পরিবার থেকেই শুরু হোক যৌন সচেতনতা

কেনিয়ায় যে হারে কিশোরী অন্তঃসত্ত্বার হার বাড়ছে, বাড়ছে এইচআইভি সংক্রমণের হার বাড়ছে, তাতে জাতিসংঘের একটি সংস্থা পদক্ষেপ নিয়েছে প্রযুক্তির মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের যৌন শিক্ষা দেয়ার৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

কিশোরী রোজমেরি যখন অন্তঃসত্ত্বা হয়েছিলেন, তখন তাঁর পরিবার লজ্জায় তাঁকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিল৷ অথচ এই সমস্যা এড়ানো যেত যদি তিনি তাঁর পরিবার থেকে নিরাপদ যৌনশিক্ষা পেতেন৷

পরিবার থেকে বের করে দিয়েছে, তাই রোজমেরির বলার সাহসই হয়নি যে তাঁর শরীরে এইচআইভি ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে৷ নাইরোবির সাইকা বস্তিতে এ রকম আরো অনেক মেয়ে আছে, যাদের প্রত্যেকেরই দেহে এইচআইভি শনাক্ত হয়েছে এবং যাদের অনেকেরই সন্তান আছে৷

রোজমেরির বয়স এখন ৩৭৷ ২০০৫ সালে তিনি একটি সংগঠন গড়ে তোলেন, যারা এইচআইভি আক্রান্ত নারীদের মানসিক সহায়তা দেয়৷ এছাড়া অল্পবয়সি মায়েরা কীভাবে পরিস্থিতি সামাল দেবেন, তা নিয়েও পরামর্শ দিয়ে থাকেন তারা৷

যৌনতা এক ‘নিষিদ্ধ’ বিষয়

আরবি, তুর্কি, ইংরেজি, জার্মানসহ মোট ১২টি ভাষায় যৌনতা বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য এবং চিত্রলিপি প্রকাশ করেছে জার্মান সরকার৷ অভিবাসীদের নারী, পুরুষের দেহ সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা দিতেই এই উদ্যোগ৷ কেননা, সরকার মনে করছে, তারা এমন অনেক দেশ থেকে এসেছে, যেখানে যৌনতা নিষিদ্ধ এক বিষয়৷ চলুন দেখে নেই সাইটটিতে ঠিক কী আছে৷

বিভিন্ন যৌন সমস্যার সমাধান

মোট ছয়টি বিভাগে যৌনতা, যৌন মিলন, সম্ভোগের রকমফের, যৌনতা বিষয়ক অধিকারের কথা তুলে ধরা হয়েছে সাইটটিতে৷ তবে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে ‘সেক্স’ বিভাগটি নিয়ে৷ এতে প্রথমবার সেক্স, কুমারিত্ব, যৌনাসন এবং বিভিন্ন যৌন সমস্যার সমাধান চিত্রলিপির মাধ্যমে ব্যাখা করা হয়েছে৷

আকার গুরুত্বপূর্ণ নয়, যৌনাঙ্গচ্ছেদ নিষিদ্ধ

ওয়েবসাইটটির ‘বডি’ অংশে নারী-পুরুষের দেহের ধরন, যৌনাঙ্গ, বীর্য ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা দেয়া হয়েছে৷ পুরুষাঙ্গের আকার বা গড়ন যে যৌন সুখের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, তা বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে এই বিভাগে৷ রয়েছে নারীর যৌনাঙ্গচ্ছেদ যে ইউরোপে পুরোপুরি নিষিদ্ধ, সেই কথাও৷

গর্ভধারণ ও যৌন মিলন

সন্তান জন্মদানের পুরো প্রক্রিয়া এই বিভাগে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে৷ সাথে গর্ভধারণের পর কতদিন এবং কিভাবে যৌন সম্পর্ক অব্যাহত রাখা যায়, তা-ও জানানো হয়েছে৷ বলা হয়েছে, কেউ যদি ভুল করে গর্ভধারণ করেন, তাহলে চাইলে গর্ভপাত না করে বাচ্চাটি জন্মের পর দত্তক দেয়া যেতে পারে৷ তবে গর্ভপাতে কোনো বাধা নেই৷

কনডম যেভাবে পরবেন

কখনো জানতে চেয়েছেন কনডম কী? ওয়েবসাইটটির এই বিভাগে কনডম ব্যবহারের উপায় চিত্রলিপিতে পরিষ্কারভাবে দেখানো হয়েছে৷ পাশাপাশি অনিরাপদ যৌন জীবনের ফলে নারী ও পুরুষের কী কী রোগ হতে পারে এবং কী করলে তা থেকে মুক্তি সম্ভব, সে কথাও জানানো হয়েছে৷

