কীটনাশক দূষিত ডিম নিয়ে কেলেঙ্কারি ফ্রান্স ও ব্রিটেনেও

জার্মানি, নেদারল্যান্ডস ও বেলজিয়াম ইতিমধ্যেই ফিপ্রোনিল দূষিত ডিম কেলেঙ্কারিতে উত্তাল৷ দৃশ্যত সেই দূষিত ডিম ফ্রান্স ও ব্রিটেনেও সরবরাহ করা হয়েছে৷

ফিপ্রোনিল একটি উচ্চমাত্রায় বিষাক্ত কীটনাশক, যা একদিকে যেমন মাঠের ফসল রক্ষার জন্য ব্যবহার করা হয়, অপরদিকে পশুচিকিৎসায় জন্তুজানোয়ারের গায়ের পোকা, উকুন ইত্যাদি মারার জন্যও ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷ তবে যে সব জন্তুজানোয়ারের মাংস খাওয়া হয় – যেমন হাঁস-মুরগি, তাদের ধারে-কাছে এ বিষ আনা নিষিদ্ধ৷

অপরদিকে ‘ডেগা ১৬’ হলো একটি ক্লিনিং এজেন্ট ও স্যানিটাইজার বা জীবাণুনাশক যা মুরগির খামারেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷ এই ‘ডেগা ১৬’-র সাথে কোনোভাবে ফিপ্রোনিল মিশে বর্তমান সংকটের সৃষ্টি করেছে৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

কী যাতনা ডিমে!

নেদারল্যান্ডস থেকে আসা ডিম পরীক্ষা করে ফিপ্রোনিল নামের এক রাসায়নিকের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে৷ এই বিষাক্ত রাসায়নিক মানুষের শরীরে প্রবেশ করলে তা কিডনি, লিভার এবং থাইরয়েড গ্ল্যান্ডের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

উচ্চ স্বাস্থ্যঝুঁকি

ফিপ্রোনিলের ক্ষতিকর প্রভাবের মধ্যে রয়েছে বমিভাব হওয়া, পেটের ব্যাথা, খিঁচুনি৷ তবে চিকিৎসকরা শিশুদের ব্যাপারে বিশেষ সাবধান থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন৷ ফিপ্রোনিলে দূষিত ডিম দিনে দু’টি খেলে শিশুর মৃত্যুঝুঁকিও হতে পারে৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

কোথা হতে এলো ফিপ্রোনিল

মুরগির শরীরে উকুন ও এঁটেল পোকার আক্রমণ ঠেকাতে ব্যবহার হয় ফিপ্রোনিল৷ ধারণা করা হচ্ছে কীটনাশকে অতিরিক্ত ফিপ্রোনিল ব্যবহারের কারণে ডিমেও পড়েছে এর প্রভাব৷ তবে তদন্তকারীরা ধারণা করছেন, খামার পরিষ্কার করতে যে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়, সেখান থেকেও ছড়াতে পারে ফিপ্রোনিল৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

বিষাক্ত ডিমের ইউরোপ ভ্রমণ

ইউরোপে ডিম এবং ডিমজাত খাদ্যের সবচেয়ে বড় রপ্তানিকারক দেশ নেদারল্যান্ডস৷ প্রতি বছর প্রায় ১০০ কোটির মতো ডিম উৎপাদন করে দেশটি৷ এর মধ্যে ৬৫ শতাংশই রপ্তানি হয় ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

জার্মানির আতঙ্ক

বিষাক্ত হতে পারে, এমন আশংকা থেকে শুধু নর্থ রাইন-ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্য থেকেই ৯ লাখ ডিম প্রত্যাহার করেছে জার্মান কর্তৃপক্ষ৷ কর্তৃপক্ষের আশংকা বিষাক্ত প্রায় ৩০ লাখ ডিম ঢুকে পড়েছে জার্মানির বাজারে৷ ডিমের জার্মান সুপারমার্কেট চেইন আলডি দেশের সব শোরুমে ডিম বিক্রি বন্ধ ঘোষণা করেছে৷ জার্মানিতে আলডির প্রায় ৪০০০ শোরুম রয়েছে৷

কীটনাশক আতঙ্কে ডিম প্রত্যাহার

ভয় অহেতুক!

