পাকিস্তানের জয় নিয়ে এ কী করলেন মীর!

পাকিস্তানের আলোচিত সাংবাদিক হামিদ মীর সোমবার ছবিসহ এক টুইটে জানিয়েছেন, তুর্কি প্রেসিডেন্ট চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি'র ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যকার ফাইনাল খেলাটি দেখেছেন এবং পাকিস্তানের বিজয় উদযাপন করেছেন৷

তবে ছবি দু'টো অনেক পুরনো৷

খেলাধুলা | 15.06.2017

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে  ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তানের বিজয়কে ঐতিহাসিক বলা চলে৷ গত কয়েকবছর ধরে পাকিস্তানে কোন দেশ ক্রিকেট খেলতে যাচ্ছে না৷ সে দেশের খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে নানারকম দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে কয়েকবার৷ ক্রিকেট ব়্যাকিংয়েও সে দেশের পরিস্থিতি বেশ নাজুক৷ এ রকম অবস্থা থেকে আইসিসির একটি আসরে চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা নিঃসন্দেহে এক বড় অর্জন৷

গতকালের এই খেলা নিয়ে ইতোমধ্যে নানা ধরণের প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে৷ বিশেষ করে ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়ায় তাঁর সমালোচনা হচ্ছে বেশি৷ আর পাকিস্তান শুরুতে ব্যাট করে ৩৩৮ রান করার পেছনে ভাগ্যের সহায়তাও ছিল কিছুটা৷ সে ম্যাচে একমাত্র সেঞ্চুরিয়ান ফখর জামান ১১৪ রান করতে গিয়ে শুরুতেই দু'বার জীবন পেয়েছেন৷ ফখর জামান ছাড়াও আরো দু'জন অর্ধশতক করেছেন৷

অন্যদিকে, ভারতের বিশ্ব সেরা ব্যাটিং লাইন আপ দ্রুতই ধসে পড়ে৷ ৩৩৮ রান টপকাতে গেলে ভারতকে নতুন রেকর্ড গড়তে হতো৷ অন্তত চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির কোনো ফাইনালে এত রান তাড়া করে কোনো দলের জয়ের রেকর্ড নেই৷ কোহলিও মনে করেন, রানের পাহাড় দেখে দলের উপর যে চাপ তৈরি হয়েছিল, তা খেলোয়াড়রা সামলাতে পারেননি৷ ফলে ১৮০ রানের রেকর্ড পরাজয় মনে নিয়েছে ভারত৷

গতকালের এই ঐতিহাসিক জয়কে বাড়তি গুরুত্ব দিতে গিয়ে দু'টো পুরনো ছবি দিয়ে টুইট করেছেন পাকিস্তানের আলোচিত সাংবাদিক হামিদ মীর৷ তিনি দাবি করেছেন, এর্দোয়ান গতকালের ম্যাচ দেখেছেন এবং পাকিস্তানের জয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন৷

Arafatul Islam Kommentarbild App

আরাফাতুল ইসলাম

কিন্তু দেখা যাচ্ছে, হামিদ মীর যে ছবি দু'টো প্রকাশ করেছেন, সেগুলো গতবছর তোলা এবং ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার কোনো খেলার সময়ের নয়, বরং এর্দোয়ান তখন বিমানে বসে কোনো এক ফুটবল ম্যাচ দেখছিলেন৷ কোনোরকম যাচাই-বাছাই ছাড়া হামিদ মীর কেন এই পুরনো ছবি প্রকাশ করলেন, তা এক বিস্ময়৷ তবে এই নিয়ে সমালোচনার পর কোনোরকম কারণ দর্শানো ছাড়াই টুইটটি ডিলিট করে দিয়েছেন তিনি৷

খেলাধুলা

নাম কেন লর্ডস?

প্রতিষ্ঠাতা টমাস লর্ড-এর নামে স্টেডিয়ামটির নাম রাখা হয় লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ড, অর্থাৎ লর্ড-এর স্টেডিয়াম৷

খেলাধুলা

কত বড়?

স্টেডিয়ামটির মাঝখান থেকে উত্তর-পশ্চিমের আয়তন ২৩০ মিটার৷ এর আসন সংখ্যা ২৮ হাজার৷

খেলাধুলা

উইলিয়াম গিলবার্ট গ্রেস

ব্রিটিশ এই খেলোয়াড় ডাব্লিউ জি, দ্য ডক্টর, চ্যাম্পিয়ন বা ‘ওল্ড ম্যান’ নামে পরিচিত৷ ১৮৬৫ থেকে ১৯০৪ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ডের অধিনায়কত্ব করেছেন৷ লম্বা দাড়ির জন্য বিশেষভাবে পরিচিত ছিলেন তিনি৷ লর্ডসে ঢোকার মুখে গ্যালারির বাইরেই চোখে পড়বে কিংবদন্তি ক্রিকেটারের এই ভাস্কর্য৷

