জার্মানি থেকে চলে যাচ্ছেন মেধাবীরা

বহু শীর্ষ গবেষক ও বিজ্ঞানী জার্মানিকে বিদায় জানাচ্ছেন৷ গবেষণা ও আবিষ্কার সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ কমিশন বা ইএফআই-এর নতুন রিপোর্টে এই তথ্য জানা গিয়েছে৷ যা গবেষণা অঙ্গনে রীতিমত অসন্তোষ ও বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছে৷

এটা কোনো অজানা বিষয় নয় যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য গবেষকদের জন্য আকর্ষণীয় দেশ৷ সেসব দেশে সুযোগ-সুবিধা ও ক্যারিয়ারের সম্ভাবনা চমত্কার, বেতন ভাল৷ এছাড়া সব কিছুই মানানসই৷ আমলাতান্ত্রিক জটিলতা কম৷

সমাজ সংস্কৃতি | 10.02.2014

ব্রেইন ড্রেইন' হচ্ছে

অনেক গবেষক বিদেশে চলে যাওয়ার ফলে এক ধরনের ‘ব্রেইন ড্রেইন' দেখা দিচ্ছে জার্মানিতে৷ গবেষণার জন্য কিছুদিন অন্যদেশে অভিজ্ঞতা অর্জন করা গুরুত্বপূর্ণ৷ কিন্তু অনেকেই তারপর আর ফিরে আসেন না৷

গত ২০ বছরে জার্মান নোবেল বিজয়ীদের মধ্যে অনেকেই বিদেশে বিশেষ করে অ্যামেরিকার হার্ভার্ড, ইয়েল, স্ট্যানফোর্ড কিংবা কলোম্বিয়া ইউনিভার্সিতে কাজ করছেন৷ এশিয়া ও ল্যাটিন অ্যামেরিকার শীর্ষ গবেষকরা শুধু ভাষায় কারণেই জার্মানির চেয়ে ইংরেজি ভাষাভাষী দেশগুলিকে প্রাধান্য দেন৷

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা | 11.03.2014

জার্মানির ১১টি ইউনিভার্সিটিকে এলিট ইউনিভার্সিটি আখ্যা দেওয়া হয়েছে

জার্মানিতে আসছেন কম

ইএফআই-এর নতুন রিপোর্টে বলা হয়েছে : জার্মানির সেরা গবেষকদের অনেকেই দেশ ছাড়ছেন, কিন্তু জার্মানিতে আসছেন সেই তুলনায় কম৷

বিষয়টি নতুন নয়, কিন্তু একেবারে সঠিকও নয়৷ ইএফআই-এর তথ্যমতে ১৯৯৬ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত প্রায় ২৩ হাজার গবেষক জার্মানি ছাড়েন, জার্মানিতে আসেন ১৯,০০০৷

সংখ্যাটা সঠিক হলেও হালনাগাদ করা হয়নি বলেন ‘হেল্মহল্জ অ্যাসোসিয়েশন অফ জার্মান রিসার্চ সেন্টার'-এর প্রেসিডেন্ট ইউর্গেন মিনেক৷ তাঁর মতে, গত ১০ বছরে জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়গুলি এক্ষেত্রে শক্ত একটা ভিত তৈরি করেছে৷ গবেষণার অনেক ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয়দের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারছে তারা৷

আকর্ষণীয় করার উদ্যোগ

গত বছরগুলিতে জার্মানিকে দেশি-বিদেশি গবেষকদের জন্য আকর্ষণীয় করার জন্য বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

৫০ জন সেরা শিক্ষার্থী

জার্মানির মিউনিখ শহরের কেন্দ্রস্থলে বাভেরিয়ার রাজ্যসভা ভবনে ৫০ জন সেরা শিক্ষার্থী বিলাসবহুল জীবনযাত্রার সুযোগ পাচ্ছেন৷ এঁদের মধ্যে এই দু’জন ভাগ্যবান শিক্ষার্থীও রয়েছেন৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বিশাল প্রাসাদ

