প্রাণিহত্যা ছাড়াই মাংস

ভিডিও দেখুন 03:27
এখন লাইভ
03:27 মিনিট
27.06.2016

একেই বলে হয়ত নিরামিষ মাংস!

প্রাণিহত্যা না করেই যদি মাংস খাওয়া যেত? খাদ্য সমস্যা ছাড়াও অর্থনীতি ও পরিবেশের জন্যও সেটা বিশাল পদক্ষেপ হতে পারতো৷ নেদারল্যান্ডস-এর এক বিজ্ঞানী ঠিক সেই অসম্ভবকেই সম্ভব করে তুলছেন৷

এই হ্যামবার্গারের মাংস এখনো আসল গরু থেকেই আসছে৷ মার্ক পস্ট-এর পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ভবিষ্যতে আর এমনটা হবে না৷ তিনি মাংস উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে চান৷ প্রাণী থেকে নয়, ভবিষ্যতে ল্যাবেই মাংস তৈরি হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘এর ফলে কার্বন ফুটপ্রিন্ট কমবে – যেটা ভালো কথা৷ অর্থাৎ এটা পরিবেশের জন্য ভালো এবং উৎপাদনের জন্য অনেক কম উপকরণের প্রয়োজন হবে৷ ফলে কম সম্পদ দিয়ে মাংস উৎপাদন বাড়ানো যাবে, গোটা বিশ্বের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা যাবে৷''

নেদারল্যান্ডসের মাসত্রিখট শহরে পস্ট তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নের কাজ শুরু করে দিয়েছেন৷ আসলে তিনি একজন চিকিৎসক৷ হৃদযন্ত্র ও শিরা-ধমনীর রোগ নিয়ে তিনি কাজ করেন৷

২০০৪ সাল থেকে গরুর পেশির কোষ থেকে মাংস ‘ব্রিডিং'-এর আইডিয়া নিয়ে কাজ করছেন তিনি৷ এক টুকরো স্টেক বা জীবন্ত গরু থেকেই তিনি ও তাঁর টিম স্টেম সেল নিয়েছেন৷ গরু জবাইও করতে হয় নি৷ সামান্য কয়েকটি কোষই যথেষ্ট৷ গবেষকরা তা দিয়ে ১০ টনেরও বেশি মাংস তৈরি করতে পারেন৷

প্রতিদিন মাংস

জার্মানদের খাবারের তালিকায় প্রায় প্রতিদিনই মাংস থাকা চাই৷ মাংস রান্না বা সেদ্ধ অবস্থায়, এছাড়া সসেজ, সালামি, হ্যাম – কোনো না কোনোভাবে তাঁদের খাবার টেবিলে থাকে মাংস৷ তবে অতিরিক্ত মাংস খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয় এবং এতে নানা সমস্যা দেখা যায়, সে কথা জেনেও তাঁরা মাংস পছন্দ করেন৷

সপ্তাহে ৬০০ গ্রাম মাংস

একজন প্রাপ্তবয়স্ক জার্মান গড়ে দিনে ১৫০ গ্রাম মাংস খান, অর্থাৎ সপ্তাহে যা ১০০০ গ্রামেরও বেশি৷ অথচ ডাক্তাদের মতে, একজন মানুষ সপ্তাহে ৬০০ গ্রাম মাংস খেতে পারেন এবং এর বেশি খাওয়া একেবারেই উচিত নয় যদি সে মাংস ‘রেড মিট’ হয়৷ গরু, ছাগল, শূকর, ভেড়া এবং ঘোড়ার মাংসকে ‘রেডমিট’ বলা হয়৷

ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়

ডাক্তারদের মতে, কেউ দিনে ১০০ গ্রামের বেশি ‘রেডমিট’ খেলে তাঁর হৃদরোগের ঝুঁকি এবং পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি বেড়ে যায়৷ সে তুলনায় সাদা মাংস, অর্থাৎ মুরগি বা পাখির মাংস খেলে ঝুঁকি অনেক কম৷

পরিমিত পরিমাণ

মাংসতে রয়েছে প্রোটিন, আয়রন এবং ভিটামিন ‘বি’৷ জার্মানির পট্সডাম রেব্র্যুক-এর খাদ্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ড.গিজেলা ওলিয়াস বলেন, রেডমিট হৃদরোগ এবং পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায় ঠিকই৷ তবে মাংসের তৈরি সসেজ কিন্তু এই ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় আরো বেশি৷

