গোয়েন্দা তথ্য নিয়ে প্রশ্ন

চলতি মাসে তিনটি জঙ্গিবিরোধী অভিযানে র‌্যাব-পুলিশের ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷ প্রশ্ন উঠেছে, গোয়েন্দা তথ্য নিয়ে৷ বিশ্লেষকরা বলছেন, অভিযানে সাফল্যের কৃতিত্ব নিতে কোনো অনাকাঙ্খিত প্রতিযোগিতা হচ্ছে কিনা তা-ও দেখা দরকার৷

বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জে মঙ্গলবার গভীর রাতে শুরু হওয়া র‌্যাবের জঙ্গিবিরোধী অভিযান বুধবার সকাল ১১টার দিকে শেষ হয়েছে৷ চাঁপাইনবাবগঞ্জের র‌্যাব-৫-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহবুব আলমের দাবি, তারা নব্য জেএমবি'র তিন সদস্যকে আটক করেছেন৷ তাদের কাছে ৪টি বিদেশি পিস্তল, একটি খেলনা পিস্তল, ১২ রাউন্ড গুলি, তিনটি ম্যাগাজিন, একটি কার্তুজ ও তিন কেজি গানপাউডার উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি৷ এর আগে আরো একজনকে আটক করে র‌্যাব৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

২৩শে মার্চের ঘটনা

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দক্ষিণ সুরমার শিববাড়িতে ‘আতিয়া মহল’ নামের একটি পাঁচ তলা ভবন জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ঘিরে ফেলে পুলিশ৷ শনিবার সকালে সেখানে শুরু হয় সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডো ব্যাটালিয়নের ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

জোড়া বিস্ফোরণ

সন্ধ্যায় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের ব্রিফ করার পরপরই কাছের পাঠানপাড়ায় বিস্ফোরণের বিকট শব্দ পাওয়া যায়৷ বিস্ফোরণের শব্দ শুনে অভিযানস্থল থেকে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা সেখানে ছুটে যান৷ এরপর ঘটে দ্বিতীয় বিস্ফোরণটি৷ জোড়া বিস্ফোরণে দুই পুলিশসহ ছয়জন নিহত হয়৷ র‌্যাবের গোয়েন্দাপ্রধানসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

প্যারা কমান্ডোর অভিযান

সবুজ রঙের দেয়াল ঘেরা আতিয়া মহলের দুটি বাড়ি৷ এসব বাড়িতেই জঙ্গি৷ তাদের হাতে জিম্মিদের উদ্ধারে অভিযানে ব্যস্ত সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোরা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

জঙ্গিদের কাছে অস্ত্রশস্ত্র

বাড়ির ভেতরে থাকা জঙ্গিদের কাছে ‘স্মল আর্মস’, বিস্ফোরক ও আইইডি আছে বলে জানিয়েছে আইএসপিআর৷ ভবনের বিভিন্ন স্থানে তারা আইইডি পেতে রাখায় পুরো বাড়ি বিপদজনক অবস্থায় রয়েছে৷ এ কারণে অভিযানে সময় লাগছে বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

সতর্ক অবস্থান

জিম্মি উদ্ধারের আগে জঙ্গি আস্তানা ঘিরে সতর্ক অবস্থানে সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোরা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

আটকে পড়াদের উদ্ধার

শনিবার, অর্থাৎক ২৫শে মার্চ সকালে অভিযান শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ওই বাড়িতে আটকেপড়া মানুষদের মধ্যে ৭৮ জনকে সেনাবাহিনীর কমান্ডোরা উদ্ধার করে আনেন৷ জিম্মিদের অক্ষত অবস্থায় উদ্ধারের উপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল জানিয়ে সেনা কর্মকর্তারা বলছেন, তাতে তারা পুরোপুরি সফল হয়েছেন৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

নারীদের উদ্ধার

জঙ্গি আস্তানা থেকে এক নারীকে উদ্ধার করে পাশের বাড়ির ছাদ হয়ে বের করে আনছেন সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোরা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

বৃষ্টির মধ্যেই মুক্তি

বৃষ্টির মধ্যেই জঙ্গি আস্তানা থেকে জিম্মিদের উদ্ধার করে আনলেন সেনা কমান্ডোরা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

তৎপর কমান্ডোরা

বাড়ির পেছনের অংশে তৎপর সেনাবাহিনীর প্যারা কমান্ডোরা, চারপাশ ঘিরে রেখেছেন তারা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

নিরাপদ আশ্রয়ের দিকে যাত্রা

শিশু কোলে এক নারীকে জঙ্গি আস্তানা থেকে উদ্ধার করে আনছেন সেনা কমান্ডোরা৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

যে ছবিটি ভাইরাল

জঙ্গি আস্তানায় আটকে পড়েছিল এই শিশুটি৷ তাকে কোলে করে বের করে আনেন এক সেনা কমান্ডো৷ এই ছবিটি এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

অনিশ্চয়তা ও উদ্বেগ

জঙ্গি আস্তানা থেকে উদ্ধার করা ব্যক্তিদের প্রথমে পাশের একটি বাড়িতে রাখা হয়, বিকালে তারা বেরিয়ে আসেন ওই এলাকা থেকে৷ তাদের চোখে মুখে অনিশ্চয়তা ও উদ্বেগের চিহ্ন৷

ছবিতে ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’

