ছোট মেয়েটি কেঁদে বলছে, ‘পুলিশ, সীমান্ত খুলে দাও’

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ঢোকার আশায় প্রতিদিন প্রায় চার হাজার মানুষ নানা উপায়ে গ্রিসে প্রবেশ করছে৷ সেখান থেকে কয়েকটি দেশ পেরিয়ে আশ্রয়প্রার্থীরা তাদের গন্তব্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করে৷

কিন্তু গত সপ্তাহে পাঁচটি দেশের পুলিশ প্রধানের নেয়া এক সিদ্ধান্তে গ্রিসে আটকা পড়েছে আফগানিস্তানসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে যাওয়া কয়েক হাজার শরণার্থী৷ ঐ সিদ্ধান্তের কারণে ‘যুদ্ধপীড়িত এলাকা' ছাড়া অন্য কোনো দেশের মানুষকে সীমানা পেরোতে দিচ্ছে না পুলিশ৷ আটকে পড়াদের মধ্যে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া শিশু ও সঙ্গীহীন অনেকে রয়েছেন৷

বার্তা সংস্থা এপি'র তোলা ভিডিও ও তথ্য নিয়ে এই বিষয়ে একটি ভিডিও প্রতিবেদন তৈরি করেছে ‘ম্যাশেবল' ওয়েবসাইট৷ ভিডিওটি ইউটিউবেও শেয়ার করা হয়েছে৷

ভিডিওতে ইউরোপের বিভিন্ন সীমান্তে আটকে পড়া শরণার্থীদের সীমান্ত পেরোতে দেয়ার আকুতি তুলে ধরা হয়েছে৷ মেসিডোনিয়ার গেভগেলিয়া সীমান্তে একটি ছোট্ট মেয়েকে কেঁদে পুলিশকে বলতে শোনা গেছে, ‘‘পুলিশ, সীমান্ত খুলে দাও৷''

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর অন্তর্ভুক্ত দেশ অস্ট্রিয়া, ক্রোয়েশিয়া ও স্লোভেনিয়াসহ সার্বিয়া ও মেসিডোনিয়ার পুলিশ প্রধানদের নেয়া সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে ইইউ ও জাতিসংঘ৷ ইইউ বলেছে, বিষয়টি নিয়ে তারা সংশ্লিষ্ট দেশের সঙ্গে আলোচনা করবে৷ জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা বলছে, এই সিদ্ধান্তের কারণে প্রকৃত আশ্রয়প্রার্থীদেরও ফিরিয়ে দেয়ার সম্ভাবনা তৈরি হবে৷ এছাড়া আটকে পড়ারা প্রচন্ড ঠান্ডায় কাতর হয়ে পড়বে৷ তাদের প্রতারিত হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে৷

চিকিৎসক থেকে শরণার্থী

সিরিয়ায় রাজধানী দামেস্কে চিকিৎসক হিসেবে ভালোই ছিলেন হামবার আল-ইসা৷ কিন্তু যুদ্ধ শুরুর পর জন্মভূমির সব সুখ ছেড়ে ইউরোপের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাতে হয় তাঁকে৷

অনেক পথ পেরিয়ে...

মেসিডোনিয়ায় পৌঁছানোর পর সার্বিয়ার সীমান্ত পর্যন্ত যেতে অনেকটা পথ হাঁটতে হয়েছে হামবারকে৷ হেঁটে কোনো শহরে পৌঁছালেই শুরু হতো ইন্টারনেট ক্যাফে খুঁজে বের করার চেষ্টা৷ পেলে প্রথম কাজ কোথায় আছেন, কেমন আছেন সে সম্পর্কে পরিবারকে বিস্তারিত জানানো৷ একা এসেছেন, তাই স্বজনদের তাঁর জন্য খুব চিন্তা৷ তাঁদের চিন্তা দূর করা ও তাঁদের সম্পর্কে জেনে নিজেকে নিশ্চিন্ত রাখতেই পছন্দ করেন হামবার৷

অবশেষে জার্মানিতে...

অনেক দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে অবশেষে জার্মানিতে পৌঁছেছেন হামবার৷ সিরিয়াতে সার্জন হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও নতুন দেশে চাইলেই তো আর চিকিৎসক হিসেবে কাজ শুরু করা যায় না৷ জার্মান ভাষা শিখে নিজেকে তৈরি করতে হবে সবার আগে৷ সেই চেষ্টা চলছে৷ পাশাপাশি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুবাদকের কাজও করছেন৷ তাঁর স্বপ্ন অবশ্য জার্মানিতে বসবাস করা নয়৷ সুসময় ফিরে এলে নিজের দেশেই ফিরতে চান হামবার৷