প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মিটকাটার

জার্মান মাংসের দোকানের কর্মীরা প্রায় সকলেই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত৷ এখানে যে কোনো জায়গায় কাজ করতে গেলে সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ থাকতে হয় – তা সে মাংস কাটার কাজ হোক, অথবা অন্য কোনো কাজ৷

গ্রিল মাংস

আগুনে পোড়ানো বা গ্রিল করা রসালো মাংস দেখতে যেমন লোভনীয়, তেমন খেতেও দারুণ মজা৷ তাই গ্রীষ্মকালে জার্মানরা প্রায়ই গ্রিল পার্টির আয়োজন করেন, যেখানে প্রচুর পরিমাণে মাংস খাওয়া হয়৷

আরো গ্রিল

নানাভাবে বিভিন্ন পশুর বিভিন্ন অংশের মাংস গ্রিল করা হয়৷ তবে জার্মানরা বেশিরভাগই গ্রিল করেন শূকরের মাংস৷ এসব লোভনীয় গ্রিল দেখে কারো কি মনে থাকার কথা যে, একজন মানুষের দিনে মাত্র ১০০ গ্রাম মাংস খাওয়া উচিত?

দামে সস্তা

গরু বা খাসির মাংসের তুলনায় শূকরের মাংস দামের দিক দিয়ে অনেক সস্তা৷ আর সেজন্যই হয়ত শূকরের মাংস জার্মানিতে বেশি খাওয়া হয়ে থাকে৷ এবং সেটা হয়ে থাকে নানাভাবেই!

পাউরুটির সাথেও মাংস

জার্মানরা সকালের নাস্তা বা রাতে রুটির সাথেও মাংসের সসেজ বা মাংসের স্লাইস খান৷ এছাড়া, বিভিন্ন দোকানে, ক্যাফেতে নানা ধরনের রুটির মধ্যে ‘স্যান্ডউইচ’ আকারে মাংস ভরে খাবারও চল আছে জার্মানিতে৷

ড্যোনার কাবাব

জার্মানিতে অনেক তুর্কি রেস্তোরাঁ আছে এবং এসব রেস্তোরাঁর বেশিরভাগ খাবারই মাংস দিয়ে তৈরি৷ বিশেষ করে ‘ড্যোনার কাবাব’ তরুণদের কাছে বেশ প্রিয়৷ এটা একরকম পাতলা রুটির মধ্যে সবজি এবং গ্রিল করা মাংস দিয়ে তৈরি করে হয়৷ বলা বাহুল্য, জার্মানিতে ৪০ লাখ মুসলমানের বাস, যাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই এসেছেন তুরস্ক থেকে৷

হালাল মাংস

জার্মানিতে তুর্কি দোকানগুলোতে হালাল মাংসও পাওয়া যায়৷ সেসব দোকানে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা মুসলমানসহ জার্মানরাও মাংস কেনেন৷

ডাক্তারদের মতে, কেউ দিনে ১০০ গ্রামের বেশি ‘রেডমিট’ খেলে তাঁর হৃদরোগের ঝুঁকি এবং পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি বেড়ে যায়৷ সে তুলনায় সাদা মাংস, অর্থাৎ মুরগি বা পাখির মাংস খেলে ঝুঁকি অনেক কম৷

আগুনে পোড়ানো বা গ্রিল করা রসালো মাংস দেখতে যেমন লোভনীয়, তেমন খেতেও দারুণ মজা৷ তাই গ্রীষ্মকালে জার্মানরা প্রায়ই গ্রিল পার্টির আয়োজন করেন, যেখানে প্রচুর পরিমাণে মাংস খাওয়া হয়৷

জার্মানরা সকালের নাস্তা বা রাতে রুটির সাথেও মাংসের সসেজ বা মাংসের স্লাইস খান৷ এছাড়া, বিভিন্ন দোকানে, ক্যাফেতে নানা ধরনের রুটির মধ্যে ‘স্যান্ডউইচ’ আকারে মাংস ভরে খাবারও চল আছে জার্মানিতে৷