সঙ্গীকে দোষ না দিয়ে কথা বলুন

হোক সে যৌন জীবন কিংবা যৌথ সম্পর্কের অন্য কোনো দিক, যে কোনো বিষয়ে সঙ্গীর সঙ্গে সময় নিয়ে খোলামেলা আলোচনার পরামর্শ দেয়া হয়েছে ওয়েবসাইটে৷ তবে আলোচনায় একে-অপরকে দোষ না দিয়ে বরং কার কী প্রত্যাশা সেদিকে গুরুত্ব দিতে বলা হয়েছে৷ প্রয়োজনে সমস্যা সমাধানে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়ার উপায়ও জানানো হয়েছে সাইটটিতে৷

যৌনসম্মতির বয়স ১৮ বছর

জার্মানিতে ১৪ বা ১৫ বছরের একটি ছেলে বা মেয়ে একই বয়সের সঙ্গীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করতে পারে৷ কিন্তু সেই বয়সের একটি ছেলে বা মেয়ের সঙ্গে ১৬ বা তার বেশি বয়সের কেউ যৌন সম্পর্কে জড়ালে সেটা অপরাধ৷ এমনকি কম বয়সি সঙ্গী সম্মতি দিলেও৷ যৌন মিলনের জন্য নিরাপদ বয়স কমপক্ষে আঠারো৷

অভিবাসীদের কি যৌন শিক্ষার দরকার আছে?

এই প্রশ্নটা অনেকেই করছেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে৷ এর মানে কি অভিবাসীরা যৌন মিলন সম্পর্কে অজ্ঞাত? এ সব প্রশ্নের জবাবে নির্মাতার জানিয়েছেন, বিশ্বের অনেক দেশে যৌনতা নিয়ে আলোচনা এক ‘নিষিদ্ধ বিষয়’৷ তাই দরকার এমন একটা সাইট৷ বাংলা ভাষাতেও এ রকম একটি সাইটের দরকার বলে ফেসবুকে লিখেছেন একাধিক বাংলা ব্লগার৷

চিত্রলিপির ‘কৃষ্ণাঙ্গ পুরুষ, শেতাঙ্গ নারী’

ওয়েবসাইটটিতে প্রদর্শিত যৌন মিলনের কিছু চিত্রলিপিতে পুরুষকে কৃষ্ণবর্ণে এবং নারীকে শ্বেতবর্ণে দেখানো হয়েছে৷ আর এটা নিয়েও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে আপত্তি করেছেন অনেকে৷ কারো কারো মতে, শরণার্থী বা অভিবাসীদের যৌনশিক্ষা, যেমন কনডম পরানো শেখানোর মাধ্যমে আসলে বোঝানো হয়েছে যে, তারা কিছুই জানে না, যা একধরনের ‘বৈষম্যমূলক মনোভাব’৷

যারা তৈরি করেছেন

বেলজিয়ামের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার সহযোগিতা নিয়ে জার্মানির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যশিক্ষা কেন্দ্র ‘জানজু ডটডিই’ ওয়েবসাইটটি তৈরি করেছে৷ এ জন্য সময় লেগেছে তিন বছর৷ মূলত অভিবাসীদের বিভিন্ন প্রশ্ন এবং প্রয়োজনীয়তা যাচাই করে সাইটটি তৈরি করা হয়৷ তিন সপ্তাহ আগে প্রকাশের পর থেকে প্রতিদিন গড়ে ২০ হাজার মানুষ এটি ‘ভিজিট’ করছেন৷

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গোটা আফ্রিকা মহাদেশে আশঙ্কাজনকহারে এইচআইভি বা এইডস-এ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে৷ তাই অবিলম্বে এঁদের যৌনশিক্ষা দেয়াটা ভীষণ জরুরি৷ একই সাথে কীভাবে তাঁরা অনাকাঙ্খিত গর্ভধারণ এড়াতে পারেন, সে শিক্ষার গুরুত্বের কথাও বলা হচ্ছে৷ তবে শুধুমাত্র স্কুল নয়, পরিবারের মানুষজনদেরও কুসংস্কার ভেঙে এ নিয়ে সন্তানদের সঙ্গে আলোচনা করা উচিত বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা৷

থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশনকে রোজমেরি জানান, যৌনশিক্ষা চালুর কথা বলা তাঁর জন্য সহজ ছিল না৷ অবশ্য বর্তমানে তাঁরই উদ্যোগে দ্য ইউনাইটেড নেশনস পপুলেশন ফান্ড বা ইউএনএফপিএ এবং নাইলাব নামে কেনিয়ার একটি ফার্ম উদ্যোগ নিয়েছে প্রযুক্তির মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের যৌনশিক্ষা দেয়ার৷

