জার্মানির কাছ থেকে অস্ত্র চায় না সৌদি আরব

সৌদি আরবের অর্থনীতি বিষয়ক উপমন্ত্রী মোহাম্মেদ আল-তুওয়াইজরি জার্মানির ‘ডের স্পিগেল’ সাপ্তাহিককে বলেছেন, সৌদি আরব ভবিষ্যতে জার্মানির কাছ থেকে আর অস্ত্র কিনতে চাইবে না৷

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের এক দিনের সৌদি আরব সফর উপলক্ষ্যে আল-তুওয়াইজরি ‘ডের স্পিগেল’ পত্রিকাকে বলেন, ‘‘আমরা সৌদি আরবে (অস্ত্র) রপ্তানির ব্যাপারে জার্মানির নীরবতা মেনে নিই৷ আমরা তার রাজনৈতিক পটভূমি জানি৷’’

‘‘আমরা অস্ত্রশস্ত্রের জন্য নতুন অনুরোধ করে জার্মান সরকারের জন্য উত্তরোত্তর সমস্যা সৃষ্টি করতে চাই না,’’ আল-তুওয়াইজরি যোগ করেন৷ এক্ষেত্রে নীতি পরিবর্তনের কারণ হলো অস্ত্র ছাড়া অন্যান্য ক্ষেত্রে রিয়াদ বার্লিনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতর সহযোগিতা কামনা করে, বলেন আল-তুওয়াজরি৷ রিয়াদ জার্মানিকে তাদের ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক সহযোগীদের’ মধ্যে রাখতে চায়৷ ‘‘অস্ত্র কেনাবেচা নিয়ে তর্কাতর্কির চেয়ে জার্মানির সঙ্গে সম্পর্ক আমাদের কাছে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ,’’ বলেও জানান আল-তুওয়াইজরি৷

০১. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অস্ত্র রপ্তানি করা দেশটি হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ গত পাঁচ বছরে বিক্রি হওয়ায় অস্ত্রের ৩৩ শতাংশ সরবরাহ করেছে সেদেশ৷ গত কয়েক বছরে দেশটির অস্ত্র বিক্রির পরিমাণ বেড়েছে৷ সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং তুরস্ক এ সব অস্ত্রের মূল ক্রেতা৷

০২. রাশিয়া

বিশ্বের অপর পরাশক্তি রাশিয়ার দখলে আছে আন্তর্জাতিক অস্ত্র বাজারের ২৫ শতাংশ৷ দেশটিতে উৎপাদিত অস্ত্রের মূল ক্রেতা ভারত৷ চীন এবং ভিয়েতনামও রাশিয়ার কাছ থেকে অস্ত্র কিনছে নিয়মিত৷

০৩. চীন

পরিমাণের দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার কাছাকাছি না হলেও তিন নম্বরে অবস্থান করছে চীন৷ বিশ্বের অস্ত্র বাজারের ৫ দশমিক নয় শতাংশ তাদের দখলে৷ ক্রেতা পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং মিয়ানমার৷

০৪. ফ্রান্স

চীনের পরেই ফ্রান্সের অবস্থান, গত কয়েক বছরে বিক্রি হওয়া অস্ত্রের ৫ দশমিক ছয় শতাংশ তৈরি করেছে সেদেশে৷ তবে লক্ষণীয় হলো, ফ্রান্সের অস্ত্র রপ্তানির পরিমান আগের চেয়ে কিছুটা কমেছে৷ মূলত মরক্কো, চীন এবং মিশর সেদেশ থেকে অস্ত্র আমদানি করে৷

০৫. জার্মানি

জার্মানির অস্ত্র রপ্তানির পরিমাণ সিপ্রির হিসেবে গত দশকের তুলনায় অনেক কমেছে৷ বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারের ৪ দশমিক সাত শতাংশ তাদের দখলে আছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইসরায়েল এবং গ্রিস জার্মানির মূল ক্রেতা৷

০৬. যুক্তরাজ্য

অস্ত্র বিক্রির বাজারে যুক্তরাজ্যের অবস্থান ষষ্ঠ, সংখ্যার হিসেবে ৪ দশকিম পাঁচ শতাংশ৷ মূলত সৌদি আরব, ভারত এবং ইন্দোনেশিয়া যুক্তরাজ্য থেকে অস্ত্র আমদানি করে৷

০৭. স্পেন

স্পেনের দখলে আছে অস্ত্র বাণিজ্যের ৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ৷ অস্ট্রেলিয়া, সৌদি আরব এবং তুরস্ক অস্ত্র আমদানি করে স্পেন থেকে৷

বিতর্কিত, কিন্তু লাভজনক

সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রির বিষয়টি জার্মানিতে বহু বছর ধরে বিতর্কিত৷ বিশেষ করে সৌদি আরবের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে জার্মানিতে প্রায়ই সমালোচনা শোনা যায়৷ অন্যান্য প্রসঙ্গ ছাড়াও, ইয়েমেনের দীর্ঘমেয়াদি যুদ্ধে সৌদি আরবের ভূমিকাও জার্মানিতে বিশেষভাবে সমালোচিত৷ এর পিছনে রয়েছে এসব ক্ষেত্রে জার্মানি থেকে কেনা অস্ত্রের অপব্যবহারের আশঙ্কা৷

