বর্জ্যের ঢাকা থেকে বর্জ্য রপ্তানি!

গরুর শিং থেকে শুরু করে হাড়, খুর, লেজ, ভুঁড়ি, বিশেষ অঙ্গ ইত্যাদি এখন রপ্তানি হয়৷ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর হিসেবে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে এই খাত থেকে আয় হয়েছে ১৪০ কোটি টাকা৷

ব্যবসায়ীরা নিজ উদ্যোগে এটি সম্ভব করেছেন৷ তাঁরা নিজেরাই বাজারের কথা জেনেছেন৷ আর সেখান থেকেই গরুর এ সব অংশ সঠিকভাবে প্রসেসিং, সংরক্ষণ ও রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পথ খুঁজে বের করেছেন৷

আপনি কী ভাবছেন?

এখানে ক্লিক করুন ও আলোচনায় যোগ দিন

গরুর বর্জ্য ছাড়াও ঢাকা শহরে নানা ধরনের বর্জ্য রিসাইকেল করা হয়৷ বিশেষ করে প্লাষ্টিক বর্জ্য নিয়ে কাজ করে এমন অনেক কারখানা আছে৷ এর ওপর নির্ভর করে অনেক পরিবার টিকে আছে৷ ঢাকার বাইরে রান্নার কাজে মানুষের জৈবিক বর্জ্য দিয়ে উৎপাদিত বায়োগ্যাস ব্যবহার করা হয়৷ গবাদিপশু ও হাস মুরগির বিষ্ঠায় ক্ষুদ্র আকারের বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পও চালু আছে ব্যক্তিগত পর্যায়ে৷

অডিও শুনুন 05:33
এখন লাইভ
05:33 মিনিট
বিষয় | 21.12.2016

‘‘কোন বর্জ্য ডাম্পিং করা যাবে আর কোনটা যাবে না সেটা জানা খুব ...

সাধারণভাবে বর্জ্যের উৎস হিসেবে তিনটি ক্ষেত্রকে বিবেচনায় নেয়া হয়: 

১. গৃহ বর্জ্য

২. গৃহের বাইরে প্রতিষ্ঠান বা শিল্প প্রতিষ্ঠানের বর্জ্য ও

৩. মেডিকেল বর্জ্য

গুণগত বিবেচনায় এই বর্জ্য মোটা দাগে দু'ধরনের:

১. তরল (লিকুইউ) ও

২. কঠিন (সলিড)

কী পরিমাণ বর্জ্য?

বাংলাদেশে বছরে শহরগুলোতে বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ ধরা হয় ২২.৪ মিলিয়ন টন অথবা বছরে মাথাপিছু বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ ১৫০ কেজি৷ ২০২৫ সাল নাগাদ প্রতিদিন বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াবে ৪৭,০৬৪ টন৷

দেশের মোট বর্জ্যের ৩৭ ভাগ উৎপাদিত হয় রাজধানী ঢাকায়৷ অথচ সেখানে বর্জ্যের কোনো পরিকল্পিত ব্যবহার নেই৷ এখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বলতে বোঝায় বর্জ্য সংগ্রহ করে তা আবর্জনার স্তূপে পাঠিয়ে দেয়া৷ ইউএনএফপিএ-র মতে, ঢাকা যে সর্বাধিক দূষিত শহরের একটি, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার দূর্বলতা এর অন্যতম কারণ৷

বিজ্ঞান

বিলিকিস আদেবিয়ি-আবিওলা

যুক্তরাষ্ট্রে এমবিএ করার পর আইবিএম-এ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে পাঁচ বছর কাজ করার পর নিজ দেশ নাইজেরিয়ায় গিয়ে বর্জ্য নিয়ে ব্যবসা করছেন৷ দেশটির সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যা অধ্যুষিত শহর লাগসের ময়লা নিয়ে ব্যবসা করছেন৷ কোম্পানির নাম ‘উইসাইকেলার্স’৷ তাদেরকে আবর্জনা দেয়ার মাধ্যমে স্থানীয়রা ‘উপহার’ পেয়ে থাকেন৷ আর আবিওলার কোম্পানি ঐ আবর্জনা থেকে বিভিন্ন পণ্য তৈরি করে৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

