‌পশ্চিমবঙ্গে ‘‌রাজনৈতিক’‌ রামনবমী

ধর্মীয় উৎসব বরাবরই ছিল, কিন্তু হিন্দুত্ববাদী আরএসএস-এর উদ্যোগে এবার রামনবমী পালিত হচ্ছে রাজ্যজুড়ে৷ যেহেতু ছদ্ম রাজনৈতিক কর্মসূচি, প্রতিক্রিয়াও তাই অতি সতর্ক৷

ধর্মীয় উৎসব বাংলায় নতুন কিছু নয়৷ এবং সেই উৎসব পালনের আধিক্যও প্রতি বছরই বাড়ছে৷ অনেক নতুন উৎসব যুক্ত হচ্ছে বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বনের ক্যালেন্ডারে৷ কিন্তু এবার এমন এক উৎসবের সংযোজন হলো, যার পিছনের উদ্যোগ এবং উদ্দেশ্য সন্দেহজনক৷ বিজেপি রাজনৈতিক দল হিসেবে সরাসরি না থাকলেও তাদের প্রত্যক্ষ মদতে এবং হিন্দুত্ববাদী সংগঠন ‘‌রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ’‌, ’‌বজরং দল’‌ ও স্থানীয় ‘‌হিন্দু সংহতি মঞ্চ’‌-এর উদ্যোগে কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় পালিত হলো ‘‌রামনবমী’‌৷ রাস্তায় মিছিল হলো রামভক্তদের, অনেক জায়গায় অস্ত্রশস্ত্র হাতে নিয়ে৷ এবং অভিযোগ, অনেক মিছিলেরই যাত্রাপথ ছিল মুসলিম-প্রধান এলাকা দিয়ে৷ এ কারণে শঙ্কিত রাজ্যের ধর্মনিরপেক্ষ মহল৷ 

হঠাৎ রামনবমী পালনের এত তোড়জোড় কেন, সে নিয়ে সন্দিগ্ধ অনেকেই৷ কারণ, রামনবমী মূলত উত্তর ভারতের উৎসব৷ বাংলায় এর প্রচলন থাকলেও কখনোই তার উদযাপন এমন গণ হারে ছিল না৷

সমাজ

অনন্ত পদ্মনাথ স্বামী মন্দির

কেরালার রাজধানী থিরুভানান্তাপুরমে অবস্থিত এই মন্দিরটি৷ এটি ভারতের অন্যতম ধনী মন্দির৷ এই মন্দিরে ভগবান বিষ্ণুর পুজো করা হয়৷ এই মন্দিরের ভূগর্ভস্থ কক্ষ থেকে সম্প্রতি ১ লাখ কোটি রূপির সম্পদ উদ্ধার করা হয়েছে৷

সমাজ

তিরুপতি বালাজি মন্দির

অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তুর জেলায় তিরুমালা পাহাড়ি এলাকায় এর অবস্থান, যা কিনা বিশ্বের দ্বিতীয় প্রাচীন পর্বত বলে ধারণা করা হয়৷ এই মন্দিরে দেবতা বিষ্ণুর অবতার ভেঙ্কটেশ্বরের পুজো হয়৷ এখানে মূলত ভক্তরা মাথার চুল দান করেন৷ প্রতি বছর এই মন্দিরে ৫০ হাজার ভক্তের আনাগোনা হয়৷ এই মন্দিরে ৫০ হাজার কোটি রূপির সম্পদ আছে বলে জানা গেছে৷

সমাজ

সোমনাথ মন্দির

গুজরাটের প্রভাসক্ষেত্রে এই মন্দিরের অবস্থান৷ এই মন্দিরের সম্পর্কে বলা হয় যে, এর উল্লেখ ঋগবেদেও আছে৷ মুসলিমদের শাসনামলে অন্তত ১৭ বার এই মন্দিরটিকে ভাঙা হলেও, পরে আবারো পুনর্নিমাণ করা হয়৷ শিবের মন্দির এটি৷ পুরো মন্দিরটি পাথর দিয়ে তৈরি৷