খেলাধুলা

ট্যুর

ম্যাচ চলাকালীন লর্ডসে কোনো ট্যুর হয় না৷ তখন ঘুরে ঘুরে দেখা বন্ধ থাকে৷ ঘুরে দেখার টিকেটের কাউন্টার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে৷ দিনে ৪ থেকে ৫টা ট্যুর হয়৷ এমসিসি জাদুঘর থেকে ট্যুর শুরু হয়ে শেষ হয় গ্যালারিতে গিয়ে৷ ট্যুরে ক্রিকেটের ৪০০ বছরের ইতিহাস, অ্যাশেজের ছাই, বিশ্বকাপ ট্রফি দেখা যায়৷ প্রতিটি ট্যুরের সময় ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট৷

খেলাধুলা

টিকেটের দাম

লর্ডসে একা ঘুরতে গেলে পূর্নবয়স্কদের জনপ্রতি টিকেট ২০ পাউন্ড৷ চার জনের একটি পরিবার বা গ্রুপের টিকেটের দাম ৪৯ পাউন্ড৷ তবে বয়স্ক ও শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে বিশেষ ছাড়৷

খেলাধুলা

লং রুম

এটি লং রুমের ছবি নয়৷ কারণ, লং রুমের ছবি তোলা নিষেধ৷ ড্রেসিং রুম থেকে লং রুমের মধ্য দিয়েই খেলোয়াড়রা মাঠে প্রবেশ করেন৷

খেলাধুলা

ড্রেসিং রুমের বারান্দা

মাঠের এই দৃশ্যটি ড্রেসিং রুমের বারান্দা থেকে দেখা যায়৷ খেলোয়াড়রা মাঠে নামার আগে এখানেই তৈরি হয়ে বসে থাকেন, খেলা দেখেন৷

খেলাধুলা

দর্শকদের জন্য খানা-পিনা

দীর্ঘ সময় ধরে ক্রিকেট উপভোগ করার সময় কিছু খাবার-দাবার বা পানীয় না হলে কি চলে? গ্যালারির ঠিক এখানেই রয়েছে সেই ব্যবস্থা৷

খেলাধুলা

১৮১৪ থেকে ২০১৪

২০১৪ সালে লর্ডসের দুই শত বার্ষিকী উপলক্ষে এখানে এক বিশেষ ম্যাচের আয়োজন করা হয়৷ ২০১৪ সালের ৫ জুলাই সেই ম্যাচে এমসিসি একাদশের অধিনায়ক ছিলেন শচীন টেন্ডুলকার, তাঁর দলের বিপক্ষে ছিল শেন ওয়ার্নের বিশ্ব একাদশ৷

খেলাধুলা

এমসিসি জাদুঘর

এটি বিশ্বের সবচেয়ে পুরোনো ক্রীড়া জাদুঘর৷ ১৮৬৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ক্রিকেটের অনেক স্মারক রয়েছে এখানে৷

খেলাধুলা

লেখা আছে তামিম ইকবালের নাম

লর্ডসে যারা শতক হাঁকিয়েছেন বা নিয়েছেন পাঁচটি উইকেট, তাদের নামগুলো এখানে একটু পর পর ভেসে ওঠে৷ তামিম ইকবালের নামও দেখা যায় সেখানে৷

খেলাধুলা

জাদুঘরের নীচতলা

জাদুঘরটি দোতলা৷ নীচের তলায় একটি টিভিতে চলতে থাকে ইংল্যান্ড জিতেছে এমন সব ম্যাচ৷ আর রয়েছে লর্ডসে রেকর্ড গড়া খেলোয়াড়দের ব্যবহৃত জার্সি, ব্যাটসহ অনেক জিনিস৷ ডন ব্র্যাডম্যান থেকে শুরু করে শেন ওয়ার্ন, সাঙ্গাকারাসহ অনেক বিখ্যাত ক্রিকেটারের ক্রিকেট সরঞ্জাম আছে এখানে৷

খেলাধুলা

শচীনের জন্য বিশেষ সম্মান

সবচেয়ে বেশি ক্রিকেট সরঞ্জাম রয়েছে শচীন টেন্ডুলকারের৷ আলাদা করে সম্মান জানানো হয়েছে এই ‘ক্রিকেট ঈশ্বর’কে৷

খেলাধুলা

অ্যাশেজ ট্রফি

অ্যাশেজ টেস্ট সিরিজ হয় ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে৷ এর একটি ইতিহাস রয়েছে৷ ছোট্ট এই যে ট্রফিটি, এটাকে বলা হয় উর্ন অর্থাৎ ছাইদান বা ভস্মাধার, যার নামে এই টেস্ট সিরিজের নামকরণ৷ টেরাকোটার তৈরি ৬ ইঞ্চি এই ট্রফিটি আনুষ্ঠানিক ট্রফি নয়৷ তবে এর ভেতরেই ছিল অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের প্রথম টেস্ট ম্যাচের বেইলসের ছাই৷

