চা করে চাকর, পান করেন সাহেব

চা এমন একটি পানীয়, ইউরোপীয়রা গোড়া থেকেই যার ভক্ত৷ যে কারণে চা-বাগান আসামেই হোক আর সিলেটেই হোক, চা ব্যবসায় ব্রিটিশ কোম্পানি আর ব্রিটিশ ব্র্যান্ডগুলি আজও ‘সব মাথা ছাড়িয়ে'৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

খ্রিষ্টজন্মের প্রায় ২,৭০০ বছর আগে চা আবিষ্কৃত হয়, অর্থাৎ মানুষ চা খেতে শেখে৷ কোন না কম সাড়ে চার হাজার বছর ধরে চা খাচ্ছে মানবজাতি৷ কিন্তু ভারতের ইতিহাসে ভাস্কো ডা গামার আগমন যা, অ্যামেরিকার ইতিহাসে কলম্বাসের আগমন যা, চায়ের ইতিহাসে ১৬১০ সালটা সেইরকম; সে বছর ওলন্দাজরা চা নিয়ে আসে ইউরোপে, শুরু হয় এই চা-বিহীন মহাদেশে চায়ের জয়যাত্রা৷

চায়ের ইতিহাসে সেরকম আরেকটা বছর ছিল ১৯০৮, যখন প্রথম টি-ব্যাগ আবিষ্কৃত হয়, এবার কিন্তু মার্কিন মুলুকে৷ নিউ ইয়র্কের এক চা ব্যবসায়ী, নাম থমাস সালিভান, তাঁর গ্রাহকদের ছোট ছোট সিল্কের ব্যাগে করে চা-এর নমুনা পাঠাচ্ছিলেন৷ ততদিনে ইনফিউসন-এর দিন শুরু হয়ে গেছে: গ্রাহকরা ভাবেন, এ-ও বোধহয় সেরকম কিছু হবে; সিল্কের ব্যাগ সুদ্ধু চা পাতা গরম জলে দিয়ে ফেলেন৷ অপরদিকে সালিভানকে লেখেন, ব্যাগের বুনোটটা বড় আঁট৷ কাজেই সালিভান সিল্কের বদলে মেডিক্যাল গজ দিয়ে নতুন স্যাচেট তৈরি করে চায়ের নমুনা পাঠাতে শুরু করেন৷ শুরু হয় টি-ব্যাগের জয়যাত্রা৷

নানা স্বাদের চা

দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে চায়ের জনপ্রিয়তার কথা আমরা সকলেই জানি৷ আর বাঙালিদের আড্ডা মানেই ‘চা’৷ চায়ের সাথে সিঙাড়া, চানাচুর বা ঝালমুড়ি হলে তো কথাই নেই৷ তবে জার্মানরাও যে চা পান করতে পছন্দ করেন, তা হয়তো অনেকেরই জানা নেই৷ জার্মানিতে ১৯ শতকে রাশিয়া থেকে প্রথম চা আনার মধ্য দিয়েই চায়ের সাথে জার্মানদের পরিচয় ঘটে৷ আর বর্তমানে জার্মানিতে তিন হাজার রকমের চা পাওয়া যায়৷

কফির পরিবর্তে চা

বেশির ভাগ জার্মান সকালে নাস্তার সাথে কফি পান করেন৷ কেউ কেউ বলেন, কফি ছাড়া নাকি তাদের ঘুমই ভাঙেনা৷ স্বাস্থ্য-সচেতন অনেক জার্মানই আজকাল চায়ের দিকে ঝুঁকছেন, চা’কে প্রাধান্য দিচ্ছেন৷ তবে শুধু সকাল আর বিকেল নয়, দিনের যে কোনো সময়ই জার্মানদের চা পান করতে দেখা যায়৷ যে কোনো ক্যাফেতেও কফির পাশাপাশি চা থাকে৷ এখানকার মানুষ চায়ের পুরো স্বাদ পেতে হালকা চা পছন্দ করেন৷

