বাংলাদেশি বহিষ্কারের মামলায় হেরে এক ধনাঢ্যের ওপর নাখোশ তিনি

তিনি হচ্ছেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অর্বান৷ আর ধনী ব্যক্তিটি হচ্ছেন বিশ্বের ২৯তম শীর্ষ ধনী জর্জ সরস৷ হাঙ্গেরিতে জন্ম নেওয়া সরস দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পরিবারের সঙ্গে পালিয়ে ব্রিটেন হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান৷

ডানপন্থি ও পপুলিস্ট নেতা অর্বানের সরকার গত সপ্তাহে ‘ইউরোপিয়ান কোর্ট অফ হিউম্যান রাইটস’-এ একটি মামলায় হেরে যায়৷ হাঙ্গেরি সরকারের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছিল ‘হাঙ্গেরিয়ান হেলসিংকি কমিটি’ নামের একটি মানবাধিকার সংগঠন৷ তাদের অভিযোগ ছিল, হাঙ্গেরির সরকার অবৈধভাবে দুই বাংলাদেশিকে আটকে রেখে পরে বহিষ্কার করেছে৷

এই রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী অর্বান এক রেডিও সাক্ষাৎকারে এর জন্য সরাসরি জর্জ সরসকে দায়ী করেন৷ কারণ অভিযোগকারী ‘হেলসিংকি কমিটি’ সরসের দাতব্য সংস্থা ‘ওপেন সোসাইটি ফাউন্ডেশন’ বা ওএসএফ-এর কাছ থেকে তহবিল গ্রহণ করে৷ রেডিও সাক্ষাৎকারে অর্বান বলেন, ‘‘এটি (রায়) মানব পাচারকারী, ব্রাসেলসের কর্মকর্তা আর হাঙ্গেরিতে কাজ করা বিদেশি অর্থে পরিচালিত একটি সংস্থার কারসাজি৷'' তবে পরের কথায় সরাসরি সরসের নামই উল্লেখ করেন তিনি৷ ‘‘স্পষ্ট করে বললে জর্জ সরস এই তহবিল দিয়েছেন৷’’

কে এই সরস?

Bulgarien George Soros, Gründer der Organisation

জর্জ সরস

১৯৩০ সালে হাঙ্গেরিতে এক ইহুদি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি৷ নকল নথিপত্রের সহায়তা নিয়ে জার্মানির নাৎসি সরকারের হাত থেকে রেহাই পেয়েছিল তাঁর পরিবার৷ এরপর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটেনে চলে যান তাঁরা৷ সেখান থেকে যুক্তরাষ্ট্র৷ ফোর্বস বলছে, সরসের বর্তমান সম্পদের পরিমাণ ২৫ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার৷ ওএসএফ-এর ওয়েবসাইট বলছে, দাতব্য খাতে সরস এখন পর্যন্ত ১২ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি খরচ করেছেন৷ একশটিরও বেশি দেশে কাজ করা ছোট এনজিও ও দাতব্য সংস্থাকে অর্থ সহায়তা দিয়ে থাকে ওএসএফ৷ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, মুক্তচিন্তা, মানবাধিকার, আইনের শাসন নিয়ে কাজ করা এনজিওদের তহবিল দেয় সরসের প্রতিষ্ঠান৷

নাখোশ পূর্ব ও মধ্য ইউরোপের দেশ

সরসের কাজে সন্তুষ্ট নয় হাঙ্গেরি সহ ম্যাসেডোনিয়া, রোমানিয়া ও পোল্যান্ডের সরকার৷ ম্যাসেডোনিয়ার ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নিকোলা গ্রুয়েভস্কি তাঁর পরিণতির জন্য সরসকে দায়ী করেন৷ গত জানুয়ারিতে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘‘সরস ম্যাসেডোনিয়ার এনজিওগুলোকে আধুনিক সামরিক বাহিনীতে পরিণত করেন৷ এই কাজ তিনি শুধু ম্যাসেডোনিয়ায় নয়, অন্যান্য দেশেও করছেন৷’’

