জার্মানিতে দুই সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীকে বহিষ্কারের নির্দেশ

জার্মানিতে জন্ম নেয়া দুই পুরুষ, যারা জার্মানির গ্যোটিংগেন শহরে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করেছিল, জার্মানি থেকে বহিষ্কার এড়ানোর আইনি লড়াইয়ে হেরে গেছেন৷ তাদের আলজেরিয়া এবং নাইজেরিয়ায় পাঠিয়ে দেয়া হতে পারে যে কোনো সময়৷

গ্যোটিংগেনে উগ্র ইসলামপন্থি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে এই দু'জনের সম্পর্কের বিষয়ে তদন্তকারীরা নিশ্চিত৷ তাই এদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছিল জার্মান কর্তৃপক্ষ৷ অভিযুক্তরা অবশ্য সেই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই করে জার্মানিতে থেকে যেতে চেয়েছিল৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা ধোপে টিকলো না৷

২৭ বছর বয়সি আলজেরীয় এবং ২২ বছর বয়সি এই নাইজেরীয় নাগরিককে গতমাসে গ্যোটিংগেনে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা সঙ্গে সম্পৃক্ত সন্দেহে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ তারা খুব দ্রুত সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছিল বলেও জানা যায়৷ গ্রেপ্তারের আগে বেশ কিছুদিন পুলিশ তাদের নজরে রেখেছিল, কেননা আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘‘ইসলামিক স্টেটের’’ (আইএস) প্রতি তাদের সমর্থনের বিষয়টি পুলিশের নজরে আসে৷

রাজনীতি

লাইপসিশ, অক্টোবর ২০১৬

লাইপসিসের পুলিশ দু’দিন ধরে তল্লাশি চালানোর পর ২২ বছর বয়সে সিরীয় শরণার্থী জাবের আল-বাকেরকে গ্রেপ্তারে সক্ষম হয়৷ চেমনিৎসে তার অ্যাপার্টমেন্টে বিস্ফোরক এবং বোমা তৈরিত সরঞ্জাম পাওয়ার পর তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ সন্দেহ করা হয় যে, বার্লিন বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা করছিল সে৷ গ্রেপ্তারের দুই দিন পর অবশ্য কারাগারে আত্মহত্যা করে এই সিরীয় শরণার্থী৷

রাজনীতি

আন্সবাখ, জুলাই ২০১৬

গত জুলাই মাসে জার্মানিতে দু’টি হামলার দায় স্বীকার করে জঙ্গি গোষ্ঠী ‘ইসলামিক স্টেট’ বা আইএস৷ দু’টি হামলাই শরণার্থীরা ঘটিয়েছিল৷ এর মধ্যে বাভারিয়ার আন্সবাখ শহরে একটি মিউজিক ফেস্টিভ্যালের প্রবেশ মুখে এক সিরীয় শরণার্থী বিস্ফোরণ ঘটালে ১৫ ব্যক্তি আহত হন৷ হামলায় হামলাকারী অবশ্য নিজেও প্রাণ হারায়৷

রাজনীতি

ভ্যুয়র্ত্সবুর্গ, জুলাই ২০১৬

১৭ বছর বয়সি এক শরণার্থী ভ্যুয়র্ত্সবুর্গে একটি ট্রেনের মধ্যে কুড়াল ও ছুরি নিয়ে যাত্রীদের উপর হামলা চালায়৷ এতে হংকং থেকে আসা এক পর্যটক পরিবারের চার সদস্য এবং অন্য একজন আহত হন৷ পুলিশ হামলাকারীকে গুলি করে হত্যা করে৷ পুলিশ জানায়, হামলাকারী তথাকথিত ইসলামিক স্টেট-এর সদস্য না হলেও এই জঙ্গি গোষ্ঠীর আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে হামলা চালিয়েছিল৷

রাজনীতি

ড্যুসেলডর্ফ, মে ২০১৬

ইসলামিক স্টেট-এর তিন সন্দেহভাজন সদস্যকে নর্থ রাইনওয়েস্টফেলিয়া, ব্রান্ডেনবুর্গ এবং বাডেন ভ্যুর্টেনবের্গ থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ কর্তৃপক্ষ জানায়, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে দু’জন ড্যুসেলডর্ফের শহরতলীতে আত্মঘাতী হামলার পরিকল্পনা করেছিল৷ অপরজন এবং ফ্রান্সে গ্রেপ্তারকৃত চতুর্থ জিহাদি বন্দুক ও বিস্ফোরক নিয়ে পথচারীদের হামলার পরিকল্পনা করছিল বলে খবর৷

