কোলনের পর ফেসবুকে উদ্বাস্তুদের কোঁদল

কোলনে মহিলাদের উপর যৌন হামলার পর জার্মানিতে উদ্বাস্তুদের মধ্যেও বিরোধ দেখা দিয়েছে৷ উত্তর আফ্রিকার মাঘ্রেব দেশগুলি থেকে আসা উদ্বাস্তু বা অভিবাসন প্রত্যাশী আর মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা উদ্বাস্তুরা পরস্পরের ওপর দোষারোপ করছেন৷

থার্টি ফার্স্ট নাইটে কোলনে যা ঘটেছে, তা সারা জার্মানিতে বিমূঢ়তার সৃষ্টি করেছে, তুলেছে ধিক্কারের ঝড়৷ একদল মানুষ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের উদ্বাস্তু নীতির সমালোচনা করছেন; আরেক দল রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী আর অভিবাসীদের সকলকে দোষী না করার আবেদন করছেন৷

অপরদিকে অভিবাসীদের মধ্যেও বিরোধ দেখা দিয়েছে৷ আরব ভাষাভাষি অভিবাসীরা পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন, কারা কোলনে মহিলাদের উপর হামলা চালিয়েছে, তা নিয়ে৷ সোশ্যাল মিডিয়া হলো সিরীয় উদ্বাস্তু আর উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত উদ্বাস্তুদের মধ্যে পারস্পরিক দোষারোপের প্রেক্ষাপট৷

দোষ কার?

ফেসবুকে আহমদ আলবোরানি লিখছেন, ‘‘এই সব জঘন্য কার্যকলাপ সিরীয় জনগণের সংস্কৃতি বা নীতিমালার অঙ্গ নয়৷ তা-তে যদি কোনো সিরীয় সংশ্লিষ্ট থেকে থাকেন, তবে হয় তারা আরব, যারা নিজেদের সিরীয় বলে পরিচয় দিচ্ছেন; নয়ত তারা এমন সব চরিত্র, উদ্বাস্তুদের ক্ষতি করার জন্য আসাদ যাদের পাঠিয়েছেন৷''

Hauptbahnhof Köln Sylvester Ausschreitungen Menschenmassen

সেই ‘কালরাত্রি’...

টোনি শাহুদ উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত উদ্বাস্তুদের দোষ দিয়েছেন, ‘‘মরক্কান, আলজিরীয় আর টিউনিশীয়রা এই সব কুকাজ করেছে৷'' করম ওরফালি একই মত প্রকাশ করেছেন, ‘‘ইউরোপ সিরীয় উদ্বাস্তুদের জন্য দুয়ার খুলে দিয়েছে, অন্য সবাই তার সুযোগ নিয়েছে৷ উদ্বাস্তু শিবিরে গিয়ে দশজন মানুষের দেখা পেলে তাদের সকলেই বলবে তারা সিরীয়; বাস্তবে তাদের মধ্যে দু'জন শুধু সিরীয়, বাকিরা এসেছে মরক্কো, আলজিরিয়া, লেবানন আর আফ্রিকার অন্যান্য দেশ থেকে৷''

মুহানেদ দুরুবি-ও লিখেছেন, ‘‘অধিকাংশ হামলাকারী উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত, প্রত্যক্ষদর্শীরাই তা বলেছেন৷ কিন্তু তারা যুদ্ধের হাত থেকে পালিয়েছেন, তাদের মধ্যে এই যৌন হামলার সমস্যা দেখতে পাওয়া যাবে না৷ যেমন ফিনল্যান্ডে হাজার হাজার উদ্বাস্তুর মধ্যে মাত্র দু'টি যৌন হামলার ঘটনা ঘটেছে৷

ভিডিও দেখুন 04:08
এখন লাইভ
04:08 মিনিট
Focus on Europe | 13.01.2016

Germany: A post-New Year's Eve shock

অপর পক্ষ

তথাকথিত মাঘ্রেব, অর্থাৎ মরক্কো, আলজিরিয়া, টিউনিশিয়া, লিবিয়া প্রমুখ দেশ থেকে আসা উদ্বাস্তুরা এই অপবাদ মেনে নিতে রাজি নন৷ আক্সেল গানিকাস তাই ফেসবুকে লিখছেন, ‘‘উত্তর আফ্রিকার মানুষ, অর্থাৎ আলজিরীয়, মরক্কান বা টিউনিশীয়রা বহুদিন ধরে জার্মানি তথা ইউরোপে বাস করছেন৷ তাদের থেকে এর আগে কোনোদিন এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি৷ যে সব আরব বিগত কয়েক মাসে মধ্যপ্রাচ্য থেকে এসেছেন, শুধু তারাই জার্মানিতে যা ঘটেছে, তার জন্য দায়ী৷ উত্তর আফ্রিকার মানুষ আর মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা আরবদের মধ্যে পার্থক্য করা উচিত৷''

