জার্মানির প্রথম ‘ফেয়ারট্রেড-ইউনিভার্সিটি’ – সারব্রুকেন

‘ফেয়ারট্রেড’ বা ন্যায্য বাণিজ্যের ব্যাপারে জার্মানির সারব্রুকেন ইউনিভার্সিটি অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছে৷ এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির ক্যান্টিনে পাওয়া যাচ্ছে ‘ফেয়ারট্রেড কফি’৷ আর সেমিনারে আলোচনা করা হচ্ছে ন্যায্য বাণিজ্য নিয়ে৷

সারব্রুকেন বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়নশীল দেশের ক্ষুদ্র চাষিদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছে৷ এ কারণে ‘ফেয়ারট্রেড ইউনিভার্সিটি' হিসাবে পরিচিতি পাওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেছে প্রতিষ্ঠানটি৷

আইভরি কোস্ট থেকে আসা ডিসায়ার বালো বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একটি ‘ফেয়ারট্রেড চকলেটের স্ট্যান্ড' সাজিয়েছেন৷ বালোর পরিবার দুই প্রজন্ম ধরে কোকো বাগানে কাজ করছেন৷ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ২৫০টি চকলেটের বার রয়েছে তাঁর স্ট্যান্ডে৷ মাঝে মাঝে অবশ্য তাঁকে লক্ষ্য রাখতে হচ্ছে সূর্যের তাপ যেন সেগুলিকে গলিয়ে না দেয়৷

সারব্রুকেন বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেয়ারট্রেড পণ্য

প্রায়ই তিনি সারব্রুকেন ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাসে তাঁর পসরা সাজিয়ে বসেন৷ বছর দশেক আগে, ছাত্র থাকাকালীনই বালো শুরু করেন উদ্যোগটি৷ তবে এখন কাজ করছেন অবৈতনিকভাবে৷

বালো বলেন, ‘‘আমি এখানে মানুষজনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে আসি এখানে৷ আফ্রিকার ক্ষুদ্রচাষিদের অবস্থা বর্ণনা করে সে সম্পর্কে মানুষের মনে সচেতনতা জাগিয়ে তুলতে চাই৷''

ক্ষুদ্রচাষিদের বিশেষ উদ্যোগ

কাগিল ও নেসলে-র মতো বিশাল প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার জন্য চাষিরা বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছেন আইভরি কোস্টে৷ আশেপাশের ক্ষুদ্র চাষিরা একত্রিত হয়ে গড়ে তুলেছেন ‘ফেয়ারট্রেড গ্রুপ'৷ তাঁদের পণ্য উত্তরের ধনী দেশগুলিতে স্থিতিশীল ও ন্যায্য মূল্যে বিক্রি করেন তাঁরা৷ এ জন্য পরিবেশবান্ধব উৎপাদন ও শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি দেন চাষিরা৷ ফলে আইভরি কোস্টে বেশ কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে, বলেন ডিসায়ার বালো৷ যেমন নির্মাণ করা হয়েছে হাসপাতাল ও স্কুল৷

‘ফেয়ারট্রেড চকলেটের স্ট্যান্ড'

বালো এখন জার্মানিতে ন্যায্য বাণিজ্যকে শক্তিশালী করতে চান৷ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এই সব পণ্যকে পরিচিত করাতে চান৷

দশ বছর ধরে প্রকল্পটি চলছে

অবশ্য তিনি একা নন, দশ বছর ধরে সারল্যান্ডের ইউনিভার্সিটিতে ‘আক্সিয়নব্যুন্ডনিস ফেয়ার উনি সার' প্রকল্পটি চলছে৷ সারব্রুকেন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের সবখানেই ন্যায্য মূল্যের পণ্য বিক্রি হয়৷ বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও প্রজেক্টের মাধ্যমে ‘ফেয়ারট্রেড'-এর ব্যাপারে তথ্য জানানো হয়৷ এ ব্যাপারে বিশেষ তত্পরতার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টিকে সম্মাননা দেওয়া হয়েছে৷ এটা জার্মানির প্রথম ইউনিভার্সিটি, যেটি ‘ফেয়ার ট্রেড ইউনিভার্সিটি' হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছে৷

এই পুরস্কার দেওয়া হয় ‘ট্রান্সফেয়ার' প্রতিষ্ঠানটি থেকে৷ এটা ‘ফেয়ারট্রেড ফাউন্ডেশন'-এর জার্মান শাখা৷

জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচারণা চালানোর ফলে সংগঠনটি আরো অনুকরণকারী পাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ আইডিয়াটা এসেছে ব্রিটেন থেকে৷ সেখানে ৭০টিরও বেশি ‘ফেয়ারট্রেড ইউনিভার্সিটি' রয়েছে৷ সামাজিক দায়িত্ববোধের ব্যাপারে এ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আদর্শ হতে পারে৷ বলেন ‘ট্রান্সফেয়ার'-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডিটার ওভারাথ৷ ইনিই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেন৷

‘‘নিখুঁত ফেয়ারট্রেড ইউনিভার্সিটি বলতে আমি বুঝি, যেখানে সব ফ্যাকাল্টির ক্লাসগুলিতে ফেয়ারট্রেড ও বিশ্বায়ন সম্পর্কে আলোচনা হয়'', বলেন ওভারাথ৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

অনিশ্চয়তা

নতুন সেমিস্টার শুরু হয়েছে, কিন্তু হোস্টেলগুলোতে জায়গা নেই৷ এখন শিক্ষার্থীরা কি করবে? মাথা গোঁজার একটা ঠাঁই তো চাই! একটা ব্যবস্থা তো করতেই হবে! মিউনিখ এবং ফ্রাংকফুর্ট সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর৷ বাভারিয়া রাজ্য একটি ঘর ভাড়া গড়ে ৪৯৩ ইউরো আর ফ্রাংকফুর্টে ৪২১ ইউরো৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

মায়ের কাছে থাকা

শতকরা ২৭ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনার সময় মায়ের কাছেই থাকে৷ এতে করে শুধু যে খরচ কম হয় তা নয়, মায়ের কাছে থাকার আরামই আলাদা৷ কাপড়চোপড় সবসময় ধোঁয়া থাকে আর ফ্রিজ থাকে ভর্তি, অর্থাৎ খাওয়া-দাওয়ার চিন্তা নেই৷ তাছাড়া সন্তান যত বড়ই হোক না কেন বাবা-মায়ের কাছে তারা সবসময়ই আদরের৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

জরুরি অবস্থায় জিমে থাকা

প্রথম সেমিস্টারে প্রায় সমস্যা হয় বড় শহরগুলোতে, বিশেষ করে মিউনিখ, কোলোন বা ফ্রাংকফুর্টে৷ এত ভাড়া দিয়ে অনেকের পক্ষেই বাসা নেওয়া সম্ভব হয় না, তাই অনেক সময় ক্যাম্পাসের জিমে একটি ম্যাট্রেস পেতেই রাতে ঘুমোতে হয়৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

হোস্টেলে জায়গা পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার!

শতকরা মাত্র ১২ জন ছাত্র হোস্টেলে জায়গা পেয়ে থাকে৷ বেশিরভাগ সময় সেখানে দুই তিনজনকে একসাথে থাকতে হয়৷ কোলোনের একটি ছাত্রদের হোস্টেলের ভাড়া ২৩০ ইউরো৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

থাকার জন্য কন্টেনার

৮০’র দশক থেকেই অনেক ছাত্র কন্টেনার-এ থাকা শুরু করে৷ কন্টেনার ঘরগুলো খুবই ছোট ছোট৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে থাকা

কোনো কোনো মালিক তাঁদের ফ্যাক্টরি, হাসপাতাল বা স্কুলের ঘরগুলো একেবারে খালি রাখতে চান না৷ তাই অনেক সময় ছাত্রদের নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে সেখানে থাকতে দেন৷ তবে সেখানে কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হয়৷ যেমন ধূমপান করা, কুকুর-বেড়াল পোষা বা কোনো ধরনের পার্টি করার অনুমতি থাকেনা সেখানে৷

জার্মানিতে শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন

বিদায় বাড়ি !

তবে সব শিক্ষার্থী কিন্তু বাবা-মায়ের সাথে থাকতে পারেনা কারণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রায়ই থাকে বাড়ি থেকে অনেক দূরে৷ অর্থাৎ মায়ের হোটেল থেকে এবার বিদায়ের পালা!

এক্ষেত্রে সারব্রুকেনকে আরো দৃশ্যমান হতে হবে – কিছুটা সমালোচনার সুরেই বলেন তিনি৷

কম মূল্যের পণ্যের দিকেই হাত

কেননা অন্যান্য জার্মান ইউনিভার্সিটির মতো সারব্রুকেন ইউনিভার্সিটিতেও শিক্ষার্থীরা ‘ফেয়ারট্রেড'-এর চেয়ে ৩০ সেন্ট কম দামের সাধারণ চকলেটের দিকেই হাত বাড়ায়৷ অবশ্য অন্যদিকে ক্যান্টিন বা মেনসায় বছরে ৩০ থেকে ৪০ টন ন্যায্য বাণিজ্যে কেনা চাল রান্না করা হয়৷ কফি মেশিনে বানানো হয় ‘ফেয়ারট্রেড কফি', এমনকি কলাও আসে ‘ফেয়ারট্রেড' বাগান থেকে৷ খাদ্যদ্রব্য অর্ডার দেওয়ার ক্ষেত্রে এই দিকটায় বিশেষ লক্ষ্য রাখেন কিচেন প্রধান টোমাস হাব৷

