ক্রুজ, ক্যাসিচ যাবার পর মাঠে এখন ট্রাম্প একা

ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ‘প্রিজাম্পটিভ' রিপাবলিকান নমিনি, সেটা অস্বীকার করার আর কোনো উপায় নেই৷ যেমন নভেম্বরে ট্রাম্প-ক্লিন্টন প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা৷ প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে, দু'পক্ষেই৷

মঙ্গলবার ইন্ডিয়ানায় জেতার পর থেকেই ট্রাম্প তাঁর সুর বদলাতে শুরু করেছেন,সেটাই সম্ভবত বড় খবর৷ অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের মতো আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা যখন ‘‘ট্রাম্প কিভাবে আধুনিক রাজনীতির সব রীতিনীতি ভেঙেও জিতলেন'', তা নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছে, তখন হিলারি রডহ্যাম ক্লিন্টন ও তাঁর সোশ্যাল মিডিয়ার দলবল আরো বড় এবং বেশি করে ভবিষ্যৎ প্রতিদ্বন্দ্বীর দিকে কামান দাগতে শুরু করেছেন৷

হিলারি শিবিরের একটি পন্থা হল, ট্রাম্প বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক বিষয়ে যে সব মত প্রকাশ করেছেন, সেগুলিকে তুলে ধরা; যেমন ট্রাম্প বলেছেন, তিনি স্কুলে বন্দুক ঢুকতে দেবেন; অথবা মুসলিমদের যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে দেবেন না; মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর দেবেন; অথবা ওয়াটারবোর্ডিং-এর মতো বিতর্কিত জেরার পদ্ধতি আবার চালু করবেন৷

অপরদিকে ক্লিন্টন সম্পর্কে ট্রাম্পের মন্তব্য, ‘‘বাস্তবিক হিলারিকে হারানো অন্যান্য অনেক সেনেটর কিংবা গভর্নরকে হারানোর চেয়ে সহজ হবে'' – ট্রাম্প যেরকম এনবিসি টেলিভিশনকে বলেছেন৷ নয়ত সিএনএন-এর সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী জনসমর্থনের ক্ষেত্রে হিলারি ট্রাম্পের চেয়ে ৫৪ শতাংশ বনাম ৪১ শতাংশে এগিয়ে আছেন৷

ট্রাম্প তাতে বিচলিত হবার পাত্র নন৷ তাঁর লক্ষ্য আপাতত তাঁর নিজের দল, রিপাবলিকানদের পুনরায় একত্রিত করা৷ বুধবার রাত্রে তিনি সেনেটে সর্বোচ্চ রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল-এর ‘এনডোর্সমেন্ট' অর্থাৎ সমর্থন পেয়েছেন৷ ম্যাককনেল-এর যুক্তি হলো, হিলারির জয় বস্তুত বারাক ওবামার ‘তৃতীয়' কর্মকালের সমতুল হবে, তাই তা রোখা প্রয়োজন৷ অপরদিকে রিপাবলিকান দলের অনেক অতীত ও বর্তমান হোমরা-চোমরা ট্রাম্পকে সমর্থন করতে রাজি নন৷ যেমন...

ট্রাম্প কিন্তু বুধবার ফক্স নিউজ-কে বলেছেন, ‘‘আমরা এবার দলকে একত্রিত করব, সকলকে একসঙ্গে আনব৷'' এমনকি ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেসিডেন্সি কেমন হবে, সে বিষয়ে জনমানসে যদি কোনো দ্বিধা থাকে, তবে তা দূর করার চেষ্টা করেছেন ট্রাম্প৷ ‘‘লোকে এখনও ঠিক বুঝতে পারছে না, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কেমন হবে'', নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকাকে বলেছেন ট্রাম্প; ‘‘কিন্তু সবই ঠিক থাকবে৷ আমি দেশের অবস্থা আরো স্থিতিহীন করার জন্য প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হইনি৷''

বুকমেকার বা বুকি-রা বৃহস্পতিবার সকালে যা ধরছিল, তা অনুযায়ী আপাতত ক্লিন্টনের জেতার সম্ভাবনা ৭০ শতাংশের বেশি হলেও, ট্রাম্প প্রায় ৩২ শতাংশে পৌঁছে গেছেন৷

অপরদিকে লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস লিখছে, ট্রাম্প যতই অভব্য হোন না কেন, তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হতে পারেন, বলে ইউরোপের মানুষদের ধারণা৷

এসি/ডিজি (এএফপি, এপি)