রোমানিয়ার শাসক দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটের এক নেতা লিভিয়ু ড্রাগনি বলেন, সরসের ফাউন্ডেশন ১৯৯০ সাল থেকে রোমানিয়ার শত্রুদের অর্থ সহায়তা দিয়ে আসছে৷

সমাজ

যুদ্ধ এবং দারিদ্র্যতা থেকে পালানো

২০১৪ সালের শেষের দিকে সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধ চতুর্থ বছরে পা দেয়ার প্রাক্কালে এবং দেশটির উত্তরাঞ্চলে তথাকথিত ‘ইসলামিট স্টেট’-এর বিস্তার ঘটার পর সিরীয়দের দেশত্যাগের হার আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যায়৷ একইসময়ে সহিংসতা এবং দারিদ্র্যতা থেকে বাঁচতে ইরাক, আফগানিস্তান, ইরিত্রিয়া, সোমালিয়া, নিগার এবং কসভোর অনেক মানুষ ইউরোপমুখী হন৷

সমাজ

সীমান্তের ওপারে আশ্রয় খোঁজা

সিরীয় শরণার্থীদের অধিকাংশই ২০১১ সাল থেকে সে দেশের সীমান্ত সংলগ্ন তুরস্ক, লেবানন এবং জর্ডানে আশ্রয় নিতে শুরু করেন৷ কিন্তু ২০১৫ সাল নাগাদ সেসব দেশের শরণার্থী শিবিরগুলো পূর্ণ হয়ে যায় এবং সেখানকার বাসিন্দারা সন্তানদের শিক্ষা দিতে না পারায় এবং কাজ না পাওয়ায় এক পর্যায়ে আরো দূরে কোথাও যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন৷

সমাজ

পায়ে হেঁটে লম্বা পথ পাড়ি

২০১৫ সালে ১৫ লাখের মতো শরণার্থী ‘বলকান রুট’ ধরে পায়ে হেঁটে গ্রিস থেকে পশ্চিম ইউরোপে চলে আসেন৷ সেসময় ইউরোপের শেঙেন চুক্তি, যার কারণে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত অধিকাংশ দেশের মধ্যে ভিসা ছাড়াই চলাচাল সম্ভব, নিয়ে প্রশ্ন ওঠে৷ কেননা শরণার্থীরা গ্রিস থেকে ধীরে ধীরে ইউরোপের অপেক্ষাকৃত ধনী রাষ্ট্রগুলোর দিকে আগাতে থাকেন৷

সমাজ

সমুদ্র পাড়ির উন্মত্ত চেষ্টা

সেসময় হাজার হাজার শরণার্থী ‘ওভারক্রাউডেড’ নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে শুরু করেন৷ লিবিয়া থেকে ইটালি অভিমুখী বিপজ্জনক সেই যাত্রায় অংশ নিতে গিয়ে ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে সাগরে ডুবে যায় অন্তত আটশ’ মানুষ৷ আর বছর শেষে ভূমধ্যসাগরে ডুবে মরা শরণার্থীর সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় চার হাজার৷

সমাজ

সীমান্তে চাপ

ইউরোপের বহির্সীমান্তে শরণার্থীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় কয়েকটি রাষ্ট্র চাপে পড়ে যায়৷ হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া, ম্যাসিডোনিয়া এবং অস্ট্রিয়া এক পর্যায়ে সীমান্তে বেড়া দিয়ে দেয়৷ শুধু তাই নয়, সেসময় শরণার্থী আইন কঠোর করা হয় এবং শেঙেনভুক্ত কয়েকটি দেশ সাময়িকভাবে সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ করা শুরু করে৷

সমাজ

বন্ধ দরজা খুলে দেয়া

জার্মান চ্যান্সেল আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সমালোচকরা মনে করেন, তাঁর ‘ওপেন-ডোর’ শরণার্থী নীতির কারণে বিপজ্জনক পথ পেরিয়ে অনেক শরণার্থীই ইউরোপে আসতে উৎসাহ পেয়েছেন৷ এক পর্যায়ে অবশ্য অস্ট্রিয়ার সঙ্গে সীমান্ত পথ নিয়ন্ত্রণ শুরু করে জার্মানিও৷