এছাড়া এই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও কর্মীদের কাছে নিখরচায় ‘ফেয়ারট্রেড' পণ্যের ডেলিভারি সার্ভিসের ব্যবস্থা করেছে৷ ‘‘আমাদের কাছে ন্যায্য বাণিজ্য থেকে আসা পণ্যের একটি তালিকা রয়েছে৷ এ থেকে কিছু কিনতে চাইলে আগ্রহীরা অতি সহজেই ই-মেলের মাধ্যমে আমাদের কাছে জানাতে পারেন৷ আমরা সেই জিনিসগুলির অর্ডার দিয়ে থাকি৷'' মাদাগাস্কার থেকে আসা ছাত্রী নিরিনা আন্দ্রিয়ামাহাজো-র কথা এগুলো৷

‘‘চাহিদাটা অবশ্য এখনও উচ্ছ্বসিত হওয়ার মতো নয়৷ সপ্তাহে গড়ে পাঁচ প্যাকেট কফি আগ্রহীদের কাছে পৌঁছে দেই আমরা'', জানান নিরিনা৷ তবে মানুষের আগ্রহটা যাতে বৃদ্ধি পায়, সে ব্যাপারে চেষ্টা করে যাচ্ছেন তিনি৷ বছর তিনেক আগে ‘ইয়াং ফেয়ারট্রেড অ্যামব্যাসাডর' হিসাবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন নিরিনা৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

৫০ জন সেরা শিক্ষার্থী

জার্মানির মিউনিখ শহরের কেন্দ্রস্থলে বাভেরিয়ার রাজ্যসভা ভবনে ৫০ জন সেরা শিক্ষার্থী বিলাসবহুল জীবনযাত্রার সুযোগ পাচ্ছেন৷ এঁদের মধ্যে এই দু’জন ভাগ্যবান শিক্ষার্থীও রয়েছেন৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বিশাল প্রাসাদ

বিশাল প্রাসাদের লোহার গেট দিয়ে ঢুকছেন কালো ব্রিফকেস বগলে নিয়ে স্যুট পরা কোনো এক রাজনীতিবিদ৷ তাঁর গাড়ির পাশেই সাইকেল দাঁড় করিয়ে মাথায় বেসবল ক্যাপ পরে কোনো একজন ছাত্র প্রাসাদের ঐ একই গেট দিয়ে ঢুকছেন নিজের থাকার ঘরে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

রাজকীয় ব্যাপার

প্রাসাদের ঝকঝকে মেঝেতে লাল কার্পেট, দেয়ালে সব বড় বড় পেইনটিং আর লম্বা করিডোর পেরিয়ে ছাত্রদের যেতে হয় নিজেদের ঘরে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন

১৮৫২ সালে বাভেরিয়ার দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন ছাত্রদের জন্য একটি ফাউন্ডেশন গঠন করেন৷ তাঁর লক্ষ্য ছিল মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার সুযোগ করে দেওয়া৷ ছাত্ররা বাবা-মায়ের আর্থিক সাহায্য ছাড়া এবং পড়াশোনার পাশাপাশি টাকা রোজগারের কোনো চিন্তা না করে পুরো মনোযোগ যেন লেখাপড়ায় খরচ করতে পারে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

‘এক্সক্লুসিভ’ ছাত্রদের হোস্টেল

এই লক্ষ্য নিয়েই দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন সেরা ছাত্রদের জন্য এই বৃত্তির সুযোগ করে দেন৷ এটা জার্মানির ‘এক্সক্লুসিভ’ ছাত্রদের হোস্টেল৷ ছাত্র আন্দ্রেয়াস বলেন, ‘‘কারো প্রতিভা থাকলে এখানে তারা তাদের সে চাহিদা পূরণের সুযোগ পায়৷’’

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বৃত্তি পাওয়ার প্রধান শর্ত

সংসদ সদস্যদের পাশে থেকে নিজেদের যোগ্য মানুষ হিসেবে তৈরি করার সুযোগ পাওয়ার জন্য এই ছাত্রাবাসে থাকার সুযোগ পাওয়া একেবারে সহজ ব্যাপার নয়৷ ‘‘এখানে বৃত্তি পাওয়ার প্রধান শর্ত, আবিট্যুর, অর্থাৎ স্কুল ফাইনালের ফলাফল হতে হবে ১,০ গ্রেড এবং নিজ স্কুল থেকে সুপারিশ করা চিঠি৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

