গলদা চিংড়ি ধরে কে?

গলদা চিংড়িরা ঠিকমতো বংশবৃদ্ধি করছে কিনা, তার উপর সাগরের শৈলশিরার জীববৈচিত্র্য নির্ভর করে৷ মেক্সিকোর ক্যারিবিয়ান উপকূলে জীববিজ্ঞানীরা জলের তলায় খাঁচা পেতে দেখার চেষ্টা করছেন: গলদা চিংড়ি ধরে কে?

‘রাজোনাতুরা' পরিবেশ সংরক্ষণ সংগঠনের জীববিজ্ঞানী কিম লেই-কুপার-এর কাজ হলো, পরিবেশের উপর গলদা চিংড়ি ধরার কী প্রভাব পড়ে, সেটা খুঁজে বার করা৷ কিম বলেন, ‘‘গলদা চিংড়িরা আজব জীব! কোনোদিন ভাবিনি যে, আমি নিজে দশ বছর ধরে গলদা চিংড়িদের নিয়ে কাজ করব৷ ওরা যে সামুদ্রিক পরিবেশের একটা গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, সেটা উপলব্ধি করে আশ্চর্য হতে হয়েছে৷ জেলেরা এই গলদা চিংড়ি ধরেই বেঁচে থাকে, কাজেই এটা একটা বহুমুখী প্রকল্প৷''

লেই-কুপার গলদাচিংড়িগুলোর উপর নম্বর লাগান৷ এ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যায়৷ কেননা গলদা চিংড়িরা বিপুল এলাকা জুড়ে ঘুরে বেড়ায়, সংরক্ষিত এলাকার বাইরেও৷ আবার ধরা পড়লে, তাদের নম্বর দেখে বোঝা যায়, তারা কোন পথ দিয়ে এসেছে আর তাদের সুরক্ষার প্রয়োজন কোথায়৷

চিংড়ির বংশবৃদ্ধি হলে হাঙরেরও সুবিধে

বহু সামুদ্রিক জীব গলদা চিংড়ি খায়৷ গলদা চিংড়িদের বংশবৃদ্ধি হলে, হাঙর, মান্টা রে ইত্যাদি মাছেরা তা থেকে উপকৃত হয়৷ টোপ ফেলে আর জলের নীচের ক্যামেরা বসিয়ে বিজ্ঞানীরা দেখতে চান, কোন ধরনের প্রাণীরা এ অঞ্চলে পাওয়া যায়৷ কিম জানালেন, ‘‘হাঙরদের দেখতে পেলেই সবচেয়ে ভালো লাগত, কেননা ওরা খুব ইন্টারেস্টিং৷ এছাড়া ওরা যে খাদ্য-খাদক পরম্পরার অঙ্গ, তা-তে গলদা চিংড়িরাও আছে৷ মা হাঙররা খাঁচার তলায় নেমে গলদা চিংড়ি খায়৷ কাজেই হাঙরদের দেখতে পাওয়ার অর্থ, শৈলশিরার জীববৈচিত্র্য ভালোই আছে; লবস্টার ধরার ফলে রিফ-এর ওপর বিশেষ প্রভাব পড়েনি৷''

জলের তলার ক্যামেরায় বাস্তবিক নানা ধরনের জীবজন্তু ধরা পড়েছে৷ যেমন একটি সামুদ্রিক কচ্ছপ ও কয়েকটি হাঙর৷

মেসোঅ্যামেরিকান রিফটির দৈর্ঘ্য পাক্কা এক হাজার কিলোমিটার৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