থাটো গাটহানিয়া ও রেয়া এনগোয়ানে

দক্ষিণ আফ্রিকার এই দুই তরুণী প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে স্কুল ব্যাগ তৈরি করেন৷ দরিদ্র শিক্ষার্থীদের এগুলো দেয়া হয়৷ এ সব ব্যাগে সোলার প্যানেল বসানো আছে৷ ফলে শিক্ষার্থীরা হেঁটে স্কুলে যাওয়া-আসার ফলে প্যানেলগুলো যে চার্জ পায় তা দিয়ে রাতের বেলায় আলো জ্বলে৷ ফলে মোমবাতি না জ্বালিয়ে শিশুরা পড়তে পারে৷ ছবিতে একেবারে ডানে রেয়া আর বাম থেকে তিন নম্বরে থাটোকে দেখা যাচ্ছে৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

অ্যান্ড্রু মুপুয়া

মাত্র ১৬ বছর বয়সে স্কুলে পড়ার সময় বাবা-মা দু’জনই যখন চাকরি হারিয়ে ফেলেন তখন অ্যান্ড্রু কাগজের ব্যাগ তৈরির ব্যবসা শুরু করেন৷ পুঁজি জোগাড় করতে ৭০ কেজি প্লাস্টিক বোতল বিক্রি ও শিক্ষকের কাছ থেকে টাকা ধার নেন তিনি৷ ব্যাগ তৈরি শিখতে ইন্টারনেট আর ভিডিওর সাহায্য নেন তিনি৷ বর্তমানে ২৪ বছর বয়সি অ্যান্ড্রুর অধীনে ২০ জন কাজ করছেন৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

লরনা রুট্ট

ব্যাংকের চাকরি ছেড়ে কেনিয়ার নাইরোবিতে প্লাস্টিক রিসাইক্লিং ফ্যাক্টরি গড়ে তোলেন তিনি৷ এসব প্লাস্টিক দিয়ে তাঁর কোম্পানি বেড়া তৈরি করে৷ ঘরবাড়ি সহ সংরক্ষিত এলাকায় বেষ্টনী দিতে তাঁর বেড়া ব্যবহৃত হয়৷ কাঠের বদলে এ সব বেড়া খুব দ্রুতই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

বেথেলহেম টিলাহুন আলেমু

আফ্রিকার ফুটওয়্যার ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে ইথিওপিয়ার ‘সোলরেবেলস’ বিশ্বে অনেক জনপ্রিয়৷ আলেমু’-র উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত কোম্পানিটি গাড়ির পুরনো টায়ার, ফেলে দেয়া জামাকাপড় ব্যবহার করে জুতা তৈরি করে৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

বাংলাদেশে রিসাইক্লিং ব্যবসা

প্লাস্টিক বোতল রিসাইকেল করে এমন অনেক কারখানা গড়ে উঠেছে ঢাকায়৷ তাদের হয়ে পরিত্যক্ত বোতল সংগ্রহ করছেন অনেকে৷ এতে তাদের দারিদ্র্যতা দূর হচ্ছে৷ বোতলগুলো মেশিন দিয়ে টুকরো করে প্লাস্টিক পণ্য বানায় এমন কোম্পানির কাছে বিক্রি করা হয়৷ কিছু অংশ বিদেশে, বিশেষ করে চীনেও রপ্তানি হয়ে থাকে৷ আরও জানতে উপরে (+) চিহ্নে ক্লিক করুন৷

বিজ্ঞান

ওয়েস্ট কনসার্ন

বেশ কয়েক বছর ধরে ঢাকার বর্জ্য থেকে কমপোস্ট সার তৈরি করছে ওয়েস্ট কনসার্ন নামের একটি কোম্পানি৷ তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখা যায়, ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটি এক লক্ষ মেট্রিক টনের বেশি বর্জ্য রিসাইকেল করেছে৷ বিস্তারিত জানতে উপরে ‘+’ চিহ্নে ক্লিক করুন৷