যার উত্তরে বিলাল আলিয়ামানি লিখেছেন, ‘‘কিছু সিরীয় ভাই এমনভাবে নিজেদের সম্পর্কে কথা বলেন, যেন তারা সকলে দেবদূত, সবে স্বর্গ থেকে নেমে এসেছেন৷ তারা এখন মরক্কানদের দোষ দিচ্ছেন৷ আমি নিজে মরক্কান, জার্মানিতে বাস করি৷ আমি সিরিয়ায় গেছি৷ ওরা আর সব মানুষদের মতোই৷''

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷

থার্টি ফার্স্ট নাইটে কোলনে যা ঘটেছে, তা সারা জার্মানিতে বিমূঢ়তার সৃষ্টি করেছে, তুলেছে ধিক্কারের ঝড়৷ একদল মানুষ জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের উদ্বাস্তু নীতির সমালোচনা করছেন; আরেক দল রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী আর অভিবাসীদের সকলকে দোষী না করার আবেদন করছেন৷

অপরদিকে অভিবাসীদের মধ্যেও বিরোধ দেখা দিয়েছে৷ আরব ভাষাভাষি অভিবাসীরা পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন, কারা কোলনে মহিলাদের উপর হামলা চালিয়েছে, তা নিয়ে৷ সোশ্যাল মিডিয়া হলো সিরীয় উদ্বাস্তু আর উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত উদ্বাস্তুদের মধ্যে পারস্পরিক দোষারোপের প্রেক্ষাপট৷

দোষ কার?

ফেসবুকে আহমদ আলবোরানি লিখছেন, ‘‘এই সব জঘন্য কার্যকলাপ সিরীয় জনগণের সংস্কৃতি বা নীতিমালার অঙ্গ নয়৷ তা-তে যদি কোনো সিরীয় সংশ্লিষ্ট থেকে থাকেন, তবে হয় তারা আরব, যারা নিজেদের সিরীয় বলে পরিচয় দিচ্ছেন; নয়ত তারা এমন সব চরিত্র, উদ্বাস্তুদের ক্ষতি করার জন্য আসাদ যাদের পাঠিয়েছেন৷''

Hauptbahnhof Köln Sylvester Ausschreitungen Menschenmassen

সেই ‘কালরাত্রি’...

টোনি শাহুদ উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত উদ্বাস্তুদের দোষ দিয়েছেন, ‘‘মরক্কান, আলজিরীয় আর টিউনিশীয়রা এই সব কুকাজ করেছে৷'' করম ওরফালি একই মত প্রকাশ করেছেন, ‘‘ইউরোপ সিরীয় উদ্বাস্তুদের জন্য দুয়ার খুলে দিয়েছে, অন্য সবাই তার সুযোগ নিয়েছে৷ উদ্বাস্তু শিবিরে গিয়ে দশজন মানুষের দেখা পেলে তাদের সকলেই বলবে তারা সিরীয়; বাস্তবে তাদের মধ্যে দু'জন শুধু সিরীয়, বাকিরা এসেছে মরক্কো, আলজিরিয়া, লেবানন আর আফ্রিকার অন্যান্য দেশ থেকে৷''

মুহানেদ দুরুবি-ও লিখেছেন, ‘‘অধিকাংশ হামলাকারী উত্তর আফ্রিকা থেকে আগত, প্রত্যক্ষদর্শীরাই তা বলেছেন৷ কিন্তু তারা যুদ্ধের হাত থেকে পালিয়েছেন, তাদের মধ্যে এই যৌন হামলার সমস্যা দেখতে পাওয়া যাবে না৷ যেমন ফিনল্যান্ডে হাজার হাজার উদ্বাস্তুর মধ্যে মাত্র দু'টি যৌন হামলার ঘটনা ঘটেছে৷