চলতি মাসেই এই প্রচার শুরু হয়েছে, যার নাম ‘আই অ্যাম' বা ‘আমি'৷ এর মাধ্যমে আগামী আগস্ট পর্যন্ত কেনিয়ার মানুষ তাঁদের চিন্তাভাবনা জানাতে পারবেন যে, কীভাবে যৌনশিক্ষাকে সমাজে কাজে লাগানো যেতে পারে৷ যাঁদের চিন্তাভাবনা সবচেয়ে ভালো হবে, তেমন চারজনকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে এবং তাঁদের ভাবনাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য অর্থ দেয়া হবে৷ ইউএনএফপিএ-র নির্বাহী পরিচালক বাবাটুন্ডে রয়টার্সকে জানান, ছেলে এবং মেয়েদের একসঙ্গে যৌনশিক্ষা দিতে হবে৷

এর আগে, ২০১৪ সালে, দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় যৌনশিক্ষা এবং স্কুলে জন্মনিরোধক পিল ও কনডোম দেয়ার বিষয়ে একটি বিল কেনিয়ার পার্লামেন্টে তোলা হয়েছিল, যা নিয়ে দেশজুড়ে সমালোচনা হয়৷ কারণ মানুষের মধ্যে ভয় ঢুকে যায় যে, এভাবে যৌনশিক্ষা নিয়ে খোলামেলা আলোচনা হলে তাঁদের সংস্কার ও মূল্যবোধ হারিয়ে যাবে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ফারজানা খানম

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের তৃতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী ফারজানা৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হচ্ছে যা থেকে যৌনতা সম্পর্কে জানা যায়৷ এ শিক্ষা প্রত্যেকের জীবনে প্রয়োজন৷ বাচ্চাদের পরিবার এবং শিক্ষকরা এটা শিখাতে পারেন৷ এছাড়া যৌনতা সম্পর্কে তাদের জানার উৎস হতে পারে পরিবার অথবা বন্ধু-বান্ধব৷ তাছাড়া ইন্টারনেট থেকেও যৌনতা সম্পর্কে জানা যায়, জানান ফারজানা৷

সমাজ-সংস্কৃতি

নাফিসা হক অর্পা

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের ষষ্ঠ সেমিস্টারের ছাত্রী নাফিসা হক অর্পা৷ নারী-পুরুষের শারীরিক মিলন সম্পর্কে জ্ঞানকেই যৌন শিক্ষা৷ নাফিসার কথায়, ‘‘আমাদের সময়ে ইন্টারনেট এত সহজলভ্য ছিল না৷ তখন বন্ধু, সহপাঠী, আত্মীয়স্বজনরাই ছিলেন মূল ভরসা৷’’ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষাটাকে ট্যাবু হিসেবে না দেখে একে শিক্ষার অংশ করা উচিত৷ এতে করে যৌন বিষয়ক অপরাধ কমবে৷

সমাজ-সংস্কৃতি

জান্নাতুল ফেরদৌস কনক

নাফিসার মতোই মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়াশোনা করছেন জান্নাতুল ফেরদৌস কনক, তবে তিনি পড়ছেন পঞ্চম সেমিস্টারে৷ তাঁর মতে, যৌনতা হচ্ছে বয়সের পরিবর্তনে শারীরিক এক ধরণের চাহিদা৷ আগে এ নিয়ে সীমাবধ্যতা থাকলেও, এখন ছেলে-ছেলে কিংবা মেয়ে-মেয়ের যৌন সম্পর্কও বেশ জনপ্রিয়৷ ‘‘বন্ধুদের আড্ডায় এটাই সবচেয়ে আলোচিত বিষয়’’, জানান কনক৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার দরকার না থাকলেও এ বিষয়ে জ্ঞান থাকা জরুরি৷

সমাজ-সংস্কৃতি

ইমরান খান

অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ইমরান খান৷ তিনি যৌন শিক্ষা বলতে যৌনতা সম্পর্কে সব ধরণের ধারণাকে বোঝেন৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা সবার জন্য একটি অত্যন্ত জরুরি বিষয়৷ আর এ কথাটা শিশুদের ক্ষেত্রেও সমানভাবে প্রযোজ্য৷ তবে ইমরানের কথায়, ‘‘সঠিক যৌন শিক্ষা স্কুল বা বিশ্ববিদ্যালয়ে নয়, পরিবার থেকেই গড়ে উঠতে পারে৷’’

সমাজ-সংস্কৃতি

কেডিএস সাকিব

বেসরকারি এই বিশ্ববিদ্যালয়ে নাফিসা আর কনকের মতো মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়ছেন সাকিব, পঞ্চম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হলো যৌন মিলনের উপর জ্ঞান৷ তবে শিক্ষকদের কাছ থেকে নয়, বয়ঃসন্ধিকাল থেকেই বন্ধুদের কাছ থেকে এ বিষয়ে জেনেছেন তিনি৷ সাকিবের মতে, পর্যাপ্ত যৌন শিক্ষা অবশ্যই দরকার৷ যৌনতা সম্পর্কে তাঁর জানার মূল উৎস বিভিন্ন ওয়েবসাইট, ব্লগ এবং এ সম্বন্ধে লিখা বিভিন্ন বই৷