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

লাজুক মেয়ে

স্লোভেনিয়া তখনো যুগোস্লাভিয়ার অংশ, সেখানে তখনো চলছে ‘সমাজতান্ত্রিক শাসন’, সেই সময়েই সেভনিকা নামের ছোট্ট এক শহরে জন্ম মেলানিয়া নাভস-এর৷ ছোটবেলা থেকেই মেলানিয়া খুব লাজুক প্রকৃতির৷

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

স্কুলের শান্ত, সুবোধ বালিকা

বাবা ভিক্টর নাভস ছিলেন গাড়ির ডিলার৷ মা আমালিয়া কাজ করতেন পোশাক কারখানায়৷ বাড়ির পাশেই ছিল মেলানিয়ার স্কুল৷ কর্মজীবী বাবা-মায়ের কাছে কোনোদিন স্কুল থেকে মেয়ের নামে নালিশ আসেনি৷ বার্তা সংস্থা এপি-র প্রতিবেদকের কাছে কয়েকদিন আগেও মেলানিয়ার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন সেই স্কুলের সাবেক শিক্ষিকা আর শিক্ষার্থীরা৷ সবার এক কথা, ‘‘বড় ভালো মেয়ে ছিল মেলানিয়া৷ খুব মৃদুভাষী আর ভদ্র মেয়ে৷’’

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

স্বপ্নের পথের সন্ধান

প্রাথমিক স্কুল পর্ব শেষে স্লোভেনিয়ার রাজধানী লুবিয়ানার এক উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়তে যায় মেলানিয়া৷ সেখানেই তাকে দেখে ফেলে ফটোগ্রাফার স্টেইন জেরকো৷ ৫ ফুট ১১ ইঞ্চি উচ্চতার আকর্ষণীয় ফিগারের অধিকারী কিশোরীটির ছবি তুলে নিতে ভুল করেননি স্টেইন৷ সেভনিকায় থাকতেই মডেল হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন মেলানিয়া৷ স্টেইনের চোখে পড়ায় স্বপ্ন পূরণে বেশি সময় লাগেনি৷

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

সুপার মডেল

মাত্র ১৬ বছর বয়সে মডেল হিসেবে পেশাদার ক্যারিয়ার শুরু৷ প্রথমে স্লোভেনিয়ায়, তারপর ইটালির মিলান, ফ্রান্সের প্যারিস হয়ে ১৯৯৬ সালে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে৷ বড় বড় ফ্যাশন হাউসগুলোতে তখন তাঁর খুব চাহিদা৷ ইংরেজি, ইটালিয়ান, ফরাসি এবং জার্মান ভাষা শিখে প্রতিষ্ঠা সহজসাধ্য করার কাজও অনেকটাই সেরে নিয়েছেন ততদিনে৷ ওপরে ফিলাডেলফিয়া স্টাইল ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে নিজের ছবির সামনে মেলানিয়া৷

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

ট্রাম্পের সঙ্গে পরিচয় এবং পরিণয়

নিউইয়র্কে প্রথম সাক্ষাতেই মেলানিয়াকে ট্রাম্পের ভালো লেগে যায়৷ নিজের ফোন নাম্বার দিয়ে বলেছিলেন, ‘ফোন করো৷’ মেলানিয়া পাত্তা দেননি৷ পরে ট্রাম্পই আবার ফোন করে দেখা করতে চান৷ সেই দেখার সুবাদেই ১৯৯৬ সালে ২৪ বছরের বড় ট্রাম্পকে বিয়ে করেন মেলানিয়া৷

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

অমিল নিয়েই সুখি

ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্ত্রী হলেও মেলানিয়ার কম এবং যৌক্তিক কথা বলার সুনাম রয়েছে৷ স্বামীর নির্বাচনি প্রচারে নেমেও নিজের কথা সুস্পষ্ট যুক্তিতেই বলেছেন৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট হলে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম অভিবাসন প্রত্যাশীদের ঢুকতে দেবেন না, মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্তেও দেয়াল দাঁড় করাবেন৷ মেলানিয়া বলেন, কেউ বৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে চাইলে সে সুযোগ রাখা উচিত৷

স্লোভেনিয়ার লাজুক কিশোরী থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি

‘ফার্স্ট লেডি’

বিশ্লেষকদের ভুল প্রমাণ করে, নিন্দুকদের মুখে ছাই দিয়ে প্রেসিডেন্ট হলেন ট্রাম্প৷ মেলানিয়া হয়ে গেলেন ‘ফার্স্ট লেডি’৷

আমাদের অনুসরণ করুন