বিশাল প্রাসাদের লোহার গেট দিয়ে ঢুকছেন কালো ব্রিফকেস বগলে নিয়ে স্যুট পরা কোনো এক রাজনীতিবিদ৷ তাঁর গাড়ির পাশেই সাইকেল দাঁড় করিয়ে মাথায় বেসবল ক্যাপ পরে কোনো একজন ছাত্র প্রাসাদের ঐ একই গেট দিয়ে ঢুকছেন নিজের থাকার ঘরে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

রাজকীয় ব্যাপার

প্রাসাদের ঝকঝকে মেঝেতে লাল কার্পেট, দেয়ালে সব বড় বড় পেইনটিং আর লম্বা করিডোর পেরিয়ে ছাত্রদের যেতে হয় নিজেদের ঘরে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন

১৮৫২ সালে বাভেরিয়ার দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন ছাত্রদের জন্য একটি ফাউন্ডেশন গঠন করেন৷ তাঁর লক্ষ্য ছিল মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার সুযোগ করে দেওয়া৷ ছাত্ররা বাবা-মায়ের আর্থিক সাহায্য ছাড়া এবং পড়াশোনার পাশাপাশি টাকা রোজগারের কোনো চিন্তা না করে পুরো মনোযোগ যেন লেখাপড়ায় খরচ করতে পারে৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

‘এক্সক্লুসিভ’ ছাত্রদের হোস্টেল

এই লক্ষ্য নিয়েই দ্বিতীয় রাজা মাক্সিমিলিয়ন সেরা ছাত্রদের জন্য এই বৃত্তির সুযোগ করে দেন৷ এটা জার্মানির ‘এক্সক্লুসিভ’ ছাত্রদের হোস্টেল৷ ছাত্র আন্দ্রেয়াস বলেন, ‘‘কারো প্রতিভা থাকলে এখানে তারা তাদের সে চাহিদা পূরণের সুযোগ পায়৷’’

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বৃত্তি পাওয়ার প্রধান শর্ত

সংসদ সদস্যদের পাশে থেকে নিজেদের যোগ্য মানুষ হিসেবে তৈরি করার সুযোগ পাওয়ার জন্য এই ছাত্রাবাসে থাকার সুযোগ পাওয়া একেবারে সহজ ব্যাপার নয়৷ ‘‘এখানে বৃত্তি পাওয়ার প্রধান শর্ত, আবিট্যুর, অর্থাৎ স্কুল ফাইনালের ফলাফল হতে হবে ১,০ গ্রেড এবং নিজ স্কুল থেকে সুপারিশ করা চিঠি৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

চেয়ারম্যান হান্সপেটার বাইসার

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের কাছেও ছাত্রদের প্রমাণ করতে হয় যে, তাঁরা শুধু স্কুলে মেধাবী ছাত্রই নন, তাঁরা অন্য ছাত্রদের চেয়ে ব্যক্তিত্ব সম্পন্নও৷ এছাড়া, থাকতে হবে সামাজিক সচেতনতাবোধ এবং বিভিন্ন কর্মতৎপরতায় নিয়োজিত করার মানসিকতা’, বলেন এই ছাত্রাবাস কমিটির সম্মানিক চেয়ারম্যান হান্সপেটার বাইসার৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

বিশাল ডাইনিং হল

হান্সপেটার বাইসার নিজেও একসময় এই বৃত্তি পেয়ে এই হোস্টেলেই ছিলেন৷ তিনি প্রতিদিন ঠিক দুপুর একটায় প্রাসাদের বিশাল ডাইনিং হলে বসার পর, ছাত্ররা যাঁর যাঁর আসন নেন৷ সবাইকে যে প্রতিদিন খাবার টেবিলে হাজির হতে হবে, তেমন ধরাবাঁধা নিয়ম নেই৷ প্রতিবছরই কয়েকজন করে নতুন ছাত্রকে এই বিশেষ ছাত্রাবাসে থাকার জন্য বৃত্তির সুযোগ দেওয়া হয়৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