ইলেকট্রিক ইল

ইলেকট্রিক ইল কিন্তু পাঁকাল মাছ নয়, বাংলায় সে পড়বে ছুরি মাছদের পর্যায়ে৷ ৬০০ ভোল্ট অবধি ইলেকট্রিক শক মারতে পারে! সেভাবেই শিকার ধরে - বা মারে - এই বৈদ্যুতিক পাঁকাল৷ গবেষণা করে দেখা গেছে যে, বাদুড়রা যেমন শব্দতরঙ্গ ব্যবহার করে পোকামাকড়ের অবস্থান জানতে পারে, তেমন ইলেকট্রিক ইল’ও কারেন্ট মারার সময় সেই পন্থায় শিকারের অবস্থিতিও জানতে পারে৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

ডোরাকাটা তীরন্দাজ মাছ

এই মাছগুলো জলের নীচে থেকেই পুকুরের ধারের ঘাস-গুল্ম থেকে পোকামাকড় শিকার করতে পারে৷ কিভাবে? মুখ থেকে জলের পিচকিরি ছুঁড়ে পোকাগুলোকে পানিতে ফেলে দেয় এই তীরন্দাজ মাছ৷ বড় মাছগুলো তিন মিটার দূরত্বে বসা শিকারকে ঘায়েল করতে পারে!

Freies.jpg

মাছের জগতের আশ্চর্য

স্টারগেজার

এই মাছটি বালির মধ্যে শরীর ডুবিয়ে বসে থাকে শিকার ধরার আশায়৷ শিকার এলে লাফ দিয়ে উঠে শিকার ধরে৷ স্টারগেজার মাছের চোখ মাথার উপর বসানো, থ্যাবড়া মুখটাও ওপরদিকে বাঁকানো৷ মনে রাখতে হবে, মাছটি কিন্তু বিষাক্ত৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

স্টোনফিশ বা পাথর মাছ

এ’মাছটিও বিষাক্ত এবং ক্যামোফ্লেজ, মানে ছদ্মবেশ ধারণে ওস্তাদ৷ দেখলে মনে হবে যেন শ্যাওলায় ঢাকা এক টুকরো পাথর৷ কিন্তু পায়ের নীচে পড়লেই বিষাক্ত কাঁটাগুলো ফুটে যাবে! বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত মাছগুলোর মধ্যে পড়ে এই পাথর মাছ৷ সে বিষে মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

পটকা মাছ

পটকা মাছেদের পেটটা রাবারের মতো বাড়ে বা কমে৷ পটকা মাছেরা পেটে পানি ঢুকিয়ে বলের মতো গোলাকৃতি হয়ে যেতে পারে৷ এদের শরীরেও টেট্রোডোটক্সিন নামের একটি মারাত্মক বিষ আছে৷ জাপানে এই মাছ সুখাদ্য বলে পরিগণিত৷ তবে অতি সাবধানে কাটতে হয়, বিষের অংশটা বাদ দিয়ে৷ কেননা সে’ বিষে মানুষ মরতে পারে৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

অ্যাঙ্গলার ফিশ বা মাছ ধরা মাছ

এই মাছের মাথায় ইলিসিয়াম নামধারী একটি আঙুলের মতো দেখতে আঁচিল আছে৷ সেই আঁচিলের ওপর দিকটা বাতির মতো জ্বল জ্বল করে, যা’তে হবু শিকাররা আকৃষ্ট হয়৷ তারপরেই সেই শিকার অ্যাঙ্গলার মাছের সুবিশাল মুখগহ্বরে ঢুকে যায়৷ এই মাছের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হল, বিশ্বের সর্বত্র এদের পাওয়া যায়, এমনকি গভীর সমুদ্রেও৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

ভাইপার ফিশ বা সর্প মাছ

আজগুবি মাছ দেখতে হলে যেতে হয় সাগরের অতলে৷ সেখানে জলের চাপ বেশি, আলো প্রায় নেই বললে চলে, খাবারও কম৷ এই পরিবেশে শিকার ফসকালে চলবে না৷ তাই ভাইপার ফিশদের দাঁত, মুখ, সবই ভয়ংকর, ভয়াবহ...