সমাজ

শ্রী জগন্নাথ মন্দির

উড়িষ্যা রাজ্যের উপকূলবর্তী এলাকা পুরীর এই মন্দিরে ভগবান জগন্নাথ দেবের পুজো হয়৷ ১২শ শতাব্দীতে নির্মাণ কাজ শেষ হয় এই মন্দিরের৷ হিন্দুদের চার ধামের অন্যতম এটি৷ মন্দিরটি থেকে ১৭ টন রূপা উদ্ধার করেছিল পুলিশ৷

সমাজ

সিদ্ধি বিনায়ক মন্দির

ভারতের মুম্বইতে এই মন্দিরে সিদ্ধিদাতা গণেশের পুজো করা হয়৷ এই মন্দিরের সম্পদের মধ্যে আছে ৭২৭ কেজি সোনা, যার বাজার মূল্য ৬ কোটি ৭০ লাখ মার্কিন ডলার৷

সমাজ

স্বর্ণ মন্দির

পাঞ্জাবের অমৃতসরে এই মন্দিরের অবস্থান৷ কেবল ভারত নয়, পুরো বিশ্ব থেকে লাখো মানুষ এই মন্দিরটি দেখতে যান৷ শিখ সম্প্রদায়ের কাছে এটা অন্যতম পবিত্র স্থান৷ মন্দিরটির দেয়াল রূপা এবং স্বর্ণ দিয়ে তৈরি৷ প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০ হাজার ভক্ত মন্দিরটি পরিদর্শন করেন৷

যদিও কিছুটা বিস্ময়জনক যে রামনবমী পালনের এই উদ্যোগে বাংলার সাধারণ মানুষের, হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষের বেশ ভালো সাড়া মিলেছে৷ এদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ৷ একাধিক জেলায় তলোয়ার, হাঁসুয়া, টাঙ্গি, কাটারি নিয়ে মিছিল হয়৷ ঘন ঘন ‘‌জয় শ্রীরাম’‌ ধ্বনি ওঠে মিছিল থেকে৷ এছাড়াও একাধিক জেলায় হয় যাগযজ্ঞ, পূজা-অর্চনা৷ খাস শহর কলকাতার ভবানীপুরে হয় অস্ত্র মিছিল!‌ বিশেষ পুজোর আয়োজন করা হয় কলকাতার বিভিন্ন এলাকায়৷ যাঁরা এই কর্মসূচিতে সরাসরি অংশ নেননি, তাঁদেরও অনেকের প্রতিক্রিয়া – হিন্দু অস্তিত্বরক্ষার স্বার্থে এই ধরনের উদ্যোগ জরুরি হয়ে পড়েছে৷ এমনকি যাঁরা আপাত ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী, তাঁদেরও অনেকে বলছেন, মহরমের মিছিল যদি হতে পারে, তা হলে রামনবমীর মিছিল হলে আপত্তি কোথায়!

সম্ভবত সেই গণ মানসিকতার আঁচ পেয়েই রাজনৈতিক দলগুলির প্রতিক্রিয়া অত্যন্ত সতর্ক৷ প্রথমত, রামনবমীর এই উদযাপনের বিরোধিতা কেউ করছে না৷ তৃণমূল কংগ্রেস অবশ্য রামনবমীর পাল্টা হনুমান জয়ন্তী পালনের উদ্যোগ নিয়েছে৷ বেশ কিছু জেলায়, বিশেষত বীরভূমে হনুমান জয়ন্তী পালিত হয়েছে সমান উৎসাহে৷ কিন্তু তৃণমূলের প্রথম সারির অনেক নেতাই বলেছেন, আমন্ত্রণ পেলে তাঁরা রামনবমীর মিছিলেও যোগ দেবেন৷ তৃণমূল নেত্রী এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, রাম চিরকালই ঘরে ঘরে পুজো পেয়ে এসেছেন৷ তার জন্য তাঁকে দাঙ্গা করতে হয়নি৷ পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য পর্যন্ত তাঁর মন্তব্যে তথাকথিত রামরাজত্বের প্রসঙ্গ তুলেছেন, যে রামরাজত্ব, প্রদীপবাবুর মতে আদতে সুশাসন৷ অর্থাৎ নেতাদের কেউই এই রামনবমীর রাজনীতির পিছনে সংখ্যাগরিষ্ঠের যে ধর্মীয় বোধ, তাকে অস্বীকার করতে পারছেন না৷