খেলাধুলা

অ্যাশেজ ট্রফির রেপ্লিকা

অ্যাশেজ টেস্ট সিরিজ জয়ী দলের হাতে যে ট্রফিটি দেখা যায়, এটি সেটি৷ মূল অ্যাশেজের রেপ্লিকা এটি৷

খেলাধুলা

বিশ্বকাপ

এমসিসি জাদুঘরে গেলে দেখতে পাবেন বিশ্বকাপের এই ট্রফিটি৷

খেলাধুলা

লর্ডসের স্লোপ

লর্ডসের মাঠের বিশেষত্ব হলো এর স্লোপ বা ঢাল৷ পুরো মাঠেই শেষ প্রান্তটা একটু ঢালু৷ দক্ষিণ পূর্ব দিকের চেয়ে উত্তর পশ্চিম দিকটা ২ দশমিক ৫ মিটার উঁচু৷

খেলাধুলা

ক্রিকেটারদের ড্রেসিং রুম

লর্ডসে দুটি ড্রেসিং রুম৷ মাঠে নামার আগে প্রায় সব খেলোয়াড়ের মনেই কিছু কুসংস্কার কাজ করে৷ কে কোন জায়গায় বসলে ভালো খেলবে এই চিন্তাও করেন অনেকে৷

খেলাধুলা

অনার্স বোর্ডে বাংলাদেশ

২০১০ সালে লর্ডস টেস্টের প্রথম টেস্ট ইনিংসে ৫৫ রানে আউট হয়েছিলেন তামিম৷ দ্বিতীয় ইনিংসে করেছিলেন ১০৩৷ লর্ডসে কোনো বাংলাদেশির প্রথম সেঞ্চুরি৷ ১৫ চার আর ২ ছয়ে মাঠ আলো করে ৯৪ বলে শতক হাঁকান তামিম৷ সেঞ্চুরিতে পৌঁছে যাওয়ার পর ড্রেসিংরুমের দিকে দৌড়ে গিয়ে লাফিয়ে উঠলেন শূন্যে৷ জার্সির পিঠে নিজের কাল্পনিক নাম দেখিয়ে অনুচ্চারে বলেছিলেন, ‘এবার আমার নামটা লেখো৷’

খেলাধুলা

সেরা বোলারদের অনার্স বোর্ড

এই বোর্ডটিতে তাঁদের নাম রয়েছে, যাঁরা কোনো টেস্টের এক ইনিংসে ৫টি ইউকেট নিয়েছেন৷

খেলাধুলা

মিডিয়া সেন্টার

এই মিডিয়া সেন্টারের নাম জে.পি. মর্গান মিডিয়া সেন্টার৷ ১৯৯৯ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপ উপলক্ষে এই বিশেষ মিডিয়া সেন্টারটি নির্মাণ করা হয়৷

খেলাধুলা

ভিক্টোরিয়া যুগের প্যাভিলিয়ন

টমাস ভেরাইটি এই প্যাভিলিয়নটি নির্মাণ করেন৷ এখানে দর্শকদের আসনের পেছনেই ক্রিকেটারদের ড্রেসিং রুম৷ ১৮৯০ সালে এটি উন্মোচন করা হয়৷

খেলাধুলা

রানী যেখান থেকে খেলা দেখেন

এই ঘরের জানালা দিয়েই রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ খেলা দেখেন৷ তাঁর জন্য রয়েছে একটি বিশেষ চেয়ার৷

খেলাধুলা

মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি

লর্ডসের ট্যুরের দায়িত্বে থাকেন এমসিসি’র সদস্য৷ আমাদের যিনি ট্যুর গাইড ছিলেন, তিনিও এক সময় ক্রিকেট খেলতেন জাতীয় দলের হয়ে৷ এমসিসি’র সদস্য হতে বিশেষ কিছু যোগ্যতা লাগে৷ তবে অনেক ক্রিকেটার অসাধারণ ক্রিকেটীয় যোগ্যতায় এমসিসি’র সম্মানিত সদস্য হয়েছেন৷ এর মধ্যে রয়েছেন শচীন টেন্ডুলকর, ওয়াসিম আকরাম, কুমার সাঙ্গাকারা, রাহুল দ্রাবিড়, অ্যাডাম গিলক্রিস্ট, শেন ওয়ার্ন, ভিভিয়ান রিচার্ডস, ইনজামাম উল হক ও আরো অনেকে৷

খেলাধুলা

স্যুভেনির শপ

ক্রিকেট বল, জার্সি, খাতা, কলম, সোয়েটার– ক্রিকেটের নানা সরঞ্জাম পাবেন লর্ডস শপে৷ দোকানটি স্টেডিয়ামের একপাশে৷