প্রকাশ্যে বিয়ের প্রস্তাবের ‘অপরাধে’ গ্রেপ্তার

শপিং মলে প্রকাশ্যে এক নারীকে বিয়ের প্রস্তাব দিলেন এক পুরুষ৷ মুহূর্তটি উদযাপন করলেন দু’জনই৷ ঘটনাটি ইরানের৷ সে মুহূর্তের ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে৷

ঘটনাটি ইরানের আরাক শহরের একটি শপিং মলে৷ ফুলের পাঁপড়ি দিয়ে আঁকা হার্ট চিহ্নের ভেতরে দাড়িয়ে এক যুগল৷ ছেলেটি বিয়ের প্রস্তাব দেয় মেয়েটিকে৷ জবাবে সম্মতি জানায় সে৷ এরপর ছেলেটি মেয়েটির আঙুলে আংটি পরিয়ে দেয়৷ দু’জন দু’জনকে আলিঙ্গন করে৷ উপস্থিত দর্শকরা হাততালি দিয়ে তাদের অভিনন্দন জানায়৷ গেল শুক্রবারে এই ভিডিওটি টুইটারে আপলোড করা হলে দ্রুতই তা ছড়িয়ে পড়ে৷ যা এই প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার সময় পর্যন্ত দেখা হয়েছে ৩৫ লাখ বার৷

এই ভিডিওটি দেশটির আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীরও নজরে পড়ে৷ ইসলামি সংস্কৃতির বরখেলাপ করে বিয়ের প্রস্তাব দেয়ার ‘অপরাধে’ তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ পরে অবশ্য দু’জনই জামিনে মুক্ত হয়েছেন৷

এফএস/ডিজি

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

চার মাসব্যাপী প্রদর্শনী

প্রায় আট হাজার বছর আগে খ্রিষ্টপূর্ব ষষ্ঠ সহস্রাব্দে এই এক ঘরের ভবনটি তৈরি করা হয়েছিল৷ জার্মানির বন শহরের এক মিউজিয়ামে প্রাচীন ইরানের বিভিন্ন নিদর্শনের প্রদর্শনী চলছে৷ খ্রিষ্টপূর্ব ষষ্ঠ সহস্রাব্দ থেকে খ্রিষ্টপূর্ব ৫২২ সাল পর্যন্ত ঐ অঞ্চলের মানুষজন কীভাবে বসবাস করতেন, তা প্রদর্শনীতে তুলে ধরা হচ্ছে৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

দ্য টাওয়ার অফ বাবেল

বিশেষজ্ঞরা এই টাওয়ারকে ইতেমেনানকি নামের একটি ‘জিগুরাত’ বা প্রাসাদ-কমপ্লেক্সের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মনে করেন৷ আলেকজান্ডার দি গ্রেট এটি ধ্বংস করেন৷ ‘ইহুদিদের বাইবেল’ বলে পরিচিত ‘তানাখ’-এর প্রথম গ্রন্থ ‘জেনেসিস’-এ এই টাওয়ারের কথা উল্লেখ আছে৷ খ্রিষ্টানদের বাইবেলের প্রথম অংশ ‘ওল্ড টেস্টামেন্ট’-এও আছে এই টাওয়ারের কথা৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

দ্য রয়েল গেম অফ উর

অন্যতম প্রাচীন বোর্ড গেম হচ্ছে ‘ব্যাকগ্যামন’৷ বন শহরের প্রদর্শনীতে সোপস্টোন দিয়ে তৈরি কয়েকটি ব্যাকগ্যামন বোর্ডও দেখানো হচ্ছে৷ এগুলোতে সাপ আর পাখির নকশা রয়েছে৷ খ্রিষ্টপূর্ব তৃতীয় সহস্রাব্দে পশ্চিম এশিয়ায় ‘দ্য রয়েল গেম অফ উর’ খেলা হতো৷ ‘গেম অফ ২০ স্কয়্যার’ নামে পরিচিত খেলাটি আজও জনপ্রিয়৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

পাঁচ হাজার বছর আগের

ক্লোরাইট দিয়ে তৈরি এই পাত্রটি খ্রিষ্টপূর্ব তৃতীয় সহস্রাব্দের৷ ইরানের জিরফট শহরের সমতল ভূমি থেকে এটি উদ্ধার করা হয়েছে৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

দক্ষতার পরিচয়

সেই সময়কার ধনি ব্যক্তিরা স্বর্ণখচিত এই ধরণের (ছবি) পাত্রে ওয়াইন পান করতেন৷ এসব পাত্রের নকশা ও কারুকাজ দেখলে তখনকার মানুষদের ব্যবহারিক ও প্রযুক্তি বিষয়ক দক্ষতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

রাজকন্যাদের সমাধিতে

এসব স্বর্ণালংকার পাওয়া গেছে দুজন এলামাইট রাজকন্যার সমাধিতে৷ পারস্য উপসাগরের কাছে অবস্থিত ইরানের জুবাজি গ্রামে ২০০৭ সালে এগুলো পাওয়া যায়৷ সমাধিতে স্বর্ণালংকার ছাড়াও খাবার ও ধর্মীয় বিষয়াদিও দিয়ে দেয়া হতো বলে জানা যায়৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

রাজার প্রাসাদ

খ্রিষ্টপূর্ব ১২৭৫ থেকে ১২৪০ পর্যন্ত রাজত্ব করা রাজা উনতাশ-নাপিরিশা শোঘা জানবিল শহরে বাস করতেন৷ তিনটি উঁচু দেয়াল দিয়ে শহরটি ঘেরা ছিল৷ ঐ স্থানে হাজার হাজার ইট পাওয়া যাওয়ায় বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, শহরের আকার বাড়ানোর হয়ত পরিকল্পনা ছিল৷

ইরান: সভ্যতার এক সূতিকাগার

পৃথিবীতেই যেন স্বর্গ

প্রদর্শনীর একটি জায়গায় ছোট আকারে ‘পার্সিয়ান গার্ডেন’ তৈরি করা হয়েছে৷ ইউনেস্কোর ঐতিহ্যের একটি অংশ হচ্ছে এই বাগান৷ পার্সিয়ান গার্ডেন মানেই হচ্ছে মাঝখানে থাকবে পানির ফোয়ারা আর পাশে ফুলের বাগান৷ সঙ্গে থাকবে বসার জায়গা, যেখান থেকে দর্শকরা সৌন্দর্য্য উপভোগ করবেন৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

আমাদের অনুসরণ করুন