অডিও শুনুন 01:06
এখন লাইভ
01:06 মিনিট
মিডিয়া সেন্টার | 05.04.2017

‘এই উদযাপনের মূল উদ্দেশ্য কী, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই’

এই অবস্থায় যারা অন্তত তাত্ত্বিক বিরোধিতার জমি তৈরির চেষ্টা করতে পারত, সেই বামেরাও একই রকম নিশ্চেষ্ট৷ সিপিএম নেতা, প্রাক্তন সাংসদ সুজন চক্রবর্তি ডয়চে ভেলেকে জানালেন, এই রামনবমী পালনের উদ্যোগ আসল সমস্যা থেকে মানুষের নজর ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা মাত্র৷ অন্যদিকে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস যেভাবে অন্য একটা পুজো দিয়ে এর বিরোধিতা করছে, সেটাও ঠিক নয় বলে সুজনবাবুর অভিমত৷ কিন্তু তাঁরা, বামেরাও এখনই কিছু করছেন না৷ বরং পরিস্থিতির ওপর আপাতত নজর রেখে চলাই শ্রেয় মনে করছেন

গবেষক-প্রাবন্ধিক সুস্নাত চৌধুরি যেমন মনে করছেন, আর পাঁচটা ধর্মীয় উৎসবের মতো যদি রামনবমীও হয়, তাহলে ক্ষতি কী!‌ সম্প্রতি নিজের ফেসবুক পোস্টে তিনি শ্লেষের সঙ্গে লিখেছেন, ‘‌‘‌তথাকথিত আলোকপ্রাপ্ত বাঙালি যত হিন্দুত্ববাদী, বিজেপি/আরএসএস সমর্থকদের হ্যাটা করবে, তাদের 'চাড্ডি' বলবে, শিক্ষা নিয়ে কর্মস্থলের ডেজিগনেশন নিয়ে খোঁটা দেবে, তাদের পোস্টের বানান-ভুল দেখিয়ে অন্য কম্বিনেশনে আরেকরকম ভুল বাংলা বানানেই পোস্ট করবে....তত জনবিচ্ছিন্ন হবে৷ হবেই৷ হচ্ছেও৷ ওই হিন্দুত্ববাদীরাও তত শক্তিশালী হবে৷ হচ্ছে৷ ঠিক হচ্ছে৷ আমাদের এটাই প্রাপ্য ছিল৷’‌’

আর ডয়চে ভেলেকে সুস্নাত জানালেন, নিজের উদ্বেগের কথা৷ বললেন, কলকাতা শহরেই রামনবমীর মিছিল যে রাস্তা ধরে যাবে, বা সেই সব মিছিল যেখানে গিয়ে শেষ হবে, প্রায় সবই মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা৷ কাজেই এই উদযাপনের মূল উদ্দেশ্য কী, সে নিয়ে কোনো সন্দেহ থাকার থাকা নয়৷ ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী রাজ্যবাসীকে ঠিক সেটাই দুশ্চিন্তায় রাখছে৷

রাজনীতি

ইহুদি: ১৩ দশমিক ৪ বছর

পুরুষ: ১৩ দশমিক ৪ বছর, নারী: ১৩ দশমিক ৪ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ০ বছর)

রাজনীতি

খ্রিষ্টান: ৯ দশমিক ৩ বছর

পুরুষ: ৯ দশমিক ৫ বছর, নারী: ৯ দশমিক ১ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ০ দশমিক ৪ বছর)

রাজনীতি

নাস্তিক: ৮ দশমিক ৮ বছর

পুরুষ: ৯ দশমিক ২ বছর, নারী: ৮ দশমিক ৩ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ০ দশমিক ৮ বছর)

রাজনীতি

বৌদ্ধ: ৭ দশমিক ৯ বছর

পুরুষ: ৮ দশমিক ৫ বছর, নারী: ৭ দশমিক ৪ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ১ দশমিক ১ বছর)

রাজনীতি

মুসলমান: ৫ দশমিক ৬ বছর

পুরুষ: ৬ দশমিক ৪ বছর, নারী: ৪ দশমিক ৯ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ১ দশমিক ৫ বছর)

রাজনীতি

হিন্দু: ৫ দশমিক ৬ বছর

পুরুষ: ৬ দশমিক ৯ বছর, নারী: ৪ দশমিক ২ বছর (নারী-পুরুষে ব্যবধান: ২ দশমিক ৭ বছর)