মাছের জগতের আশ্চর্য

প্লেইস বা রূপচাঁদা মাছ

চাঁদা মাছরা চ্যাপটা৷ তাদের ক্যামোফ্লেজ বা নিজেকে লুকনোর ক্ষমতা অসাধারণ, বিশেষ করে কাদার মধ্যে৷ মজার কথা: বড় হওয়ার সময় তাদের একটা চোখ মাথার এপাশ থেকে ওপাশে চলে গিয়ে অন্য চোখটির সঙ্গে যুক্ত হয়!

Flash Galerie Tiere

মাছের জগতের আশ্চর্য

সিহর্স ঘোড়া নয়

যদিও এই ছোট্ট মাছগুলোকে ঘোড়ার মতো দেখতে এবং এদের প্রকৃতিও অত্যন্ত নিরীহ৷ দ্বিতীয়ত, ‘সাগরের ঘোড়া’ নামধারী এই মাছগুলি চিৎ হয়ে নয়, খাড়া হয়ে সাঁতার কাটে - ফলে এরা খুব ভালো সাঁতারু হয় না৷ তৃতীয়ত, পুরুষ সিহর্সরা নিষিক্ত ডিমগুলোকে পেটের ভাঁজে বয়ে নিয়ে বেড়ায় এবং পরে বাচ্চাদের জন্মও দেয়৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

মাডস্কিপার বা লাফানো কাদা মাছ

মাডস্কিপাররা মাছ হলেও, তাদের জল বেশি পছন্দ, না ডাঙা বেশি পছন্দ, তা তারা কখনো ঠিক করে উঠতে পারেনি৷ নিঃসন্দেহে মাছ হলেও, তারা পাখনা ব্যবহার করে কাদার ওপর দিয়ে হাঁটতে পারে৷ এছাড়া তারা অন্যান্য উভয়চরের মতো ত্বক দিয়ে নিঃশ্বাস নিতে পারে৷

মাছের জগতের আশ্চর্য

হাতুড়ি-মাথা হাঙর

বিজ্ঞানীদের মতে হ্যামারহেড শার্কের মাথাটা হাতুড়ির মতো দেখতে হওয়ার কারণ হল, এর ফলে তার চোখ দু’টো আরো দূরে দূরে হয়৷ ফলে হাতুড়ি-মাথা হাঙর আরো বেশি দেখতে পায়... যেমন শিকার...

চিংড়ি সমবায়

সিয়ান কা'ন বায়োস্ফিয়ারের সংরক্ষিত এলাকায় গলদা চিংড়ি ধরতে গেলে ধীবর সমবায়ের সদস্য হতে হবে৷ এ ধরনের সাতটি সমবায় মিলে চিংড়ি চাষের নিয়মকানুন আর চিংড়ির দাম ঠিক করে৷ একটা গলদা চিংড়ির ওজন এক কিলোর মতো৷ তার জন্য জেলেরা দাম পায় কম-বেশি বারো ইউরো, যা থেকে তাদের ভালোভাবেই সংসার চলে যায়৷ কিম লেই-কুপারের মতো বিজ্ঞানীরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছেন, সাগরের পরিবেশ এখানে মন্দ নয়৷ কাজেই সমবায়টি ‘টেকসই' সার্টিফিকেট পেয়েছে৷

কিম লেই-কুপার বললেন, ‘‘সকলেরই আশা থাকে যে, তাদের গবেষণা শুধু বই-এর পাতার মধ্যে সীমিত থাকবে না৷ কাজেই সেটাই তো একটা দারুণ ফলাফল৷ এবং সেই গবেষণা থেকে যদি বাস্তবিক উপকার হয়, জেলেদের সরাসরি উপকার হয়, সেটা তো আরো ভালো৷''

বায়োস্ফিয়ারের সংরক্ষিত এলাকার কাছেই ক্যারিবিয়ানের মেক্সিকান অংশের একাধিক নাম-করা টুরিস্ট স্পট৷

