বর্ষবরণের রাতে যৌন নিগ্রহের শিকার বারোশ'র বেশি নারী

জার্মানিতে গত বর্ষবরণের রাতে যৌন নিগ্রহের শিকার হয়েছিলেন বারোশ'রও বেশি নারী৷ দু'হাজারের বেশি মানুষ এ সব ঘটনায় জড়িত থাকলেও, এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে মাত্র ১২০ জন৷

শুধু কোলন নয়, বর্ষবরণের রাতে জার্মানির হামবুর্গ, ডুসেলডর্ফ, স্টুটগার্ট এবং আরো কয়েকটি শহরে মেয়েরা যৌন সম্পর্কিত অপরাধের শিকার হন৷ জার্মানির ‘স্যুডডয়চে সাইটুং' পত্রিকা অপরাধ পুলিশ এজেন্সি (বিকেএ)-র বরাতে এই তথ্য প্রকাশ করেছে৷

এ সব তথ্য নিয়ে কাজ করা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দু'হাজারের মতো পুরুষ এ সব অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল৷ কিন্তু তাদের মধ্য থেকে শনাক্ত হয়েছেন মাত্র ১২০ ব্যক্তি৷ কিছুক্ষেত্রে দলবেধে অপরাধ সংগঠিত হয়েছিল৷ ফলে মোট অপরাধের সংখ্যা নয়শ' হলেও সম্পৃক্তদের সংখ্যা অনেক বেশি৷

বিএকেএ-র তথ্য অনুযায়ী, অধিকাংশ সন্দেহভাজনরা উত্তর আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছেন৷ অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্তদের মধ্যে কিছু মানুষ সিরিয়া থেকে এসেছেন বলে ধারণা করা হয়৷

Köln Prozess Silvester-Nacht Sexuelle Nötigung

দু’হাজার সন্দেহভাজনের মধ্যে এ পর্যন্ত মাত্র ১২০ জন চিহ্নিত

জার্মান পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, অর্ধেকের বেশি সন্দেহভাজন অপরাধী জার্মানিতে এসেছেন গত এক বছরের মধ্যে৷ বিএকেএ-র প্রেসিডেন্ট হলগার ম্যুন্শ জানান, এই বিষয়টি বিবেচনা করলে গতবছরে শরণার্থীদের ব্যাপক আগমণের সঙ্গে বর্ষবরণের ঘটনার একটি সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া যায়৷

তবে হলগার ম্যুন্শ জানিয়েছেন, এ সব অপরাধ আগে থেকে পরিকল্পিত কিংবা সংঘবদ্ধ – এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি৷ যদিও চলতি বছরের শুরুতে জার্মানির বিচারমন্ত্রী মনে করেছিলেন, বর্ষবরণের রাতের ঘটনাগুলো পূর্ব পরিকল্পিত হতেও পারে৷

এদিকে, বর্ষবরণের রাতে মেয়েদের উপর যৌন নিগ্রহের ঘটনার পর জার্মানিতে ধর্ষণের শাস্তি সংক্রান্ত আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে৷ এখন আরো সহজেই ধর্ষণ বিষয়ক অভিযোগ আনা যাবে৷

ভিডিও দেখুন 03:32
এখন লাইভ
03:32 মিনিট
Focus on Europe | 03.02.2016

জার্মানিতে উত্তর আফ্রিকানরা চাপের মুখে

সংশ্লিষ্ট বিষয়