দেশান্তরী এক আফগান কিশোরী

তোবার বয়স এখন ১৬ বছর৷ আফগানিস্তানের হেরাত থেকে জার্মানিতে এসেছে সে৷ হেরাতে নিয়মিত স্কুলে যেত সে৷ লেখাপড়া করেই প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নও দেখতো৷ কিন্তু তালেবান বেছে বেছে মেয়েদের স্কুলে হামলা শুরু করায় তোবার পক্ষেও আর দেশে থাকা সম্ভব হয়নি৷

সপরিবারে জার্মানিতে

আফগানিস্তান থেকে জার্মানিতে অবশ্য একা আসেনি তোবা৷ দুই বোন এবং তাঁদের স্বামীও এসেছেন সঙ্গে৷ কাছের এই মানুষগুলো সঙ্গে থাকার কারণেই ইরান, তুরস্ক, গ্রিস এবং বলকান অঞ্চল হয়ে জার্মানিতে পৌঁছাতে পেরেছে তোবা৷

দুঃস্বপ্নে পোড়া স্কুল, স্বপ্নে সুন্দর আগামী

তালেবান হামলা থেকে বাঁচতে আফগানিস্তান ছেড়ে এলেও স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্ন কিন্তু ছাড়েনি তোবা৷ নিজেকে নতুন করে তৈরি করছে সে৷ জার্মান ভাষা শিখছে৷ স্বাবলম্বী হতে হলে জার্মানিতে ভাষা শেখাটা তো সবার জন্যই জরুরি৷

এক সাংবাদিকের পরিবার

ওপরের ছবির তিনজন জার্মানিতে এসেছেন সিরিয়ার ইদলিব থেকে৷ আহমেদ (মাঝখানে)-এর সঙ্গে তাঁর স্ত্রী হেবা এবং বন্ধু সালেহ৷ সিরিয়ায় সাংবাদিক হিসেবে বেশ কিছুদিন কাজ করেছেন আহমেদ৷

শৈশবেই প্রবাসী

আহমেদ-হেবা দম্পতির এই মেয়েটিও এসেছে জার্মানিতে৷ মাত্র এক বছর বয়সেই শুরু হয়েছে তার প্রবাসজীবন৷ ওর বাবা অবশ্য যুদ্ধ থামলেই ফিরে যেতে চায় সিরিয়ায়৷

অনেক দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে অবশেষে জার্মানিতে পৌঁছেছেন হামবার৷ সিরিয়াতে সার্জন হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও নতুন দেশে চাইলেই তো আর চিকিৎসক হিসেবে কাজ শুরু করা যায় না৷ জার্মান ভাষা শিখে নিজেকে তৈরি করতে হবে সবার আগে৷ সেই চেষ্টা চলছে৷ পাশাপাশি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুবাদকের কাজও করছেন৷ তাঁর স্বপ্ন অবশ্য জার্মানিতে বসবাস করা নয়৷ সুসময় ফিরে এলে নিজের দেশেই ফিরতে চান হামবার৷

তালেবান হামলা থেকে বাঁচতে আফগানিস্তান ছেড়ে এলেও স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্ন কিন্তু ছাড়েনি তোবা৷ নিজেকে নতুন করে তৈরি করছে সে৷ জার্মান ভাষা শিখছে৷ স্বাবলম্বী হতে হলে জার্মানিতে ভাষা শেখাটা তো সবার জন্যই জরুরি৷

কিন্তু গত সপ্তাহে পাঁচটি দেশের পুলিশ প্রধানের নেয়া এক সিদ্ধান্তে গ্রিসে আটকা পড়েছে আফগানিস্তানসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে যাওয়া কয়েক হাজার শরণার্থী৷ ঐ সিদ্ধান্তের কারণে ‘যুদ্ধপীড়িত এলাকা' ছাড়া অন্য কোনো দেশের মানুষকে সীমানা পেরোতে দিচ্ছে না পুলিশ৷ আটকে পড়াদের মধ্যে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া শিশু ও সঙ্গীহীন অনেকে রয়েছেন৷

বার্তা সংস্থা এপি'র তোলা ভিডিও ও তথ্য নিয়ে এই বিষয়ে একটি ভিডিও প্রতিবেদন তৈরি করেছে ‘ম্যাশেবল' ওয়েবসাইট৷ ভিডিওটি ইউটিউবেও শেয়ার করা হয়েছে৷

ভিডিওতে ইউরোপের বিভিন্ন সীমান্তে আটকে পড়া শরণার্থীদের সীমান্ত পেরোতে দেয়ার আকুতি তুলে ধরা হয়েছে৷ মেসিডোনিয়ার গেভগেলিয়া সীমান্তে একটি ছোট্ট মেয়েকে কেঁদে পুলিশকে বলতে শোনা গেছে, ‘‘পুলিশ, সীমান্ত খুলে দাও৷''

