পরিচয়পত্রে পেশা হিসেবে যৌনকর্মী লেখার অধিকার চান তাঁরা

যৌনকর্মীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা একটি সংগঠনের নেতা ইভান আহমেদ কথা জাতীয় পরিচয়পত্রে পেশা হিসেবে যৌনকর্মীদের স্থান দেয়ার দাবি জানিয়েছেন৷ এতে যৌনকর্মীদের ক্ষমতা বাড়বে বলে মনে করেন তিনি৷

ডয়চে ভেলের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে ‘সেক্স ওয়ার্কার্স নেটওয়ার্ক’-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ইভান আহমেদ কথা পতিতালয় উচ্ছেদ ও যৌনকর্মীদের প্রতি সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের উদাসীনতা নিয়েও মন্তব্য করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘নির্বাচনের সময় প্রার্থীরা যৌনপল্লিতে গিয়ে যৌনকর্মীদের বলেন, আপা আপনাদের আমার ভালো লাগে, আপনারা আমাকে ভোটটা দিয়েন৷’’ কিন্তু নির্বাচন শেষে দেখা যায়, যে প্রার্থী জেতেন তিনি যৌনকর্মীদের দেয়া সব অঙ্গীকার ভুলে যান৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

গত বছর যৌনকর্মীদের অধিকার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এক গণশুনানির প্রসঙ্গ উত্থাপন করে আহমেদ কথা বলেন, ‘‘সেই সময় সরকারি কর্মকর্তারা সামনাসামনি হাই, হ্যালো করেছেন ঠিকই৷ কিন্তু আসল কাজের সময় তাঁরা সবকিছু অস্পস্ট রাখেন৷’’

আহমেদ কথা জানান, ‘সেক্স ওয়ার্কার্স নেটওয়ার্ক’ হচ্ছে যৌনকর্মীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ২৯টি সংগঠনের একটি নেটওয়ার্ক৷ যৌনকর্মীরা কোনো বিপদে পড়লে প্রথম সংগঠনগুলো তা মোকাবিলার চেষ্টা করে৷ সেটা সম্ভব না হলে তখন তাদের সহায়তায় এগিয়ে আসে সেক্স ওয়ার্কার্স নেটওয়ার্ক৷

কথা বলেন, যৌনকর্মীরা যদি পরিচয়পত্রে পেশার জায়গায় ‘যৌনকর্মী’ লিখতে পারেন তাহলে নাগরিক হিসেবে তাঁদের ক্ষমতা বাড়বে৷ ফলে অধিকার আদায়ে আরেকটু শক্তিশালীভাবে দাবি জানানো যাবে বলে মনে করেন তিনি৷

ইভান আহমেদ কথা, যিনি হিজড়াদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘সচেতন শিল্পী সংঘ’-এর প্রেসিডেন্ট, তিনি বলেন, প্রভাবশালী লোকদের অনেকের চোখ রয়েছে পতিতালয়গুলোর উপর৷ তাঁরা সেখান থেকে পতিতাদের সরিয়ে দিয়ে জায়গা দখল করতে চান৷ ‘‘কেউ চান শপিং মল করতে, কেউ চান অ্যাপার্টমেন্ট গড়তে,’’ বলেন কথা৷ সেক্স ওয়ার্কার্স নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে এ সব সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করা হয় বলে জানান তিনি৷

এছাড়া যৌনকর্মীদের সন্তানদের লেখাপড়ার ব্যবস্থা করা, রাস্তাঘাটে কোনো যৌনকর্মীর সমস্যা হলে তার সাহায্যে এগিয়ে আসা, এই সব সমস্যার সমাধানও সেক্স ওয়ার্কার্স নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে করা হয়৷

ইভান আহমেদের সাক্ষাৎকারটি আপনাদের কেমন লাগলো? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

সমাজ

যেভাবে যৌনপল্লীতে আগমন

বাংলাদেশে অনেক ক্ষেত্রে প্রতারণার শিকার হয়ে যৌনপল্লীতে হাজির হন মেয়েরা৷ প্রত্যন্ত অঞ্চলের অতিদরিদ্র্য পরিবারের সদস্যরা কখনো কখনো অর্থের লোভে মেয়েদের বিক্রি করে দেন বলে জানিয়েছে একাধিক আন্তর্জাতিক বার্তাসংস্থা৷ এছাড়া ভালোবাসার ফাঁদে ফেলে কিংবা বিদেশ যাওয়ার লোভ দেখিয়েও মেয়েদের যৌনপল্লীতে আনা হয়৷

সমাজ

যৌনকর্মীদের জন্য ‘গরুর ট্যাবলেট’

