গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

ঝুঁকি ছাড়া আবার জীবন কি?

আলজেরিয়া থেকে আসা ১৮ বছর বয়সের তরুণ মহম্মদ (বাঁ দিকে) আমাদের প্রশ্ন শুনে হাসলেন৷ সারাদিন লুকিয়ে থেকে মালগাড়িতে চেপে পালানোর প্রচেষ্টা কতটা বিপজ্জনক? ‘‘ঝুঁকি ছাড়া আবার জীবন কি?’’ বললেন মহম্মদ৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

এই টাকায় আর কতদিন যাবে?

আলজেরিয়া থেকে আসা আনোয়ার (বাঁয়ে) আর আহমেদ একটি পরিত্যক্ত বগিতে বসে পরের মালগাড়ির অপেক্ষা করছেন৷ ‘‘আমি তিনবার ট্রেনে লুকিয়ে পালানোর চেষ্টা করেছি - দু’বার ধরা পড়েছি ম্যাসিডোনিয়ায় আর একবার ধরেছে গ্রিক পুলিশ,’’ বললেন আহমেদ৷ আনোয়ার জানালেন, ‘‘একটা জাল পাসপোর্টের জন্য ১,৫০০ ইউরো লাগে আর পাত্রাস বন্দর থেকে ইতালিতে আসার জন্য ৬০০ ইউরো৷ আমার কাছে আছে আর মাত্র ২৫ ইউরো, যা আমার সার্বিয়ার জন্য লাগবে৷’’

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

চূড়ান্ত লক্ষ্য

আলজেরিয়া থেকে আসা ২৯ বছর বয়সি জাকি একটি পরিত্যক্ত বগিতে একটু ঘুমিয়ে নিচ্ছেন৷ তিনি গ্রিসে আসেন নয় মাস আগে, একটি অলিভ গাছের বাগানে মাসখানেক ধরে কাজও করেন৷ ছয় বার জার্মানিতে যাবার চেষ্টা করেছে৷ তার সর্বশেষ প্রচেষ্টা আংশিক সফল হয়েছে - সে এখন বলকান অঞ্চলের কোনো এক জায়গায়৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

যে ট্রেন কোথাও যায় না

মরক্কোর এক অভিবাসী একটি পরিত্যক্ত ট্রেনের কামরায় বসে তার ভবিষ্যতের কথা ভাবছেন৷ তিনি নাকি ট্রেনে লুকিয়ে পালানোর প্রচেষ্টায় তিনবার গ্রিস আর ম্যাসিডোনিয়ার সীমান্তে ধরা পড়েছেন আর একবার ধরা পড়েছেন পাত্রাস বন্দর থেকে ট্রাকে লুকিয়ে ইটালি যাবার চেষ্টা করার সময়৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

লুকানোর জায়গা

মালগাড়িটা ইঞ্জিন বদলানোর জন্য এই স্টেশনে থামার পর ১৬ বছর বয়সের জালোয়ান, ২৩ বছর বয়সি আবদেল রহমানকে একটি বগির তলায় ঢুকতে সাহায্য করছে৷ নিরাপত্তা প্রহরীদের বিবৃতি অনুযায়ী, ম্যাসিডোনিয়া পুলিশ নাকি ঠিক ঐ জায়গাতেই তাদের তল্লাসি শুরু করে৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

গন্তব্য অজ্ঞাত

মালগাড়িগুলির টাইমটেবল জানা নেই বলে উদ্বাস্তুরা অনেক সময় জানেন না, ট্রেনটা কোথায যাচ্ছে৷ কাজেই অভীপ্সিত উত্তরে না গিয়ে, ট্রেন হয়তো এথেন্সে গিয়ে থামতে পারে৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

শেষ নির্দেশ

আলজেরিয়ার এক অভিবাসী তাঁর বন্ধুকে মালগাড়িতে লুকানোর পন্থা বুঝিয়ে দিচ্ছেন৷ ট্রেনটিতে লোহালক্কড় বোঝাই করা হয়েছে৷ পথে শ্বাসরোধ ও জলাভাবের বিপদ আছে৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

এক লাফে...

অভিবাসী তরুণরা বেসরকারি নিরাপত্তা কর্মীদের হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য ট্রেন থেকে লাফ দিয়ে পালাচ্ছে৷ প্রাইভেট সিকিউরিটি কনট্রাক্টরের নিযুক্ত লোকজন এখানে টহল দিয়ে থাকে৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

রসদ ঠিক রেখো

মহম্মদ কাছের সফটেক্স উদ্বাস্তু শিবির থেকে খাবারদাবার ও পানি নিয়ে যাচ্ছেন তার বন্ধুবান্ধবদের জন্য - যারা ইতিমধ্যেই মালগাড়িটায় লুকিয়েছেন৷

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

যাদের দেখার কথা

গ্রিক রেলওয়ে কর্মীরা দুপুরের লাঞ্চব্রেকে তাস খেলছেন৷ পানাজ্যোটিস (ডানদিকে) গত ৩৩ বছর ধরে এখানে কাজ করছেন৷ ‘‘প্রায় এক বছর ধরে এই ব্যাপারস্যাপার চলেছে, তবে গত গ্রীষ্ম থেকে প্রায় প্রতিদিন এ ধরনের ঘটনা ঘটছে৷ ওরা যায়, আবার এক দিন পরে ফিরে আসে৷ এভাবে পালানোটা খুবই বিপজ্জনক, কিন্তু আমরা ওদের থামাতে পারি না৷একবার দেখেছিলাম, এক সিরীয় মা তাঁর বাচ্চাটিকে নিয়ে একটি পেট্রোলের ওয়াগনে ঢুকবার চেষ্টা করছেন৷’

গ্রিসে উদ্বাস্তুদের পশ্চিম ইউরোপে যাবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা

ওয়ার্নিং

গ্রিক কর্তৃপক্ষ আরবি ভাষায় নোটিশ টাঙিয়েছেন, বিদ্যুতের তারের ব্যাপারে সাবধান করে দিয়ে৷ গত নভেম্বর মাসে এক আলজেরীয় অভিবাসী ট্রেন থেকে লাফ দিয়ে পালানোর চেষ্টায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে প্রাণ হারান৷

রেলওয়ে স্টেশনের সাইডিংয়ে ফেলে রাখা পরিত্যক্ত বগিতে থাকেন তারা; মালগাড়ির ফাঁকে-ফোকরে ঢুকে গ্রিস ছেড়ে পশ্চিম ইউরোপে যাবার চেষ্টা করেন৷ ডয়চে ভেলের আলোকচিত্র সাংবাদিক দিমিত্রিস তোসিদিস তাদের দেখা পান থেসালোনিকিতে৷

প্রতিবেদন: দিমিত্রিস তোসিদিস (থেসালোনিকি)/ এসি
সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

মিডিয়া সেন্টারে আরো পাবেন৷

আমাদের অনুসরণ করুন