সমাজ

তুরস্কের সঙ্গে চুক্তি

২০১৬ সালের শুরুতে ইইউ এবং তুরস্কের মধ্যে একটি চুক্তি হয়৷ এই চুক্তির আওতায় গ্রিসে আসা শরণার্থীদের আবারো তুরস্কে ফিরিয়ে নেয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়৷ তবে মানবাধিকার সংগঠনগুলো এই চুক্তির বিরোধিতা করে৷ নভেম্বর মাসে অবশ্য তুরস্কের ইইউ-তে প্রবেশের সম্ভাব্যতা নিয়ে আলোচনা স্থগিত ঘোষণার পর, সেই চুক্তি আবারো নড়বড়ে হয়ে গেছে৷

সমাজ

পরিস্থিতি বদলের কোনো লক্ষণ নেই

ইউরোপজুড়ে অভিবাসীবিরোধী মানসিকতা বাড়তে থাকলেও সরকারগুলো সম্মিলিতভাবে শরণার্থী সংকট মোকাবিলার কোনো সঠিক পন্থা এখনো খুঁজে পাননি৷ কোটা করে শরণার্থীদের ইইউ-ভুক্ত বিভিন্ন রাষ্ট্রে ছড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা কার্যত ব্যর্থ হয়েছে৷ মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে চলমান সহিংসতার ইতি ঘটার কোনো লক্ষণও নেই৷ ওদিকে, সমুদ্র পাড়ি দিতে গিয়ে শরণার্থীদের মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে৷

তবে সরসের প্রতিষ্ঠান ওএসএফ-এর প্রেসিডেন্ট ক্রিস স্টোন রয়টার্সকে বলেন, ‘‘আপনি গণতন্ত্র রপ্তানি করতে পারেন না৷ এটা শুধু আমদানি করা যায়, এবং তারপর স্থানীয় পরিবেশের সঙ্গে সেটাকে খাপ খাইয়ে নিতে হয়৷’’

শরণার্থীদের সহায়তা

২০১৫ সালে ইউরোপে যখন শরণার্থীদের ঢল নেমেছিল সেই সময় এক বিবৃতিতে শরণার্থীদের কল্যাণে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছিল ওএসএফ৷ বিবৃতিতে শরণার্থীদের নিয়ে হাঙ্গেরির সরকারের পদক্ষেপের সমালোচনা করা হয়েছিল৷ ‘‘হাঙ্গেরিতে যে সংকট দেখা দিয়েছে তা ইউরোপের মূল্যবোধ রক্ষায় ব়্যাডিক্যাল পপুলিস্ট সরকার থাকার বিপদের কথা মনে করিয়ে দেয়,’’ সেই সময় বিবৃতিতে বলেছিল ওএসএফ৷ উল্লেখ্য, শরণার্থীরা যেন ইউরোপে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য হাঙ্গেরি সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করেছিল

বাংলাদেশি বহিষ্কারের ঘটনায় ইউরোপীয় কোর্টে হারার পর হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী অর্বান সরসের উপর নাখোশ হওয়ার পাশাপাশি একটি নতুন আইনের প্রস্তাব করেছেন৷ বিদেশি সহায়তা নিয়ে হাঙ্গেরিতে কাজ করা সব এনজিও-র নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি৷ পূর্ব ইউরোপের মধ্যে হাঙ্গেরিই প্রথম দেশ হিসেবে এনজিওদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার উদ্যোগ নিল৷

ঠিক এইরকম আইন বছর দুয়েক আগে রাশিয়াতে পাস হয়েছে৷ এছাড়া এনজিওদের বিরুদ্ধে পুটিন সরকারের নেয়া কঠোর পদক্ষেপের কারণে সেই সময় রাশিয়া থেকে সরসের প্রতিষ্ঠানকে বের হয়ে যেতে হয়েছিল৷

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স)