে না দিয়ে বরং হালকা রোদ বা বাতাসে মেলে দিন৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

জিন্স ইস্ত্রি করার প্রয়োজন নেই

ধোয়ার পরে পরার সময় একটু টান টান ভাব হয় বটে, তবে তা কিছুক্ষণের মধ্যে ঠিক হয়ে যায়৷ কাজেই জিন্স ইস্ত্রি করার কোনো প্রয়োজন নেই৷

জিন্সের প্যান্ট দীর্ঘদিন সুন্দর রাখবেন যেভাবে

প্রথমবার পরার আগে

প্রথম পরার আগে জিন্সের প্যান্ট অবশ্যই ধুয়ে নেবেন৷ কারণ জিন্সের রংয়ের সাথে কোনো রাসায়নিক উপদান থাকতে পারে এবং তা অ্যালার্জির কারণ হতে পারে৷ তাছাড়া ধোয়ার আগে প্যান্টের গায়ে লেখা ‘গার্মেন্টস’ ট্যাগটি ভালো করে পড়ে নেবেন৷

আমাদের অনুসরণ করুন