রাজধানী ঢাকায় মোট বর্জ্যের ৭০ ভাগই সলিড বর্জ্য বলে মনে করা হয়৷ বর্জ্য ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন৷ তরল বা লিকুইড বর্জ্য ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে ঢাকা ওয়াসা৷ ঢাকায় সর্বমোট ২,৫০০ কিলোমিটার খোলা ড্রেন এবং ৪,০০০ কিলোমিটার ভূগর্ভস্থ ড্রেনেজ সিস্টেম রয়েছে৷ এ কাজ করার জন্য ৬৫ কিলোমিটার খোলা খাল ও বক্স কালভার্ট আছে৷ তরল বর্জ্য সাধারণত এসব ড্রেন ও বক্স কালভার্টের মাধ্যমে অপসারিত হয়৷

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনে দিনে গড়ে বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ ছয় হাজার টনের বেশি নয় বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে৷ বিশ্বব্যাংকের সমীক্ষাও বলছে ঢাকায় প্রতিদিন গড়ে সাত হাজার মেট্রিক টনের মতো বর্জ্য উৎপাদিত হয়৷ ঢাকায় মাথাপিছু প্রতিদিন বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ ৫৬০ গ্রাম৷

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ঢাকায় প্রতিদিন ৬,১১০ টন গৃহস্থালি বর্জ্য উৎপাদিত হচ্ছে৷ এর মধ্যে ঢাকার প্রত্যেক নাগরিক ৩৭৭ গ্রাম বর্জ্য উৎপাদন করে, যার ৯৭ শতাংশই জৈব পদার্থ৷ বাকি তিন শতাংশ বর্জ্য অজৈব৷ মেডিকেল এবং মেডিকেল সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে ১,০৫০ টন ও রাস্তাঘাট থেকে চারশ মেট্রিক টন বর্জ্য তৈরি হয়৷

বলা হয়ে থাকে ঢাকায় উৎপাদিত বর্জ্যের ৭৬ ভাগই রিসাইকেল যোগ্য৷ তবে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পুরোটাই আস্তাকুড়ে ফেলে দেয়া হয়৷ ১০ বছর আগে দৈনিক ৩,২০০ টন বর্জ্য উৎপাদনের বিপরীতে ৪৩ শতাংশ হারে অপসারিত হতো ১,৩৭৬ টন৷ আর এখন দৈনিক ৬,১১০ টন বর্জ্য উৎপাদনের বিপরীতে অপসারিত হয় ৪,৫৮২ টন বর্জ্য৷ বৃষ্টিতে পানি জমলে কঠিন এবং তরল বর্জ্য একাকার হয়ে যায়৷ গত ১০ বছরে ঢাকায় বর্জ্য উৎপাদন বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ৷

সমাজ

কন্টেইনার আছে, তবুও...

ঢাকা শহরের মালিবাগের তালতলা এলাকায় সড়কের অর্ধেকজুড়ে ফেলা হয় আবর্জনা৷ ময়লা ফেলার কন্টেইনার থাকলেও, এলাকার বাসিন্দারা ময়লা ফেলেন বাইরে, সড়কের উপরেই৷

সমাজ

দুর্গন্ধে অতিষ্ট পথচারীরা

খোলা জায়গায় ময়লা ফেলার কারণে দুর্গন্ধে কষ্ট করে চলতে হয় পথাচারীদের৷

সমাজ

ক’দিনেই লোপাট ডাস্টবিন

ঢাকাকে পরিচ্ছন্ন রাখার লক্ষ্যে এ বছরের শুরুর দিকে উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন পুরো শহরজুড়ে সড়কের পাশে পাশে স্থাপন করেছিল কয়েক হাজার ডাস্টবিন৷ কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই এ সব ডাস্টবিনের বড় একটি অংশ চুরি হয়ে যায়, পড়ে থাকে শুধু তার স্ট্যান্ডগুলো৷

সমাজ

পথচারীদের চলাফেরায় ব্যাঘাত

চুরি যাওয়া ডাস্টবিনের সেসব স্ট্যান্ড এখন পথচারীদের চলাফেরায় ব্যাঘাত ঘটায় অনেক জায়গাতেই৷

সমাজ

ডাস্টবিন থাকলেই বা কী?