রাজনীতি

এসেন, এপ্রিল ২০১৬

এসেনে একটি শিখ মন্দিরে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ বিস্ফোরণে তিন ব্যক্তি আহতও হন৷ সিসিটিভি ফুটেজ প্রচারের পর ১৬ বছর বয়সি এক সন্দেহভাজন নিজেই পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে৷ আর অন্য তরুণ সন্দেহভাজনকে বাড়ি থেকে আটক করে স্পেশাল পুলিশ৷

রাজনীতি

হানোফার, ফেব্রুয়ারি ২০১৬

১৬ বছর বয়সি জার্মান-মরোক্কান তরুণী সোফিয়া এস. হানোফার ট্রেন স্টেশনে এক পুলিশ কর্মকর্তাকে ছুরিকাঘাত করে৷ ধারণা করা হয়, ইসলামিক স্টেট-এর সদস্যরা তাকে এই হামলায় প্ররোচিত করেছিল৷

রাজনীতি

বার্লিন, ফেব্রুয়ারি ২০১৬

বার্লিনে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে ইসলামিক স্টেট-এর সন্দেহভাজন তিন আলজেরীয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ বার্লিনের প্রসিকিউটরের দপ্তরের তথ্য আনুযায়ী, রাজধানীতে হামলা করার জন্য তাদের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা সম্পর্কে অবগত ছিল কর্তৃপক্ষ৷

রাজনীতি

ওবারউরসেল, এপ্রিল ২০১৫

এশবর্ন-ফ্রাংকফুর্ট সিটি লুপ বাইক রেস বাতিল করে পুলিশ, কেননা তারা সন্দেহ করছিল যে সেই রেসে ইসলামিক স্টেট হামলা চালাতে পারে৷ হামলা পরিকল্পনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৩৫ বছর বয়সি এক তুর্কি বংশোদ্ভূত জার্মান এবং তাঁর ৩৪ বছর বয়সি স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে৷ বাইক রুটের কাছে তাদের বাড়ি থেকে বোমা তৈরির উপকরণও উদ্ধার করে পুলিশ৷

আলোচিত দু’জনেরই জন্ম গ্যোটিংগেনে এবং তারা সেখানে তাদের পরিবারের সঙ্গে বসবাস করছিল৷ মঙ্গলবার লাইপসিগে অবস্থিত কেন্দ্রীয় প্রশাসনিক আদালত জানায় যে, এবার তাদের জার্মানি থেকে বহিষ্কারে কোনো আইনি বাধা নেই৷ এর আগে জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বিবেচনা করে তাদের জার্মানি থেকে বের করে দিতে অনুরোধ করেছিল রাজ্য সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷

এদিকে স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, সন্দেহভাজন দু'জনকে দ্রুতই ফেরত পাঠানো হতে পারে৷ শুধু তাই নয়, এরা অনির্দিষ্টকালের জন্য আর জার্মানিতে ফিরতে পারবেন না৷ লোয়ার সাক্সেনির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস পিস্টোরিয়াস এ বিষয়ে বলেন, ‘‘আমরা সারাদেশের সমস্ত উগ্রপন্থিকে এই বার্তা দিতে চাই যে, তাদের ঘৃণ্য কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য এক সেন্টিমিটার জায়গাও দেয়া হবে না জার্মানিতে৷’’

অভিযুক্ত এই আলজেরীয়কে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ইতোমধ্যে সেদেশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে জার্মানি৷ আলজেরিয়া থেকে এই নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে যে, তাকে ফেরত পাঠানো হলে তার সঙ্গে কোনোরকম অমানবিক আচরণ করা হবে না৷ তবে নাইজেরিয়ার নাগরিকের ক্ষেত্রে এ রকম কিছু করা হয়েছে কিনা, তা এখনো জানা যায়নি৷

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বর মাসে বার্লিনের ক্রিসমাস মার্কেটে ট্রাক হামলার পর নিরাপত্তা ইস্যুতে বেশ কঠিন অবস্থান নিয়েছে জার্মানি৷ এক টিউনিশীয় নাগরিক সেই হামলা চালায়, যাতে প্রাণ হারান ১২ ব্যক্তি৷ এ ঘটনার পর যেসব অভিবাসীর রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন বাতিল হয়েছে, তাদেরও দ্রুত স্ব স্ব দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে জার্মানি

এআই/ডিজি (এএফপি, ডিপিএ, ইপিডি)

রাজনীতি

আইএস কোথা থেকে এসেছে?