জার্মানির এমন পদক্ষেপকে অবশ্য ‘বাড়াবাড়ি’ বলছেন নেদারল্যান্ডসের খামারিরা৷ তাদের দাবি, এরই মধ্যে সব বিষাক্ত ডিম ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে৷ এখন বাজারে যে ডিম যাচ্ছে, তার সবই পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে৷ ফলে এখন ডিম খেতে আর কোনো ভয় নেই বলে দাবি করছেন তারা৷

কেলেঙ্কারির সূচনা যেখানেই হোক, যেহেতু ইউরোপ জুড়ে পোল্ট্রি প্রোডাক্ট চালান হয়ে থাকে – বিশেষ করে মুরগির ডিমের মতো একটি নিত্য আহার্য বস্তু – সেহেতু যেখানেই এ ধরনের চালান প্রসূত ডিম পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে, সেখানেই ফিপ্রোনিল দূষণের প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে অথবা প্রমাণ পাওয়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে; যে কারণে জার্মানিতে আলডি-র মতো টপ ডিসকাউন্টার তাদের সব শাখা থেকে ডিম সরিয়ে ফেলেছে৷ নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়াম, সুইডেন ও সুইজারল্যান্ডের মতো দেশেও সুপারমার্কেটের তাক খালি করে ডিম ফেলে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে৷

এবার দৃশ্যত ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যেও তা ঘটতে চলেছে – অন্তত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে৷ ইউরোপীয় কমিশনের ‘শীঘ্র সতর্কতা প্রণালী’ নাকি দেখেছে যে, ফিপ্রোনিল দূষিত ডিম জার্মানি হয়ে ফ্রান্স ও ব্রিটেনে সরবরাহ করা হয়েছে৷ স্বভাবতই সংশ্লিষ্ট দু'টি দেশকে সাবধান করে দিয়েছে ইইউ৷

বিজ্ঞান পরিবেশ | 24.06.2014

ব্রিটেন ও ফ্রান্স 

যুক্তরাজ্যের ফুড স্ট্যান্ডার্ড এজেন্সি – যারা খাদ্যের মান নিশ্চিত করার দায়িত্বে – তারা জানিয়েছে যে, যুক্তরাজ্যের কোথায় কোথায় ফিপ্রোনিল দূষিত ডিম সরবরাহ করা হয়েছে, তা নিয়ে জরুরি অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে৷ তবে দূষিত ডিমগুলির সংখ্যা খুবই কম ও তা থেকে জনস্বাস্থ্য জনিত ঝুঁকিও খুব কম, বলে এফএসএ-র অভিমত৷ এছাড়া এযাবৎ তদন্ত করে দেখা গেছে যে, বিক্রির মতো আর কোনো দূষিত পণ্য আর দোকানে নেই৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

ডিম খেলে কি সত্যিই কোলেস্টেরল বাড়ে?

একটি ডিমের কুসুমে গড়ে ২৫০ মিলিগ্রাম কোলেস্টেরল থাকে, যা কিনা ধমনীর রক্ত জমাট হয়ে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়াতে পারে বলে ধারণা করা হয়৷ আর এ কথা ভেবে অনেকেই খাবারের তালিকা থেকে ডিম পুরোপুরি বাদ দিয়ে দেন৷ জার্মানির ডায়েবেটিস ও পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ডা. মাটিয়াস রিডল জানান, ডিম খেলে প্রতিটি মানুষেরই যে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যাবে তা ভাবা মোটেই ঠিক নয়৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

ডিম ফিট রাখে

গত কয়েক বছরের গবেষণা থেকে বেরিয়ে এসেছে যে, একজন সুস্থ মানুষের শরীরে কোলেস্টেরল নিজে থেকে স্বাভাবিক হয়ে যায়৷ দিনে একটি ডিম খেলে শরীরের ক্ষতি তো হয়ই না, বরং ডিম শরীরকে ফিট রাখে৷ জানান ড. রিডল৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

প্রতিদিন ডিম খান

প্রতিদিন একটি করে ডিম খেয়েছেন এ রকম এক হাজার পুরুষকে নিয়ে দীর্ঘ ২১ বছর ধরে ইউনিভারসিটি অফ ইস্টার্ন ফিনল্যান্ডের করা এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, তাদের কারোই হার্ট অ্যাটাক বা স্টোকের ঝুঁকি বাড়েনি৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

আরো গবেষণা

প্রায় একই রকম তথ্য জানা যায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা সংস্থা এপিডস্টারের কাছ থেকে৷ ১৯৮২ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ৫ লক্ষ ৫০,০০০ মানুষকে নিয়ে করা হয়েছিল গবেষণা এবং সে গবেষণা থেকে জানা গেছে যে, হৃদপিণ্ডে ডিম খাওয়ার নেতিবাচক কোনো প্রভাব তো পড়েইনি বরং তাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি কমেছে শতকরা ১২ ভাগ৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

উঁচু মানের প্রোটিন

ডিমে রয়েছে উঁচু মানের প্রোটিন, যা শক্তির জোগান দেয় এবং স্লিম রাখে৷ ডিম যেমন শরীরের পেশিকে শক্ত করে, তেমনি কোষগুলোকে পুনরুজ্জীবিত করে৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