এই হ্যামবার্গারের মাংস এখনো আসল গরু থেকেই আসছে৷ মার্ক পস্ট-এর পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ভবিষ্যতে আর এমনটা হবে না৷ তিনি মাংস উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে চান৷ প্রাণী থেকে নয়, ভবিষ্যতে ল্যাবেই মাংস তৈরি হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘এর ফলে কার্বন ফুটপ্রিন্ট কমবে – যেটা ভালো কথা৷ অর্থাৎ এটা পরিবেশের জন্য ভালো এবং উৎপাদনের জন্য অনেক কম উপকরণের প্রয়োজন হবে৷ ফলে কম সম্পদ দিয়ে মাংস উৎপাদন বাড়ানো যাবে, গোটা বিশ্বের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা যাবে৷''

নেদারল্যান্ডসের মাসত্রিখট শহরে পস্ট তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নের কাজ শুরু করে দিয়েছেন৷ আসলে তিনি একজন চিকিৎসক৷ হৃদযন্ত্র ও শিরা-ধমনীর রোগ নিয়ে তিনি কাজ করেন৷

২০০৪ সাল থেকে গরুর পেশির কোষ থেকে মাংস ‘ব্রিডিং'-এর আইডিয়া নিয়ে কাজ করছেন তিনি৷ এক টুকরো স্টেক বা জীবন্ত গরু থেকেই তিনি ও তাঁর টিম স্টেম সেল নিয়েছেন৷ গরু জবাইও করতে হয় নি৷ সামান্য কয়েকটি কোষই যথেষ্ট৷ গবেষকরা তা দিয়ে ১০ টনেরও বেশি মাংস তৈরি করতে পারেন৷

প্রতিদিন মাংস

জার্মানদের খাবারের তালিকায় প্রায় প্রতিদিনই মাংস থাকা চাই৷ মাংস রান্না বা সেদ্ধ অবস্থায়, এছাড়া সসেজ, সালামি, হ্যাম – কোনো না কোনোভাবে তাঁদের খাবার টেবিলে থাকে মাংস৷ তবে অতিরিক্ত মাংস খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয় এবং এতে নানা সমস্যা দেখা যায়, সে কথা জেনেও তাঁরা মাংস পছন্দ করেন৷

সপ্তাহে ৬০০ গ্রাম মাংস

একজন প্রাপ্তবয়স্ক জার্মান গড়ে দিনে ১৫০ গ্রাম মাংস খান, অর্থাৎ সপ্তাহে যা ১০০০ গ্রামেরও বেশি৷ অথচ ডাক্তাদের মতে, একজন মানুষ সপ্তাহে ৬০০ গ্রাম মাংস খেতে পারেন এবং এর বেশি খাওয়া একেবারেই উচিত নয় যদি সে মাংস ‘রেড মিট’ হয়৷ গরু, ছাগল, শূকর, ভেড়া এবং ঘোড়ার মাংসকে ‘রেডমিট’ বলা হয়৷

ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়

ডাক্তারদের মতে, কেউ দিনে ১০০ গ্রামের বেশি ‘রেডমিট’ খেলে তাঁর হৃদরোগের ঝুঁকি এবং পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি বেড়ে যায়৷ সে তুলনায় সাদা মাংস, অর্থাৎ মুরগি বা পাখির মাংস খেলে ঝুঁকি অনেক কম৷

পরিমিত পরিমাণ

মাংসতে রয়েছে প্রোটিন, আয়রন এবং ভিটামিন ‘বি’৷ জার্মানির পট্সডাম রেব্র্যুক-এর খাদ্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ড.গিজেলা ওলিয়াস বলেন, রেডমিট হৃদরোগ এবং পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায় ঠিকই৷ তবে মাংসের তৈরি সসেজ কিন্তু এই ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয় আরো বেশি৷

প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মিটকাটার

জার্মান মাংসের দোকানের কর্মীরা প্রায় সকলেই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত৷ এখানে যে কোনো জায়গায় কাজ করতে গেলে সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ থাকতে হয় – তা সে মাংস কাটার কাজ হোক, অথবা অন্য কোনো কাজ৷

গ্রিল মাংস

আগুনে পোড়ানো বা গ্রিল করা রসালো মাংস দেখতে যেমন লোভনীয়, তেমন খেতেও দারুণ মজা৷ তাই গ্রীষ্মকালে জার্মানরা প্রায়ই গ্রিল পার্টির আয়োজন করেন, যেখানে প্রচুর পরিমাণে মাংস খাওয়া হয়৷

আরো গ্রিল

নানাভাবে বিভিন্ন পশুর বিভিন্ন অংশের মাংস গ্রিল করা হয়৷ তবে জার্মানরা বেশিরভাগই গ্রিল করেন শূকরের মাংস৷ এসব লোভনীয় গ্রিল দেখে কারো কি মনে থাকার কথা যে, একজন মানুষের দিনে মাত্র ১০০ গ্রাম মাংস খাওয়া উচিত?