ইসলামিক স্টেট (আইএস) সুন্নী ইসলামিস্ট আদর্শে বিশ্বাসী আল-কায়েদার একটি উপদল, যেটি আইএসআইএল, আইসিস এবং দায়েশ নামেও পরিচিত৷ ২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন আক্রমণের পর এটির বহিঃপ্রকাশ ঘটে৷ এই গোষ্ঠীর নেতৃত্বে রয়েছেন আবু বকর আল-বাগদাদি৷ জঙ্গি গোষ্ঠীটির লক্ষ্য হচ্ছে ইরাক, সিরিয়া এবং অন্যান্যা অঞ্চল নিয়ে একটি ইসলামিক স্টেট বা খেলাফত প্রতিষ্ঠা করা৷

রাজনীতি

আইএস কোথায় কাজ করে?

বিশ্বের ১৮টি দেশে আইএস সক্রিয় রয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷ ইরাক এবং সিরিয়ার কিছু অংশ এই গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং এটি সিরিয়ার রাকা শহরকে রাজধানী হিসেবে বিবেচনা করে৷ তবে ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে এখন অবধি নিজেদের দখলে থেকে এক চতুর্থাংশ এলাকা তাদের হাতছাড়া হয়ে গেছে৷

রাজনীতি

কারা তাদের বিরুদ্ধে লড়ছে?

আইএস-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বেশ কয়েকটি গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে৷ বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশের সমন্বয়ে তৈরি মার্কিন নেতৃত্বাধীন একটি ‘কোয়ালিশন’ আইএস অধ্যুষিত এলাকায় বিমান হামলা চালাচ্ছে৷ এই কোয়ালিশনে কয়েকটি আরব দেশও রয়েছে৷ অন্যদিকে সিরিয়া সরকারের পক্ষে সেদেশে বিমান হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া৷ তবে ভূমিতে তাদের বিরুদ্ধে লড়ছে কুর্দিশ পেশমার্গার মতো আঞ্চলিক শক্তিগুলো৷

রাজনীতি

আইএস-এর অর্থের উৎস কী?

জঙ্গি গোষ্ঠীটির অর্থ আয়ের অন্যতম উৎস হচ্ছে তেল এবং গ্যাস৷ এটি এখনো সিরিয়ার তেল উৎপাদনের এক তৃতীয়াংশ দখলে রেখেছে৷ আর মার্কিন নেতৃত্বাধীন বিমান হামলার অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে জঙ্গি গোষ্ঠীর এই মূল্যবান সম্পদ৷ এছাড়া কর, মুক্তিপন এবং লুট করা পুরাকীর্তি বিক্রি করেও অর্থ আয় করে এই জঙ্গি গোষ্ঠীটি৷

রাজনীতি

আইএস কোথায় কোথায় জঙ্গি হামলা চালিয়েছে?

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অসংখ্য জঙ্গি হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএস৷ চলত বছর সবচেয়ে ভয়াবহ আত্মঘাতী হামলাটি চালানো হয়েছে ইরাকের রাজধানী বাগদাদে, যেখানে দু’শোর বেশি মানুষ নিহত ও অসংখ্য মানুষ আহত হয়েছে৷ আইএস-এর নেতারা জঙ্গি গোষ্ঠীটির আদর্শে বিশ্বাসীদের এককভাবে বিভিন্নস্থানে আঘাত হানতে উৎসাহ প্রদান করে৷

রাজনীতি

অন্যান্য আর কী কৌশল ব্যবহার করে আইএস?

নিজেদের ক্ষমতার পরিধি বাড়াতে অনেক কৌশল ব্যবহার করে আইএস৷ জঙ্গি গোষ্ঠীটি ‘কালচারাল ক্লিনজিংয়ের’ নামে সিরিয়া এবং ইরাকের অনেক ঐতিহাসিক শিল্পকর্ম লুট ও ধ্বংস করেছে৷ এছাড়া সংখ্যালঘু ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলোর কয়েকহাজার মেয়েকে ক্রীতদাসী বানিয়েছে৷ গোষ্ঠীটি নিজেদের ‘প্রোপোগান্ডা’ এবং নিয়োগের কাজে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে থাকে৷

রাজনীতি

শরণার্থী হয়েছেন কতজন?

সিরিয়ায় চলমান গৃহযুদ্ধের কারণে সেদেশের প্রায় ৬০ লাখ মানুষ প্রতিবেশী লেবানন, জর্ডান এবং তুরস্কে আশ্রয় নিয়েছেন৷ অনেক সিরীয় ইউরোপেও পাড়ি জমিয়েছেন৷ এছাড়া প্রায় ৩০ লাখ ইরাকে ইরাকের মধ্যেই অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন বলে খবর৷