সমাজ-সংস্কৃতি

মাহবুব টিপু

নাফিসা, কনক, সাকিব আর ফারজানার মতোই মাস কমিউনিকেশন নিয়ে পড়াশোনা করছেন মাহবুব টিপু৷ অবশ্য তিনি এখনও দ্বিতীয় সেমিস্টারে৷ যৌন শিক্ষা তাঁর কাছে যৌনতা সম্পর্কে সঠিক শিক্ষা৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষাটা বয়সের সঙ্গে সঙ্গেই চলে আসে৷ এ বিষয়ে জানার সবচেয়ে বড় জায়গা বন্ধু-বান্ধব৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার মৌলিক বিষয়গুলো সবারই কম-বেশি জানা থাকে৷ তারপরও এ বিষয়ে শেখার সবচেয়ে বড় মাধ্যম বিভিন্ন ওয়েবসাইট৷

সমাজ-সংস্কৃতি

সামিয়া রহমান

সামিয়া রহমানও মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী৷ যৌন শিক্ষা বলতে তিনি বোঝেন নারী ও পুরুষের শারীরিক সম্পর্ক বিষয়ে জ্ঞান৷ তাঁর কথায়, ‘‘যৌন শিক্ষা আমাদের দেশে নিষিদ্ধ একটি বিষয়ের মতো৷ তাই এ বিষয়ে আমি শিক্ষা পায়নি৷’’ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা খুবই জরুরি৷ এ বিষয়ে সঠিক জ্ঞান না থাকায় অনেকেই ভুল পথে চলে যায়৷ তাই বাবা-মায়েরও এ বিষয়ে সন্তানদের সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলা উচিত৷

সমাজ-সংস্কৃতি

নাফিউল হক শাফিন

টিপু আর সামিয়ার মতো অ্যামেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের মাস কমিউনিকেশন বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী নাফিউল৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা জীবনের জৈবিক চাহিদা সম্পর্কে জানা এবং যৌনতার সঠিক প্রয়োগ ও সতর্কতাকে বোঝায়৷ তিনি শিক্ষকদের কাছ থেকে এ বিষয়ে কিছু শেখেননি৷ তবে এই শিক্ষাটা খুবই জরুরি বলে মনে করেন তিনি৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষার জন্য বড় কেউ কিংবা সহপাঠীরাই বড় মাধ্যম৷

সমাজ-সংস্কৃতি

মালিহা রহমান

মালিহা রহমানও ঐ একই বিশ্ববিদ্যালয়ে মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্রী৷ তাঁর মতে, যৌন শিক্ষা হলো শারীরিক সম্পর্কের হাতে কলমে শিক্ষা৷ অবশ্য তাঁর কথায়, যৌন শিক্ষা একটা স্বাভাবিক বিষয় যেটা মানুষ থেকে শুরু করে সব প্রাণীই প্রাকৃতিকভাবে জানে৷ তাঁর মতে, এ বিষয়ে আগে থেকে জানার কিছু নেই, নেই ভালো কোনো দিক৷ যখন এ বিষয়ে জানার প্রয়োজন হবে তখন এমনিতেই তা জানা যাবে৷

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, কেনিয়ায় ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সি কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে ২৯,০০০ এইচআইভি আক্রান্ত৷ এছাড়া প্রতি পাঁচজন কিশোরীর মধ্যে ‘মা' বা গর্ভবতী হচ্ছেন একজন৷ বলা বাহুল্য, ১৩,০০০ শিক্ষার্থীকে অল্প বয়সে মা হওয়ার কারণে স্কুলও ছাড়াতে হয়েছে৷

কেনিয়ার ৮০ শতাংশ মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে৷ এ কারণে প্রযুক্তির মাধ্যমেই তাঁদের যৌনশিক্ষা দেয়ার পরিকল্পনা চলছে এবার৷

এপিবি/ডিজি (রয়টার্স, এপি)

আপনি কি কিশোর-কিশোরীদের যৌনশিক্ষা দেয়ার পক্ষে? আপনার নিজস্ব যুক্তিগুলো জানান আমাদের৷ লিখুন নীচের ঘরে৷

কিশোরী রোজমেরি যখন অন্তঃসত্ত্বা হয়েছিলেন, তখন তাঁর পরিবার লজ্জায় তাঁকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিল৷ অথচ এই সমস্যা এড়ানো যেত যদি তিনি তাঁর পরিবার থেকে নিরাপদ যৌনশিক্ষা পেতেন৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়