সবুজ চা

চীন হলো চায়ের আদি জন্মস্থান৷ বেশিরভাগ গ্রিন টি আসে চীন থেকে৷ জার্মানরা গ্রিন টি বা সবুজ চা বেশ পছন্দ করেন, যাতে রয়েছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, যা শরীরের জন্য প্রয়োজন৷ সবুজ চা’কে অনেক সময় জাদুর ওষুধ বলা হয়ে থাকে৷ যা নিয়মিত পান করলে ক্যানসার, আল্সহাইমার, ব্লাড প্রেশার, ডায়েবেটিস এর মতো কঠিন অসুখকে দূরে রাখতে সাহায্য করে৷

বাংলাদেশের চা

চা আমদানী করা হয় ভারত, শ্রীলঙ্কা, চীন, ইটালি, দক্ষিণ আফ্রিকাসহ অন্যান্য অনেক দেশ থেকে৷ বাংলাদেশে ১৬৩টি চা বাগান রয়েছে৷ তার মধ্যে ১৪৮টি বাগানই শুধু সিলেটের বিভিন্ন এলাকায়৷ বাংলাদেশের চা ইংল্যান্ড, অ্যামেরিকা, জার্মানি ও অন্যান্য দেশে রপ্তানি করা হয়৷ হয়তো অতটা বিস্তৃত আকারে নয়, আর সে কারণেই হয়তো জার্মানির চায়ের দোকানে বাংলাদেশের লেবেল আটা চা কখনো চোখে পড়েনি৷

মেয়েদের জন্য বিশেষ ‘চা’

পেট ব্যথা, মাথা ব্যথা, দাঁত ব্যথা, জ্বর জ্বর ভাব বা এ ধরণের শরীর খারাপ লাগলে তার জন্যও রয়েছে ভেষজ চা৷ বলা যায়, মানুষের শরীরের যে কোনো ধরনের ছোটখাটো সমস্যা সারাতে রয়েছে নানা প্রকারের চা৷ প্রকৃতির এই অফুরন্ত দানের মধ্যে মেয়েদের জন্য রয়েছে ‘যোগী’ চা বা ‘পাওয়ার’ চা৷ জার্মানির অনেক ফিটনেস সেন্টারে যোগব্যায়ামের পর ‘ইয়োগী’ চায়ের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে৷

মন্ত্রীসভায় ‘চা’

জার্মান শিক্ষামন্ত্রী ইয়োহানা ভাংকা সাপ্তাহিক মন্ত্রীসভায় নিজের কাপে চা ঢালছেন৷

কোনটা চাই, পাতা ‘চা’ না ‘টি’ ব্যাগ?

কাজ কম এবং দামে সস্তা বলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই টি ব্যাগ ব্যবহার করেন জার্মানরা৷ আর রয়েছে বিভিন্ন ফলের ফ্লেভার দেওয়া চা, ওয়াইট বা সাদা চা, আদা চা, লেবু চা৷ তবে সৌখিন চা প্রেমিরা পাতা চা দিয়েই চা তৈরি করেন৷ বলা বাহুল্য, সে চা খেতে অবশ্যই ভালো এবং দামেও তিন চারগুণ বেশি৷ চায়ের স্বাদ বজায় রাখতে সাধারণ চিনির বদলে মেশানো হয় ব্রাউন সুগার বা ক্যান্ডি সুগার৷ আমরা যাকে মিশ্রি বলে থাকি৷

বিশেষ চায়ের জন্য বিশেষ দোকান

প্রায় সব সুপারমার্কেটেই ৮ থেকে ১০ রকমের চা পাওয়া যায়, তবে চায়ের গুণগত মান বজায় রাখতে বিশেষ চায়ের জন্য রয়েছে আলাদা দোকান, যেখানে শুধুই চা বিক্রি করা হয়৷ নানা স্বাদ, রং আর গন্ধের চাইনিজ গ্রিন টি সৌখিন জার্মানরা পছন্দ করেন৷ যেমন ভালো জাতের গ্রিন টি ‘লুং শিং’-এর দাম কেজি প্রতি ৮০ ইউরো৷ গ্রিন টি ওজন কমাতে বা ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে সাহায্য করে বলে মেয়েদের কাছে বেশ প্রিয়৷