স্লিম থাকতে ডিম খান

সকালে দুটো ডিম খেলে তা প্রায় পাঁচ ঘন্টা পেট ভরা রাখে৷ শুধু তা-ই নয়, ডিম মিষ্টি জাতীয় কোনো কিছু খাওয়ার আগ্রহকে দমন করে৷ তাই ডা. রিড বললেন, ওজন কমাতে আগ্রহীদের জন্য ডিম খুব উপকারী৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

প্রয়োজনীয় মিনারেল

ডিমে রয়েছে জিঙ্ক, আয়রন, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, সেলেনিয়ামের মতো জরুরি মিনারেল, যা প্রতিটি শরীরের জন্য প্রয়োজন৷ এই মিনারেলের একটি কম হলেই শরীর ক্লান্ত লাগে এবং মানুষ সহজে অসুস্থ হয়ে পড়ে৷ তাছাড়া এসবের অভাবে শরীরে নানা ইনফেকশন, চুল পড়া বা থাইরয়েডের মতো নানা সমস্যা দেখা দেয়৷

ডিম ‘কেন’ খাবেন ?

ভিটামিন ভাণ্ডার

ডিমে একমাত্র ভিটামিন ‘সি’ ছাড়া সব ভিটামিনই রয়েছে৷ ডিমে থাকা ভিটামিন এ, ডি এবং ই শরীরের ইমিউন সিস্টেম ঠিক রাখার জন্য খুবই জরুরি৷ তবে যারা ডিমের পুরো ভিটামিন পেতে চান, তাদের জন্য খাঁচায় পোষা মুরগির চেয়ে খোলা ক্ষেতে ঘুরে বেড়ানো মুরগির ডিমই বেছে নেওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞের৷

ফরাসি সরকার জানিয়েছেন যে, পশ্চিম ফ্রান্সের দু'টি ফুড প্রসেসিং প্ল্যান্ট বা খাবার তৈরির কারখানায় নেদারল্যান্ডস থেকে আসা ফিপ্রোনিল দূষিত ডিমের ১৩টি ব্যাচের হদিশ পাওয়া গিয়েছে৷ তবে সেই সব ডিম ইতিমধ্যেই সুপারমার্কেটে পাঠানো হয়ে গিয়েছে কিনা, সে বিষয়ে ফ্রান্সের কৃষি মন্ত্রণালয় কিছু বলতে পারেনি৷

গত সপ্তাহে উত্তর ফ্রান্সের পা-দ্য-কালে অঞ্চলের একটি মুরগির খামারকে নজরদারিতে রাখা হয়, কেননা খামারের মালিক স্বীকার করেন যে, তাদের এক সাপ্লায়ার ফিপ্রোনিল কীটনাশক ব্যবহার করেছে৷ তবে খামারটি থেকে কোনো ডিম বাজারে পাঠানো হয়নি, বলে কৃষি মন্ত্রক জানিয়েছে৷

গ্রাহকদের পর খামারদের পালা

ফিপ্রোনিল কেলেঙ্কারির ফলশ্রুতি হিসেবে গত কয়েক সপ্তাহে সুপারমার্কেট থেকে বেশ কয়েক কোটি ডিম ফেলে দেওয়া হয়েছে; অপরদিকে লক্ষ লক্ষ মুরগি বিনষ্ট করা হয়েছে৷

ওলন্দাজ ও বেলজীয় কর্তৃপক্ষ ফিপ্রোনিল দূষণের উৎস হিসেবে নেদারল্যান্ডসের এক ক্লিনিং প্রোডাক্টস সাপ্লায়ারকে শনাক্ত করেছেন৷ দৃশ্যত ঐ সাপ্লায়ার ‘লাল উকুন’ নামে মুরগিদের এক প্যারাসাইট মারার জন্য ফিপ্রোনিল সরবরাহ করেছিল৷

এখন লাইভ
01:04 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 20.02.2017

আগুন ছাড়াই ডিম ভাজি করা যায় যে দেশে

ফিপ্রোনিল কেলেঙ্কারিতে সংশ্লিষ্ট খামারগুলির বিরুদ্ধে বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস ও জার্মানিতে পুলিশি তদন্ত চলেছে৷ নেদারল্যান্ডসে ইতিমধ্যেই তিন লাখ মুরগি মেরে ফেলা হয়েছে ও আরো লক্ষ লক্ষ মুরগি বিনষ্ট করার প্রয়োজন পড়তে পারে – কেননা ডিম থেকে ফিপ্রোনিলের যাবতীয় রেশ উধাও হবার পরেই ওলন্দাজ খামারগুলি আবার বাজারে তাদের ডিম বিক্রি করতে পারবে৷ অর্থাৎ গ্রাহকদের জন্য ফিপ্রোনিল আতঙ্কের অবসান ঘটলেও, মুরগির খামারগুলির নতুন করে ডিম উৎপাদন শুরু করতে বেশ কয়েক সপ্তাহ, এমনকি মাস সময় লেগে যেতে পারে৷ সেই সঙ্গে থাকবে লক্ষ লক্ষ ইউরো লোকসান৷