সিটি কর্পোরেশনের বসানো সড়কের পাশের যেসব ডাস্টবিন এখনো টিকে আছে, এটি তার একটি৷ ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ এলাকার এ ডাস্টবিন খালি থাকা সত্ত্বেও ময়লা ফেলা হয়েছে বাইরে৷

সমাজ

সড়কজুড়ে ফেলা হয়েছে ময়লা

বিপরীত চিত্র ঢাকার মিরপুর এলাকায়৷ নিয়মিত ডাস্টবিন পরিষ্কার না করায় বাধ্য হয়ে এলাকাবাসী ময়লা ফেলেছেন ডাস্টবিনের বাইরে, সড়কজুড়ে৷

সমাজ

ভাঙাচোরা কন্টেইনার

অনেক এলাকাতে রাখা হয় ময়লা ফেলার ভাঙাচোরা কন্টেইনার৷ ফলে ময়লা বাইরে ছড়িয়ে পড়ে সহজেই৷

সমাজ

উড়াল সড়কের নীচে আবর্জনা

ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকার কিছু বাসিন্দ ময়লা ফেলেন মেয়র হানিফ উড়াল সড়কের নীচের সড়ক বিভাজনের ওপর৷

সমাজ

অসহনীয় এক পরিবেশ

মেয়র হানিফ উড়াল সড়কের নীচে ফেলা ময়লা-আবর্জনা জ্বালানো হয় দিনে-দুপুরে৷ ফলে এলাকার পরিবেশ অসহনীয় হয়ে ওঠে৷

সমাজ

বুড়িগঙ্গাই যখন ডাস্টবিন!

বুড়িগঙ্গার দক্ষিণ তীরে আগানগর এলাকার বাসিন্দরা ময়লা ফেলেন সরাসরি বুড়িগঙ্গা নদীতেই৷

সমাজ

বাদামতলীর অপচনশীল প্লাস্টিক

পুরনো ঢাকার সবচেয়ে বড় ফলের পাইকারি বাজার বাদামতলী৷ সেখানকার ব্যবসায়ীরা নানান অপচনশীল প্লাস্টিক জাতীয় বর্জ্য ফেলেন সরাসরি বুড়িগঙ্গা নদীতে৷

সমাজ

খোলা জায়গা মানেই আবর্জনার স্তূপ

ঢাকার মিরপুর বাংলা কলেজের বিপরীত পাশে ময়লা ফেলার কোনো কন্টেইনার না থাকায় ঐ এলাকার বাসিন্দারা ময়লা ফেলেন কড়কের ওপরে খোলা জায়গাতেই৷

সমাজ

সড়ক বিভাজনের ওপরই...

হাতিরপুল এলাকার বাসিন্দাদের অনেকেই ময়লা ফেলেন সড়ক বিভাজনের ওপর৷

সমাজ

অভিজাত এলাকাও বাদ নেই

ঢাকার অভিজাত আবাসিক এলাকার একটি মহাখালী ডিওএইচএস-এর প্রবেশমুখে ময়লা আবর্জনার স্তূপ৷

সমাজ

মেডিক্যাল কলেজের বর্জ্য

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নানান ঝুঁকিপূর্ণ বর্জ্য ফেলা হয় সামনের ডাস্টবিনেই৷

সমাজ

হরহামেশাই যে দৃশ্য দেখা যায়

দিনের বেলা বর্জ্য অপসারণের নিয়ম না থাকলেও হরহামেশাই সে দৃশ্য দেখা যায় ঢাকা শহরে৷

সমাজ

সড়কজুড়ে ময়লার কন্টেইনার!

সড়কের সিংহভাগ দখল করে ময়লা ফেলার কন্টেইনার রাখার এ দৃশ্য ঢাকার মিরপুর এলাকার৷

সমাজ

আধুনিক মানের ডাস্টবিন

ঢাকার হাতিরঝিলে বসানো হয়েছে চীন থেকে আনা আধুনিক মানের ডাস্টবিন৷ এ সব ডাস্টবিনে পুনরায় ব্যবহারযোগ্য ও অন্যান্য বর্জ্য ফেলার আলাদা কন্টেইনার আছে৷

সমাজ

ময়লার ভাগাড়

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোশেনের সব ময়লা এনে ফেলা হয় ডেমরার ডাম্পিং ইয়ার্ডে৷ উত্তর সিটি কর্পোশেনেরও এরকম একটি বড় ময়লার ভাগাড় আছে আমিন বাজার এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে৷