‘চা’ শুধু পানীয় নয় – এর চেয়েও বেশি কিছু

জার্মানিতে শীতকালে চায়ের কদর অনেক বেশি৷ শীতের রাতে মোমের আলো আঁধারির রোম্যান্টিক পরিবেশে সুন্দর করে এক কেটলি চা বানিয়ে অনেকে আস্তে আস্তে তা পান করেন, বেশ রোম্যান্টিক পরিবেশে৷ কখনো বা চালিয়ে দেন ল্যাপটপে ভীষণ পছন্দের একটা ছবি, যেটা অনেকবারই হয়তো দেখা হয়েছে৷

মসলা চা

শুধু শীতকালে বা বড়দিনের সময় বাজারে আসে মশলা চা৷ যাতে মেশানো থাকে আদা, এলাচ, দারুচিনি, লং, তেজপাতা জাতীয় গরম মশলা৷ বড়দিনের সময়টাতে বা প্রচণ্ড শীতে জার্মানদের কাছে এই চায়ের বেশ চাহিদা- যা নাকি শরীর গরম রাখতে খানিকটা সাহায্য করে৷

চা বানানোর রেসিপি

চায়ের বিশেষ দোকানগুলোতে চা কেনার সময়ই একটি তথ্যপুস্তিকা সাথে দিয়ে দেওয়া হয়৷ যাতে দেয়া থাকে কোন চায়ের পাতা কতক্ষণ গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে, বা গরম পানির তাপমাত্রা কত হলে চায়ের পুরো গুণাবলী বা স্বাদ থাকবে ইত্যাদি৷ চায়ের স্বাদ বা রং অনেক সময় চায়ের কাপ বা কেটলির ওপরও নির্ভর করে-এরকম পরামর্শও দেওয়া হয়ে থাকে৷ আবার কিছু কিছু দোকানে চা কেনার আগে টেস্ট করে দেখারও ব্যবস্থা রয়েছে৷

চা এই প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের কাছেও প্রিয়

আজকাল সব দেশেই নানা ধরণের বিভিন্ন ডিজাইনের চায়ের সরঞ্জাম পাওয়া যায়৷ চা রাখার পাত্র বা চা পান করার পাত্রগুলোকে কখনো মনে হয় যেন ‘ডেকরেশন পিস’৷ অনেক জার্মান বাড়িতেই কয়েক রকমের চা দেখা যায়৷ যাদের ওজন নিয়ে সমস্যা তারা চায়ের প্রতি বেশি ঝুঁকছেন৷ তাই এই প্রজন্মের স্বাস্থ্য সচেতন ছেলেমেয়েদের কাছে চা দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে৷

শরীর এবং মনে এনে দেয় প্রশান্তি

বেছে নিন সুন্দর একটি কেটলি, ভেতরটা ফুটন্ত পানি দিয়ে ধুয়ে নিন৷ এক চা চামচ লুং শিং আর আধা চা চামচ দার্জিলিং চা মিশিয়ে কেটলিতে দিয়ে গরম পানি ঢেলে দিন৷ ২ থেকে তিন মিনিট ভিজিয়ে রেখে তুলে ফেলুন আর কেটলির চায়ে মিশিয়ে দিন কয়েক ফোটা তাজা লেবুর রস৷ মুখে দিন এক টুকরো ক্যান্ডি সুগার৷ সেই সাথে আস্তে আস্তে পান করুন এই মাত্র তৈরি করা চা৷ দেখবেন কিছুক্ষণ পর শরীরটা কেমন ঝরঝরে লাগছে৷ সেই সাথে মনটাও!