নেদারল্যান্ডস কর্তৃপক্ষ আপাতত পরীক্ষা করে দেখছেন, মুরগির মাংসেও ফিপ্রোনিলের রেশ পাওয়া যায় কিনা৷ অপরদিকে বেলজিয়াম কর্তৃপক্ষকে জবাবদিহি করতে হচ্ছে, জুন মাসেই ফিপ্রোনিল দূষণের ঘটনা আবিষ্কার করা সত্ত্বেও তারা নেদারল্যান্ডস বা জার্মানির মতো প্রতিবেশী দেশগুলিকে ২০ শে জুলাই-এর আগে সে কথা জানাননি কেন৷ নেদারল্যান্ডসের মুরগির খামারগুলির এক-পঞ্চমাংশ ও বেলজিয়ামের মুরগির খামারগুলির এক-চতুর্থাংশ আপাতত কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে৷

এসি/ডিজি (এএফপি, ডিপিএ, এপি)

ডিম নিয়ে মজার পাঁচটি কথা

ডিমের বিশ্বরেকর্ড

সম্প্রতি জার্মানির ভল্ফেনব্যুটেল শহরের একটি মুরগি সবচেয়ে বড় ডিম পেড়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েছে৷ ডিমটির ওজন ছিল ২০৯ গ্রাম! পৃথিবীতে আর কোথাও মুরগি এত বড় ডিম পাড়েনি৷

ডিম নিয়ে মজার পাঁচটি কথা

ডিম খুব ভীতিকর

হ্যাঁ, কারো কারো কাছে ডিম খুব ভীতিকর বস্তু৷ ডিম ভয় পান এমন ব্যক্তিদের মধ্য বিশ্বখ্যাত তারকাও আছেন৷ হলিউডের কিংবদন্তিতুল্য পরিচালক আলফ্রেড হিচককও ডিম ভয় পেতেন৷ ডিমের মতো ‘নিরীহ’ বস্তু ভয় পাওয়ার কারণ জানাতে গিয়ে একবার তিনি বলেছিলেন, ‘‘সাদা ওই বস্তু যাতে কোনো ছিদ্র নেই... ডিমের কুসুমের চেয়ে বিরক্তিকর কোনো জিনিস কোনোদিন দেখেছেন?’’ ৮১ বছরের জীবনে একটাও ডিম খাননি আলফ্রেড হিচকক৷

ডিম নিয়ে মজার পাঁচটি কথা

অনেক আয়ের উৎস হতে পারে ডিম

বিশ্বের সবচেয়ে দামি ডিম ‘ফাব্যার্জ এগ’৷ এটি অবশ্য মানুষের তৈরি নকল ডিম৷ রাশিয়ার প্রখ্যাত জুয়েলার পেটার কার্ল ফাব্যার্জ-এর ডিজাইনে তৈরি বলে এর নাম ‘ফাব্যার্জ এগ’৷ মণিমাণিক্য খচিত এ ধরণের কৃত্রিম ডিমের দাম নিলামে কয়েক মিলিন ডলারও ওঠে৷

ডিম নিয়ে মজার পাঁচটি কথা

ভবিষ্যৎও বলে ডিম

প্রাচীনকালে রোমের মানুষ ভাগ্য জানতে ডিমের শরণাপন্ন হতেন৷ এ যুগেও যে অদৃষ্টবাদী সব মানুষ ডিমের দিকে থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তা কিন্তু নয়৷ এখনো কোনো কোনো দেশে পানিতে ডিম ছেড়ে ভবিষ্যৎ জানার চেষ্টা করে মানুষ৷ অনেকে আবার ডিমের খোসা বা কুসুম দিয়েও নিজের জীবন থেকে আপদ-বালাই দূরে রাখার চেষ্টা করেন৷

ডিম নিয়ে মজার পাঁচটি কথা

ডিমের জনপ্রিয়তা

ইউটিউবে ডিম কিভাবে ভাঙতে হয়, কিভাবে ডিমের কুসুম ফেটতে হয়- এসব দেখিয়েও জনপ্রিয়তা পেয়েছেন অনেকে৷ ডিম জনপ্রিয়, তাই ডিম বিষয়ক ভিডিওগুলোও খুব জনপ্রিয়৷

আরো প্রতিবেদন...

আমাদের অনুসরণ করুন