বর্জ্য থেকে পণ্য উৎপাদনের চিন্তা

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক কমোডর বখতিয়ার আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের কাছে কঠিন বর্জ্যের হিসাব আছে৷ আমরা বর্জ্য সংগ্রহ করে সরাসরি ডাম্পিং-এ পাঠিয়ে দিই৷ আমাদের ডেমরা এবং মাতুয়াইলে দু'টি ডাম্পিং স্টেশন আছে৷ বর্জ্য সংগ্রহ এবং ডাম্পিং-এর জন্য ৮ হাজার কর্মী আছে৷ আছে যানবাহন৷ আপাতত এর বাইরে আমাদের কিছু করণীয় নেই৷''

তিনি জানান, ‘‘বর্জ্য পরিবহণের জন্য আমরা বর্জ্য অনুযায়ী খোলা বা কাভার্ড ট্রাক ব্যবহার করি৷ মেডিকেল বর্জ্য খুবই সতর্কতার সঙ্গে পরিবহন করা হয়৷ আর ডাম্পিং এলাকাগুলোর আশপাশে কোনো লোকালয় নেই৷ তাই এগুলো জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি তৈরি করতে পারেনা৷''

তবে বখতিয়ার আহমেদ বলেন, ‘‘আমরা পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি বর্জ্য দিয়ে গ্যাস, বিদ্যুৎ এবং সার উৎপাদন করব৷ তখন বর্জ্য আর বর্জ্য থাকবে না৷ বর্জ্য হবে কাঁচামাল৷ তবে এইসব প্রকল্প করতে অনেক অর্থ এবং জমির প্রয়োজন৷ আশা করি আমরা সফল হবো৷''

তিনি জানান, ‘‘ব্যক্তিগত উদ্যোগে কেউ কেউ বর্জ্য রিসাইকেল করছে৷ কেউ কেউ সেটাকে সরাসরি পণ্যে রূপান্তর করে রপ্তানি করছে৷ সিটি কর্পোরেশন এরকম কিছু প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ শুরু করবে, আলোচনা চলছে৷'' ওয়েস্ট কনসার্ন নামে একটি এনজিও এই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও রিসাইকেলিং নিয়ে কাজ করছে

অডিও শুনুন 04:13
এখন লাইভ
04:13 মিনিট
বিষয় | 21.12.2016

‘‘আমাদের কাছে কঠিন বর্জ্যের হিসাব আছে’’

মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘কোন বর্জ্য ডাম্পিং করা যাবে আর কোনটা যাবে না সেটা জানা খুব জরুরি৷ কিছু কিছু মেডিকেল বর্জ্য আছে যা সরাসরি পুড়িয়ে ফেলতে হবে, ডাম্পিং করা যাবে না৷ আমাদের এখানে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আসলে তেমন আধুনিক নয়৷ সিটি কর্পোরেশন সম্প্রতি মেডিকেল বর্জ্য নিয়ে প্রিজম নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ শুরু করেছে৷ এই প্রতিষ্ঠানটি ক্ষতিকর মেডিকেল বর্জ্য চিহ্নিত করে দিচ্ছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সেই অর্থে না থাকায় এখন বর্জ্যের মাধ্যমেই সংক্রামক ও অসংক্রামক দু'ধরনের রোগই ছড়াচ্ছে৷ বর্জ্যে থাকা নানা ধরনের জীবাণু পানির সঙ্গে মিশে, শুকিয়ে বাতাসে ভেসে এবং মাটি ও চারপাশকে দূষিত করে তা আবার ছড়িয়ে পড়ে৷''

ডাঃ লেলিন বলেন, ‘‘অথচ সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বর্জ্য মানুষের জন্য ঝুঁকি বাড়াবে না, এমনকি অর্থনীতির জন্য নতুন দরজা খুলে দেবে৷'' একই ধরনের কথা বলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক বখতিয়ার আহমেদ৷ ‘‘উদ্যোগ নিতে পারলে সময় আসবে যখন বর্জ্য হবে পণ্য৷ কেউ বেঁচবেন, কেউ কিনবেন৷ তখন সেটা আর ফেলনা থাকবে না'', বলেন তিনি৷

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