জঙ্গি আস্তানা সেনা নিয়ন্ত্রণে

সোমবার সকাল থেকে থেমে থেমে গুলি ও বিস্ফোরণ চলছিল৷ অভিযানের চতুর্থ দিন শেষে পাঁচ তলা ওই আতিয়া মহলে চারজনের লাশ পাওয়ার কথা জানিয়েছে সেনাবাহিনী। বাড়ির সীমানা প্রাচীর ভেঙে ঢুকে পড়ে সাঁজোয়া যান৷ আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের ওয়েবসাইটে অভিযানের পাঁচটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে৷

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল ও গোমস্তাপুর উপজেলায় এই অভিযানে চারটি বাড়ি ঘেরাও করা হয়৷ এর মধ্যে তিনটিতে র‌্যাব কোনো বোমা বিস্ফোরক, আগোনয়াস্ত্র বা নাশকতামূল্য কাজে ব্যবহারযোগ্য কিছু পায়নি৷

এর আগে গত ২০ ও ২১ মে নরসিংদির একটি বাড়ি ঘিরে জঙ্গিবিরোধী অভিযান চালায় র‌্যাব৷ ওই অভিযানে সাত জনকে আটক করা হলেও পরে তিন জনকে ছেড়ে দেয়া হয়৷ অভিযানে কোনো ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র বা বোমা বিস্ফোরক উদ্ধার হয়নি৷ আটকদের স্বজনরা দাবি করেছেন, তারা মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষক৷ র‌্যাব অবশ্য এখনো আটকরা জঙ্গি কিনা তা তদন্ত করে দেখছে৷

আর ১২ মে রাজশাহীর গোদাগাড়ি এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে জেলা পুলিশ এক জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালায়৷ সেখানে মাটির দেয়াল দেয়া ঘরে অবস্থানরত জঙ্গিদের অবস্থা জানতে পুলিশ কোনোরকম নিরাপত্তা ছাড়াই ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ জন কর্মীকে দেয়ালে পানি দেয়ার কাজে নিয়োজিত করে৷ আর জঙ্গিরা তখন বাইরে এসে আব্দুল মতিন নামে এক ফায়ার সার্ভিস কর্মীকৈ কুপিয়ে হত্যা করে৷ এই ঘটনা নিয়ে পুলিশের

এখন লাইভ
01:49 মিনিট
বিষয় | 24.05.2017

সম্প্রতি কয়েকটি জঙ্গিবিরোধী অভিযানে গোয়েন্দা তথ্যের ঘাটতি স্প...

দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগের তদন্ত চলছে৷

গত বছরের ১ জুলাই হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার পর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম টিম গঠন করা হয়৷ আর অভিযানের জন্য বিশেষ প্রশিক্ষিত টিম সোয়াট কাজ করছে৷ এই টিমগুলো হোলি আর্টিজানের পর জঙ্গিবিরোধী অভিযানে সাফল্য পায়৷ চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নরসিংদী ও রাজশাহীতে তাদের কাজে লাগানো হয়নি৷

গত মার্চে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলকার আতিয়ামহলে অভিযান চলাকালেই ২৫ মার্চ পাশের জনবহুল এলাকায় জঙ্গিরা দু' দফা হামলা চালালে পাঁচজন নিহত হন৷ তাদের মধ্যে র‌্যাব পুলিশের কর্মকর্তাও রয়েছেন৷ এখানেও গোয়েন্দা তথ্যের ঘাটতি এবং অভিযানে দীর্ঘ সময় নেয়ার সমালোচনা  হয়৷

মানবাধিকার কর্মী এবং জঙ্গিবাদ বিষয়ক গবেষক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সম্প্রতি কয়েকটি জঙ্গিবিরোধী অভিযানে গোয়েন্দা তথ্যের ঘাটতি স্পষ্ট৷ আমার মনে হয়, সঠিক গোয়েন্দা তথ্য ছাড়াই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন বিভাগ নিজেদের মধ্যে অনাকাঙ্খিত প্রতিযোগিতার কারণে এই ধরণের অভিযান চালাচ্ছে৷’’

এখন লাইভ
01:05 মিনিট
বিষয় | 24.05.2017

এটা অবশ্যই গোয়েন্দা ব্যর্থতা: আব্দুর রশীদ

তিনি বলেন, ‘‘এর ফলে জনমনে জঙ্গিবিরোধী অভিযান নিয়ে আস্থার সংকট হতে পারে৷ সাধারণ মানুষ বিপদে পড়তে পারেন৷ নরসিংদীতে যদি আটকদের পরিবারের সদস্যরা এবং সংবাদ মাধ্যম এগিয়ে না আসতো, তাহলে ঘটনা দু:খজনক হতে পারত৷’’

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ (অব.) ডয়চে ভেলেক বলেন, ‘‘এটা অবশ্যই গোয়েন্দা ব্যর্থতা৷ জঙ্গিবিরোধী অভিযান সঠিক এবং সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে না হলে সাধারণ মানুষের ক্ষতি হতে পারে৷ আর একটা অভিযান অনেক জনবল নিয়োগ ও অনেক খরচেরও ব্যাপার৷’’

তবে মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ (অব.) আরো বলেন, ‘‘এটা কৌশলও হতে পারে যে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদ করে যাদের জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা পাওয় যাবে, তাদের আটক রাখা হবে৷ বাকিদের ছেড়ে দেয়া হবে৷ কিন্তু সেটা বারবার হতে পারে না৷’’

প্রিয় পাঠক, আপনি কিছু বলতে চাইলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

আমাদের অনুসরণ করুন