প্রাথমিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৬ সালে জার্মানি সৌদি আরবে ৫০ কোটি ইউরোর বেশি মূল্যের অস্ত্রশস্ত্র রপ্তানি করেছে৷

সামরিক ও পুলিশ প্রশিক্ষণ

ম্যার্কেলের সঙ্গে এবার যে বাণিজ্যিক প্রতিনিধিদল গিয়েছে, তাতে কোনো জার্মান অস্ত্রনির্মাতার প্রতিনিধিরা ছিলেন না, যদিও ইতিপূর্বে জার্মান সরকার বলেছে যে, ‘কেস-বাই-কেস’ ভিত্তিতে এখনও সৌদি আরবকে অস্ত্র সরবরাহ করা যেতে পারে৷

ইয়েমেনে সৌদি সামরিক পদক্ষেপ সম্পর্কে সব দ্বিধা সত্ত্বেও ম্যার্কেলের সর্বশেষ সৌদি আরব সফরে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে৷ সেই চুক্তি অনুযায়ী সৌদি সৈন্যরা জার্মান সেনাবাহিনীর বিভিন্ন কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ পাবে৷

এছাড়া পুলিশ প্রশিক্ষণের ক্ষেত্রে সহযোগিতা নিয়ে দু’পক্ষের একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়৷  পরিকল্পনা অনুযায়ী, জার্মান ফেডারাল পুলিশ সৌদি সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেবে৷

টিমোথি জোন্স/এসি

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র রপ্তানি শতকরা ২৩ ভাগ বেড়েছে৷তাদের রপ্তানির জন্য তৈরি করা অস্ত্রের শতকরা ৪৩ ভাগ যায় এশিয়া-ওশেনিয়া অঞ্চলে, মধ্যপ্রাচ্যে যায় ৩২ শতাংশ৷ বিশ্বের মোট ৯৪টি দেশ যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে অস্ত্র কেনে৷ যুদ্ধ বিমান, হেলিকপ্টার গানশিপ, ট্যাংক ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র এবং রকেট বিক্রি করে যুক্তরাষ্ট্র৷

রাশিয়া

রাশিয়া থেকে অস্ত্র কেনে ৫৬টি দেশ৷ বিশ্ব অস্ত্র বাজারের শতকরা ২৭ ভাগ রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে৷ রাশিয়ার বেশির ভাগ অস্ত্রের ক্রেতা ভারত, চীন আর আলজেরিয়া৷ এই তিন দেশেই প্রায় ৬০ ভাগ অস্ত্র রপ্তানি করে রাশিয়া৷ রুশ অস্ত্র এবং সমর সরঞ্জামের মধ্যে যুদ্ধবিমান, ট্যাংক, নিউক্লিয়ার সাবমেরিন এবং অ্যাসল্ট রাইফেলের চাহিদাই বেশি৷

চীন

চীনের কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি অস্ত্র ক্রয় করে পাকিস্তান (৪১ ভাগ), বাংলাদেশ (১৬ ভাগ) এবং মিয়ানমার (১২ ভাগ)৷ গত ১০ বছরে চীনের অস্ত্র রপ্তানি ১৪৩ ভাগ বেড়েছে৷

জার্মানি

জার্মানি যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া আর চীনের অস্ত্র রপ্তানি যখন বাড়ছে, তখন জার্মানির বিপরীত অবস্থা৷ গত ১০ বছরে দেশটির শতকরা ৪৩ ভাগ অস্ত্র রপ্তানি কমেছে৷ তারপরও অন্তত ৫৫টি দেশ অস্ত্র কেনে ইউরোপের এই দেশটি থেকে৷

ফ্রান্স

জার্মানির মতো ফ্রান্সেরও অস্ত্র রপ্তানি কমেছে৷ গত ১০ বছরে শতকরা ২৭ ভাগ রপ্তানি কমেছে তাদের৷ ফ্রান্সের সবচেয়ে বড় ক্রেতা মরক্কো, চীন এবং সংযুক্ত আরব আমীরাত৷

ব্রি্টেন

ব্রিটেনের অস্ত্র ব্যবসা বলতে গেলে সৌদি আরবের জন্যই টিকে আছে৷ মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি ব্রিটেনের মোট ৪১ ভাগ অস্ত্র কেনে৷

স্পেন

বিশ্বমন্দার কারণে দেশে অর্থনীতির হাল এখন যেমনই হোক, বিশ্বের সবচেয়ে বড় অস্ত্র রপ্তানিকারক দেশগুলোর তালিকায় স্পেনও আছে৷ স্পেনের সবচেয়ে বড় ক্রেতা অস্ট্রেলিয়া৷