তালিবানের চেয়ে সাধারণ মানুষই বেশি মারছে সরকারি বাহিনী, ন্যাটো

আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী ও ন্যাটোর অভিযানে তালিবানসহ অন্যান্য জঙ্গিগোষ্ঠীর সদস্যদের চেয়ে সাধারণ মানুষই বেশি মারা যাচ্ছে৷ জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে৷

এতে বলা হয়, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে আফগান বাহিনী ও সেখানে দায়িত্বরত ন্যাটো সেনাদের হামলায় জঙ্গিগোষ্ঠীর সদস্যদের চেয়ে সাধারণ মানুষের নিহত হওয়ার সংখ্যা বেশি৷

তবে এ ধরনের ঘটনা এবছরই প্রথম ঘটেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷

প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের প্রথম তিনমাসে দেশটিতে নিয়োজিত নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে মোট ৩০৫ জন সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছে৷ এই সময়ে নিহত  তালিবানের সংখ্যা ছিল ২২৭ জন৷

জাতিসংঘের প্রতিবেদনে নিরাপত্তা বাহিনীর বিমান হামলাকে সাধারণ মানুষের নিহত হওয়ার অন্যতম কারণ বলে দায়ী করা হয়েছে৷ নিহতদের অর্ধেকই নারী ও শিশু বলে জানিয়েছে সংস্থাটি৷

সমাজ-সংস্কৃতি | 16.02.2018

তবে দেশটিতে নিরাপত্তা বাহিনীর হামলায় হতাহতের সংখ্যা অনেক কমে এসেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ প্রতিবেদন বলছে, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে নিরাপত্তার বাহিনীর হামলায় নিহত হয়েছেন মোট পাঁচশ ৮১ জন, আর আহত হয়েছেন এক হাজার ১৯২ জন৷ এ সংখ্যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২৩ ভাগ কম বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

গ্রেনেড হামলা

২৪ জানুয়ারি সকালে জালালাবাদে ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’-এর দপ্তরে প্রথমে গ্রেনেড হামলা করে জঙ্গিরা৷ সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় আফগান নিরাপত্তারক্ষীরা৷ শুরু হয় গুলি বিনিময়৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

তুমুল গুলি বিনিময়

গ্রেনেড বিস্ফোরণের কিছুক্ষণের মধ্যেই এলাকা ঘিরে ফেলে আফগান পুলিশ৷ দপ্তরের পাঁচিলের একপাশে তখন পুলিশ, অন্য ধারে জঙ্গিরা৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

আগুন-ধোঁয়া

গ্রেনেড হামলায় আগুন লেগে যায় ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’-এর দপ্তরে৷ আগুন ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশেও৷ বেশ কিছু গাড়ি জ্বলতে দেখা যায়৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

উদ্ধারকাজ

গ্রেনেড হামলার সময় দপ্তরে ছিলেন সেখানকার কর্মীরা৷ ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই নিরাপত্তারক্ষীরা একে একে ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’-এর কর্মীদের উদ্ধার করতে শুরু করেন৷ আতঙ্কগ্রস্ত কর্মীদের বেরিয়ে আসতে দেখা যায়৷ অন্যদিকে তখন গুলি বিনিময় চলছে৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

সামরিক ট্যাংক

লুকিয়ে থাকা জঙ্গিদের সঙ্গে লড়াই করতে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় সামরিক ট্যাংক৷ প্রায় বিকেল পর্যন্ত লড়াই চলার পর স্থানীয় গভর্নরের অফিস থেকে জানানো হয় যে, লড়াই শেষ হয়েছে৷

জঙ্গি হামলায় বিধ্বস্ত আফগান দপ্তর

অজানা আক্রমণকারী

বিকেলে গুলি বিনিময় বন্ধ হলেও, কোনো জঙ্গির মৃত্যু বা আটকের খবর পাওয়া যায়নি৷ আফগান তালিবান মুখপাত্র বিকেলেই জানিয়ে দেয়, ঘটনার সঙ্গে তারা জড়িত নন৷ অন্য কোনো জঙ্গি গোষ্ঠীও দায় স্বীকার করেনি৷

তবে দেশটিতে আত্মঘাতী হামলার সংখ্যা কমে আসায় গত বছরের তুলনায় এ বছর হতাহতের সংখ্যা কমেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ আত্মঘাতী হামলার সংখ্যা গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছিল ২০১৮ সালে৷ গত বছরের জানুয়ারি মাসে শুধুমাত্র একটি আত্মঘাতী হামলায় অন্তত ১০০ জন নিহত হয়েছিল৷ তবে কী কারণে এ বছর হামলার সংখ্যা কমেছে, সে বিষয়ে নিশ্চিত নয় জাতিসংঘ৷

সংস্থাটি বলছে দেশটিতে বিরাজমান বিরূপ আবহাওয়ার কারণে কিংবা  যুক্তরাষ্ট্রের সাথে তালিবানের শান্তি আলোচনা চলছে বলে সাধারণ মানুষের উপর হামলা থেকে কিছুটা বিরত রয়েছে তারা৷

তদন্ত দাবি

নিরাপত্তা বাহিনীর হামলায় সাধারণ মানুষের নিহত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের আফগানিস্তান সহযোগিতা বিষয়ক মিশন৷ তারা এসব ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তেরও দাবি জানিয়েছে৷ এক বিবৃতিতে মিশনটি আফগানিস্তানে নিয়োজিত ন্যাটো ও দেশটির নিজস্ব নিরাপত্তা বাহিনীকে এ বিষয়ে পূর্ণ তদন্ত করে যথাযথ প্রতিবেদন প্রকাশের আহ্বান জানায়৷ হতাহতদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবিও জানিয়েছে তারা৷

রিচার্ড কনর/আরআর

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আমাদের অনুসরণ করুন