চেয়ারম্যান হান্সপেটার বাইসার

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের কাছেও ছাত্রদের প্রমাণ করতে হয় যে, তাঁরা শুধু স্কুলে মেধাবী ছাত্রই নন, তাঁরা অন্য ছাত্রদের চেয়ে ব্যক্তিত্ব সম্পন্নও৷ এছাড়া, থাকতে হবে সামাজিক সচেতনতাবোধ এবং বিভিন্ন কর্মতৎপরতায় নিয়োজিত করার মানসিকতা’, বলেন এই ছাত্রাবাস কমিটির সম্মানিক চেয়ারম্যান হান্সপেটার বাইসার৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বিশাল ডাইনিং হল

হান্সপেটার বাইসার নিজেও একসময় এই বৃত্তি পেয়ে এই হোস্টেলেই ছিলেন৷ তিনি প্রতিদিন ঠিক দুপুর একটায় প্রাসাদের বিশাল ডাইনিং হলে বসার পর, ছাত্ররা যাঁর যাঁর আসন নেন৷ সবাইকে যে প্রতিদিন খাবার টেবিলে হাজির হতে হবে, তেমন ধরাবাঁধা নিয়ম নেই৷ প্রতিবছরই কয়েকজন করে নতুন ছাত্রকে এই বিশেষ ছাত্রাবাসে থাকার জন্য বৃত্তির সুযোগ দেওয়া হয়৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

লোভনীয় লাইব্রেরি

ছাত্রী ইভা মনে করেন, ছাত্রাবস্থায় এমন রাজকীয়ভাবে থাকা খাওয়া বা জীবনযাপন অনেকের কাছেই স্বপ্নের মতো৷ তিনি আরো বলেন, পরীক্ষার আগে বেশিরভাগ সময়ই লাইব্রেরিতে কাটে, এখানেই অন্যদের সাথে আলোচনা হয়৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

মিউনিখের ম্যাক্সমিলেনিউম স্ট্রিট

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব যেমন ফ্রান্স ইয়োসেফ স্ট্রাউস, যিনি দীর্ঘদিন বাভারিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তিনি এবং পদার্থবিদ্যায় নোবেল বিজয়ী ভ্যার্নার হাইসেনব্যার্গ-ও এই বিশেষ ধরণের বৃত্তি পেয়ে ছাত্রাবস্থায় এই বিলাসবহুল হোস্টেলে থাকতেন৷

ন্যায্যবাণিজ্য সংক্রান্ত প্রচারণা

এই বার্তাবাহকরা শুধু ন্যায্য-পণ্যের স্ট্যান্ড নিয়েই ব্যস্ত থাকেন না, ক্যাম্পাসে এ সংক্রান্ত নানা ধরনের অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করে থাকেন৷ বিলি করেন প্রচারপত্র৷ ‘‘ন্যায্য বাণিজ্যে সম্পৃক্ত হওয়াটা আমার কাছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ৷ কেননা আমি জানি দক্ষিণের দেশগুলিতে ক্ষুদ্র চাষিদের জীবনটা কেমন৷'' জোর দিয়ে বলেন নিরিনা৷ মাদাকাস্কার একটি দরিদ্র দেশ, যেখানে ছেলে-মেয়েদের কৃষিখেতে মা-বাবাকে সাহায্য করতে হয়৷ সম্ভব হয় না স্কুলে যাওয়া৷

এ সমস্যাটা ডিসায়ার বালো-র দেশেও রয়েছে৷ সেখানেও পরিবারের সবাইকে কাজ করতে হয় ক্ষেতে৷ নগণ্য দামে বড় বড় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করতে হয় ফসল৷ ‘‘ইউরোপ যদি ন্যায্য বাণিজ্যের পণ্যের ব্যাপারে আরো উত্সাহ দেখাতো, তা হলে বিশাল প্রতিষ্ঠানগুলি তাদের আচরণ পরিবর্তনের ব্যাপারেও চিন্তা-ভাবনা করতো৷'' আশা করেন বালো৷

‘ফেয়ারট্রেড' পদ্ধতির মাধ্যমে এ পর্যন্ত ল্যাটিন অ্যামেরিকা, আফ্রিকা ও এশিয়ার ১.২ মিলিয়ন মানুষকে সাহায্য করা হয়েছে৷

আমাদের অনুসরণ করুন