ফরিদপুরের সরকার অনুমোদিত যৌনপল্লীর ছবি এটি৷ অভিযোগ রয়েছে, পল্লীর মালিক নতুন আসা যৌনকর্মীদের স্টেরয়েড ট্যাবলেট সেবনে বাধ্য করেন, যা সাধারণত গরুকে খাওয়ানো হয়৷ গরুর স্বাস্থ্য বাড়াতে ব্যবহার করা এই ট্যাবলেট মানুষের দেহের জন্য ক্ষতিকর৷

সমাজ

অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ‘ইনজেকশন’

বাংলাদেশের এক যৌনপল্লীর মালিক রোকেয়া জানান, স্টেরয়েড ওষুধ প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে ভালো কাজে দেয়৷ কিন্তু অপ্রাপ্তবয়স্ক, বিশেষ করে ১২ থেকে ১৪ বছর বয়সি মেয়েদের ক্ষেত্রে এটি কার্যকর নয়৷ অপ্রাপ্তবয়সিদের স্বাস্থ্য ভালো করতে বিশেষ ধরনের ইনজেকশন ব্যবহার করা হয় বলে জানান ৫০ বছর বয়সি রোকেয়া৷

সমাজ

অধিকাংশ যৌনকর্মী ‘স্টেরয়েড আসক্ত’

আন্তর্জাতিক উন্নয়নসংস্থা একশনএইড ইউকে এক সমীক্ষার ভিত্তিতে ২০১০ সালে জানায় যে, বাংলাদেশের প্রায় ৯০ শতাংশ যৌনকর্মী ওরাডেক্সন বা অন্যান্য স্টেরয়েড ট্যাবলেট নিয়মিত গ্রহণ করে৷ তাঁদের গড় বয়স ১৫-৩৫ বছর৷ বাংলাদেশে দু’লাখের মতো যৌনকর্মী রয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷

সমাজ

সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ

স্টেরয়েড ব্যবহারের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে প্রচারণা চালাচ্ছে একশনএইড৷ সংস্থাটির বাংলাদেশ অংশের কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার জানিয়েছেন, ‘‘ওরাডেক্সন গ্রহণ করার পর শুরুতে মেয়েদের শরীরে চর্বির পরিমাণ বাড়তে থাকে৷ কিন্তু এটি নিয়মিত সেবন করলে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, চামড়ায় ক্ষতসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়৷’’

সমাজ

এইচআইভি সংক্রমণ

বাংলাদেশে যৌনকর্মীদের মধ্যে এইচআইভি সংক্রমণ বা এইডস রোগ হওয়ার খবর মাঝে মাঝে পত্রিকায় প্রকাশ হয়৷ তবে ঠিক কতজন যৌনকর্মী এইচআইভি আক্রান্ত তার হালনাগাদ কোনো হিসাব পাওয়া যায়নি৷ অনেকক্ষেত্রে কনডম ব্যবহারে খদ্দেরের অনীহা যৌনকর্মীদের মাঝে যৌনরোগ ছড়াতে সহায়ক হচ্ছে৷ (ফাইল ফটো)

সমাজ

‘অপ্রাপ্তবয়স্ক’ যৌনকর্মী

বাংলাদেশের যৌনপল্লীগুলোতে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের জোর করে যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করানোর অভিযোগ রয়েছে৷ আর এই পেশায় যাঁরা একবার প্রবেশ করছেন, তাঁদের জীবনেও নানা ঝুঁকি থাকে৷ পতিতাপল্লীতে হামলার খবর কিন্তু মাঝেমাঝেই শোনা যায়৷ (ফাইল ফটো)

সমাজ

শত বছরের পুরনো পল্লী উচ্ছেদ

মাদারিপুরের পতিতাপল্লীটি ছিল শত বছরের পুরনো৷ গত বছর এই পল্লী উচ্ছেদ করেছেন স্থানীয়রা৷ এমনকি পল্লীটি জোরপূর্বক উচ্ছেদ না করার হাইকোর্টের আদেশও এক্ষেত্রে উপেক্ষা করা হয়েছে৷ সেখানে পাঁচশ’র মতো যৌনকর্মী বাস করতেন৷ কিছুদিন আগে টাঙ্গাইলের একটি পতিতাপল্লীও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে৷ এ রকম উচ্ছেদের আতঙ্কে রয়েছেন আরো অনেক যৌনকর্মী৷

সমাজ

মধ্যপ্রাচ্যে ‘যৌনদাসী’ বাংলাদেশের মেয়েরা!

বাংলাদেশের বেশ কয়েক নারীকে মধ্যপ্রাচ্যে যৌনদাসী হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে৷ তাঁদের পাচার করে সিরিয়ায় নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে একাধিক বার্তাসংস্থা৷ এ সব নারীকে ফিরিয়ে আনতে সরকারি উদ্যোগের কথা বলা হচ্ছে৷ তবে শুধু মধ্যপ্রাচ্য নয়, প্রতিবেশী দেশ ভারতের বিভিন্ন পতিতালয়েও বাংলাদেশি নারীদের জোরপূর্বক পতিতাবৃত্তিতে নিয়োগ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়