দামে সস্তা

গরু বা খাসির মাংসের তুলনায় শূকরের মাংস দামের দিক দিয়ে অনেক সস্তা৷ আর সেজন্যই হয়ত শূকরের মাংস জার্মানিতে বেশি খাওয়া হয়ে থাকে৷ এবং সেটা হয়ে থাকে নানাভাবেই!

পাউরুটির সাথেও মাংস

জার্মানরা সকালের নাস্তা বা রাতে রুটির সাথেও মাংসের সসেজ বা মাংসের স্লাইস খান৷ এছাড়া, বিভিন্ন দোকানে, ক্যাফেতে নানা ধরনের রুটির মধ্যে ‘স্যান্ডউইচ’ আকারে মাংস ভরে খাবারও চল আছে জার্মানিতে৷

ড্যোনার কাবাব

জার্মানিতে অনেক তুর্কি রেস্তোরাঁ আছে এবং এসব রেস্তোরাঁর বেশিরভাগ খাবারই মাংস দিয়ে তৈরি৷ বিশেষ করে ‘ড্যোনার কাবাব’ তরুণদের কাছে বেশ প্রিয়৷ এটা একরকম পাতলা রুটির মধ্যে সবজি এবং গ্রিল করা মাংস দিয়ে তৈরি করে হয়৷ বলা বাহুল্য, জার্মানিতে ৪০ লাখ মুসলমানের বাস, যাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই এসেছেন তুরস্ক থেকে৷

হালাল মাংস

জার্মানিতে তুর্কি দোকানগুলোতে হালাল মাংসও পাওয়া যায়৷ সেসব দোকানে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা মুসলমানসহ জার্মানরাও মাংস কেনেন৷

দেখতে সাধারণ কিমার মতো৷ তবে ২০১৩ সালে তা দিয়ে প্রথম বার্গার তৈরি হয় – তবে বিক্রির জন্য নয়৷ করলে দাম পড়তো আড়াই লাখ ইউরো৷ মার্ক পস্ট বলেন, ‘‘আমি শুধু দেখাতে চেয়েছিলাম, যে এটা করা সম্ভব, প্রযুক্তি কোনো অন্তরায় নয়৷ তাছাড়া অনেক কারণেই এটা করা উচিত৷''

তবে স্বাদ এখনো আসল মাংসের মতো হচ্ছে না৷ কৃত্রিম মাংস খেতে খুব শুকনা লাগে, তাতে ফ্যাট একেবারেই নেই৷ পস্ট অবশ্যই স্বাদে উন্নতি আনতে চান৷ তাই তিনি আরও কোষ ব্রিড করছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ফ্যাট টিস্যু তৈরির একটি নমুনা এখানে আছে৷ এই স্প্যাগেটি ফ্যাট সেল দিয়ে তৈরি৷''মার্ক মনে করেন, সাত বছর পর রেস্তোরাঁয় কৃত্রিম মাংসের বার্গার পাওয়া যাবে৷ স্টেক এবং মুরগির মতো অন্যান্য মাংসও এভাবে তৈরি হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার ব্যক্তিগত স্বপ্ন হলো, কোনো এক সময়ে – ধরুন ২০, ৩০ বা ৪০ বছরে আমরা আর প্রাণিজাত মাংস খাবো না৷ তখন পিছন ফিরে তাকালে এই সময়কে বর্বরদের যুগ মনে হতে পারে, যারা প্রাণিহত্যা করত এবং মাংসের চাহিদা মেটাতে প্রাণীদের ব্যবহার করতো৷''

গোটা বিশ্বে মাংসের চাহিদা আরও বাড়তে থাকলে মার্ক পস্ট-এর প্রত্যাশার অনেক আগেই ল্যাবে তৈরি মাংস বাজারে আসতে পারে৷ পরিবেশের জন্য সেটা হবে এক বড় সুখবর৷