মজার কথা, ব্রিটেনে ঠিকমতো টি-ব্যাগের চল শুরু হয় কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, ১৯৫৩ সালে৷ টেটলে কোম্পানি ফ্যাশনটা চালু করে, পরে অন্য কোম্পানিরা তা-তে যোগ দেয়৷ তার ফল: ষাটের দশকের গোড়ায় ব্রিটেনের চায়ের বাজারে টি-ব্যাগের ভাগ ছিল মাত্র তিন শতাংশ; ২০০৭ সালে তা হয়ে দাঁড়িয়েছে ৯৬ শতাংশ! বাজার মাত করা আর কা-কে বলে৷

টি-ব্যাগের কথা তুললাম, কেননা টি-ব্যাগের পিছনে চা শিল্প ও ব্যবসায়ের কতগুলি রহস্য লুকিয়ে আছে৷ চা পাতার কোয়ালিটি অনুযায়ী তার গ্রেড – এবং দাম – নির্ধারিত হয়৷ গোটা পাতা থেকে চায়ের গুঁড়ো; অরেঞ্জ পিকো, ব্রোকেন অরেঞ্জ পিকো থেকে ফ্যানিংস হয়ে ডাস্ট, অর্থাৎ গুঁড়ো চা৷ টি-ব্যাগে ঢোকে প্রধানত সেই সস্তার গুঁড়ো চায়ের ব্লেন্ড, যা মেশানোর জন্য বিশাল মাইনের টি-টেস্টাররা বসে আছেন৷

টি-ব্যাগ দুনিয়া জয় করার মানে সবচেয়ে নিকৃষ্ট মানের চা দুনিয়া জয় করেছে৷ পশ্চিমে টি-ব্যাগের ব্যবহার এখন সর্বত্র; সময়ের অভাবে ইউরোপ-অ্যামেরিকায় টি-ব্যাগ আজ লাইফস্টাইলও বটে৷ ওদিকে উপমহাদেশের মানুষরাও গুঁড়ো চা পছন্দ করেন, তা-তে কড়া লিকার হয় বলে৷ ফলে রুচি ও রেস্ত-সম্পন্নদের পছন্দসই লিফ টি এখন আর চায়ের নীলামে স্পটলাইট জুড়ে থাকে না৷

Deutsche Welle DW Arun Chowdhury

অরুণ শঙ্কর চৌধুরী, ডয়চে ভেলে

হয়ত সে কারণেই কলকাতার নীলামে চা-পাতার দাম ২০১৫ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৬ সালের মার্চ, এই ছ'মাসে কিলো প্রতি চার-পাঁচ টাকা বাড়াতেই ভারতে আনন্দের ধুম পড়ে যায়৷ অথচ ইংল্যান্ডে ৮০টি টি-ব্যাগ – যা-তে ২৫০ গ্রাম চা থাকে – তার দাম ১৯৯৯ সালে ছিল এক পাউন্ড ৮৯ পেন্স; তা ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক পাউন্ড ৯৭ পেন্সে – অর্থাৎ নামমাত্র বেড়েছে৷ যদিও ব্রিটেনের মানুষ দিনে প্রায় সাড়ে ১৬ কোটি কাপ করে চা খেয়ে থাকেন৷

২০১৪-১৫ সালে ভারতে এক কিলো চা-পাতার দাম ছিল ১২৫ টাকার কিছু বেশি৷

সেই সময় ব্রিটেনের পিজি টিপস টি-ব্যাগের চা-পাতা কিলো হিসেবে বিক্রি করলে তার দাম হতো কিলো প্রতি ৭৪৪ টাকা – যদিও তা সস্তার গুঁড়ো চা৷

কথায় বলে না? চায়ের আমি, চায়ের তুমি, দাম দিয়ে যায় চেনা...

তাই কি? জানান আপনার মন্তব্য, নীচের ঘরে৷

খ্রিষ্টজন্মের প্রায় ২,৭০০ বছর আগে চা আবিষ্কৃত হয়, অর্থাৎ মানুষ চা খেতে শেখে৷ কোন না কম সাড়ে চার হাজার বছর ধরে চা খাচ্ছে মানবজাতি৷ কিন্তু ভারতের ইতিহাসে ভাস্কো ডা গামার আগমন যা, অ্যামেরিকার ইতিহাসে কলম্বাসের আগমন যা, চায়ের ইতিহাসে ১৬১০ সালটা সেইরকম; সে বছর ওলন্দাজরা চা নিয়ে আসে ইউরোপে, শুরু হয় এই চা-বিহীন মহাদেশে চায়ের জয়যাত্রা৷