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর অন্তর্ভুক্ত দেশ অস্ট্রিয়া, ক্রোয়েশিয়া ও স্লোভেনিয়াসহ সার্বিয়া ও মেসিডোনিয়ার পুলিশ প্রধানদের নেয়া সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে ইইউ ও জাতিসংঘ৷ ইইউ বলেছে, বিষয়টি নিয়ে তারা সংশ্লিষ্ট দেশের সঙ্গে আলোচনা করবে৷ জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা বলছে, এই সিদ্ধান্তের কারণে প্রকৃত আশ্রয়প্রার্থীদেরও ফিরিয়ে দেয়ার সম্ভাবনা তৈরি হবে৷ এছাড়া আটকে পড়ারা প্রচন্ড ঠান্ডায় কাতর হয়ে পড়বে৷ তাদের প্রতারিত হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে৷

চিকিৎসক থেকে শরণার্থী

সিরিয়ায় রাজধানী দামেস্কে চিকিৎসক হিসেবে ভালোই ছিলেন হামবার আল-ইসা৷ কিন্তু যুদ্ধ শুরুর পর জন্মভূমির সব সুখ ছেড়ে ইউরোপের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাতে হয় তাঁকে৷

অনেক পথ পেরিয়ে...

মেসিডোনিয়ায় পৌঁছানোর পর সার্বিয়ার সীমান্ত পর্যন্ত যেতে অনেকটা পথ হাঁটতে হয়েছে হামবারকে৷ হেঁটে কোনো শহরে পৌঁছালেই শুরু হতো ইন্টারনেট ক্যাফে খুঁজে বের করার চেষ্টা৷ পেলে প্রথম কাজ কোথায় আছেন, কেমন আছেন সে সম্পর্কে পরিবারকে বিস্তারিত জানানো৷ একা এসেছেন, তাই স্বজনদের তাঁর জন্য খুব চিন্তা৷ তাঁদের চিন্তা দূর করা ও তাঁদের সম্পর্কে জেনে নিজেকে নিশ্চিন্ত রাখতেই পছন্দ করেন হামবার৷

অবশেষে জার্মানিতে...

অনেক দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে অবশেষে জার্মানিতে পৌঁছেছেন হামবার৷ সিরিয়াতে সার্জন হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও নতুন দেশে চাইলেই তো আর চিকিৎসক হিসেবে কাজ শুরু করা যায় না৷ জার্মান ভাষা শিখে নিজেকে তৈরি করতে হবে সবার আগে৷ সেই চেষ্টা চলছে৷ পাশাপাশি স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুবাদকের কাজও করছেন৷ তাঁর স্বপ্ন অবশ্য জার্মানিতে বসবাস করা নয়৷ সুসময় ফিরে এলে নিজের দেশেই ফিরতে চান হামবার৷

দেশান্তরী এক আফগান কিশোরী

তোবার বয়স এখন ১৬ বছর৷ আফগানিস্তানের হেরাত থেকে জার্মানিতে এসেছে সে৷ হেরাতে নিয়মিত স্কুলে যেত সে৷ লেখাপড়া করেই প্রতিষ্ঠিত হওয়ার স্বপ্নও দেখতো৷ কিন্তু তালেবান বেছে বেছে মেয়েদের স্কুলে হামলা শুরু করায় তোবার পক্ষেও আর দেশে থাকা সম্ভব হয়নি৷

সপরিবারে জার্মানিতে

আফগানিস্তান থেকে জার্মানিতে অবশ্য একা আসেনি তোবা৷ দুই বোন এবং তাঁদের স্বামীও এসেছেন সঙ্গে৷ কাছের এই মানুষগুলো সঙ্গে থাকার কারণেই ইরান, তুরস্ক, গ্রিস এবং বলকান অঞ্চল হয়ে জার্মানিতে পৌঁছাতে পেরেছে তোবা৷

দুঃস্বপ্নে পোড়া স্কুল, স্বপ্নে সুন্দর আগামী

তালেবান হামলা থেকে বাঁচতে আফগানিস্তান ছেড়ে এলেও স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্ন কিন্তু ছাড়েনি তোবা৷ নিজেকে নতুন করে তৈরি করছে সে৷ জার্মান ভাষা শিখছে৷ স্বাবলম্বী হতে হলে জার্মানিতে ভাষা শেখাটা তো সবার জন্যই জরুরি৷

এক সাংবাদিকের পরিবার

ওপরের ছবির তিনজন জার্মানিতে এসেছেন সিরিয়ার ইদলিব থেকে৷ আহমেদ (মাঝখানে)-এর সঙ্গে তাঁর স্ত্রী হেবা এবং বন্ধু সালেহ৷ সিরিয়ায় সাংবাদিক হিসেবে বেশ কিছুদিন কাজ করেছেন আহমেদ৷

শৈশবেই প্রবাসী

আহমেদ-হেবা দম্পতির এই মেয়েটিও এসেছে জার্মানিতে৷ মাত্র এক বছর বয়সেই শুরু হয়েছে তার প্রবাসজীবন৷ ওর বাবা অবশ্য যুদ্ধ থামলেই ফিরে যেতে চায় সিরিয়ায়৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি)