কেনার কথা বলে ১৯ কোটির ফেরারি নিয়ে চম্পট

গাড়িটি কেনার কথা বলে মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন তিনি৷ সাক্ষাতের পর প্রায় ১৯ কোটি টাকা মূল্যের ফেরারি গাড়িটি চালাতে চাইলেন৷ আর পরীক্ষামূলকভাবে চালানোর নাম করে দুর্লভ গাড়িটি নিয়ে চম্পটই দিলেন ওই ব্যক্তি৷

 অভিনব এমন চুরির ঘটনা ঘটেছে জার্মানির ডুসেলডর্ফ শহরে৷ কোনো ধরনের চিহ্ন রেখে না যাওয়া ওই চোরকে এখন হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ৷

সমাজ-সংস্কৃতি | 05.02.2018

১৯৮৫ সালের মডেলের দুর্লভ ওই ফেরারি গাড়িটি এক সময় ব্রিটিশ রেস ড্রাইভার এডি ইরভিনের মালিকানায় ছিল৷ গাড়িটির বর্তমান মূল্য ২ মিলিয়ন ইউরো, অর্থাৎ প্রায় ১৯ কোটি টাকা৷

বিজ্ঞাপন দেখে ওই গাড়িটি কেনার ‘আগ্রহ' প্রকাশ করে সেই ব্যক্তি৷ এরপর মালিকের সঙ্গে দেখার করে পরীক্ষামূলকভাবে চালাতে চান তিনি৷

গাড়ি পরখ করে তিনি যখন চালকের আসন ঠিক করছিলেন, তখন বাইরেই দাঁড়ানো ছিলেন মালিক৷ এক পর্যায়ে হুট করে গাড়ি চালিয়ে উধাও হয়ে যায় সেই লোক৷ হতভম্ভ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ছাড়া আর কিছু করার ছিল না গাড়ির মালিকের৷

জার্মান পুরুষদের কেন চকচকে গাড়ি পছন্দ ?

পুরুষদের পছন্দ

ফ্রুইয়ারসপুট্স বা বসন্তকালীন ধোয়া-মোছা? অবশ্যই, তবে তা কেবল গাড়ির ক্ষেত্রে৷ প্রতি তিনজনের একজন জার্মান পুরুষ বাড়িঘর পরিষ্কার করার চেয়ে নিজের গাড়ি ধু’তেই বেশি ভালোবাসেন৷

জার্মান পুরুষদের কেন চকচকে গাড়ি পছন্দ ?

নারীদের আগ্রহ কম

প্রতি দুইজনের একজন জার্মান পুরুষ মাসে অন্তত একবার নিজের গাড়িটি ধুয়েমুছে তকতকে করে রাখেন৷ আর নারীদের বছরে মাত্র চারবার গাড়ি পরিস্কার করতে দেখা যায়৷ এক সমীক্ষায় এই তথ্য জানা যায়৷

জার্মান পুরুষদের কেন চকচকে গাড়ি পছন্দ ?

ঘরের কাজে আপত্তি কেন?

প্রতি পাঁচজনের একজন জার্মান পুরুষ ‘কারওয়াশ’ -এ গিয়ে গাড়ি পরিস্কার করেন৷ আর সেসময় নাকি তাঁরা ‘রিল্যাক্সড’ বোধ করেন৷ অথচ বাসার কাজ, অর্থাৎ ঘরের ধুলোবালি পরিষ্কার কিংবা আবর্জনা বাইরে ফেলতে কিন্তু তাঁদের অনেক কষ্ট হয় বা আপত্তি থাকে.. ৷

জার্মান পুরুষদের কেন চকচকে গাড়ি পছন্দ ?

গাড়ি স্ট্যাটাসের প্রতীক

পুরুষদের কাছে গাড়ি স্ট্যাটাসের প্রতীক৷ চকচকে একটি গাড়ি স্বীকৃতি এনে দেয় বলে বেশিরভাগ পুরুষ মনে করেন৷ এ কথা জানায়, মনোবিজ্ঞানী স্ভেনিয়া ল্যুটগে৷ আর তাই তাঁরা গাড়িকে বেশি যত্ন করেন এবং অন্যদের তা দেখাতে পছন্দ করেন৷ বাড়ি তো আর হিংসুটে সহকর্মী বা উৎসুক প্রতিবেশীদের দেখানো যায় না!

জার্মান পুরুষদের কেন চকচকে গাড়ি পছন্দ ?

নারীরা যদি অন্যরকম চায়?

জার্মান পুরুষরা গাড়ির যত্ন বেশি করে, ভালো কথা, কিন্তু নারীরা চায় পুরুষরাও ঘরের কাজে সাহায্য করুক৷ সেক্ষেত্রে কাজ ভাগ করে নেওয়াই ভালো৷ তাছাড়া সকলকেই সব কাজের সমান মূল্য দিতে হবে৷

এখন পর্যন্ত গাড়ি কিংবা চোরের কোনো হদিস পায়নি পুলিশ৷ কারণ, গাড়ি নিয়ে পালানোর সময় কোনো চিহ্ন পর্যন্ত রেখে যায়নি ওই ব্যক্তি৷ শুধু প্রথম সাক্ষাতে মালিকের সঙ্গে তোলা তার একটি ছবি নিয়েই চলছে সন্ধান৷

‘ফেরারি ৩০৮ জিটিএস' মডেলের গাড়িটি দেখতে আশির দশকের টিভি ধারাবাহিক ম্যাগনাম পিআই-এ প্রাইভেট ইনভেস্টিগেটর থমাস ম্যাগনামের ব্যবহৃত গাড়ির মতো৷ এছাড়া অন্য কয়েকটি টিভি সিরিজেও সেরকম গাড়ি ব্যবহার করা হয়েছে৷

এমবি/এসিবি (এপি, ডিপিএ)

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

চাইকা

দেখলে মনে হবে যেন পুরনো মার্কিন গাড়ি! সোভিয়েত ইউনিয়নে ষাটের দশকে এই চাইকা ছিল যাকে বলে কিনা চরম বিলাসিতা৷ কমিউনিস্ট পার্টির জেনারেল সেক্রেটারি নিকিতা ক্রুশ্চেভের প্রিয় গাড়ি ছিল এই চাইকা; পার্টির হোমরা-চোমরারা সবাই এই গাড়ি চড়তেন৷

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

লাডা শিগুলি

প্রখ্যাত ভল্গা অটোমোবাইল কারখানার এই প্রথম মডেলটি তৈরি হয়েছিল ইটালির ফিয়াট ১২৪-এর অনুকরণে৷ গাড়ি বলতে সোভিয়েত ইউনিয়নের খেটে খাওয়া মানুষ এই লাডাই বুঝতেন৷

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

‘গাজিক’

আসল নাম পিটন গাজ-এ; লোকে ভালোবেসে গাজিক বলত৷ সোভিয়েত ইউনিয়নে এই গাড়িটিই প্রথম অ্যাসেম্বলি লাইনে ‘মাস প্রোডাকশান’ পদ্ধতিতে – অর্থাৎ কারখানায় একসঙ্গে অনেকগুলো করে তৈরি হয়৷ দেখেই বুঝতে পারছেন, গাজিক হলো যুক্তরাষ্ট্রের কিংবদন্তি স্বরূপ ফোর্ড টি-র সোভিয়েত যমজ৷

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

পোবেদা

পোবেদা নামটির মানে হলো বিজয় – এক্ষেত্রে বিজয় বলতে বোঝাচ্ছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সোভিয়েত ইউনিয়নের জয়৷ যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরের বছর, অর্থাৎ ১৯৪৬ সাল থেকে তৈরি হচ্ছে সে আমলের গোর্কি ও হালের নিজনি নভগরোদ শহরে৷

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

মস্কভিচ

মস্কভিচ গাড়িটি নাকি জার্মানির ওপেল কাডেট-এর অনুকরণে তৈরি হয়েছিল৷ সোভিয়েত ইউনিয়নে যতো মস্কভিচ গাড়ি তৈরি হতো, তার ৪০ শতাংশ রপ্তানি করা হতো৷ সেই ৪০ শতাংশের অর্ধেক আবার যেতো পশ্চিমে, অর্থাৎ লৌহ যবনিকার অপর পারে৷

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

ভল্গা

ভল্গা গাড়িটির উৎপাদন শুরু হয় ১৯৫৭ সালে – লোকমুখে এর নাম ছিল ‘পুবের মার্সিডিজ’৷ ইয়ুরি গাগারিনের মতো নভশ্চর আর সরকারি আমলারা এই গাড়ি চড়তেন৷ ১৯৬১ সালে প্রথম মানুষ হিসেবে গাগারিন যখন মহাকাশযাত্রা করেন, তখন সরকারের তরফ থেকে তাঁকে একটি ভল্গা গাড়ি উপহার দেওয়া হয়েছিল৷ গাড়ির ভেতরটা ছিল আকাশের মতো নীল...

পুরনো মার্কিন গাড়ি তো চেনেন, পুরনো রুশি গাড়ি চেনেন কি?

জাপোরোশ বা জাপো

পুরো নাম জাপোরোশেজ ৯৬৫ – সস্তার গাড়ি বলে বাজারে নাম খারাপ ছিল৷ কারখানাটি আজ দক্ষিণ ইউক্রেনে৷ ১৯৬০ থেকে ১৯৯৪ সাল অবধি এই ‘জাপোরোশ’ বা ‘জাপো’ গাড়ি তৈরি হয়৷ ১৯৬৭ সাল থেকে প্রচুর জাপো গাড়ি রপ্তানি হয়েছে সাবেক পূর্ব জার্মানিতে৷

আমাদের অনুসরণ করুন