লোভনীয় লাইব্রেরি

ছাত্রী ইভা মনে করেন, ছাত্রাবস্থায় এমন রাজকীয়ভাবে থাকা খাওয়া বা জীবনযাপন অনেকের কাছেই স্বপ্নের মতো৷ তিনি আরো বলেন, পরীক্ষার আগে বেশিরভাগ সময়ই লাইব্রেরিতে কাটে, এখানেই অন্যদের সাথে আলোচনা হয়৷

সেরা শিক্ষার্থীদের রাজ্যসভা ভবনে থাকার সুযোগ

মিউনিখের ম্যাক্সমিলেনিউম স্ট্রিট

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব যেমন ফ্রান্স ইয়োসেফ স্ট্রাউস, যিনি দীর্ঘদিন বাভারিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন, তিনি এবং পদার্থবিদ্যায় নোবেল বিজয়ী ভ্যার্নার হাইসেনব্যার্গ-ও এই বিশেষ ধরণের বৃত্তি পেয়ে ছাত্রাবস্থায় এই বিলাসবহুল হোস্টেলে থাকতেন৷

১১টি ইউনিভার্সিটিকে এলিট ইউনিভার্সিটি আখ্যা দেওয়া হয়েছে৷ এই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য মিলিয়ন অঙ্কের অতিরিক্ত আর্থিক অনুদান নির্ধারণ করা হয়েছে৷ যাতে তারা বিজ্ঞান ও গবেষণা ক্ষেত্রে ভালোভাবে প্রস্তুতি নিতে পারে৷ এ সব কিছুই সেরা গবেষকদের বিদেশ থেকে দেশে ফিরিয়ে আনতে উৎসাহিত করবে৷

জার্মানির শিক্ষা গবেষণা মন্ত্রী ইওহানা ভাংকা বলেন, এই সব উদ্যোগের ফলে দেখা যাচ্ছে জার্মানি সারা বিশ্বের গবেষক, বিশেষজ্ঞ ও শিক্ষার্থীদের জন্য আকর্ষণীয় হয়ে উঠছে৷ এমনকি নোবেল প্রাইজ বিজয়ীরাও ফিরে আসার অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন৷ যেমন ২০১৩ সালে চিকিৎসায় নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী টোমাস স্যুডহোফ স্বাস্থ্য গবেষণা ইন্সটিটিউটে গবেষণা করার জন্য বার্লিনে আসবেন বলে জানিয়েছেন৷ এতদিন কালিফোর্নিয়ার স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে কাজ করেছেন তিনি৷

অনেক কিছু করতে হবে

তবুও এক্ষেত্রে আরো অনেক কিছু করতে হবে৷ গবেষণা ও শিক্ষায় আরো বেশি অর্থ বিনিয়োগ করা হলেও এবং কয়েকটি ইউনিভার্সিটিকে ‘এলিট উনি' আখ্যা দেওয়া হলেও শিক্ষাঙ্গনের সেরা ব্যক্তিরা অ্যামেরিকা, গ্রেট ব্রিটেন, সুইজারল্যান্ড এমনকি ডেনমার্কেও যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন৷ সেসব দেশে ইংরেজি ভাষা চলে৷ জার্মানিতে কোনো কোনো বিষয়ে ইংরেজির প্রচলন মাত্র শুরু হয়েছে৷ এছাড়া গবেষক ও বিজ্ঞানীদের জন্য চাকরির চুক্তি প্রায় ক্ষেত্রেই তেমন আকর্ষণীয় নয় এখানে৷

ছয় মাসের চুক্তি নিয়ে কোনো গবেষক কি পরিবার নিয়ে হাইডেলব্যার্গ কিংবা হামবুর্গে আসতে আগ্রহী হবেন? এক্ষেত্রে যে আরো অনেক কিছু করার আছে৷ পাঁচ বছর পর হয়ত কিছুটা উন্নতি হবে৷ এমনই ধারণা ইএফআই-এর৷

আমাদের অনুসরণ করুন