‘চাকাই' চিংড়ি

ধীবর সমবায়ের তরফ থেকে ‘চাকাই' নাম দিয়ে ‘টেকসই' চিংড়ি বিক্রি করা হয়৷ ‘রোজউড' লাক্সারি হোটেলের শেফ হুয়ান পাবলে লোজা সাধারণ গলদা চিংড়ির চেয়ে এই পরিবেশ-বান্ধব চিংড়িই পছন্দ করেন৷ হুয়ান জানালেন, ‘‘মানুষজন এখানে আসেন প্রকৃতির সৌন্দর্য দেখবার জন্য৷ কাজেই আমাদের সেটাকে শ্রদ্ধা করে চলা উচিত৷ ‘চাকাই' গলদা চিংড়ি হলো এই এলাকার একমাত্র ‘টেকসই' গলদা চিংড়ি৷ এছাড়া ‘চাকাই' চিংড়িগুলো টাটকা আর ওদের কোয়ালিটিও ভালো৷''

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

মাংসের বদলে মাছ

আজকাল প্রায়ই লক্ষ্য করা যায় অনেক জার্মানই মাংসের পরিবর্তে নানা ধরণের মাছ খেতে পছন্দ করেন৷ বিশেষকরে যাঁরা স্বাস্থ্য সচেতন তাঁরা তো অবশ্যই৷ মাছে তেমন কোনো চর্বি নেই, রয়েছে প্রচুর প্রোটিন, যা শারীরিক ও মানসিকভাবে মানুষকে ফিট রাখতে সহায়তা করে৷

Flash-Galerie Artenschutz Roter Tunfisch

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

খাবারের মুকুট

জার্মানিতে মাছকে বলা হয় ‘খাবারের মুকুট’৷ মাছ মস্তিষ্কের রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে৷ জার্মান খাদ্য গবেষণা কেন্দ্রের পরামর্শ, প্রতিটি মানুষেরই সপ্তাহে অন্তত দু’দিন মাছ খাওয়া প্রয়োজন৷ মাছ হৃদরোগ ও ক্যানসার থেকেও দূরে থাকতে সাহায্য করে৷ মাছ বুদ্ধি বাড়াতে সাহায্য করে৷

Flash-Galerie Diätlügen - üppig gedeckter Tisch

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

নানা জাতের মাছ

জার্মানিতে নানা রকম মাছ পাওয়া যায়৷ ছোট বড়, নদীর মাছ, সামুদ্রিক মাছ, লোনা পানির মাছ, হ্রদের মাছ, তাজা মাছ, হিমায়িত, ধূমায়িত এবং টিনজাত মাছ৷

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

মাছ ভাজি

জার্মানরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মাছ ভাজি খায়, আমাদের বাঙালিদের মতো রান্না করে খুবই কম খেয়ে থাকেন তাঁরা৷ ডয়চে ভেলের ক্যান্টিনে সপ্তাহে প্রায় দু’দিন মাছ দেওয়া হয়৷ ক্যান্টিনে এরকম একটি ট্রাউট মাছের ভাজির দাম ৭ ইউরো, বাইরে যার দাম প্রায় দ্বিগুণ৷

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

কাটা মাছ

বাজারে পাঠানোর আগে এভাবেই মাছ ‘প্রসেস’ করা হয়৷ মাছ কেটে পরিষ্কার করে, কাঁটা বেছে ‘স্লাইস’ করে তবেই সেটা বাজারে যায়৷ তবে কিছুটা ছোট আকারের মাছ কার্প, ট্রাউট, হেরিং, সি ব্রাস ইত্যাদি মাছ আস্তই পাওয়া যায় বাজারে৷

Bosnien, Fischerei FLASH-GALERIE

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

সখের জেলে

জার্মানিতে অনেকেই সখ করে মাছ ধরেন, তবে তাঁদের অবশ্যই মাছ ধরার লাইসেন্স থাকতে হবে৷ তাছাড়া যে কোনো জায়াগায় মাছ ধরা যায় না, শুধু যেসব জায়গায় অনুমতি রয়েছে সেখানেই মাছ ধরা সম্ভব৷

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

তাজা মাছের বাজার

এভাবেই সুন্দর করে সাজানো থাকে মাছের বাজারে মাছগুলো৷ দেখে মনে হয়, মাছগুলো যেন মাছ-প্রেমীদের ডাকছে৷ মাছ মস্তিষ্ককে সজাগ রাখে, তাই ডাক্তাররা মাছ খেতে সবসময়ই পরামর্শ দিয়ে থাকেন, বিশেষকরে ছাত্র-ছাত্রী এবং বয়স্কদের৷ তবে সবার জন্যই মাছ খুব উপাদেয়৷

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

ধূমায়িত মাছ

ধূমায়িত বা ‘স্মোক্ড’ মাছ জার্মানদের কাছে বেশ প্রিয়, বিশেষ করে রুটির সাথে তাঁরা এ ধরনের বিশেষ প্রক্রিয়ায় রান্না করা মাছ খেতে পছন্দ করেন৷ ম্যাকরেল নামের এক মাছ যার মধ্যে খুব সামান্য হলেও আমাদের ইলিশের স্বাদ খুঁজে পাওয়া যায়৷ তবে সেই মাছ ‘স্মোক্ড’ অবস্থায়ই বেশি পাওয়া যায়৷

Bilder für alphabetischer Katalog Flash-Galerie H

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

বরফ দেওয়া মাছ

এভাবেই মাছকে যত্ন করে বরফের ওপর সুন্দর করে সাজিয়ে রাখা হয়৷ শুধুমাত্র মাছের জন্য রয়েছে আলাদা বাজার, সেখানে এ ধরনের মাছ পাওয়া যায়৷

মাছ খান, সুস্থ থাকুন

মাছ খান, সুন্দর আর স্লিম থাকুন

মাছ খাওয়ার পরামর্শ আজকাল চারিদিকে শোনা যায়৷ ডাক্তার থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য সচেতন যে কেউ এই পরমার্শ দেন৷ তবে ছোটবেলা থেকেই এই অভ্যাস গড়ে তোলা উচিত বলেও মনে করেন বিশেষজ্ঞরা৷ শরীরে আয়োডিনের ঘাটতিও পূরণ করে থাকে বেশ কিছু মাছ৷

আজকের গলদা চিংড়িগুলো যে কোনো অতিথির জন্য নয়৷ লেই-কুপার এ অঞ্চলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকৃতি সুরক্ষা সংগঠনগুলির প্রধানদের নিমন্ত্রণ করেছেন৷ তাঁর পরিকল্পনা হলো: আমন্ত্রিতদের ‘টেকসই' গলদা চিংড়ি খাইয়ে তাঁর নিজের প্রকল্পের অর্থায়ন করতে রাজি করা৷ চিংড়ির শূককীট বহুদূর অবধি যায়, কাজেই চিংড়িদের সংখ্যা ঠিক রাখতে আর তাদের পরিবেশের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে প্রতিবেশী দেশগুলিতেও গবেষণা চালাতে হবে ও সংরক্ষিত এলাকা সৃষ্টি করতে হবে৷

কিম জানালেন, ‘‘আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন হলো, আমার ছেলে-মেয়েরা এই আশ্চর্য পরিবেশ দেখতে পাবে৷ আশা করব আমাদের প্রজন্মের মতো তারাও ছোট ছোট চিংড়ি আর সেই সঙ্গে মান্টা রে, স্টিং রে, হাঙর, এই সব সুন্দর জীবদের দেখতে পাবে৷ সেটাই হবে আমার সবচেয়ে বড় আনন্দ৷''

তাঁর এই টেকসই প্রকল্পের ওপরেও সেটা নির্ভর করবে৷

আমাদের অনুসরণ করুন