ভিডিও দেখুন 04:08
এখন লাইভ
04:08 মিনিট
Focus on Europe | 13.01.2016

Germany: A post-New Year's Eve shock

অপর পক্ষ

তথাকথিত মাঘ্রেব, অর্থাৎ মরক্কো, আলজিরিয়া, টিউনিশিয়া, লিবিয়া প্রমুখ দেশ থেকে আসা উদ্বাস্তুরা এই অপবাদ মেনে নিতে রাজি নন৷ আক্সেল গানিকাস তাই ফেসবুকে লিখছেন, ‘‘উত্তর আফ্রিকার মানুষ, অর্থাৎ আলজিরীয়, মরক্কান বা টিউনিশীয়রা বহুদিন ধরে জার্মানি তথা ইউরোপে বাস করছেন৷ তাদের থেকে এর আগে কোনোদিন এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি৷ যে সব আরব বিগত কয়েক মাসে মধ্যপ্রাচ্য থেকে এসেছেন, শুধু তারাই জার্মানিতে যা ঘটেছে, তার জন্য দায়ী৷ উত্তর আফ্রিকার মানুষ আর মধ্যপ্রাচ্য থেকে আসা আরবদের মধ্যে পার্থক্য করা উচিত৷''

যার উত্তরে বিলাল আলিয়ামানি লিখেছেন, ‘‘কিছু সিরীয় ভাই এমনভাবে নিজেদের সম্পর্কে কথা বলেন, যেন তারা সকলে দেবদূত, সবে স্বর্গ থেকে নেমে এসেছেন৷ তারা এখন মরক্কানদের দোষ দিচ্ছেন৷ আমি নিজে মরক্কান, জার্মানিতে বাস করি৷ আমি সিরিয়ায় গেছি৷ ওরা আর সব মানুষদের মতোই৷''

‘বিশ্বাসঘাতক’ ম্যার্কেল

জার্মানির ইসলাম ও অভিবাসী বিরোধী গোষ্ঠী পেগিডার হাজার হাজার সমর্থক সোমবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে৷ শরণার্থীদের প্রতি নরম মনোভাবের কারণ তারা ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে ‘উচ্চ পর্যায়ের বিশ্বাসঘাতকতা’ ও ‘জার্মানির মানুষের বিরুদ্ধে অপরাধ’-এর অভিযোগ আনেন৷

শরণার্থীদের নিয়ে কটূক্তি

পেগিডার (প্যাট্রিয়টিক ইউরোপিয়ান অ্যাগেনস্ট দ্য ইসলামাইজেশন অফ দ্য অক্সিডেন্ট) প্রতিষ্ঠাতা লুটৎস বাখমান সম্প্রতি শরণার্থীদের ‘পশু’, ‘আবর্জনা’ ও ‘উচ্ছৃঙ্খল জনতা’ বলে আখ্যায়িত করেন৷ এ জন্য তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সরকার৷

সমাজে অন্তর্ভুক্তি সম্ভব নয়

সোমবার বিক্ষোভের সময় বাখমান বলেন, শরণার্থীর সংখ্যা দেড় কিংবা দুই মিলিয়নেই থেমে থাকবে না৷ এরপর আসবে তাদের স্ত্রী; আসবে এক, দুই কিংবা তিন সন্তান৷ ফলে এতগুলো লোকের জার্মান সমাজে অন্তর্ভুক্তির কাজ অসম্ভব হয়ে পড়বে৷

জার্মান সরকারের অস্বীকার

জার্মানির জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিল্ড’ সরকারের গোপন ডকুমেন্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে, চলতি বছর জার্মানিতে প্রায় দেড় মিলিয়ন শরণার্থী আসবে বলে মনে করছে সরকার৷ যদিও প্রকাশ্যে সরকার বলছে সংখ্যাটা এক মিলিয়ন হতে পারে৷ তবে জার্মান সরকারের এক মুখপাত্র এ ধরনের কোনো গোপন ডকুমেন্টের কথা তিনি জানেন না বলে সাংবাদিকদের বলেছেন৷

শরণার্থীর মৃত্যু

জার্মানির পূর্বাঞ্চলের এক শরণার্থীদের বাসস্থানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ইরিত্রিয়া থেকে আসা ২৯ বছরের এক শরণার্থীর মৃত্যু হয়েছে৷ অগ্নিকাণ্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি৷ এদিকে, জার্মান সরকারের হিসেবে দেখা যাচ্ছে, চলতি বছর শরণার্থী ও তাদের বাসস্থানের উপর হামলার সংখ্যা বেড়েছে৷ এ বছরের প্রথম ছয় মাসেই এরকম ২০২টি ঘটনা ঘটেছে বলে সরকার জানিয়েছে, যেখানে গত বছর সংখ্যাটি ছিল ১৯৮৷

বিপদে ম্যার্কেল

শরণার্থীদের সঙ্গে এমন আচরণের কারণে নিজ দল সহ অন্যান্য দলের রাজনীতিবিদদের তোপের মুখে পড়েছেন ম্যার্কেল৷ তাঁরা জার্মানির শরণার্থী নীতি ও শরণার্থীদের আগমনের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে চ্যান্সেলরকে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন৷